ফাঁদ

ফাঁদ

ফেসবুকে একটা মিম দেখেছিলাম। এক পিচ্চি করজোড়ে আল্লাহ্ কাছে দু’আ করছে। ইয়া আল্লাহ, আমাকে ধৈর্য দান করো। এখনই দাও, ঠিক এখনই, একটুও দেরি না করে ঠিক এই মুহূর্তে…। পর্নহস্তমৈথুন/চটিগল্পের আসক্তি কাটিয়ে ওঠার ক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি ফ্যাক্টর হলো ধৈর্য। অথচ অধিকাংশেরই ধৈর্যের লেভেল থাকে ওই পিচ্চির মতোই। পর্ন হস্তমৈথুন-চটিগল্পের আসক্তি কাটিয়ে উঠতে হলে আপনাকে অবশ্যই, ধৈর্য ধরা শিখতে হবে। শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। 

আল্লাহ্ কুরআনে আমাদের জানিয়ে দিয়েছেন শয়তান আমাদের প্রকাশ্য শত্রু।

“যে শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে, সে জেনে রাখুক, শয়তান অশ্লীল ও মন্দ কাজের আদেশ দেয়(প্রলুব্ধ করে)।” 

(সূরা আন-নূর; ২৪:২১) “.. আমি তাদের মানুষের জন্য তোমার সরল পথে ওঁৎ পেতে বসে থাকব। তারপর আমি { চারদিক থেকে তাদের ওপর হামলা করব, তাদের সামনে থেকেও, তাদের পেছন থেকেও, তাদের ডান দিক থেকেও এবং বাম দিক থেকেও এবং তুমি তাদের অধিকাংশকেই কৃতজ্ঞ পাবে না। “ সূরা আল আ’রাফ; ৫:১৬-১৭)

আপনার শত্রু শয়তান প্রচণ্ড ধৈর্যশীল, অধ্যবসায়ী। সে ব্যাপক ধৈর্য নিয়ে আপনার পেছনে লেগে থাকবে। নানা ছলেবলেকৌশলে পথভ্রষ্ট করতে চাইবে। একটার পর একটা ফাঁদ পাততে থাকবে। শয়তানের সেই ফাঁদগুলো সম্পর্কে আপনার থাকতে হবে বিস্তারিত ধারণী, জানতে হবে খুঁটিনাটি সবকিছুই। না হলে পতন অনিবার্য। এ লেখায় আপনাদের চেনানো হবে শয়তানের কিছু ফাঁদ। সেই সঙ্গে আপনাকে বাতলে দেয়া হবে কীভাবে ফাঁদের জাল কেটে বেরিয়ে আসবেন মাথা উঁচু করে। 

.

এক.

কংক্রিটের রাস্তায় পড়ে থাকা কোল্ড ড্রিংকের খালি বোতলে কষে একটা লাথি মেরে রাগ আর বিরক্তি দুটোই এক সাথে ঝাড়ল রাজিব। “ধুউউর! পেটে খিদে রেখে এভাবে পার্কের বেঞ্চিতে কতক্ষণ বসে থাকা যায়?”। সেই দুপুর থেকে বসে আছে এই বেঞ্চিতে। এখন বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা হতে চলল। টিফিনের পর থেকে পেটে পড়েনি দানাপানি কিছুই। সামনের বেঞ্চিতে আধাশোয়া উশকো-খুশকো চুলের গাল ভাঙা লোকটা তার ইঁদুরের মতো পিটপিটে লাল চোখ। দিয়ে অনেকক্ষণ ধরে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে স্কুল ড্রেস পরা রাজিবের দিকে। রাজিব অস্বস্তিবোধ করতে শুরু করল। ওই গাঞ্জাখোর ব্যাটাটী ছিনতাইকারী না হয়েই যায় না। “গাধা কোথাকার! আমার কাছ থেকে ছিনতাই করার মতলবে আছে, আমার পকেটে তো একটা ছেঁড়া দু-টাকার নোটও নেই”, মনে মনে ভাবল রাজিব। সেই কখন দুপুরবেলায় স্কুল ছুটি দিয়েছে। কিন্তু রাজিব বাসায় যেতে ভয় পাচ্ছে। বেশ কয়েকবার বাসায় যাবার জন্য রওনা দিয়ে আবার মাঝপথ থেকে ফিরে। এসেছে। সাহসে কুলোয়নি। আজ বাসায় গেলে বাবা ওকে “বানাবেই “ । সূর্য সকালে ওঠে সন্ধ্যায় অস্ত যায়, গরু ঘাস খায় এগুলো যেমন ধ্রুব সত্য, তেমনই আজকে বাসায় গেলে ও যে বাপের হাতে ডলা খাবে সেটাও ধ্রুব সত্য। গত সপ্তাহে স্কুলের বইয়ের মধ্যে লুকিয়ে লুকিয়ে ভিডিও গেম খেলার সময় বাবার হাতে ধরা খেয়ছিল রেড হ্যাঁন্ডেড–তখনো বাবা ওকে কিছু বলেননি। গত সপ্তাহের আগের সপ্তাহে দুপুরবেলা বাসা থেকে পালিয়ে হাজির হয়েছিল বালুর মাঠে। বীরপুরুষের মতো কাঠফাটা রোদে ক্রিকেট খেলে জ্বর বাঁধিয়ে বিছানায় পড়ে ছিল। বেশ কয়েকদিন, তখনো বাবা ওকে কিছু বলেননি। কিন্তু আজকে আর রক্ষা নেই। আজকে মিডটার্মের রেসাল্ট কার্ড দিয়েছে এবং রাজিব দু দুটো সাবজেক্টে ডাব্ব, মেরে বসে আছে। গাঁজাখোর ছিনতাইকারীর উটকো ঝামেলা থেকে বাবার হাতে পিটি খাওয়া ভালো। যা আছে কপালে, রাজিব বেঞ্চি থেকে স্কুলব্যাগটা তুলে কাঁধে নিয়ে, পানির খালি বোতলটা হাতে নিল। মক্তবের হুজুরের কাছ থেকে যত সূরা কিরাত শিখেছিল ছোটবেলায়, সব বিড়বিড় করে পড়তে পড়তে হনহন করে হাঁটা দিলো বাসার দিকে। …. প্লিয! আল্লাহ্ আজকে পার করাইয়া দাও, সামনের শুক্রবার থেকেই নামাজ ধরব, কথা দিলাম। পাক্কা। প্লিয আল্লাহ্, প্লিয। 

সুবহানআল্লাহ! মানুষের সাইকোলজিটাই এমন যে, মানুষ যখন অন্য কাউকে রাগিয়ে দেয় তখন সে তার সামনে যেতে ভয় পায়, ইতস্তত বোধ করে। শয়তান মানুষের ঠিক এ দুর্বলতা কাজে লাগিয়ে ফন্দি আঁটে আদমসন্তানকে তার পরম করুণাময় অসীম দয়ালু রবের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার। শয়তান আর নফসের পাল্লায় পড়ে ভয়াবহ পাপ করে ফেলেছেন–ধরুন পর্ন ভিডিও দেখে ফেলেছেন বা হস্তমৈথুন করে ফেলেছেন। উত্তেজনা কমার পর আপনার খেয়াল হলো, “হায়! হায়! আমি এ কী করলাম?” 

অনুশোচনার আগুনে দগ্ধ হচ্ছেন, ধিক্কার দিচ্ছেন নিজেকে। তৎক্ষণাৎ গোসল করে জায়নামাযে দাঁড়িয়ে গেলেন; উদ্দেশ্য তওবা করা। রঙ্গমঞ্চে আগমন হলো শয়তান। ব্যাটার। আপনাকে ওয়াসওয়াসা দিতে শুরু করল, “কিরে ভণ্ড! একটু আগে। আল্লাহর নফরমানি করে আবার এখন এসেছিস তওবা করতে? যা ভাগ! তোর। দেখি কোনো লজ্জাশরম নাই, আল্লাহর সামনে দাঁড়াচ্ছিস কোন মুখে? আল্লাহ কি তোকে মাফ করে দেবেন মনে করেছিস?” আপনি ভেবে দেখলেন, কথার মধ্যে তো বেশ যুক্তি আছে। দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভোগা শুরু করলেন তওবা করবেন কি করবেন না, আল্লাহ এবং তাঁর রাসুল (%) তওবা করাকে কতটা উৎসাহিত করেছেন ভুলে। গেলেন। ব্যস শয়তানের প্ল্যান সার্থক।

 “নিশ্চয়ই আল্লাহ তাদের ভালোবাসেন, যারা তাঁর কাছে বেশি বেশি তওবা করে এবং তিনি ভালোবাসেন তাদেরকে যারা নিজেদের পবিত্র রাখে।” 

(সূরা আল-বাকারা; ২:২২২)

 “যারা অজ্ঞতাবশত মন্দ কাজ করে, অতঃপর অনতিবিলম্বে তওবা করে, নিশ্চয় আল্লাহ তাদের তওবা কবুল করবেন, আল্লাহ মহাজ্ঞানী প্রজ্ঞাময়।” 

{সূরা আন-নিসা; ৪:১৭)

 “প্রত্যেক আদমসন্তানই পাপ করে, পাপীদের মধ্যে তারাই সর্বোত্তম যারা তওবা করে।” 

(সুনান তিরমিযী : ২৪৯৯)

সহিহ বুখারিতে, আনাস ইবনে মালিক বর্ণনা করেন : আল্লাহ্র রাসূল বলেন, “তোমাদের কেউ মরুভূমিতে হারিয়ে যাওয়া উট খুঁজে পেয়ে যতটা খুশি হয়, আল্লাহ্ তাঁর বান্দার তওবাতে তাঁর চেয়েও বেশি খুশি। হন।” 

(সহিহ বুখারি : ৫৯৫০) 

শয়তানের কুমন্ত্রণা একেবারেই পাত্তা দেয়া যাবে না। আপনাকে ভণ্ড বললেও, আসলে সে নিজেই ভণ্ড। যেকোনো পাপ করার পর এক মাইক্রোসেকেন্ডও দেরি না। করে, তৎক্ষণাৎ তাওবাহ করুন।

“হে মুমিনগণ, আল্লাহর সমীপে খাঁটি তওবা করো। অসম্ভব নয় যে তোমাদের প্রতিপালক তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করে দেবেন আর তোমাদের এমন উদ্যানসমূহে প্রবেশ করাবেন, যার নিম্নদেশে নদীসমূহ প্রবাহিত থাকবে…” 

(সূরা আত-তাহরিম; ৬৬:৮)

কবি কত চমৎকারভাবেই-না বলেছেন : “কড়া নাড়ো, তিনি তোমায় দরজা খুলে দেবেন বিলীন হয়ে যাও, তিনি তোমায় সূর্যের মতো উজ্জ্বল করবেন লুটিয়ে পড়ে, তিনি তোমায় বেহেশতে তুলে নেবেন নিজেকে রিক্ত করো, তিনি তোমায় সবকিছু দিয়ে পূর্ণ করবেন।” শয়তান বেচারীর মন খুব খারাপ। এত চেষ্টার পরেও আপনার তওবা করা ঠেকাতে পারল না। তার ষড়যন্ত্রের বাউন্সার, দুর্দান্ত হুক করে আপনি পাঠিয়ে দিয়েছেন। মাঠের বাইরে। সে বুঝে ফেলেছে এভাবে আপনাকে তওবা করা থেকে ফেরানোর মুরোদ ওর কেন, ওর বাপ-দাদা চৌদ্দগুষ্ঠীর কারও নেই। কিন্তু এত সহজে দমে। যাবার পাত্র তো সে না। আবারও রঙ্গমঞ্চে হাজির হলো নতুন ফন্দি এঁটে–এ তওবা দিয়েই ঘোল খাইয়ে ছাড়বে আপনাকে। খেলা হবে। 

কুমন্ত্রণা দিতে শুরু করল আপনাকে–”আগে পর্ন ভিডিওটা দেখ, তারপর তওবা করে ফেললি। আরে ব্যাটা জানিস না তওবা করলে আল্লাহ কি পরিমাণ খুশি হয়? সব পাপ মাফ করে দেয়? তুইও মজা পেলি আর আল্লাহও খুশি হলো, সাপও মরল। লাঠিও ভাঙলো না!” 

