ডুয়েল
23 Topics

সবজান্তার শাস্তি

সবজান্তার শাস্তি

বর্তমান কাহিনির পটভূমি হচ্ছে একটি মালবাহী জাহাজ এবং তরঙ্গ-গর্জিত উত্তাল সমুদ্র।

সমুদ্রযাত্রাকে ভিত্তি করে যে-কাহিনি এখানে পরিবেশিত হচ্ছে, সেটি লিখেছেন একজন খ্যাতনামা ব্রিটিশ ক্যাপ্টেন ও-ব্রায়ান।

ক্যাপ্টেন সাহেব বলছেন ঘটনাটি বর্ণে বর্ণে সত্য। আমরা তার কথা বিশ্বাস করতে পারি। ও-ব্রায়ানের মতো দায়িত্বপূর্ণ কার্যে নিযুক্ত মানুষ ছাপার অক্ষরে গুল মারবেন বলে মনে হয় না। ওই সামুদ্রিক নাটকে যারা অংশগ্রহণ করেছিল তাদের মধ্যে অধিকাংশ ব্যক্তি আজও সশরীরে বর্তমান তাই ক্যাপ্টেন তার লেখার মধ্যে আসল নামগুলো বদলে দিয়েছেন।

–তা বদলান, লোকগুলোর সঠিক কুষ্ঠি-ঠিকুজি দিয়ে আমাদের কী দরকার? আমরা গল্প শুনতে পেলেই খুশি।

আচ্ছা, এবার কাহিনি শুরু করছি—

 এক্স জাহাজটা নেহাত ছোটোখাটো নয়, পাকা ২৫০০ টন তার ওজন। ১৯০৫ সালে অক্টোবর মাসে টাকামা অঞ্চলে এসে উক্ত জাহাজের ক্যাপ্টেন কয়েকজন অভিজ্ঞ নাবিকের প্রয়োজন অনুভব করলেন।

লোক নেওয়া হল।

সর্দার খালাসির পদে নিযুক্ত হল যে লোকটি, তার চেহারাটা সত্যি দর্শনীয় বস্তু–

দেহ পেশিবহুল ও দৃঢ়, মুখ পাথরের মতো কঠিন নির্বিকার, কালো চুলে ঘেরা চওড়া কপালের নীচে একজোড়া কালো চোখের উগ্র দৃষ্টিতে রূঢ়তার প্রলেপ।

নাম তার ম।

বয়স প্রায় চল্লিশ।

 ম রূপবান ছিল না। কিন্তু পৌরুষের প্রভাবে ঢাকা পড়েছিল রূপের অভাব। প্রচণ্ড ব্যক্তিত্বের অধিকারী ছিল সে। সাধারণ নাবিকরা তার প্রতি আকৃষ্ট হত, উচ্চপদস্থ কর্মচারীরা তাকে উপেক্ষা দেখাতে সাহস করতেন না। জাহাজের কাজকর্মে তার যথেষ্ট অভিজ্ঞতা ছিল। সে যদি তার কর্তব্য সম্বন্ধে অবহিত থেকে নিজের কাজে মনোনিবেশ করত তাহলে ব্যক্তিগত জীবনে সে নিশ্চয়ই উন্নতি করতে পারত।

কিন্তু ম হচ্ছে সবজান্তা মানুষ!

সব বিষয়েই সে ভালো বোঝে এবং অন্য লোকগুলো কিছুই বোঝে না, এই ছিল তার ধারণা।

এই ধারণা পোষণ করে সে যদি ক্ষান্ত থাকত তবে কোনো অসুবিধা ছিল না, কিন্তু পৃথিবীর যাবতীয় মূর্খকে জ্ঞান দেওয়ার গুরুদায়িত্ব সে পালন করত অসীম নিষ্ঠার সঙ্গে!

এক্স জাহাজের কাজে নিযুক্ত হওয়ার পর আটচল্লিশ ঘণ্টার মধ্যেই সে আবিষ্কার করে ফেলল যে ডেকের সাদা রংটা মোটেই ভালো হয়নি!

