এযাস্য পরমাগতি

এযাস্য পরমাগতি

প্রাচ্যভূমি থেকে শ্বেতের প্রাধান্য কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে যেমন রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক নব নব আন্দোলনের সূত্রপাত হচ্ছে, ঠিক তেমনি সংস্কৃতির ভূমিতেও নতুন নতুন চাষ-আবাদ আরম্ভ হয়েছে। চীনদেশ থেকে আরম্ভ করে ইন্দোনেশিয়া ভারত-পাকিস্তান হয়ে আফগানিস্তান, ইরান, আরব ভূমি পেরিয়ে একদিকে মরক্কো পর্যন্ত এবং অন্যদিকে তুর্কি ইস্তক। সবগুলোর খবর রাখা অসম্ভব- এতগুলো ভাষা শেখার শক্তি এবং সময় আছে কার?– তবু মোটামুটিভাবে তার খানিকটা জরিপ করা যায়।

তিনটে বড় বড় বিভাগ করে প্রাথমিক জরিপ করা যায়। চীন, ভারত, পাকিস্তান এবং আরব ভূমি। ইন্দোনেশিয়া, ইরান এবং তুর্কিকেও সম্পূর্ণ বাদ দেওয়া যায় না, কিন্তু উপস্থিত সেগুলোকে হিসাবে নিলে আলোচনাটা একদম কজার বাইরে চলে যাবে।

এ তিন ভূখণ্ডেই দেখা যাচ্ছে; সংস্কৃতির বাজারে দেশি-বিদেশি দুই মালই চলছে। দর্শন, বিজ্ঞানের তুলনায় সাহিত্যই উপস্থিত এ তিন ভূখণ্ডে সংস্কৃতির প্রধান বাহন এবং সাহিত্যে সবচেয়ে বেশি যে বস্তু লেখা এবং পড়া হচ্ছে সে হল উপন্যাস এবং ছোটগল্প। এ দুই জিনিসই প্রাচ্যদেশীয় নিজস্ব ঐতিহ্যগত সম্পদ নয়; ইংরেজ, ফরাসি, ওলন্দাজের কাছ থেকে শেখা। চিত্র-ভাস্কর্য-স্থাপত্যের বেলাও তাই- সেজান, রেনওয়া, রাঁ এপস্টাইনের প্রভাব কি কাইরো কি কলিকাতা সর্বত্রই দেখা যায়। ইয়োরোপীয় দর্শন এবং বিশুদ্ধ বিজ্ঞান নিয়ে সবচেয়ে বেশি মাথা ঘামাচ্ছে ভারত–কিছুটা কাইরো, তেলাভিভ এবং বাইরুত। একমাত্র ওস্তাদি সঙ্গীতের বেলা বলা যেতে পারে, ইয়োরোপীয় প্রভাব এর ওপর কোনও চাপই দিতে পারেনি।

কিন্তু এরকম পদ গুনে গুনে ফিরিস্তি বানাতে গেলে একখানা ছোটখাটো বিশ্বকোষ লিখতে হয়। সেটা এড়াতে হলে অন্য পন্থা অবলম্বন করতে হয়।

বিদগ্ধ সংস্কৃতি নির্মিত হয় বিশেষ মনোবৃত্তি হৃদয়াবেগ দ্বারা। তার কিছুটা হদিস পেলে মোটামুটিভাবে বলতে পারা যায়, বিদগ্ধ সংস্কৃতি চলছে কোন পথে।

শেতের প্রভাব কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রথম যে আন্দোলন এ তিন ভূখণ্ডে গা-ঝাড়া দিয়ে উঠেছে, তাকে ‘ছুৎবাই’, ‘বিশুদ্ধীকরণ’ বা ‘সত্যযুগে প্রত্যাবর্তন’ নাম দেওয়া যেতে পারে এর প্রধান ধর্ম, বৈদেশিক সর্বপ্রকার প্রভাব বর্জন করে বিশেষ কোনও প্রাচীন ঐতিহ্যকে নতুন করে চাঙ্গা করে ভোলা। এই ভারতবর্ষেই কেউ চায় বৈদিক যুগে ফিরে যেতে (ক্রিয়াকাণ্ডে যাদের ভক্তি অত্যধিক), কেউ চায় উপনিষদের যুগ জাগাতে (দার্শনিক মনোবৃত্তিওয়ালারা), কেউ-বা গুপ্ত যুগ (সাহিত্য-কলায় যাদের মোহ), কেউ বা ভক্তিযুগে (বৈষ্ণবজন) ডুব মারতে চান। কেউ বলেন, রবারের জুতো পরে কাঁচা শাকসবজি খাও, কেউ বলেন, ছেলেমেয়েরা বড় বেশি মেশামিশি করছে, তাদের সিনেমা যেতে বারণ করে দাও। পাকিস্তানে এ আন্দোলন ‘ইসলামি রাষ্ট্রে’র নামে শক্তিসঞ্চয় করতে চায়। কাইরোর আজহর বিশ্ববিদ্যালয়ের কট্টর মৌলানারা এ দলেরই শামিল। ইন্দোনেশিয়ায় এদেরই নাম দার-উল-ইসলাম সম্প্রদায়। ইবন-ই-সউদ গোষ্ঠীর ওয়াহহাবি আন্দোলন এই মনোবৃত্তি নিয়েই আরম্ভ হয়। এ দলের মান্দারিনরা চীনে কিন্তু বিশেষ পাত্তা পাচ্ছেন না।