ভাই এ রকম প্ল্যান করে পাপ করার পর তাওবাহ করলে, তওবা কি কবুল হবে? আল্লাহ্ খুশি হবেন? আপনিই বলুন কমনসেন্সটা কাজে লাগিয়ে? ব্যাপারটা অনেকটা এ রকম, আপনি রাস্তায় কাউকে বলা নেই কওয়া নেই মনের সুখে কিল থাপ্পড় চড়-ঘুষি মেরে, মুখের জিওগ্রাফি বদলে দিয়ে, তারপর সরি বললেন, তারপর ওই বেচারা কি হাসিমুখে চেহারার রক্ত মুছতে মুছতে বলবে, ইটস ওকে ব্রো? নাকি ভাই-ব্রাদার, মামা-চাচা-দোস্ত সব্বাইকে ফোন করে শার্টের হাত গুটিয়ে আপনার দিকে তেড়ে আসবে, “তবে রে ব্যাটা!” আল্লাহ্ যে কাজ হারাম করেছেন সেই কাজ এভাবে প্ল্যান করে করলে আল্লাহ্র (%) সঙ্গে কি রসিকতা করা হয়ে যায় না? আর তা ছাড়া, পর্ন দেখা অবস্থায় বা হস্তমৈথুন করা অবস্থায় মারা গেলে কবরে বা হাশরের ময়দানে কৈমন আদর-আপ্যায়ন পাবেন সেটাও চিন্তা করা দরকার। সাবধান! শয়তান এ রকম কুমন্ত্রণী দিতে শুরু করলে বিতাড়িত শয়তান থেকে চটজলদি আশ্রয় চান আল্লাহ্ কাছে। ল্যাপটপ, ফোন (যেটাতে আপনি পর্ন ভিডিও দেখার প্রিপারেশান নিচ্ছিলেন) বন্ধ করে দিয়ে ওই জায়গী ছেড়ে চলে যান দূরে। মানুষজনের কাছে। খুব ভালো হয় সঙ্গে সঙ্গে ওজু করে দুই রাকাত সালাত আদায় করতে পারলে। আরও ভালো হয় জোরে আযান দিতে পারলে; জানেনই তৌ, আযান শুনলে শয়তান জান নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালায়–দূর হ ব্যাটা পাঁজির পী ঝাড় শয়তান! দূর হ! দূরে গিয়ে মর… শয়তানের আরেকটা খুব কার্যকরী কৌশল হচ্ছে, “আজকেই শেষ। কাল থেকে আর পর্ন ভিডিও দেখব না বা হস্তমৈথুন করব না”–এ চিন্তাভাবনা আপনার অন্তরের মধ্যে গেঁথে দেয়া। প্রতিটি আগামীকালের আরেকটি আগামীকাল আছে; আগামীকালও যে আপনার মনে হবে না আজকেই শেষবার, এর গ্যারান্টি কে। দেবে? এটা একটা ইনফিনিট লুপ যার কোনো শেষ নেই। পর্ন দেখা বা হস্তমৈথুন করা বন্ধ করতে হবে আজকেই। যদি আজকে না পারেন তাহলে আগামীকাল পারবেন এর কোনো নিশ্চয়তা নেই। 

.

দুই.

ইসলাম নিয়ে সিরিয়াস হবার পরে হাল আমলের ছেলেমেয়েরা বিয়ে নিয়ে বেশ রোমান্টিসিযমে ভুগতে শুরু করে। কোনো এক অদ্ভুত কারণে এরা বিয়ে করাকেই তাদের ধর্মীয় জীবনের একমাত্র লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য অথবা লক্ষ্য-উদ্দেশ্য অর্জনের প্রধান পূর্বশর্ত বানিয়ে ফেলেছে। অন্তরের অবস্থা আল্লাহই ভালো জানেন, তবে তাদের বাহ্যিক আচার-আচরণ দেখে তা-ই মনে হয়। ভাবখানা এমন, ইসলাম শুধু বিয়ে করতেই বলেছে আর কিছু করতে বলেনি। বিয়ে করে “দ্বীনের অর্ধেক পূরণে” তাদের খুব আগ্রহ, কিন্তু দ্বীনের আরও অর্ধেক যে অংশ বাকি আছে সেটা পূরণে তারা ততটা মনোযোগী না। এ বিয়ে নিয়েই শয়তান ব্যাটা খুবই মারাত্মক ফাঁদ পাতে, আর আমাদের তরুণেরা বিয়ে নিয়ে এতটাই রোমান্টিসিযমে ডুবে থাকে যে, সেই ফাঁদে পা তো দিয়ে বসেই, সেই সাথে কেউ চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেও তাদের হুশ ফেরে না। 

তরুণদের কাছে বিয়েই হয়ে গেছে সকল সমস্যার সমাধান। “মন খারাপ কেন?” 

“কারণ আমার বউ নাই” 

 “রেসাল্ট খারাপ কেন?” 

“কারণ বউ নাই, মন খারাপ থাকে, পড়তে পারি না ঠিকমতো।” 

“ফজরের সালাত কাযা হয় কেন?” 

“কারণ বউ নাই, মুখে পানি ছিটিয়ে কেউ ডেকে দেয় না।” “পর্ন ভিডিও দেখা ছাড়তে পারছ না কেন? হস্তমৈথুন কেন করো?” 

“কারণ আমার বউ নাই।” বিয়ে কোনো ম্যাজিক বাটন না যে আপনি চাপ দেবেন আর আপনার সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। বিয়ের আগের কিছু সমস্যা হয়তো বিয়ের পর চলে যাবে, সেই সাথে আরও অনেক নতুন সমস্যার উদ্ভব হবে। চোখে চোখ রেখে তাকিয়ে থাকা, ক্যান্ডেল লাইট ডিনার করা, একসঙ্গে রিকশায় ঘোরা, ফুচকা খাওয়া, শুধু এগুলোই বিয়ে না। বিয়ে মানে অনেক দায়িত্ব, অনেক কর্তব্য। “বিয়ের আগে পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি কাটানো সম্ভব না, তুই চাইলেও ছাড়তে পারবি না। পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি দূর করার সবচেয়ে কার্যকরী উপায় হলো বিয়ে, বিয়ে করবি সব ঠিক হয়ে যাবে, এখন দুশ্চিন্তা ভুলে “চিল” কররে পাগলা।” এ রকম অজস্র মিথ্যে কথা শয়তান আপনাকে গুলে খাওয়াবে। আপনি হতাশ হয়ে পড়বেন। পর্ন-হস্তমৈথুন থেকে বিয়ে করা ছাড়াও রেহাই পাওয়া যায় সেটা আপনি মেনে নিতে চাইবেন না। আপনার চিন্তাভাবনা আবর্তিত হবে বিয়েকে কেন্দ্র করে। কিন্তু বর্তমান সময়ে বিয়েকে খুব কঠিন বানিয়ে ফেলা হয়েছে। আবার দেখা যাবে বিয়ে নিয়ে সারাদিন আকাশ-কুসুম চিন্তা করলেও আসলে বিয়ে করার জন্য কোনো কংক্রিট স্টেপ আপনি নিচ্ছেন না। জীবিকার ব্যবস্থা করছেন না। আচরণে ম্যাচিউরিটি আসছে না। কাজকর্মে দায়িত্ববোধের ছাপ দেখা যাচ্ছে না। নিজের ফ্যামিলিকে বোঝানো দুরের কথা হয়তো তাঁদের সাথে এ নিয়ে কথাই শুরু করতে পারছেন না। কিন্তু দিনরাতে অনবরত বিয়ে নিয়ে চিন্তা থামছে না। বাবা-মাকে বিয়ের কথা বলতেই দেখবেন অনেক দিন লেগে যাবে। 

অনেক কাঠখড় পোড়ানোর প্রও হয়তো যখন চাচ্ছেন তখন বিয়ে করা হয়ে উঠবে না। আপনি আরও হতাশ হয়ে পড়বেন। পর্ন দেখা, হস্তমৈথুন করার পরিমাণ বাড়তে থাকবে। জীবন অসহ্য মনে হবে। অথচ আপনি যদি অন্য টিপসগুলো 