মাস্তুলের উজ্জ্বল রংটাও অতিশয় আপত্তিজনক মনে হল, তা ছাড়া অন্যান্য কলকবজার বিন্যাসব্যবস্থাও তার মনঃপূত হল না।

পেনসিল কাগজ হাতে নিয়ে ঘুরে ঘুরে যাবতীয় দোষত্রুটির বিশদ বিবরণ লিখতে লাগল সে। অবিলম্বে এইসব ত্রুটিবিচ্যুতি সংশোধন করা দরকার! ডেকের ওপর দুজন শিক্ষানবিশ সকৌতুকে তার চালচলন লক্ষ করছিল, কিন্তু কোনো মন্তব্য করার সাহস তাদের ছিল না।

ম-র চেহারার মধ্যে ছিল এমন এক বন্য ব্যক্তিত্বের প্রকাশ যে সাধারণ মানুষ চট করে তার আচরণের প্রতিবাদ করতে সাহস পেত না।

কিন্তু জাহাজের প্রধান মেট বা দ্বিতীয় অধ্যক্ষ বি খুব সাধারণ মানুষ ছিল না। সে যখন দেখল বিনা কারণে কতকগুলি পুরোনো দড়ি বাতিল করে ম নামধারী সর্দার-খালাসি নূতন দড়ি ব্যবহার করতে চাইছে তখন সে বাধা দিল–

মাল বাঁধার কাজ পুরানো দড়িতেই চলবে। নতুন দড়ি শুধু গিয়ার আর নোঙর বাঁধার কাজে ব্যবহার করা হয়। ভবিষ্যতে আমার অনুমতি ছাড়া তুমি নতুন দড়িতে হাত দেবে না।

নতুন দড়ির ফাঁসটা হাত থেকে ছুঁড়ে ফেলে উঠে দাঁড়াল সর্দার-খালাসি—

তুমি যদি মনে করে থাক যে কথায় কথায় তোমার কাছে আমি অনুমতি নিতে ছুটব তাহলে তুমি ভুল করেছ।

ম স্থান ত্যাগ করার উপক্রম করলে, কিন্তু তাকে বাধা দিলে বি, একটা কথা শুনে যাও। ভবিষ্যতে আমার সঙ্গে কথা কইতে হলে স্যার বলবে, বুঝেছ?

বিদ্রূপ-জড়িত হাসির সঙ্গে উত্তর এল, বুঝেছি, স্যার!

উইলসন নামে যে শিক্ষানবিশ নাবিকটি সামনে দাঁড়িয়ে ছিল সে সমস্ত ব্যাপারটা লক্ষ করেছিল।

তার সহযোগীকে সে বললে, নতুন সর্দার-খালাসি আর আমাদের প্রধান মেট পরস্পরকে পছন্দ করছে না। একটা গোলমাল বাধবে মনে হচ্ছে।

উইলসনের ধারণা যে ভুল হয়নি, খুব শীঘ্রই তার প্রমাণ পাওয়া গেল।

কয়েকদিন পরের কথা। ঠিক সাড়ে ছয়টার সময়ে সর্দার-খালাসির কেবিনের সামনে এসে দাঁড়াল প্রধান মেট বি–

ওহে সর্দার! কাল রাতে তোমাকে যে হুকুম দিয়েছিলাম আজ সকালেই তুমি সেটা ভুলে গেছ? সকাল ছয়টার মধ্যে আমি লোকজন লাগিয়ে ডেকটাকে পরিষ্কার করে রাখতে বলেছিলাম। এখন সাড়ে ছয়টা বাজে অথচ ডেক আগের মতোই ময়লা হয়ে পড়ে আছে। ওখানে একটিও লোক নেই–ব্যাপারটা কী? কাল রাতের কথা আজ সকালেই ভুলে গেলে? তোমার স্মৃতিশক্তি দিন দিন দুর্বল হয়ে পড়ছে।

ম ধূমপান করছিল।

সে নির্বিকার চিত্তে ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে বললে, আমি কিছুই ভুলিনি। আমার স্মৃতিশক্তি নিয়ে তোমার দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই। আসল কথা হচ্ছে যে ঘুমটা ভালো হলে কাজটাও ভালো হয়। তাই আমি ওদের আরও ঘণ্টা দুই ঘুমানোর অনুমতি দিয়েছি। ঠিক আটটার সময়ে ওরা কাজে লাগবে।

তুমি অনুমতি দিয়েছ? তুমি অনুমতি দেওয়ার কে? ফের যদি তুমি ওপরচালাকি কর তাহলে তোমাকে আমি সর্দার-খালাসির পদ থেকে খারিজ করে দেব।

তুমি আমায় খারিজ করবে?সর্দার-খালাসির চোয়াল শক্ত হয়ে উঠল, ওহে খোকা! যখন তুমি দোলনায় দুলতে দুলতে বোতলের দুধ খাচ্ছ তখন থেকে আমি জাহাজের কাজে লোকজন খাটাচ্ছি, বুঝলে?

