নন্দলালের দেওয়াল-ছবি

নন্দলালের দেওয়াল-ছবি

তুর্কি-নাচন নাচেন নন্দবাবু
চতুর্দিকে ছেলেরা সব কাবু।
তুলির গুত্তা ডাইনে মারেন, মারেন কভু বাঁয়ে
ঘাড় বাঁকিয়ে, গোঁফ পাকিয়ে, দাঁড়িয়ে এক পায়ে।
অষ্টপ্রহর চর্কিবাজি কীর্তি-মন্দিরে
ছেলেরা সব নন্দলালকে ঘিরে
 মাছি যেমন পাকা আমের চতুর্দিকে ফিরে।

হচ্ছে ‘নটীর পূজা’
 রানির সঙ্গে হল নটীর পূজা নিয়ে যুঝা।
বরাঙ্গনা ভিক্ষু নটীর নৃত্যচ্ছ ধূপ–
তুলির আগুন পরশ পেয়ে নিল আবার সেই অপরূপ রূপ
–বহু যুগের পরে–
চৈত্যভবন ভরে।

গানের আসর পারা
–সন্ধ্যাকাশে ফোটে যেন তারার পরে তারা
 হেথায় সেতার কাঁপে ভীরু, হোথায় বীণার মীড়
 আধফোটা গুঞ্জরণের ভিড়
 তার পিছনে মৃদু করুণ-বাঁশি
 গুমগুমিয়ে থেকে থেকে উঠছে ভেসে খোল-মৃদঙ্গের হাসি।

এ যেন সুন্দরী–
প্রথমেতে নীলাম্বরী পরি,
সর্ব অঙ্গে জড়ায় যেন অলঙ্কারের জাল;–
 তিলোত্তমা গড়েন নন্দলাল।
 চিত্রপটে কিন্তু নটী ফেলে অলঙ্কার
শুনি যেন বলে চিত্রকার–
 ‘তথাগতের দয়ায় যেন তেমনি ঘুচে তোমা সবার সকল অহঙ্কার।’

 সাদামাটার রক্তবিহীন ঠোঁটে
লজ্জা সোহাগ ফোটে,
পাংশু দেয়াল আনন্দে লাল নন্দলালের লালে
 তুলির চুমো যেই না খেলো গালে।(১)

————

১. শ্ৰীযুক্ত নন্দলাল বসুর বরদারাজ্যের ‘কীর্তি মন্দিরে’ রবীন্দ্রনাথের ‘নটীর পূজা’র ফ্রেস্কো ছবি আঁকিবার সময় লেখক কর্তৃক এক বান্ধবীকে আসিয়া দেখিবার জন্য নিমন্ত্রণপত্র।

বুকমার্ক করে রাখুন 1