অনুসরণ করতেন, তাহলে হয়তো পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে মুক্তি পেতেন। বিয়ে করলেই পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি দূর হয়ে যাবে এটা ভাবলে মারাত্মক রকমের ভুল করবেন। সাময়িক সময়ের জন্য হয়তো এগুলো থেকে দূরে থাকতে পারবেন, কিন্তু তারপর যেইকে সেই। অনেক অনেক বিবাহিত ভাই ভয়ঙ্কর রকমের পর্ন হস্তমৈথুন আসক্তিতে ডুবে আছেন। অনেকের ঘর ভেঙেছে পর্ন-আসক্তি। অ্যামেরিকাতে ৫৬ শতাংশ ডিভোর্সের জন্য দায়ী পর্ন-আসক্তি। ৫৫ শতাংশ বিবাহিত অ্যামেরিকান পুরুষ স্বীকার করেছেন যে তারা মাসে একবার হলেও পর্ন ভিডিও দেখে। ২৫ শতাংশ বিবাহিত অ্যামেরিকান মহিলা স্বীকার করেছে যে, তারা মাসে একবার হলেও পর্ন ভিডিও দেখে। আর যারা মাসে একবার হলেও পর্ন দেখে এমন অবিবাহিত অ্যামেরিকান মহিলার সংখ্যা শতকরা ১৬ জন। কিন্তু কেন বিয়ে পর্ন বা হস্তমৈথুনের সম্পূর্ণ সমাধীন নী? পর্ন-আসক্তির কারণে আপনার মস্তিষ্কের গঠন বদলে যাবে। বইয়ের প্রথমাংশে আমরা এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। বাস্তব যৌনতার প্রতি আপনি আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন। সেই সঙ্গে যৌনমিলনের সক্ষমতাও। আপনার স্ত্রী আপনাকে যৌনতার জন্য প্রস্তুত করতে পারবেন না, স্ত্রীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ হবার চাইতে ঘরের এক কোণায় বসে পর্ন দেখাকেই আপনি উত্তেজক এবং তৃপ্তিদায়ক মনে করবেন। পর্ন দেখে দেখে আপনার মধ্যে নারীর দেহ নিয়ে যে অতিরঞ্জিত ধারণা জন্মেছিল, সেটা বুঝবেন বিয়ের পরে। আপনি হতাশ হবেন। আপনার পর্ন দ্বীরা প্রোগ্রামড় ব্রেইন আপনার স্ত্রীর চেয়ে পর্ন অভিনেত্রীদের নিটোল দেহের প্রতি বেশি আকর্ষিত হবে। আপনি আবার ফিরে যাবেন পর্নের জগতে। অন্তরঙ্গতার পুরো ব্যাপারটিই দুজন মানুষের অত্যন্ত চমৎকারভাবে কাছে আসা, যা আসলেই আল্লাহর পক্ষ থেকে একটি আশীর্বাদ। ভালোবাসা এবং মমতার কারণে স্ত্রী বা স্বামীকে তৃপ্তি দেয়া। নিজের চেয়ে নিজের স্ত্রীর তৃপ্তির ব্যাপারে বেশি চিন্তা করা; নিশ্চিত করা যেন পুরো সময়টুকু তার জন্য আরামদায়ক হয়, যেন তিনি কষ্ট না পান বা তাঁর সাথে বিবেচনাহীন আচরণ না করা হয়, যেন তাঁকে সম্মান দেয়া হয়। পর্নের পুরো ব্যাপারটিই অন্তরঙ্গতার বিপরীতে যায়, কারণ এখানে মুখ্য বিষয় হলে, নেয়া ও স্বার্থপরতা। নিজে তুষ্ট না হওয়া পর্যন্ত নিজেকে আনন্দ দেয়, নতুন কিছুর খোঁজ চালিয়ে যাওয়া। পর্ন অসিক্ত হবার কারণে অপিনি আপনার স্ত্রীর চাওয়া পাওয়ার দিকে কোনো খেয়ালই রাখবেন না। স্বাভাবিক পদ্ধতিতে তৃপ্তি না। পেয়ে আপনি অ্যানাল সেক্স, ওরাল সেক্সের দিকে ঝুঁকবেন, স্ত্রীর ওপর জোরাজুরি করবেন। স্ত্রী রাজি না হলে আপনি থেকে যাবেন অতৃপ্ত। পর্ন দেখা শুরু করবেন। আবারও। তা ছাড়া অ্যানাল সেক্স, ওরাল সেক্সে যৌনতৃপ্তির পরিমাণ কমে যায়। 

আপনি এগুলোর সুযোগ পেলেও অতৃপ্ত থেকে যাবেন। ঘুরেফিরে সেই পর্ন দেখে হস্তমৈথুন করতে হবে। বিয়ের পর পর স্বামী-স্ত্রীর সবকিছুই পরস্পরের ভালো লাগে। দুজন দুজনকে ক্রমাগত আবিষ্কার করে আর মুগ্ধ হয়। ঝড় বয়ে চলে ভালোবাসার। কিন্তু বেশ কিছুদিন পর বিশেষ করে ১০ বছরের একটা লুপের পর ভালোবাসার ঝড় থেমে যায়। অন্তরের টান, মায়া-মমতা আগের মতো থাকলেও শারীরিকভাবে আপনার স্ত্রী হয়তো আপনাকে আর আগের মতো টানবেন না। বাচ্চাকাচ্চা সামলাতে গিয়ে তিনি হয়তো আপনাকে আর আগের মতো “কোয়ালিটি টাইম” দিতে পারবেন না। হয়তো এ কারণে আপনি যৌনজীবন নিয়ে একঘেয়েমিতে ভুগবেন। তবে বিয়ে নামক প্রতিষ্ঠানে যৌনতাই সব কিছু না; বরং বিয়ের অনেকগুলো অংশের মধ্যে এটি একটি। পারস্পরিক নির্ভরশীলতা, বিশ্বাস, মায়া, দায়িত্ববোধ এগুলোও বিয়ের অংশ। তাই বয়সের সাথে সাথে সব পুরুষই যৌনজীবনে একঘেয়েমিতে ভুগবেন বা ভোগেন এমন না। সমস্যাটা হলো পর্ন কীভাবে আপনার চিন্তায় প্রভাব ফেলছে তা নিয়ে। পর্ন আপনাকে একজন সঙ্গিনীতে সন্তুষ্ট হতে দেবে না। যারা পর্ন দেখে অভ্যস্ত তাদের পক্ষে একজন যৌনসঙ্গিনীতে তৃপ্ত হওয়া অত্যন্ত কঠিন। পনের বৈশিষ্ট্যই হলো সাধারণ যৌনতার ব্যাপারে একঘেয়েমি সৃষ্টি করা। এমনকি পর্ন-আসক্ত ব্যক্তির কাছে একই ধরনের পর্নও একসময় একঘেয়ে লাগে। তীর আরও কড়া কিছুর প্রয়োজন হয়। সফটকোর থেকে হার্ডকোর, হার্ডকর থেকে রেইপ পর্ণ, গে পর্ন, চাইল্ড পর্ন এভাবে তার “উন্নতি হতে থাকে। নীল জগতে নিত্যনতুন অপ্সরাদের নেশায় বুঁদ হয়ে থাকা আপনার কাছে রক্তমাংসের মানবী খুব তাড়াতাড়ি পুরোনো হয়ে যাবে, পানসে লাগবে। যৌনজীবনের একঘেয়েমি আপনাকে রাস্তা দেখিয়ে দেবে পর্ন এবং হস্তমৈথুনের। শত সহস্র মানুষ বিয়ে ছাড়াই পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে মুক্তি পেয়েছে। আপনিও পারবেন ইন শা আল্লাহ্। আল্লাহ্র (এ) ওপর ভরসা করে চেষ্টা চালু রাখুন, পাশাপাশি বিয়ের জন্যও নিজেকে যোগ্য করে তুলুন। বিয়ে করতে পারছি না তাই পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারছি না, এসব অজুহাত দেবেন না। 

.

তিন. 

পন-হস্তমৈথুন আসক্তির কারণে জীবন অতিষ্ঠ। আপনি মুক্তি চান এগুলো থেকে। আদাজল খেয়ে, কোমরবেঁধে লেগে গেলেন, দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ মন। সবকিছুই ঠিকঠাক মতো চলছে। অনেকদিন পার হয়ে গেছে কিন্তু আপনি পর্ন-হস্তমৈথুনের ধারেকাছেও ঘেঁষেননি। খুব খুশি, স্বস্তির নিশ্বাস ফেললেন–যাক বাবা বাঁচা গেল…। কিন্তু হুট করেই একদিন ব্রেকডাউন হয়ে গেল পর্ন ভিডিও দেখে ফেললেন বা হস্তমৈথুন করে ফেললেন। ঠান্ডা হবার পর মাথার চুল ছিঁড়তে লাগলেন। আফসোস করে হায়! হায়! এ কী করলাম আমি! এ রকম সময়ে কাটাঘায়ে নুনের ছিটা দেয়ার জন্য রঙ্গমঞ্চে আবির্ভাব ঘটে ইবলিসের। কুমন্ত্রণা দিতে থাকে, আরে ব্যাটা তুই যতই চেষ্টা করসি না কেন, পারবি না পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে মুক্তি পেতে। এত টিপস ফলো করলি, এত কিছু করলি, পারলি এগুলো থেকে বাঁচতে? বাদ দে এসব ন্যাকামো…” এ রকম কুমন্ত্রণা সে ক্রমাগত দিতেই থাকবে যতক্ষণ পর্যন্ত না আপনি হতাশ হয়ে পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে বাঁচার চেষ্টা বন্ধ করে দেন। হতাশ হবার কিছু নেই। পর্ন-আসক্তি প্রায় কোকেইন আসক্তির মতো ভয়াবহ ব্যাপার। এক দিনে, একবারেই সারা জীবনের জন্য পর্নোগ্রাফি বা হস্তমৈথুন আসক্তির সঙ্গে আড়ি দেয়া তো সম্ভব হবে না, সময় লাগবে কিছুটা। হতাশ হলে চলবে না। হস্তমৈথুন, পর্ন-আসক্তির যুদ্ধে বার বার পরাজিত হওয়া মানে “হেরে যাওয়া” না। আপনি হেরে যাবেন সেদিনই, যেদিন শয়তানের প্ররোচনায় পড়ে হস্তমৈথুন, পর্ন-আসক্তি থেকে বাঁচার চেষ্টা ছেড়ে দেবেন। হাল ছাড়বেন না কখনোই। ধৈর্য ধরে লেগে থাকুন, আল্লাহ্র () ওপর ভরসা করে। ইন শা আল্লাহ্ আপনি বিজয়ী হবেনই। ইন শা আল্লাহ্ একদিন চমৎকার ঝকঝকে হলুদ রোদ উঠবে চারিদিকে, ঝিরি ঝিরি বাতাসে গাছের পাতাগুলো দোল খাবে, দোয়েল মিষ্টি শিস দেবে, হস্তমৈথুন, পর্ন-আসক্তির কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে আপনি ডানা মেলবেন সুন্দর ওই নীল আকাশটাতে–মুক্ত বাতাসে। সেদিন আপনার সমস্ত হতাশা, কষ্ট, দুশ্চিন্তা, দুঃখগুলো দলবেঁধে এসে দুঃখপ্রকাশ করবে এবং ক্ষমা প্রার্থনা করবে যে, তারা নিতান্তই মিথ্যে ছিল। 

.

চার.