ম আরও যেসব কথা বলতে যাচ্ছিল সেগুলো নিশ্চয়ই বি-র পক্ষে খুব সম্মানজনক হত না, কিন্তু বি তাকে আর কথা বলতে দিল না।

সর্দার-খালাসির চোয়ালের উপর সে প্রয়োগ করলে, মুষ্টিবদ্ধ হস্তের নিদারুণ মুষ্টিযোগ!

আচমকা ঘুসি খেয়ে ছিটকে পড়ল ম।

প্রথমে সে হতভম্ব হয়ে গিয়েছিল, তারপর বিস্ময়ের ধাক্কা সামলে সে উঠে দাঁড়াল এবং খেপা ষাঁড়ের মতো গর্জন করে তেড়ে এল প্রতিদ্বন্দ্বীর দিকে।

ম-র শারীরিক শক্তি ছিল বি-র চাইতে অনেক বেশি।

কিন্তু বি পাকা মুষ্টিযোদ্ধা, তার বাঁ-হাতের বজ্রমুষ্টি বারংবার ছোবল মারল প্রতিদ্বন্দ্বীর মুখে।

দেখতে দেখতে ম-র মুখের উপর ফুটে উঠল তপ্ত রক্তধারার বিচিত্র আলপনা।

ডেকের ওপর ততক্ষণে ভিড় জমিয়েছে নাবিকের দল।ম-র রক্তমাখা মুখের অবস্থা দেখে একজন মন্তব্য করলে, সর্দার-খালাসির হয়ে এসেছে।

কিন্তু ম পোড় খাওয়া মানুষ, এত সহজে সে হার মানতে রাজি হল না।

দুই বাহু বিস্তার করে সে বি-কে জড়িয়ে ধরলে এবং চোখের পলক ফেলার আগেই প্রতিদ্বন্দ্বীর দেহটাকে নিক্ষেপ করলে জাহাজের ডেকের ওপর।

একটা লোহার যন্ত্রের গায়ে বি-র মাথাটা সজোরে ঠোক্কর খেল, দারুণ যাতনায় লুপ্ত হয়ে এল তার চেতনা।

আচ্ছন্ন অবস্থায় সে দেখতে লাগল রাশি রাশি সরষে ফুল!

নিজেকে একটু সামলে নিয়ে বি যখন উঠে দাঁড়াল, তখন তার প্রতিদ্বন্দ্বী মুখের রক্ত মুছতে–ব্যস্ত। দুই শত্রু পরস্পরকে জ্বলন্ত দৃষ্টিতে নিরীক্ষণ করলে, তারপর বি বললে, লড়াই শেষ হয়নি। আমরা আবার লড়ব। দুজন সহযোগী আর একজন মধ্যস্থ এখানে থাকবে। যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের মধ্যে একজন লম্বা হয়ে শুয়ে না-পড়বে ততক্ষণ পর্যন্ত লড়াই চলবে রাজি?

কাধ ঝাঁকিয়ে ম বললে, ঠিক আছে।

জাহাজের খালাসিরা মহা উৎসাহে কাজে লেগে গেল। বিকালের মধ্যেই ডেকের ওপর দড়িদড়া লাগিয়ে একটা সুন্দর মুষ্টিযুদ্ধের রিং বা আখড়া বানিয়ে ফেলল তারা।

সবাই প্রস্তুত। এবার লড়াইটা লাগলে হয়। অকস্মাৎ মূর্তিমান বিঘ্নের মতো অকুস্থলে উপস্থিত হলেন জাহাজের ক্যাপ্টেন।

চারদিকে চোখ বুলিয়ে তিনি বিস্মিত কণ্ঠে প্রশ্ন করলেন, কী ব্যাপার? সার্কাস-টার্কাস হবে নাকি?

