৯. একেনবাবু অবাক

।। ৯।।

পরদিন সকালে ব্রেকফাস্ট খেতে খেতে প্রমথ একেনবাবুকে প্রশ্ন করল, “কী মশাই, কী বলবেন কিছু ঠিক করেছেন?”

একেনবাবু অবাক হয়ে বললেন, “কাকে কী বলব স্যার?”

“এক্ষুণি বেন্টুমাসির যে ফোন কলটা আসবে, তার কথা বলছি। কী বলবেন বেন্টুমাসিকে?”

প্রমথটা একেবারে যেন সাইকিক! কথা শেষ হতে না হতেই বেন্টুমাসির ফোন! “কে বাপি?”

“হ্যাঁ। বলে আমি ফোনের মাউথপিসটা হাতে ঢেকে একেনবাবু আর প্রমথকে শব্দ না করে মুখ নেড়ে বললাম, “বেন্টুমাসি।” তাতে একেবারে ম্যাজিকের মত রিয়্যাকশন হল! প্রমথটা গা দুলিয়ে নাচা শুরু করল। আর একেনবাবু হাত দুটো জোড়া করে ঘন ঘন মাথে নেড়ে ‘না’ বলে চললেন।”

“একেন কি তোর ওখানে?” বেন্টুমাসি প্রশ্ন করলেন।

আমি হাত তুলে একেনবাবুকে অভয় দিয়ে বেন্টুমাসিকে বললাম, “না, উনি তো নেই।”

“কোন চুলোয় গেছে এই সাতসকালে?”

“তা তো ঠিক জানি না। এলে ফোন করতে বলব?”

“হ্যাঁ বলিস। আর তুই কি জানিস, একেন ওই ব্যাপারটার কোনো হদিশ পেল কিনা?”

“ঠিক বলতে পারছি না বেন্টুমাসি। তবে অনেক খোঁজখবর করেছেন জানি।”

“তোরা কী করছিস, তোরা কোনো খোঁজখবর করছিস না?”

“আমরাও করছি, কালই তো ইন্সপেক্টর লান্ডির কাছে সবাই গিয়েছিলাম।”

“কী বলল সে?”

“বললেন, অটপসির প্রিলিমিনারি রেজাল্ট অনুসারে মিস্টার জসনানির ডেথ ন্যাচারাল। সুতরাং, ডাজ নট লুক লাইক ইট ওয়াজ এ মার্ডার।”

“হনুমানদের যতসব উড়ুটে কথা!”

“হনুমান! কাদের কথা বলছো তুমি?”

“কাদের আবার, এইসব ডাক্তারগুলোর! জ্যান্ত লোকদের রোগই ধরতে পারে না, আর কিনা মড়া লোক দেখে খুঁটিনাটি সব জেনে বসে আছে! দ্যাখ বাপি, আমি তোকে বলে রাখছি, এটা হল একটা ডাহা খুন! যে লোকটা মিরচন্দানিকে টাকা দিয়েছিল, তাকে থানায়

এনে দু’চার ঘা দে, তারপর দেখ কবুল করে কি না!”

বেন্টুমাসির ফোন শেষ হলে আমি একেনবাবুকে বললাম, “আপনার ফেইলিওরের জন্য মশাই আমাকে ধমক খেতে হচ্ছে! না পারছেন খুনি ধরতে, না পারছেন টাকা উদ্ধার করতে!”

একেনবাবু বললেন, “কেসটা সত্যিই পাজলিং স্যার। একটু আগে ইন্সপেক্টর লান্ডিকে ফোন করেছিলাম। পোস্ট মর্টেম ইজ নাউ কমপ্লিট। কোনো সন্দেহই নেই যে, ডেথ ইজ ন্যাচারাল।”

“তাই যদি হবে মশাই, তাহলে কেন বডিটা ওভাবে লাম্প করা হল, আর টাকাটাই বা অদৃশ্য হল কেন? “ প্রমথ জিজ্ঞেস করল।

আমি বললাম, “আমারও একবার সেটা মনে হয়েছিল। কিন্তু ব্রিফকেসে যে অত টাকা ছিল সেটা তো পুলিশ বা আমরা কেউই জানতাম না, যদি না অরুণ সাহানি আমাদের বলতেন! সাহানি ব্রাদার্স যদি সত্যিই টাকাটা চুরি করতেন, সেক্ষেত্রে টাকা থাকার কথাটা পুরোপুরি চেপে যেতেন।”

প্রমথ বলল, “দেয়ার ইজ অ্যানাদার বিগ আন-অ্যানসার্ড কোয়েশ্চেন। সাহানিদের বাড়ি থেকে অদৃশ্য হওয়ার পর প্রায় এক সপ্তাহ মিস্টার জসনানি কোথায় ছিলেন?”

একেনবাবু চুপ করে আছেন দেখে প্রমথ বলল, “কী মশাই, আমরা অ্যামেচাররা স্পেকুলেট করে যাচ্ছি, আর আপনি প্রফেশনাল গোয়েন্দা ব্যোম মেরে আছেন যে?”

একেনবাবু ঘাড় নেড়ে বললেন, “দিস কেস ইজ ভেরি কনফিউসিং স্যার।”

সেদিন সন্ধ্যেবেলা একেনবাবু বললেন, “স্যার, হঠাৎ খেয়াল হল মিস্টার সাহানিদের বাড়িতে আমার ডায়েরিটা ফেলে এসেছি।”

আমি বললাম, “আপনি শিওর?”

“প্ৰায় শিওর স্যার। আমি সেদিন ক্যামেরার কতগুলো ইনফরমেশন ডায়েরিতে টুকে ওটা হাতে নিয়েই ওঁদের রেকরুমে যাই। সেখানে আপনার সঙ্গে গল্প করার সময় বোধহয় চেয়ারে বা কোথাও ওটাকে রাখি। তারপর আর আমি ডায়েরিটা ব্যবহার করিনি। সুতরাং, ওটা ওখানেই আছে।”

বুকমার্ক করে রাখুন 0