ঘুম থেকে উঠে দরজা খুলে হলের বারান্দায় আসতেই দিলটা “খুশ” হয়ে গেল। নিলয়ের। চমৎকার ঝকঝকে রোদ ধুয়ে দিচ্ছে চারপাশটাকে। আকাশটা ভীষণ নীল। মনে হচ্ছে কেউ যেন নীল রং ঢেলে দিয়েছে সমস্ত আকাশজুড়ে। কী অসহ্য সুন্দর! জোড়া শালিক হলুদ হলুদ পা ফেলে ঘাসের মধ্যে পোকা ধরছে। ঘাসগুলো যেন সবুজ গালিচা বিছিয়ে রেখেছে। মৃদু বাতাসে তির তির করে কাঁপছে সাদা ঘাসফুলগুলো। নারিকেল, আম, জাম আর কাঁঠালের বনে দীর্ঘশ্বাসের মতো একটা বাতাস উঠল হুট করে। আমের শাখাগুলো দুলছে, হাতছানি দিয়ে ডাকছে যেন নিলয়কে; আয় নিলয়, আয়… 

নাস্তা করে এসে কী করবে ঠিক বুঝতে পারল না নিলয়। ছুটির দিন আজকে। ক্লাস কিংবা ল্যাবের কোনো ঝামেলা নেই। আরেকবার সেঁটে ঘুম দেবে কি না ভাবছে, এমন সময় মনে হলো “ধুর! ঘুম দিয়ে লাভ নেই। তারচেয়ে একটা মুভি দেখি। কী জানি একটা নতুন বাংলা মুভি এসেছে শোভন বলছিল… উমম… মনে পড়ছে… ওটাই দেখি।” ইউটিউবে গিয়ে মুভি দেখা শুরু করল নিলয়। গতানুগতিক কাহিনি। একটু পরেই একটা গান শুরু হয়ে গেল। আইটেম সং। নিলয় ভদ্র ছেলে। শুক্রবার ছাড়াও মাঝে মাঝে মসজিদে যায়। আইটেম সংয়ের কাণ্ডকারখানা দেখে লজ্জা পেয়ে গেল। স্কিপ করে গেল পুরোটা। একটু পর শুরু হলো আরেকটা গান। আইটেম সং না হলেও যথেষ্টই অশ্লীল। এবার কিছুক্ষণ, কিছুক্ষণ না পুরোটাই দেখল সে। ভেতর থেকে কে যেন তাকে বলল, আরে ব্যাটা দেখ, একবার দেখলে কিছুই হয় না। পুরোটা মুভি যখন সে দেখে শেষ করল তখন ওর অবস্থা বেশ খারাপ। কান গরম হয়ে গেছে। হার্টবিট খুব বেড়ে গেছে। জোরে জোরে নিশ্বাস পড়ছে। বাইশটা বসন্ত পার করে দেয়া তৃষ্ণার্ত শরীর জেগে উঠেছে। নিলয় ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে সেই আইটেম সংটা (প্রথম বার এটা দেখেই সে লজ্জায় চোখ নামিয়ে ফেলেছিল) বেশ কয়েকবার দেখল। তারপর একটা-দুইটা করে বেশ কয়েকটা দেখে ফেলল। ভেতর থেকে ওর ভালো মানুষের সত্তাটা বার বার নিষেধ করছিল। সেটাকে পাত্তা দিলো না সে একবারেই। উত্তেজনা বাড়তে থাকল। একসময় জঘন্য কাজটা করে ফেলল নিলয়। ঠান্ডা হবার পর হুশ ফিরল। গভীর অবসাদ তাকে গ্রাস করল। একটু আগেও যে সোনালি রোদ্দুরে ভরা পৃথিবীটাকে অনেক সুন্দর মনে হচ্ছিল, আল্লাহকে বার বার ধন্যবাদ দিতে ইচ্ছে করছিল সে পৃথিবীটাকেই এখন ভীষণ স্যাঁতস্যাঁতে, অন্ধকারাচ্ছন্ন মনে হচ্ছে। মরে যেতে ইচ্ছে করছে। কতবার এভাবে নিজের নফস আর শয়তানের কাছে। পরাজিত হতে হবে জানে না নিলয়। এভাবেই উদ্দেশ্য গোপন করে কালে কালে, যুগে যুগে, আদম (8 হাওয়া থেকে শুরু করে তাঁদের সন্তানদের ধোঁকা দিয়ে চলেছে ইবলিস। সে কখনোই সরাসরি আপনাকে বলবে না, “যা পর্ন দেখ” বা “হস্তমৈথুন কর”।

 ধাপে ধাপে অত্যন্ত ধৈর্য ধরে অগীবে সে। প্রথম ধাপটা সে আপনার কাছে খুব আকর্ষণীয় করে রাখবে। সে কাজটা করার জন্য আপনার সামনে অনেক লজিক নিয়ে আসবে। আদম আর হাওয়াকে যেভাবে ধোঁকা দিয়েছিল ঠিক সেভাবেই। ঘটনাটা আমরা সবাই জানি। আল্লাহ্ আদম আর হাওয়াকে একটা গাছের ফল খেতে নিষেধ করেছিলেন। এমনকি সে গাছের কাছে যেতেও নিষেধ করেছিলেন। কিন্তু শয়তান তাদের সেই গাছের ফল খাইয়েই ছেড়েছিল। শয়তান প্রথমেই উনাদের বলেনি, “তোমরা এই নিষিদ্ধ গাছের ফল খাও।” শয়তান প্রথমে আদম অরি হাওয়াকেগিয়ে বলল, “দেখো! আমি তোমাদের বন্ধু, আমি তোমাদের উপকার করতে চাই। তোমরা যদি এই গাছের ফল খাও, তাহলে তোমরা চিরযৌবন পেয়ে যাবে। চিরকাল এই জান্নাতে থাকতে পারবে।” 

তাঁরা শয়তানের ধোঁকায় পড়ে আল্লাহর আদেশ অমান্য করে ফল খেলেন। চিরসুখের জান্নাত থেকে এই দুঃখ-কষ্টে ভরা দুনিয়াতে বনী আদমের যাত্রীর শুরটা এভাবেই। বনি ইসরাইলের বারসিসার ঘটনাটাও শয়তানের স্টেপ বাই স্টেপ ধোঁকার আরেকটি ক্ল্যাসিক উদাহরণ। অত্যন্ত ইবাদতগুজার বারসিসাকে শয়তান ধীরে ধীরে ধোঁকায় ফেলে এক তরুণীর প্রেমে মশগুল করে দেয়। তারপর তার সঙ্গে যিনা করিয়ে নেয়। মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হলে ইবলিস বারসিসাকে প্ররোচনা দেয় তাকে মেরে ফেলতে। সবশেষে বারসিসাকে বাধ্য করে শয়তানের উদ্দেশে সিজদাহ করতে। আপনাকে কাবু করার জন্য সে একই রকম ফাঁদ পাতবে। প্রথম স্টেপটা হবে আপাতদৃষ্টিতে খুবই সাধারণ, নিরীহ একটা বিষয়। রাস্তাঘাটে মেয়েদের দিকে তাকিয়ে থাকা, মাঝেমধ্যে মুভি দেখা, ইউটিউবে একটু ভিডিও দেখা, কোনো মেয়েকে ফেইসবুকে ফলো করা, প্রোফাইল পিকচারে লাইক দেয়া, মাঝেমধ্যে চ্যাট করা, বা “বোনের মতো”/ “জাস্ট ফ্রেন্ড” মেয়েবন্ধুদের সাথে একটু আড্ডা দেয়া, হ্যাং আউট করা ইত্যাদি। এ কাজগুলো করতে আপনার মন খুঁত খুঁত করলে। হাজারটী যুক্তি খাড়া করবে সে আপনার সামনে; আরে একদিনই তো…. মাঝেমধ্যে বিনোদনেরও তো একটু দরকার আছে নাকি! ইসলাম কি এতই কঠোর? আমি তো শুধু চ্যাটই করছি, প্রেম তো আর করছি না…, মেয়ে দেখলে কী আর এমন হবে; আল্লাহ্র (ঊ) এত সুন্দর সৃষ্টি, মা শা আল্লাহ্ দেখব না কেন? আমরা ও রকম না, একসাথে বসে আড্ডা দিলেও, একই রিকশায় ঠাসাঠাসি করে বসলেও আমাদের মনে খারাপ কিছু আসে না–আমরা জাস্ট ফ্রেন্ডস… এ রকম হাজার হাজার যুক্তি। যদি শয়তানের পাতা এই ফাঁদে একবার পা দেন, তাহলেই ফেঁসেছেন। বেশ ভালো সম্ভাবনা আছে শয়তানের হাতে নাকানি-চুবানি খেয়ে নিজের জন্য জাহান্নামের গর্ত বুকিং করার। নিজের ওপর অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের কারণে ভাবতে পারেন, আরে ধুর! অযথাই ভয় দেখাচ্ছেন আপনি… আমাকে কখনো শয়তান নাকানি-চুবানি খাওয়াতে পারবে না, উল্টো আমিই তাকে দৌড়ানি দেবো। ওই প্রথম স্টেপই কেবল, তারপর তো আর আগাচ্ছি না। আপনার মতোই বারসিসাও ভেবেছিল যে, “ওই প্রথম স্টেপ পর্যন্তই। তারপর তো আর আগাচ্ছি না।” কিন্তু একসময় হাঁটি হাঁটি পা পা করে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় সবগুলো স্টেপস পার করে শয়তানকে সিজদাহ করার মতো জঘন্য পাপ করে বসেছিল। অপিনার ক্ষেত্রেও যে এমনটা হবে না, তার গ্যারান্টি কী। বারসিসা ছিল খুবই বড় একজন ইবাদাত-বন্দেগী করনেওয়ালা (আবিদ)। কিন্তু শেষমেষ তারই এমন করুণ পরিণতি হয়েছিল–আমি, আপনি কোন ছার। তা ছাড়া, আল্লাহ্ আমাদের নিজেকে নিজেই ফিতনাহতে ফেলতে নিষেধ করেছেন। তিনি কিন্তু বলেননি তোমরা যিনী কোরো না, তিনি বলেছেন যিনার কাছেও যেয়ো না। কাজেই আত্মবিশ্বাসী হয়ে ড্যাম কেয়ার ভাব নিয়ে নিজেকে এই সব ফিতনাহর মধ্যে ফেলার কোনো মানেই হয় না। আত্মবিশ্বাস ভালো, তবে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস কেবল বোকাদেরই থাকে। রংবাজি করার আরও অনেক জায়গা পাবেন, এখানে না করাই ভালো। জান্নাত-জাহান্নামের প্রশ্ন এটা। বাস্তবতাটা বোঝার চেষ্টা করুন। আপনি খুব ভালো করেই জানেন কোন কোন বিষয়গুলো আপনাকে ফিতনাহর মধ্যে ফেলে। কোন ট্রিগারগুলো একটু একটু করে আপনাকে পর্ন দেখতে, হস্তমৈথুন করতে বা আসল যিনা করে ফেলতে ধাবিত করে। সে বিষয়গুলোর তালিকা করুন। ট্রাকের পেছনে লেখা থাকে, দেখেছেন না–১০০ হাত দূরে থাকুন? সেভাবেই যিনার দিকে ধাবিত করা সেই বিষয়গুলো থেকে ১০০ হাত দূরে থাকুন। ধারেকাছেও ঘেঁষবেন না। শয়তানকে কোনো সুযোগই দেবেন না। কোনো যুক্তিই মানবেন না। 

.

পাঁচ. 