মেট সমস্ত ব্যাপারটা ক্যাপ্টেনকে বুঝিয়ে বললে।

সব শুনে ক্যাপ্টেন সাহেব একটি বক্তৃতা দিলেন।

সেই দীর্ঘ বক্তৃতার সারমর্ম হচ্ছে যে ঘুসির জোরে যারা মানুষের ভ্রম সংশোধন করতে চায়, তাদের সঙ্গে তিনি একমত হতে পারছেন না এবং তার জাহাজে এই ধরনের বর্বরতা তিনি। বরদাস্ত করবেন না কিছুতেই।

ক্যাপ্টেনের কথার ওপর কথা চলে না। লড়াই বন্ধ হয়ে গেল। কয়েকদিন পরেই জাহাজের উপর হানা দিল প্রবল ঝটিকা। ক্যাপ্টেন ডেকের ওপর ছিলেন, জাহাজের একটা বৃহৎ অংশ ঝড়ের ধাক্কায় ভেঙে পড়ল তার মাথার ওপর এবং ওই ভাঙাচোরা অংশসমেত তার দেহ ছিটকে পড়ল সমুদ্রের জলে।

ক্যাপ্টেনকে আর খুঁজে পাওয়া গেল না। উত্তাল তরঙ্গের বুকে হারিয়ে গেলেন জাহাজের প্রধান অধ্যক্ষ ক্যাপ্টেন জেড।

অন্যান্য খালাসিরা ভয়ে হতবুদ্ধি হয়ে পড়েছিল। প্রধান মেট বি এবং তার দুই সহকারী ভয়ার্ত নাবিকদের মধ্যে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে এনে প্রাণপণে যুদ্ধ করলে ঝড়ের বিরুদ্ধে।

বি-র উপস্থিত বুদ্ধি আর সাহসে সেবার ভরাডুবি থেকে রক্ষা পেল এক্স জাহাজ।

ক্যাপ্টেন তো আগেই মারা গিয়েছিলেন, এখন জাহাজ পরিচালনার ভার নেয় কে?

বি নিজেই এবার পোত-অধ্যক্ষ বা ক্যাপ্টেনের স্থান অধিকার করলে। জাহাজের ভাঙাচোরা অংশগুলি মেরামত করে সে নাবিকদের ডাকল। সমবেত মাঝি-মাল্লাদের উদ্দেশ্য করে সে জানিয়ে দিলে, যদিও পূর্বনির্ধারিত ব্যবস্থা অনুযায়ী জাহাজের গন্তব্যস্থল ছিল পাগেট সাউন্ড নামক স্থান, কিন্তু অবস্থার পরিবর্তন হওয়ায় এক্স জাহাজ এখন সেখানে যাবে না।

জাহাজ যেখান থেকে সাগরে ভেসেছিল আবার সেই বন্দরেই ফিরে যাবে, অর্থাৎ জাহাজের গন্তব্যস্থল এখন পাগেট সাউন্ড নয়–লিভারপুল।

ম হঠাৎ প্রতিবাদ জানিয়ে বললে, মেট-এর সিদ্ধান্ত তার মনঃপূত নয় এবং বি যদি তার সঙ্গীদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে তাহলে সে বুঝবে নাবিকরা কেউ তাকে সমর্থন করছে না।

বি বললে, কারো মতামত জানতে সে এখানে নাবিকদের ডাকেনি।

তার মতামত জানানোর জন্যই সে সকলকে ডেকে পাঠিয়েছিল।

 নাবিকদের ভিতর থেকে একটা মূলাটো জাতীয় বর্ণসংকর উঠে দাঁড়িয়ে বি-কে জানাল যে সে ম-র সঙ্গে একমত। জাহাজ চালানোর অভিজ্ঞতা বি-র নেই, অতএব পরিচালনার ভার ম-কে দেওয়া উচিত।

খোঁচা খাওয়া বাঘের মতো ঘুরে দাঁড়াল বি, বাঃ! ক্যাপ্টেনের মৃত্যুর জন্য তুমিই তো দায়ী, এখন আবার লম্বা বক্তৃতা ঝাড়ছ?

সমবেত নাবিকমণ্ডলী চমকে উঠল–এ আবার কী কথা?