প্রমাণ করতে পারব না কিন্তু আমার ব্যক্তিগত বিশ্বাস, এ আন্দোলন শেষ পর্যন্ত বানচাল হবে। তার প্রধান কারণ, কোনও দেশেরই যুবক সম্প্রদায় এ আন্দোলনে যোগ দিতে রাজি হচ্ছে না।

দ্বিতীয় আন্দোলন ঠিক এর উল্টো। এর চাঁইরা বলেন, ‘প্রাচ্য প্রাচ্য করে তো ইংরেজ ফরাসি ওলন্দাজের হাতে মার খেলে বিস্তর। প্রাচ্য ঐতিহ্য সবপ্রকার প্রগতির ‘এনিমি নাম্বার ওয়ান’। আমাদের সর্বপ্রকার বিদগ্ধ-সংস্কৃতি প্রচেষ্টা যদি আধুনিকতম, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক প্রগতির সঙ্গে বিজড়িত না হয়, তার কোনও প্রকারেরই ভবিষ্যৎ নেই। এ আন্দোলনের বড়কর্তাদের অধিকাংশই ক্যুনিস্ট ভায়ারা। এঁদের বিশ্বাস সংস্কৃতি-বৈদগ্ধের রংচং সম্পূর্ণ নির্ভর করে বিত্তোৎপাদন এবং ধন-বণ্টন পদ্ধতির ওপর এবং যেহেতু প্রাচ্যভূমিও একদিন মার্কসের অলঙ্ নিয়মানুযায়ী প্রলেতারিয়ারাজে পরিণত হবে, সেইহেতু প্রাচ্যেরও সংস্কৃতি গড়ে উঠবে গণনৃত্য, গণনাট্য, গণসাহিত্যের ওপর। তারই ঐতিহ্যগত সর্বপ্রকার বিদগ্ধ-সংস্কৃতি ‘বুর্জুয়া’- সুতরাং বর্জনীয়।

ভারত-পাকিস্তানে এ আন্দোলন সুবিধে করে উঠতে পারছে না, কিন্তু বিশেষ করে তুর্কিতে এবং কিছুটা কাইরো-বাইরুতে এর প্রভাব স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। কম্যুনিস্ট ছাড়াও বহু যুবক-যুবতী এ আন্দোলনে যোগ দিয়েছে। তার অন্যতম কারণ অবশ্য এই যে প্রথম আন্দোলনে যোগ দিতে হলে ক্ল্যাসিস্ পড়তে হয়, সঙ্গীতের শখ থাকলে দশ বছর সা রে গা মা করতে হয়, কুরান-হাদিস কণ্ঠস্থ করতে হয়– তাতে বায়ানাক্কা বিস্তর। এত হাঙ্গামা পোয়ায় কে? তাই দ্বিতীয়টাই সই।

এ দুই আন্দোলনের ভবিষ্যৎ ঠিক করবেন ট্রুমান স্তালিন। আমাদের মাথা ঘামাতে হবে না।

তৃতীয় আন্দোলন প্রাচ্যভূমিতে আরম্ভ করেন রাজা রামমোহন। তাঁর প্রচেষ্টা বাঙালি পাঠককে নতুন করে বলতে হবে না। প্রাচ্যভূমির ঐতিহ্যের সঙ্গে পাশ্চাত্য সংস্কৃতির মূল্যবান সম্পদ মিলিয়ে নিয়ে তিনি নব নব সৃষ্টির স্বপ্ন দেখেছিলেন। রবীন্দ্রনাথ-অরবিন্দ তাদের স্বপ্নকে বৈদগ্ধ্যের বহু ক্ষেত্রে মূর্তমান করেছেন। কাইরোয় তাহা হোসেন, বাইরুতের খলিল গিবরানি, ঢাকার বাঙালি সাহিত্যিক সম্প্রদায়, লাহোরে ইকবালের শিষ্যমণ্ডলী এবং ইন্দোনেশিয়ার সুতান শহরির এ সম্প্রদায়ভুক্ত।

বিশেষ করে সুতান শহরিরের নাম ভক্তিভরে স্মরণ করতে হয়। জাভা সুমাত্রা বালির অনাড়ম্বর জীবনযাপন এবং তার সঙ্গে সঙ্গে যে সদানন্দ কৃত্রিমতা-বিবর্জিত সংস্কৃতি ইন্দোনেশিয়ায় এতদিন ধরে গড়ে উঠেছে, ওলন্দাজ বর্বরতা যাকে বিনষ্ট করতে পারেনি সেই সংস্কৃতির সঙ্গে শহরির চান উত্তম উত্তম ইয়োরোপীয় চিন্তাবৃত্তি, অনুভবসম্পদ যোগ দিয়ে নতুন সভ্যতাসংস্কৃতি গড়ে তুলতে। এবং সে চাওয়ার পিছনে রয়েছে শহরিরের নিরঙ্কুশ আত্মত্যাগ আর কঠোরতম সাধনা। বিশ্বসংসারের সব আন্দোলন সব প্রচেষ্টার সঙ্গে তিনি নিজেকে অহরহ সংযুক্ত রেখে সেই পন্থার অনুসন্ধান করছেন, যে পন্থা শুধু যে ইন্দোনেশিয়ার চিন্তাবিকাশ কলাপ্রকাশ মূর্তমান করবে তাই নয়, তাবৎ প্রাচ্যভূমি তার থেকে অনুপ্রেরণা আহরণ করতে পারবে।

এ পন্থা অন্বেষণে নিজেকে অহরহ সজাগ রাখতে হয়- গীতার সংযমী, যিনি সদাজাগ্রত তিনিই এ মার্গের অধিকারী। শহরির এ মার্গের প্রকৃষ্টতম উদাহরণ। এযাস্য পরমাগতি ॥

বুকমার্ক করে রাখুন 0