গ্র্যাজুয়েশন শেষ করতে খুব বেশি দেরি নেই। একসময় জীবনের একমাত্র লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ছিল ভালো একটা চাকরি করে মনের মতো একজনকে বিয়ে করা। এখন চাকরির কথা মনে হলেই গা শিউরে ওঠে। চাকরি-টাকরি বাদ। ব্যবসা করব, ব্যবসা। ঘুমানোর আগে কাঁথা গায়ে দিয়ে ফুল স্পিডে ফ্যান ছেড়ে আমি ব্যবসার চিন্তা করি। মফস্বল শহরে অল্প টাকা নিয়ে ব্যবসা শুরু করব, তারপর আস্তে আস্তে ব্যবসা ফুলে ফেঁপে উঠবে। হেড কোয়ার্টারটা ওই মফস্বল শহরেই থাকবে, কিন্তু ব্রাঞ্চ খেলা হবে ঢাকাসহ দেশের সব বড় বড় শহরে। গাড়ি হবে, বাড়ি হবে, বউ হবে। প্রতিমাসে একবার কক্সবাজার, বছরে অন্তত একবার দেশের বাইরে টুর। ভবিষ্যতের এই সুখময় দিনের কথা ভাবতে ভাবতে আমার চোখের ঘুম কখন। হাওয়া হয়ে যায়! ভাগ্যিস আমার কাঁথাটা ছেঁড়া নী; নাহলে নিন্দুকেরা মুখ বেঁকিয়ে বলেই বসত, ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন! 

এই যে চিন্তা করতে পারা, ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতে পারা আল্লাহ্ কী বিশাল এক নিয়ামত সেটা কি আমরা কখনো ভেবে দেখেছি? কী গভীরভাবে মানুষ চিন্তা করতে পারে! কী ব্যাপক বিস্তৃত তার চিন্তাভাবনা! কত মোটাসোটা খটমটে, রসকষহীন বই সে লিখে ফেলেছে স্রেফ চিন্তা করেই! পাল্টে দিয়েছে পৃথিবীর গতিপথ! সুবহান আল্লাহ্!! চিন্তাশক্তিকে নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখা খুবই জরুরি। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পর্নোগ্রাফি/হস্তমৈথুন চটিগল্পের শুরুটা কিন্তু হয় লাগামছাড়া চিন্তাভাবনা থেকেই। রাতে ঘুমানোর আগে বা কোনো অলস মুহূর্তে কোনো মেয়ের কথা মনে হলো বা মনে হলো পর্ন ভিডিওতে দেখা কোনো দৃশ্যের কথা। আপনি সেই মেয়েকে নিয়ে বা দৃশ্য নিয়ে চিন্তাভাবনা করা শুরু করলেন। আপনার চিন্তাভাবনা ক্রমশ বিপজ্জনক হয়ে উঠল। আপনার ভেতরের প্রবৃত্তিকে জাগিয়ে তুলল। ওই জঘন্য কাজগুলো করার জন্য প্রেশার তৈরি করল। একসময় আপনি সেই চাপের কাছে মাথানত করবেন, আত্মসমর্পণ করবেন শয়তানের কাছে। তাই চিন্তার ব্যাপারে সাবধান। আপনার পদস্খলনের জন্য শয়তানের খুবই শক্তিশালী হাতিয়ার হচ্ছে অনিয়ন্ত্রিত, লাগামছাড়া চিন্তী। আবারও বলছি এটা খুবই শক্তিশালী হাতিয়ার। শয়তানের এই হাতিয়ার নিষ্ক্রিয় করে দিতে পারলে আপনার আসক্তি কাটানো খুবই সহজ হয়ে যাবে। কোনো মেয়েকে নিয়ে বাজে চিন্তা করা বা পর্ন অভিনেত্রীদের নিয়ে ফ্যান্টাসিতে ভোগীয় আনন্দ আছে, ক্ষণিকের মজা আছে। কিন্তু এর শেষ পরিণাম ভয়াবহ; জাহান্নামের লেলিহান শিখা। 

যা যা করতে পারেন :

১) কিছুক্ষণ চিন্তা করে মজা নিই, পরে আর চিন্তা করব না, এ রকম মন মানসিকতা থাকা যাবে না। বাজে চিন্তা আসামাত্রই আল্লাহ্ কাছে আশ্রয় চাইতে হবে। চিন্তার ডালপালা গজাতে দেয়া যাবে না। চিন্তার ফোকাস সরিয়ে ফেলতে হবে, মানুষজনের সাথে কথা বলতে হবে, জায়গা পরিবর্তন করতে হবে বা কোনো কাজে ব্যস্ত হয়ে যেতে হবে।

২) এমন কিছু মেয়ে থাকে যাদের কথা মনে হওয়া মাত্রই আপনার ভেতরে পর্ন দেখা বা হস্তমৈথুন করার একটা চাপ তৈরি হয়। ওইসব মেয়েদের কথা মনে হওয়া মাত্রই আপনি আল্লাহ্ কাছে আশ্রয় তো চাইবেনই সেই সাথে ওইসব মেয়েদের জন্যও দু’আ করবেন, যেন আল্লাহ্ তাদের হেদায়াত দেন, তাদের হৃদয়ের ক্ষতগুলো সারিয়ে তুলে পবিত্র জীবনযাপনের তাওফিক দেন। এভাবে দু’আ করাটা খুবই কার্যকরী। এর মাধ্যমে আপনার দৃষ্টিভঙ্গি বদলাবে। ওই মেয়েগুলো আপনার কাছে এখন আর কেবল ভোগের মাল না; বরং সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না সব মানবীয় অনুভূতি নিয়ে রক্ত-মাংসের একটা জলজ্যান্ত মানুষ। ওদেরও ভালোবাসতে ইচ্ছে করে, ভালোবাসা পেতে ইচ্ছে করে, স্বপ্ন দেখতে ইচ্ছে করে, প্রিয় মানুষটার কাঁধে মাথা রেখে জ্যোৎস্না দেখতে ইচ্ছে করে, আপনি আল্লাহর নাম স্মরণ করছেন, তার কাছে দু’আ করছেন। এ সময় শয়তান খুব। একটা সুবিধা করে উঠতে পারবে না। আপনার ফোকাস চেইঞ্জ হয়ে যাবে। আর আপনার দু’আর কারণে যদি আল্লাহ্ কাউকে হেদায়াত দিয়েই দেন, তাহলে কী বিপুল পরিমাণ পুরস্কার আপনার জন্য অপেক্ষা করবে সেটাও ভেবে দেখার বিষয়।

৩) বাজে চিন্তা যেন না আসে সে ব্যবস্থা করতে হবে। জাস্ট ফ্রেন্ড, জাস্ট ফ্রেন্ড খেলা, পবিত্র প্রেম, পবিত্র প্রেম খেলা বন্ধ করতে হবে। “আমরা শুধুই বন্ধু, আমাদের মন পবিত্র, মনে কোনো পাপ নেই, আমরা ভাই বোনের মতো”, প্লিয এ ধরনের হাস্যকর দাবি করবেন না। কেন এই মিছে অভিনয় করছেন? কেন নিজেই নিজেকে বোকা বানাচ্ছেন? আপনি জানেন যে, আমিও জানি আপনি যা বলছেন তা মিথ্যে। আপনি আপনার “জাস্ট ফ্রেন্ডদের নিয়ে ফ্যান্টাসিতে ভোগেননি, তাদের নিয়ে অন্য বন্ধুদের সঙ্গে রসালো আলাপ করেননি, তীদের ভেবে হস্তমৈথুন করেননি এইসব মিথ্যে বলবেন না। যেখানে মেয়েদের দিকে তাকানোই হারাম সেখানে তাদের সাথে প্রেম করা, বন্ধুত্ব করা, মেলামেশা করার তো প্রশ্নই আসে না। মেয়েদের সাথে অবাধ মেলামেশাও পুরুষের সেক্সয়াল মোড অন করে। পুরুষ যখন কোনো নারীর সাথে ইন্টার্যাকশানে যায় তখনো তার শরীরের ভেতর টেস্টোস্টেরোন নিঃসৃত হয় এবং তাকে সেই নারীর সাথে চূড়ান্ত পর্যায়ের অন্তরঙ্গ হবার জন্য প্রস্তুত করে। আর টেস্টোস্টেরোন নিঃসরণের মাত্রা যদি খুবই বেশি হয়, তাহলে ব্যক্তি অন্তরঙ্গ হবার প্রয়োজনীয়তা তীব্রভাবে অনুভব করে। আপনার “জাস্ট ফ্রেন্ড” বা প্রেমিকার সাথে তো আর ঠিক সেই মুহূর্তে অন্তরঙ্গ হতে পারছেন না, তাই বাথরুমে গিয়ে নিজেকে ঠান্ডা করছেন, ঠিক কিনা? দয়া করে এগুলো বন্ধ করুন। পর্ন/হস্তমৈথুন/চটিগল্পের আসক্তি থেকে ফিরে আসা এমনিতেই খুবই কঠিন। আপনার এ কাজগুলোর জন্য ফিরে আসা আরও কঠিন, এমনকি অসম্ভবও হয়ে দাঁড়ায়। 

৪) মাহরাম ছাড়া যত নারী আছে, তাদের সাথে পর্দা করুন। এমনকি নিকটাত্মীয়দের সাথেও। মাহরাম হচ্ছেন এমন একজন যাকে বিয়ে করা হারাম। যেমন : ছেলেদের জন্য দাদি, নানি, মা, দুধ-মা, খালা, ফুপু, বোন, দুধ-বোন, শাশুড়ি, মেয়ে, নাতনি, ভাইয়ের মেয়ে, বোনের মেয়ে, ছেলের বউ হলো মাহরাম। বাকি সবাই গাইর মাহরাম। মাহরাম ছাড়া অন্য যেকোনো মহিলাদের অর্থাৎ গাইর মাহরাম মহিলাদের বিয়ে করা জায়েজ। ভাবি, চাচি, মামি, শালি, কাযিন (মামাতো বোন, চাচাতো বোন, খালাতো বোন) এরা সবাই গাইরে মাহরাম। এদের সাথে পর্দা করতে হবে। পর্ন-আসক্তি বিশেষ করে চটিগল্পের নেশা ছাড়তে চাইলে অবশ্যই অবশ্যই এদের সঙ্গে পর্দা করতে হবে। তা না হলে তাদের সঙ্গে আপনার কথোপকথন, চলাফেরা, ওঠাবসা আপনাকে চটিগল্পগুলোর কথা বা ইনসেস্ট পর্নের কথা মনে করিয়ে দেবে। চটিগল্প বা পনের বিরুদ্ধে আপনি যে প্রতিরোধ ব্যুহ গড়ে তুলেছেন, তা ভেঙে তছনছ হয়ে যাবে। আপনি বার বার ফিরে যাবেন চটিগল্প কিংবা পর্নের কাছে। শয়তান সব সময় এই সম্পর্কগুলো দিয়ে মানুষকে ধোঁকা দেয়। তাই ভুল হয়ে যাবার (আল্লাহ্ না করুক) ভালো একটা আশঙ্কা থাকে। তা ছাড়া চটিগল্প পড়ার কারণে বা পর্ন দেখার কারণে আপনার মনে তাদের নিয়ে বাজে একটা চিন্তা সব সময় ঘোরাফেরা করে, আপনি বহু কষ্টে সেটি চাপা দিয়ে রাখেন। তাদের সঙ্গে মেলামেশী, কথাবার্তায় সেই চিন্তা ফুলে ফেঁপে উঠবে, বিস্ফোরণ ঘটতে কতক্ষণ?বলা যত সহজ পর্দা করাটা তত সহজ না। সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে পর্দা মেনে চলার। একান্তই সম্ভব না হলে চেষ্টা করুন। ইন্টার্যাকশান একেবারেই কমিয়ে ফেলতে৷ কাযিন, শালি, ভাবি, মেয়ে ক্লাসমেইট গল্প করতে এলে গোমড়া মুখে থাকুন, হ্যাঁ, হু-তেই কাজ সেরে ফেলুন। দেখবেন আস্তে আস্তে ওরা দূরে সরে যাবে। সবচেয়ে ভালো টেকনিক হলো “হুজুর” হয়ে যাওয়া। দাড়ি ছেড়ে দিন, মাথায় টুপি পরতে শুরু করুন, গাইরে মাহরাম মহিলা দেখলেই চোখ নামিয়ে ফেলার চেষ্টা করুন, দেখবেন কাযিন বা শালিরা আপনার সঙ্গে আড্ডা মারতে আসছে না, ভাবি আপনাকে দেখলেই মাথায় কাপড় দিয়ে আড়ালে চলে যাচ্ছেন। এ কাজগুলো যদিও এমনিতেই করা জরুরি, তবুও যদি না করে থাকেন, অন্তত এ উসিলায় করে ফেলুন। প্রথম প্রথম আপনার মনে হতে পারে কাযিন, ভাবি বা অন্য গাইর মাহরাম মহিলাদের থেকে এ রকম দূরে দূরে সরে থাকলে ওরা আপনাকে অসামাজিক ভাববে। ভাববে আপনি আলগী ভাব মারেন। পরে একসময় বুঝবেন ব্যাপারটা ঠিক উল্টো–এই দুরে দুরে সরে থাকার কারণেই তারা আপনাকে প্রচুর সম্মান করবে, শ্রদ্ধা করবে। ভালো ছেলের উদাহরণ দিতে গেলে আপনার নামটাই প্রথমে মনে। পড়বে। 