বি আবার বললে, ভেবেছিলুম কিছু বলব না। কিন্তু তুমি যখন মুখ খুলেছ তখন সত্যি কথাটা সবাইকে জানিয়ে দিচ্ছি। জাহাজের চাকা ঘোরানোর ভার ছিল তোমার ওপর–ক্যাপ্টেন দাঁড়িয়ে ছিলেন তোমার পাশে। তুমি যদি চাকা ছেড়ে ভয়ে পালিয়ে না যেতে তাহলে হয়তো ক্যাপ্টেনের মৃত্যু হত না। ভীরু! কাপুরুষ! নিজে দোষ করে আবার বড়ো বড়ো কথা কইতে লজ্জা করে না! হ্যাঁ, তোমার সঙ্গীদের একটা কথা জানিয়ে দেওয়া দরকার–এখন থেকে তুমি দ্বিতীয় শ্রেণির নাবিক, প্রথম শ্রেণির থেকে তোমাকে আমি খারিজ করলুম। এখন তুমি অনেক কম টাকা পাবে আর বন্দরে পৌঁছেই তোমার নামে আমি নালিশ জানাব।

মূলাটো গজগজ করতে করতে চলে গেল।

বি-র সহকারী ব্যাপারটা পছন্দ করলে না।

বর্ণসংকর মূলাটোটা পাকা গুন্ডা, ইতিপূর্বে একটি লোককে সে ছোরা মেরেছিল।

 বি অবশ্য এই ধরনের লোককে পরোয়া করে না।

ছোরাছুরির ভয়ে নিজের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করার মত মেরুদণ্ডহীন মানুষ সে নয়।

কিছুদিন পরে হল আর একটি দুর্ঘটনার সূত্রপাত।

একজন নাবিক হঠাৎ ডেকের ওপর থেকে সমুদ্রের জলে পড়ে গেল। তাকে উদ্ধার করার জন্য নৌকা নামাতে গিয়ে নাবিকরা দেখল, নোঙর তোলার জন্য যে কাষ্ঠ-আধারটা ব্যবহার করা হয় সেটা যথাস্থানে নেই। কোনোরকমে ব্যবস্থা করে লোকটাকে সলিলসমাধি থেকে উদ্ধার করা হল বটে কিন্তু বেশ দেরি হয়ে গেল। ইতিমধ্যে হিংস্র সামুদ্রিক পক্ষীর আক্রমণে লোকটির হাত এবং মুখ হয়ে গেছে ক্ষতবিক্ষত, রক্তাক্ত।

ম বললে, যে লোকটি জলে পড়েছিল তার দুর্দশার জন্য দায়ী বি, কারণ তার আদেশেই ওই নোঙরগুলো খুলে ফেলা হয়েছিল। শুধু ওইটুকু বলে সে চুপ করলে না, তার আশেপাশে সমবেত নাবিক-বন্ধুদের সে বোঝাতে লাগল যে বি মোটেই অধ্যক্ষের দায়িত্ব গ্রহণ করার উপযুক্ত নয়।

ম-র বক্তব্যের মধ্যে যুক্তির অভাব থাকলেও বিদ্রুপের অভাব ছিল না কিছুমাত্র।

বি একটু দূরে চুপ করে দাঁড়িয়ে ছিল।ম-রউচ্চকণ্ঠের মন্তব্যগুলি খুব সহজেই তার শ্রবণপথে প্রবেশ করছিল। সে বুঝল, নাবিকদের উপলক্ষ্য করে ম কথাগুলো তাকেই শোনাতে চাইছে।

বি সামনে এসে ম-কে সম্বোধন করে বললে, শোনো ম, আজ থেকে তুমি আর খালাসিদের সর্দার নও। তোমাকে আমি সর্দারের পদ থেকে খারিজ করে সাধারণ মাল্লার পদে বহাল করলুম। তোমার মাইনেও কমে গেল।

ম-র মুখ রাগে লাল হয়ে উঠল, দুই হাতের মুঠি পাকিয়ে সে চেঁচিয়ে উঠল, আমার কাজ আমি জানি। তুমি আমাকে খারিজ করবার কে? তোমার হুকুম আমি মানতে রাজি নই।