৫) সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো চোখের হেফাযত করা। রাসূল বলেছেন। “নজর হচ্ছে শয়তানের তীর। শুধু এই চোখের হেফাযতের মাধ্যমে আপনি পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে নিজেকে বাঁচাতে তো পারবেনই, সেই সঙ্গে আপনার জীবনটাই বদলে যাবে। এক সপ্তাহ চোখের হেফাযত করে দেখুন। পার্থক্যটা নিজেই টের পাবেন। 

রাসূলুল্লাহ বলেছেন, “মানুষের শরীরে এমন একটি গোশতপিণ্ড রয়েছে যা ঠিক থাকলে পুরো শরীর ঠিক থাকে; আর তা যদি নষ্ট হয়ে যায় তাহলে পুরো শরীর নষ্ট হয়ে। আর তা হলো ক্বলব বা হৃদয়।” 

(বুখারি : ৫২; মুসলিম :৪১৭৮)

ক্বলব বা হৃদয় ঠিক থাকলে ঈমান-আমল সবই ঠিক থাকবে, আর ফুলব কলুষিত থাকলে ঈমান-আমলের বারোটা বেজে যাবে। শয়তান তাই প্রথমেই আপনার। হৃদয়ের দখল নিয়ে নিতে চায়, যেন আপনাকে ইচ্ছেমতো নাকে ছড়ি দিয়ে ঘোরানো যায়। চোখের দৃষ্টি হলো শয়তানের তুরুপের তাস। এর মাধ্যমে সে অতি সহজেই আপনার হৃদয়ের দখল নিতে পারে। আর একবার হৃদয়ের দখল করে নিতে পারলে সে আপনাকে দিয়ে তার ইচ্ছেমতো পাপ কাজ করিয়ে নেবে। 

এই যৌন সুড়সুড়িতে সয়লাব সমাজে কি আদৌ চোখের হেফাযত করা সম্ভব?

জ্বী, কঠিন হলেও সম্ভব। রাস্তাঘাটে চলাচলের সময় মাটির দিকে তাকিয়ে হাঁটতে হবে, রাস্তার আশেপাশে, গার্লস স্কুলের ফুটপাতে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আড্ডা দেয়া যাবে না। যে জায়গাগুলোতে মেয়েদের আনাগোনা বেশি বা যে জায়গীতে ফ্রি মিক্সিংয়ের সম্ভাবনা বেশি সেই জায়গাগুলো পরিত্যাগ করতে হবে। সাহাবা, তাবেঈ এবং আগের যুগের নেককার মানুষদের চোখের হেফাযত সম্পর্কে জানতে হবে। তাঁদের প্রতিযোগী হিসেবে নিতে হবে; উনারা পারলে আমি কেন পারব না… 

মুভি, নাটক, গান-বাজনা থেকে অবশ্যই দূরে থাকতে হবে, পত্রিকার বিনোদন-পৃষ্ঠা সযত্নে এড়িয়ে চলতে হবে। বেশ কার্যকরী একটা উপায় হলো, আপনি একদিনে কতবার চোখের হেফাযত করতে পারলেন না সেটা হিসাব করে রাখা। তারপর কাফফারা হিসেবে প্রতিবারের জন্য দু-রাকাত করে নফল সালাত আদায় করা। মনে করুন, আপনি কোনো একদিন মোট ১০ বার চোখের হেফাযত করতে পারলেন না, তাহলে এই ১০ বারের জন্য মোট ২০ রাকাত নফল সালাত আদায় করুন। এভাবে করতে থাকুন। শয়তানের ধোঁকায় পড়ে আপনি চোখের হেফাযত করতে পারেননি, কিন্তু শয়তান যখন দেখবে আপনি প্রত্যেকবার চোখের হেফাযত না করার জন্য দু-রাকাত করে সালাত আদায় করছেন, তখন সে আফসোস করবে। আপনাকে নফল সালাতের সোয়াব থেকে বঞ্চিত করার জন্য সে নিজের গরজেই আপনাকে চোখের হেফাযত করতে সাহায্য করবে। নামায আদায় করার এ টিপস শোনার পরে মনে খুবই ভালো অনুভূতি কাজ করে, “যাক বাবা! আর চোখের হেফাযত করতে সমস্যা হবে না।” কিন্তু দুঃখের ব্যাপার হলো, এই টিপসের ওপর আমল করা কষ্টকর। আপনি সারাদিন মেয়েদের দিকে ইচ্ছেমতো তাকালেন, রূপসুধা পান করলেন এই ভেবে যে, “আমি রাতে তো নামায আদায় করে নেবই কাফফারা হিসেবে”, কিন্তু শেষমেষ দেখবেন নামায আর আদায় করা হয়ে উঠবে না। আমলের ব্যাপারে আন্তরিকতা না থাকলে চোখের হেফাযত আর করা হয়ে উঠবে না। তাই কঠোর প্রতিজ্ঞা করতে হবে যে ১০০ রাকাআত নামায হলেও আপনি ১০০ রাকাআত নামায আদায় করবেন। পর্ন ভিডিও দেখা, হস্তমৈথুনের দিকে ধাবিত করার উল্লেখযোগ্য আরেকটি মাধ্যম হলো ইউটিউব। আপনার মনে কোনো খারাপ উদ্দেশ্য নেই, স্রেফ একটা ভালো ভিডিও দেখার জন্য ইউটিউবে বসবেন, তারপর সাজেশান লিস্টে কিছু ভিডিও উঁকিঝুঁকি মারতে থাকবে। আপনি সেদিকে তাকাতে না চাইলেও মাঝে মাঝে চোখ চলে যাবে। আর তখনই শয়তান এসে কাঁক করে ধরবে। আর এটা বলবেন না যে, ইউটিউবে ১০ মিনিটের জন্য ভিডিও দেখতে বসে আপনি কেবল ১০ মিনিটই বসে থাকেন। একবার ইউটিউবে বসলে এক-দেড় ঘণ্টা কোন দিক দিয়ে চলে যায়, টেরও পাওয়া যায় না। শুধু শুধু সময় নষ্ট। তারচেয়ে এই সময়ে কিছুটা আঁতলামি যদি করতেন, তাহলে আপনার সিজিপিএ-টা স্বাস্থ্যবান হতো, ভালো একটা জব পেতেন আর কোনো রূপসী কন্যার বাবার মনটাও হয়তো ভবিষ্যতে গলত। 

অনেক সময় অবশ্য কোনো উপায় থাকে না। কোনো টিউটোরিয়াল দেখার জন্য বা ভালো কোনো লেকচার শোনার জন্য ইউটিউবে বসতেই হয়। পরামর্শ থাকবে বিসমিল্লাহ বলে ব্রাউযিং শুরু করুন। ভালো হয় K9 ইন্সটল করা থাকলে। চাইলেও 

আজেবাজে ভিডিওগুলোতে অ্যাক্সেস করতে পারবেন না। অবসর সময়ে কখনো ইউটিউবে বসে র‍্যান্ডমলি ভিডিও দেখবেন না (বাক্যটা কয়েকবার পড়ুন, মাথায় গেঁথে নিন)। অবসর সময়ে খুব বেশি বেশি কুমন্ত্রণী দেয় শয়তান, তার ওপর যদি আপনাকে ইউটিউবে র‍্যান্ডমলি ভিডিও দেখা অবস্থায় পায়, তাহলে তো ওর পোয়াবারো। ইউটিউবের ফাঁদ থেকে বাঁচার উপায় নিয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা পাবেন “বিষে বিষক্ষয়” নামক প্রবন্ধে। 

.

ছয়. 

হস্তমৈথুনে অভ্যস্ত করে তোলার জন্য শয়তানের আরেকটি কার্যকর ফাঁদ হলো স্বপ্নদোষ। সে আপনাকে বোঝাবে, “দেখ, স্বপ্নদোষ ব্যাপারটা বেশ বিরক্তিকর। শীতকাল হলে তো কথায় নেই। মাঝেরাতের ঘুমভাঙা চোখ, ট্রাউজার, লেপ, কম্বল ভিজে একাকার চিটচিটে, আঠালো লিকুইডে। গা গুলোয়। পানি গরম করা, বালতি নিয়ে টানাহেঁচড়া, বাবা-মা, ভাই-বোনদের লুকিয়ে খুব সাবধানে গোসল করা। কী ভীষণ লজ্জা! বাবা-মা একটু অন্যরকমভাবে তীকালেও সন্দেহ হয়, এই বুঝি বুঝে গিয়েছে! মনে কর তুই আত্মীয়স্বজনের বাসায় বেড়াতে গেলি। রাতে তোর স্বপ্নদোষ হলো সকালে উঠে ঘরভর্তি লোকজনের সামনে গোসল করা কত ঝামেলার! তা ছাড়া স্বপ্নদোষ শরীরের জন্য খুব ক্ষতিকর। তারচেয়ে তুই বরং সপ্তাহে একবার করে হস্তমৈথুন করে নে। তাহলে আর স্বপ্নদোষ নিয়ে ঝামেলা পোহাতে হবে না।” 

আমার এমন অনেক বন্ধু আছে, যারা এমনিতে হস্তমৈথুন করত না, কিন্তু শুধু স্বপ্নদোষের ঝামেলা থেকে বাঁচার জন্য নিয়মিত বিরতিতে হস্তমৈথুন করত। শয়তান তাঁদের ভালোই ধোঁকায় ফেলেছিল। স্বপ্নদোষ নিয়ে একটু বিস্তারিত আলোচনা করা দরকার। একটু বয়স হয়ে যাওয়ার পর সবাই কমবেশি সামলে নেয়, কিন্তু কৈশোরে বা প্রথম তারুণ্যে স্বপ্নদোষ খুবই ভীতিকর এক অভিজ্ঞতা। দশ-বারো বছরের বাচ্চা একটা ছেলে হুট করে যখন এক রাতে ঘুম ভাঙার পর দেখে তার প্যান্ট ভিজে গিয়েছে আঠালো লিকুইড়ে, তখন তার ঘাবড়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। দেহের আকস্মিক এই পরিবর্তনের রহস্য উদঘাটনে সে শরণাপন্ন হয় বন্ধু, পাড়ার ভাই-বেরাদর, কঠিন বা নিজের ভাই-বোনদের কাছে। বাবা-মা বা অন্য কোনো গুরুজনদের সঙ্গে তার দৈহিক পরিবর্তন নিয়ে আলোচনা করার কথা সে ভুলেও ভাবে না। কিছুটা লজ্জা আর বাকিটা জেনারেশন গ্যাপের কারণে। স্বপ্নদোষ সম্পর্কে আমাদের সমাজে প্রচলিত কুসংস্কার, হাতুড়ে ডাক্তার, হারবাল কোম্পানীর দৌরাত্ম্য, সঠিক তথ্যের অপ্রতুলতার কারণে একগাদা ভুলভাল তথ্যে বোঝাই হয় ছোট্ট মস্তিষ্ক। সে ঘাবড়ে যায় আরও। শারীরিক এবং মানসিক বিকাশ মারাত্মকভাবে বাধাপ্রাপ্ত হয়। 

অথচ মুসলিমদের এ রকমটা হবার কথা ছিল না। অপ্রয়োজনীয় লজ্জা-বিলাসিতা করা মুসলিমদের সাজে না। খোদ রাসূলুল্লাহকে মহিলা সাহাবীরা স্বপ্নদোষের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেছেন, “ইয়া রাসূলাল্লাহ! আল্লাহ্ সত্য প্রকাশে লজ্জিত হন না, একজন মহিলার স্বপ্নদোষ হলে তাকে কি গোসল করতে হবে?” আমরা লজ্জার দোহাই দিয়ে অতি প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো সম্পর্কে অজ্ঞ থেকে যাই। গুরুজনদের এই বিষয়গুলো নিয়ে প্রশ্ন করাকে বেয়াদবি মনে করি। ভাবখানা এমন, আমরা রাসূলুল্লাহ আর তার সাহাবীদের চেয়েও বেশি লজ্জাশীল হয়ে গিয়েছি! আমরা তাদের চেয়েও বেশি আদব-কায়দা জানি! আফসোস! আমাদের এই ব্যাপারগুলো নিয়ে খোলাখুলি কথা বলা উচিত। তার মানে আবার এটা না যে, “আমার স্বপ্নদোষ হয়েছে!” এই বলে বাজারে ঢোল পেটাব। একটু মাথা খাটালেই, শালীনতা বজায় রেখে খুবই কার্যকরীভাবে স্বপ্নদোষ নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করে সঠিক তথ্যগুলো সবাইকে জানানো যায়। মসজিদগুলোকে 

আমরা কাজে লাগাতে পারি। ইমাম সাহেব বা কমবয়সী কোনো আলিম একদিন মহল্লার সকল উঠতি ছেলেদের মসজিদে দাওয়াত করলেন। কিছু খাওয়া-দাওয়া, গল্পগুজব হলো। এরই ফাঁকে ফাঁকে পর্ন, হস্তমৈথুনের অপকারিতা, চোখের হেফাযতের গুরুত্ব, স্বপ্নদোষ, পবিত্রতা অর্জনের গুরুত্ব এবং পদ্ধতি নিয়ে আলাপ-আলোচনা করা হলো। খুঁজলে এমন অনেক চিকিৎসক পাওয়া যাবে, যারা খুব আগ্রহের সঙ্গে এ ধরনের প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করবেন। একটু আন্তরিকতা আর সদিচ্ছা থাকলেই সমাজের বিশুদ্ধতম মানুষগুলোর কাছ থেকে আমাদের কিশোরেরা এই অত্যাবশ্যকীয় জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। যৌনশিক্ষার পেছনে কাড়ি কাড়ি টাকা ঢালার কোনো দরকার নেই, দরকার নেই বিদেশি এনজিওর সাহায্য নিয়ে অ্যালফ্রেড কিনসি আর জন মানির মতো লোকদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের সুযোগ করে দেয়ার। খুব কম লজিস্টিক সাপোর্ট আর স্বল্প বাজেট দিয়েই সম্ভব কোয়ালিটি সেক্স এডুকেশন নিশ্চিত করা। আল্লাহ্র কসম! আমাদের মসজিদগুলো আজ বিরান হয়ে গিয়েছে। কুরআনের দারস নেই, হাদীসের হালাকী নেই। রোবটের মতো মানুষগুলো সিজদাহ দিয়ে নামায পড়ে, তারপর বের হয়ে আসে। মসজিদ কমিটির সদস্যদের এইগুলো নিয়ে তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই। তাদের সব মাথাব্যথা মসজিদে এসি লাগানো, টাইলস লাগানো নিয়ে। জাতি হিসেবে কোথায় চলেছি আমরা? মসজিদে তরুণেরা কুরআনি নিয়ে বসতে ভয় পায়! হালকা করতে ভয় পায়! খতীব সাহেবেরা দ্বীনের কথা, আল্লাহর রাসূলের কথা বলতে ভয় পান! যা হোক, আক্ষেপের প্যাচাল বাদ দিয়ে আসল কথায় আসি। 

স্বপ্নদোষ কী?

 স্বপ্নদোষ হলো ঘুমের মধ্যে নারী-পুরুষের অন্তরঙ্গতার স্বপ্ন দেখে স্বতঃস্ফূর্তভাবে যৌনাঙ্গ থেকে বীর্য বের হয়ে আসী। স্বপ্নদোষ সাধারণত রাতে হয়ে থাকে। এ কারণে একে অ্যাকাডেমিক্যালি Noctumal_Emissions বলা হয়। তবে মাঝেমধ্যে দিনেও স্বপ্নদোষ হয়ে থাকে। সব পুরুষই জীবনে অন্তত একবার হলেও এই অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে গিয়ে থাকেন। ইসলামী শরীয়াহ অনুযায়ী, স্বপ্নদোষ হলো একজন বালকের প্রাপ্তবয়স্ক হবার অন্যতম একটি নিদর্শন। প্রথমবার স্বপ্নদোষ হবার পর থেকেই একজন বালককে প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে বিবেচনা করা হবে এবং শরীয়াহ তার ওপর কার্যকর হবে। সাধারণত ১২-১৩ বছর বয়স থেকে স্বপ্নদোষ শুরু হয়। ছেলেদের যেমন স্বপ্নদোষ হয়, তেমন মেয়েদেরও স্বপ্নদোষ হয়। 

কেন স্বপ্নদোষ হয়?

এই প্রশ্নের উত্তর দেয়া কঠিন। নির্দিষ্ট করে বলা যায় না ঠিক কোন কারণে স্বপ্নদোষ হয়। 

স্বপ্নদোষ হওয়া শুরু হয় বয়ঃসন্ধিকালে, যখন পুরুষের শরীরে টেস্টোস্টেরোন হরমোন তৈরি হওয়া শুরু হয়। এই হরমোনের প্রভাবেই পুরুষ, পুরুষালি আচরণ করে, নারী-পুরুষ একে অপরের প্রতি দৈহিক আকর্ষণ বোধ করে। টেস্টোস্টেরোন হরমোন সিমেন (বীর্য) প্রডাকশনে সাহায্য করে। টেস্টোস্টেরোনের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়ে গেলে পুরোনো বীর্য স্বপ্নদোষের মাধ্যমে বের হয়ে যায় এবং নতুন বীর্য তৈরি হয়। দীর্ঘ সময় ধরে যৌন নিষ্ক্রিয়তা স্বপ্নদোষের আরেকটি সম্ভাব্য কারণ। যৌননিষ্ক্রিয়তা, টেস্টোস্টেরোনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়, যার কারণে স্বপ্নদোষ হয়। মাত্রাতিরিক্ত ক্লান্তি, টাইট পোশাক পরে ঘুমানো, দেরি করে ঘুমানো এবং দেরি করে ঘুম থেকে ওঠা, সকালে ঘুম ভাঙার পরে আবার ঘুমানো, সব সময় সেক্স ফ্যান্টাসিতে বঁদ হয়ে থাকা–এগুলোও স্বপ্নদোষের সম্ভাব্য কারণ। 

কত দিন পর পর স্বপ্নদোষ হয়?

নির্দিষ্ট করে বলার উপায় নেই। কারও কারও এক সপ্তাহ পর পর, আবার কারও কারও তিন-চার সপ্তাহ পর পর স্বপ্নদোষ হয়। 

স্বপ্নদোষ কী ক্ষতিকর?