বি-র কণ্ঠস্বরেও জাগল রোষের আভাস, আমার কথা না-শুনলে তোমার হাতে আমি হাতকড়া লাগাব।

সত্যি? হা-হা শব্দে হেসে উঠল ম, একবার চেষ্টা করে দেখো।

বি-র আদেশে তার সহকারী একটা হাতকড়া নিয়ে এল কেবিন থেকে।

একজন মাল্লা হঠাৎ বলে উঠল, ওহে মিস্টার! ম-র সঙ্গে বেশি চালাকি করার চেষ্টা করলে তোমাকে আমরা ছেড়ে দেব না।

বাঃ! বাঃ! ভিড় ঠেলে এগিয়ে এল সেই বর্ণসংকর মূলাটো, চমৎকার! চমৎকার! ভাইসব–আমরা থাকতে ওই খোকাটা আমাদের সর্দারকে অপমান করবে? ডান্ডাগুলো একবার নিয়ে এসো দেখি, বুড়ো খোকাকে ঠান্ডা করার দাওয়াই আমি বাতলে দিচ্ছি।

সাবধান! গর্জে উঠল বি, সাঁৎ করে পকেট থেকে সে টেনে আনল একটা চকচকে রিভলভার, তোমাকে গুলি করে মারলে আমার কোনো শাস্তি হবে না। আইন আমার পক্ষে, সমুদ্রের বুকে জাহাজের ওপর বিদ্রোহের চেষ্টা আইনের চোখে গুরুতর অপরাধ। বিদ্রোহীকে ঊর্ধ্বতন কর্মচারীর গুলি করার অধিকার আছে। অতএব সাবধান!

সত্যি কথা। মুলাটোর উচ্চকণ্ঠ তৎক্ষণাৎ নীরব হল।

বি-র সহকারী ততক্ষণে হাতকড়া নিয়ে এসেছে।

হাতকড়াটা সহকারীর হাত থেকে নিয়ে বি সেটাকে ডেকের ওপর ছুঁড়ে দিলে, নাও, এবার ওই হতভাগা মর হাতে তোমরা লোহার বালা পরিয়ে দাও চটপট।

সামনে এগিয়ে এল এক জোয়ান খালাসি, বি-র চোখের ওপর চোখ রেখে সে বললে, হ্যাঁ, চটপট করছি। পরক্ষণেই এক লাথি মেরে সে হাতকড়াটাকে পাঠিয়ে দিলে জাহাজের নর্দমার মধ্যে! প্রকাশ্য বিদ্রোহ!

বি তার চওড়া কাঁধ দুটো ঝাঁকিয়ে বললে, বেশ, তোমরা যা খুশি করো। তবে একটা কথা জেনে রাখো, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা ম-র হাতে হাতকড়া না-লাগাবে ততক্ষণ পর্যন্ত তোমরা কেউ তামাক কিংবা সিগারেট পাবে না। আমার আদেশ পালন না-করলে ধূমপান বন্ধ, বুঝলে?

বি তার নিজের কেবিনে ফিরে এল।

তিন দিনের মধ্যেই অবস্থা গুরুতর হয়ে পড়ল।

বি-র সহকারী শিক্ষানবিশ ছেলেটিকে সবাই মিলে এমন প্রহার করল যে ছেলেটি জ্ঞান হারিয়ে ফেলল।

খবর পেয়ে লাফিয়ে উঠল বি, শয়তানগুলোকে ভালোভাবে শিক্ষা দিতে হবে।

 বি সোজা এসে ঢুকল ভাড়ার ঘরে।

একটু দূরেই দাঁড়িয়েছিল বিদ্রোহী মাল্লার দল, তাদের মধ্যে একজন প্রশ্ন করলে, কী করতে চাও মিস্টার?

বলছি, একটু অপেক্ষা করো। জাহাজের রাঁধুনিকে ভঁড়ার ঘর থেকে বাইরে এনে দরজায় তালা লাগিয়ে দিলে বি, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা ম-র হাতে হাতকড়া না-লাগাবে ততক্ষণ পর্যন্ত তোমাদের খাওয়াদাওয়া বন্ধ। ভঁড়ার ঘর আর রান্নাঘর আমি তালা লাগিয়ে বন্ধ করে দিলুম।

সমবেত জনতার কণ্ঠে জাগল হিংস্র গর্জন-ধ্বনি।

সাঁ করে উড়ে এসে একটা কাঠের ডান্ডা বি-র মাথা ঘেঁষে দরজার উপর সশব্দে আছড়ে পড়ল, একটুর জন্য সে বেঁচে গেল।

বিনা বাক্যব্যয়ে পকেট থেকে রিভলভার বার করলে বি।

রিভলভার দেখে বিদ্রোহী নাবিকদের আক্কেলগুড়ুম হয়ে গেল। চটপট পা চালিয়ে তারা সরে পড়ল বির সামনে থেকে।বি-র ওষ্ঠাধরে জাগল তিক্ত হাসির রেখা, গরম গরম গুলি খেতে বোধ হয় তোমাদের ভালো লাগবে না, কি বলো?

তারপর পিছন ফিরে সে অকুস্থল ত্যাগ করলে।

তার সঙ্গ নিলে দুজন সহকারী।

সেদিন সন্ধ্যার পরেই আকাশের অবস্থা হয়ে উঠল শোচনীয়। ঘন মেঘের কালো ছায়া হানা দিল আকাশের গায়ে, অন্ধকার শূন্যে বিদ্যুৎ ছড়িয়ে হেঁকে উঠল বজ্র–গর্জিত বাতাসের সঙ্গে নাচতে নাচতে নেমে এল প্রবল বৃষ্টিধারা।

খালাসিরা কিন্তু কেউ জাহাজ রক্ষা করতে এগিয়ে এল না।বি তার দুই সহকারীর সাহায্যে পালগুলো নামিয়ে রাখার চেষ্টা করতে লাগল।

আচম্বিতে ছুটে এল কয়েকটা কাঠের ডান্ডা বি-র দিকে। একটা ডান্ডা বি-র পেটে লাগতেই তার হাত থেকে রিভলভারটা ছিটকে পড়ল। তৎক্ষণাৎ অন্ধকারের ভিতর থেকে ছুটে এসে ম রিভলভারটা তুলে নিয়ে বি-র দেহ লক্ষ করে গুলি ছুড়ল। নিশানা ব্যর্থ হল, বি লম্বা দৌড় মারল তার কেবিনের দিকে। তার পিছনে তাড়া করে ছুটে এল ক্ষিপ্ত মাল্লার দল।

বি-র দুই সহকারী এবার রঙ্গমঞ্চে ভূমিকা গ্রহণ করলে।

একজন এগিয়ে এসে জনতাকে লক্ষ করে রিভলভার ছুড়ল। একটা কাতর আর্তনাদ ভেসে এসে জানিয়ে দিল রিভলভারের গুলি লক্ষ্য ভেদ করেছে।

হঠাৎ অন্ধকারের বুকে বিদ্যুৎ হেনে উড়ে এল একটা মস্ত ছোরা। চিৎকার করে উঠল বি-র একজন সহকারী ছোরাটা তার কাঁধের ওপর বসে গেছে।

আহত ছেলেটির অবশ হাত থেকে রিভলভারটা টেনে নিয়ে বি দু-বার গুলি চালাল। জাহাজের অন্ধকার গহ্বর থেকে কাতর আর্তস্বর জেগে উঠে জানিয়ে দিলে গুলি যথাস্থানে পৌঁছে গেছে।

মাঝিমাল্লারা খেপে গেল। অন্ধকারে গা-ঢাকা দিয়ে তারা ছুঁড়তে লাগল ঝাঁকে ঝাকে কাঠের ডান্ডা আর লোহার টুকরো।

বি তার দুই সহকারীকে সঙ্গে নিয়ে চার্টরুম-এর ভিতর ঢুকে দরজায় ভিতর থেকে তালা লাগিয়ে দিলে।

বন্ধ দরজার ওপর পড়তে লাগল আঘাতের পর আঘাত, কিন্তু ওক কাঠের শক্ত দরজা অত সহজে ভাঙা সম্ভব নয়।

ইতিমধ্যে নূতন বিপদের সূত্রপাত।

জাহাজের ওপর আছড়ে পড়ছে ক্ষিপ্ত ঝটিকা এবং তার তলদেশে আঘাত হেনে লাফিয়ে উঠছে তরঙ্গ-বন্ধুর উত্তাল সমুদ্র।

চালকবিহীন জাহাজের তখন যায় যায় অবস্থা, এখনই বুঝি ভরাডুবি হয়।

বিপদের গুরুত্ব বুঝে মাল্লারা লড়াই থামিয়ে জাহাজ বাঁচাতে ছুটল।

কিছুক্ষণ পরেই আবার করাঘাতের শব্দ বেজে উঠল বন্ধ দরজার গায়ে, একজন নাবিক আর্তস্বরে চেঁচিয়ে উঠল, মি. বি–দরজা খোলো। জাহাজ প্রায় ডুবতে বসেছে। তুমি তাড়াতাড়ি এসো।

উদ্যত রিভলভার হাতে বি দরজা খুলল।

জলসিক্ত দেহে নাবিকটি চেঁচিয়ে উঠল, তাড়াতাড়ি এসো, জাহাজ ডুবছে!

বাইরে বৃষ্টি পড়ছে মুষলধারে!

 বি শান্তস্বরে বললে, আমি কী করব? তোমাদের সর্দারের কাছে যাও।

সে হতভাগা জাহাজ চালাতে জানে না। এতক্ষণ ধরে সে উলটোপালটা হুকুম চালিয়ে জাহাজটাকে ডোবাতে বসেছে। তুমি ছাড়া কেউ এখন জাহাজ বাঁচাতে পারবে না–তাড়াতাড়ি চলো।

বি-র প্রধান সহকারী এগিয়ে এল, কিন্তু বি বাধা দিলে, না। আগে এই লোহার বালা দুটো নিয়ে যাও

টেবিলের টানা খুলে বি একজোড়া হাতকড়া তুলে ধরলে ওই হতভাগা ম আর ছুরিমারা গুন্ডা মূলাটোকে আগে বন্দি করে নিয়ে এসো। আমার আদেশ পালিত না হলে আমি জাহাজের ভার গ্রহণ করব না।

একটানে হাতকড়া দুটো ছিনিয়ে নিয়ে নাবিকটি ঊর্ধ্বশ্বাসে ছুটে বেরিয়ে গেল।

একটু পরেই একদল নাবিক ঘরে প্রবেশ করলে, তাদের সঙ্গে রয়েছে ম! তার দুই হাতে লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে হাতকড়া।

বি বললে, আর একজন কোথায়? ওই মূলাটো গুন্ডা–তার কী হল?

একজন নাবিক বললে, পাজিটা ছুরি বার করেছিল স্যার।

হু, তারপর?

ইয়ে, মানে… ছুরিটা নেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম আমরা… মানে… ইয়ে..

বি ধমক দিলে, স্পষ্ট করে বলো কী বলতে চাও?

ইয়ে, মানে–ঝটাপটি করতে করতে মূলাটোটা হঠাৎ কেমন করে জলে পড়ে গেল।

বাঁচা গেল।

 বি আর জেরা করলে না। সে বুঝল, যেভাবেই হোক গুন্ডাটা সমুদ্রগর্ভে সমাধিলাভ করেছে। সে দরজা খুলে বাইরে এসে জাহাজের ডেকের ওপর দাঁড়াল।

এক্স জাহাজ সেযাত্রা বেঁচে গেল।

বি-র নির্দেশ অনুযায়ী প্রাণপণে ঝড়ের সঙ্গে লড়াই করে মাল্লারা জাহাজটাকে রক্ষা করলে ক্ষিপ্ত সমুদ্রের গ্রাস থেকে।

জাহাজ নিরাপদে পৌঁছে গেল তার নিজস্ব বন্দরে।

সর্দার-খালাসি ম-কে গ্রেপ্তার করে বিচারকের সামনে উপস্থিত করা হল। তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ সৃষ্টির অভিযোগ।

বিচারে অবশ্য তার শাস্তি হয়নি, উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে তাকে অপরাধী সাব্যস্ত করা গেল না। বিচারক তাকে ছেড়ে দিলেন।

তবে আদালতের দরবারে শাস্তি না-পেলেও বির হাতে যথেষ্ট নিগ্রহ এবং অপমান ভোগ করেছিল ম।

সবজান্তা মানুষটির মানসপটে শুষ্ক ক্ষতচিহ্নের মতো চিরকাল জেগে থাকবে সেই লাঞ্ছনার ইতিহাস।

[বৈশাখ ১৩৭৭]

বুকমার্ক করে রাখুন 0