 এটি নিয়ে আমাদের সমাজে বেশ বিভ্রান্তিমূলক কথাবার্তা ছড়িয়ে আছে। স্বপ্নদোষ সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক একটা ব্যাপার। এটা শরীরের জন্য মোটেও ক্ষতিকর না। আল্লাহ শুধু সেসব বিষয় হারাম করেছেন যেগুলো মানুষের জন্য ক্ষতিকর। যেমন ধরুন, মদ,গাঁজ। মানুষকে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য আল্লাহ্  এগুলোকে হারাম করেছেন। স্বপ্নদোষ সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক একটা ব্যাপার। এটাকে আল্লাহ্ হারাম করেননি; বরং এটাকে বানিয়েছেন সাবালকত্বের নিদর্শন। কুরআনে বলা হয়েছে : “আর তোমাদের সন্তানেরা বয়ঃপ্রাপ্ত হলে (স্বপ্নদোষের মাধ্যমে)…” 

(সূরা নুর; ২৪:৫৯)

 আল্লাহ থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ বলেছেন, “তিন ব্যক্তির অমিলনামা হতে কলম গুটিয়ে নেয়া হয়েছে, ১) ঘুমন্ত ব্যক্তির ঘুম থেকে জাগ্রত হবার আগ পর্যন্ত ২) শিশুদের প্রাপ্তবয়স্ক হবার আগ পর্যন্ত ৩) পাগলের হুশ হবার আগ পর্যন্ত।” 

(তিরমিযী :১৩৪৩; ইবনে মাজাহ : ৩০৩২; আন নাসাঈ : ৩৩৭৮) 

একজন ঘুমন্ত ব্যক্তি নিজেও জানে না ঘুমের ঘোরে সে কী করছে। তখন তার আমল লিপিবদ্ধ করা হয় না। স্বপ্নদোষ হয়ে থাকে ঘুমন্ত অবস্থায় এবং এটাকেও আমলনামায় লিপিবদ্ধ করা হয় না। ২৫৪ স্বপ্নদোষ যদি ক্ষতিকরই হতো, তাহলে আল্লাহ্ অবশ্যই একে হারাম করতেন এবং স্বপ্নদোষের কারণে শাস্তির ব্যবস্থা করতেন। তিনি (%) এর কোনোটাই করেননি। কাজেই আমরা মুসলিমরা চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করে নিতে পারি স্বপ্নদোষের কোনো ক্ষতিকর দিক নেই। চিকিৎসকদের ভাষ্য অনুসারেও স্বপ্নদোষ ক্ষতিকর নয়। পানি পান করা হালাল। তবে আপনি যদি গ্লাসের পর গ্লাস পানি পান করতেই থাকেন, করতেই থাকেন, তাহলে তা অবশ্যই ভালো না। অতিরিক্ত স্বপ্নদোষও ভালো না। যদি আপনার দীর্ঘদিন ঘন ঘন স্বপ্নদোষ হয়, মনে করুন প্রতিদিন বা দু একদিন পর পর স্বপ্নদোষ হয়, তাহলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পীরেন। আই রিপিট, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। হাতুড়ে ডাক্তার না। স্বপ্নদোষ নিয়ে শয়তান আপনাকে কুমন্ত্রণী দিতে এলে একদমই শুনবেন না তার কথা। স্বপ্নদোষ হচ্ছে হোক, কিন্তু স্বপ্নদোষ থেকে বাঁচার জন্য ভুলেও হস্তমৈথুন করবেন না। 

.

সাত

পরীক্ষার ফাঁদ ভয়ঙ্কর ফাঁদ। বিশেষ করে গায়ে বাতাস লাগিয়ে বেড়ানো, ফাঁকিবাজ ছাত্রদের জন্য। এমনিতেই পরীক্ষার মধ্যে মাথার ভেতর টেনশীন থাকে, তার ওপর সারা বছর পড়াশোনা থেকে দুরে থাকলে প্রচুর প্রেশার পড়ে। এ প্রেশার সামলাতে না পেরেই অনেকে পর্ন দেখে বা হস্তমৈথুন করে। অসংখ্য তরুণের সাথে আমরা কথা বলে দেখেছি, পরীক্ষার মৌসুমে তাদের পর্ন দেখার বা হস্তমৈথুন করার মাত্রা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পায়। আবার অনেকেই পরীক্ষার মধ্যে পর্ন দেখতে দেখতে বা হস্তমৈথুন করতে করতে আসক্ত হয়ে পড়ে। বাড়ে হতাশী, বাড়ে অস্থিরতা। ছাত্রজীবন অসাধারণ একটা সময়। এর প্রতিটি মুহূর্ত চুটিয়ে উপভোগ করা উচিত। ভাই আমার, অন্ধকার রুমে একা একা বসে পর্ন দেখে আর হস্তমৈথুন করে হতাশী আর অস্থিরতায় জীবনটা দুর্বিষহ করে তুলছ কেন? রুম থেকে একটু বের হও। দেখো কত সুন্দর একটা পৃথিবী তোমার জন্য অপেক্ষা করে আছে। বন্ধুদের সাথে আড্ডা দাও, দলবেঁধে ঘুরতে যাও, সবুজ ঘাসের ওপর খালি পায়ে হাঁটো, শুয়ে থেকে আকাশ দেখে, বৃষ্টিতে ভেজো, মাঠে খেলাধুলা করো, সাইক্লিং করো, দৌড়াও। খুব বেশি হতাশ লাগলে, মন খারাপ হলে মসজিদে যাও। তীক থেকে কুরআনের একটা কপি তুলে নাও। যেকোনো পেইজ বের করে পড়তে শুরু করো, দেখবে হতাশা, মন খারাপ কোথায় পালিয়ে যাবে! স্রেফ মসজিদে বসে থাকলেও দেখবে মন ভালো হয়ে যাবে। 

সারাদিন বই নিয়ে বসে থাকতে হবে, পড়াশোনা করতে হবে, এটা বলছি না। ক্লাসে ফেসবুকিং করার মাঝে মাঝে লেকচারের দিকে একটা কান খোলা রাখো। ইচ্ছে হলে মাঝে মাঝে লেকচার খাতায় তুলে রাখে। উইকএন্ডের একটা দিন বা ক্লাস টেস্টের আগে টপিকগুলোতে চোখ বুলিয়ে রাখে। যে বন্ধুর কাছে তুমি পরীক্ষার আগের রাতে পড়া বুঝতে যাও, তার কাছে পরীক্ষার আগের রাতে না গিয়ে উইকএন্ডগুলোতে যাও। এই ছোট ছোট কাজগুলোই তোমাকে অনেক এগিয়ে রাখবে। পরীক্ষায় আর চাপ পড়বে না। তোমাকে অমানুষিক পরিশ্রমও করতে হবে। হতাশাও আসবে না ইন শা আল্লাহ। উত্তেজিত স্নায়ুকে শিথিল করার জন্য পর্ন দেখতে হবে না বা হস্তমৈথুনও করতে হবে না। 

.

আট.

ফেইসবুক ছুরির মতো। চিকিৎসকের হাতে থাকলে ছুরি জীবন বাঁচায়, রংবাজের হাতে থাকলে জীবন কেড়ে নেয়। ফেইসবুকও তা-ই। ভালোমতো ব্যবহার করতে পারলে আপনার জীবনের গতিপথই পালটে দেবে ফেইসবুক। আর একটু অসতর্ক হলেই জীবন নষ্ট হয়ে যাবে। ফেইসবুক একসময় এমন ছিল না, জ্ঞানের প্রতিযোগিতা, সৌন্দর্যের প্রতিযোগিতা, দাম্পত্য জীবনের সুখ প্রদর্শনের প্রতিযোগিতা, ক্ষমতার দাপট দেখানোর প্রতিযোগিতা, নিজের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক জীবনের প্রদর্শনী ছিল না ফেইসবুকে। একবার চিন্তা করুন ফেইসবুক কতবার আপনার জীবনের স্বাদ নষ্ট করে দিয়েছে, বেঁচে থাকার ইচ্ছেকে মেরে ফেলেছে, অস্থিরতা, অশান্তি সৃষ্টি করেছে। দামি রেস্টুরেন্টে বন্ধুদের সেলফি দেখে, দেশ-বিদেশ ভ্রমণের ছবি দেখে আপনি অশান্ত, অস্থির হয়েছেন। ফেইসবুকে আপনার বন্ধুরা যখন তাদের জীবনের কাল্পনিক সুখ আর সাফল্যের ডালি সাজিয়ে বসেছে, তা দেখে আপনার অন্তর হয়েছে বিষাক্ত, পরশ্রীকাতর। হতাশীর শ্যাওলা জমেছে অপিনার মনে। দীর্ঘশ্বাস পড়েছে একের পর এক … “ধুর শালা! কিছুই হলো না জীবনে!” হতাশার শ্যাওলা আরও ঘন হয়েছে, হয়েছে আরও বেশি সবুজ। এই হতাশার মুহূর্তে কত অসংখ্যবার শয়তান আপনাকে পেয়ে বসেছে। আপনি পর্ন দেখেছেন, করেছেন হস্তমৈথুন, শেষমেষ আক্ষেপের অশ্রু ঘুম পাড়িয়েছে আপনাকে। যতটুকু পারুন, ফেইসবুকে কম সময় দিন। তবে বাধ্য না হলে একবারে ছেড়ে চলে যাবেন না। পরিমিত ফেইসবুকিং অনেক ক্ষেত্রেই খুবই উপকারী একটি বিষয়। ইসলামিক পেইজগুলো ফলো করুন, যারা সত্যকে মিথ্যার সঙ্গে মিশিয়ে দেয় না বা ইসলামকে পাশ্চাত্যের মনমতো ব্যাখ্যা করে না এমন হকপন্থী আলিমদের অনুসরণ করুন। এসব দিক থেকে ফেইসবুক আপনাকে অনেক সাহায্য করতে পারবে। 

আপনার যেসব বন্ধু অশ্লীল ছবি, ভিডিও ইত্যাদি শেয়ার করে তাদের আনফ্রেন্ড করে দিন। আনফ্রেন্ড করতে না চাইলে আনফলো দিন। আইডির ওপর কার্সর রাখলে following লিখাকে unfollow করে দেয়। এতে ওই আইডি আপনার ফ্রেন্ডলিস্টে থাকবে কিন্তু নিউজ ফিডে শো করবে না। এতে চোখের গুনাহও হলো না, বন্ধুও রাগ করল না। মাঝখানে আপনি ফিতনাহ থেকে বেঁচে গেলেন। ফেসবুকের ডান পাশে আসা বিভিন্ন মডেলদের ফলো করার আইডি, বিভিন্ন অশ্লীল পেইজের অ্যাড ইত্যাদি দূর করার জন্য facebook paurity নামের ব্রাউযার এক্সটেনশান ব্যবহার করতে পারেন। Firefox, chrome দুটোর ব্রাউযারের জন্যই পাবেন। অশ্লীলতা ছড়িয়ে বেড়ানো অসংখ্য পেইজ আছে ফেইসবুকে। এসব পেইজ কোনোমতেই ফলো করা যাবে না। ফলো করা যাবে না নায়িকা, অভিনেত্রী, মডেল বা কোনো সেলিব্রেটিকেই। আপনার হোমপেইজ রাখতে হবে একদম পরিষ্কার। কোনো মেয়ের ছবিই যেন না আসে। ফেসবুক স্ক্রল করতে করতে কোনো মেয়ের ছবি দেখে ফেললেও সেটা আপনাকে পর্ন দেখা বা হস্তমৈথুন করার ট্রিগার হতে পারে, উসকানি দিতে পারে। তাই আমাদের সাজেশন হলো মাহরাম ছাড়া আর কোনো মেয়েকেই আপনার ফ্রেন্ডলিস্টে না রাখা। এমন অনেক ভাই আছেন যারা পর্ন, হস্তমৈথুন ছাড়ার জন্য আদা জল খেয়ে নামেন। কিন্তু ফেইসবুকে নারীর ফিতনাহর জালে আটকে থাকার কারণে পর্ন, হস্তমৈথুন আর ছাড়া হয় না। আজকে, এ মুহূর্তেই বিপরীত লিঙ্গের সবাইকে আনফ্রেন্ড করুন। কানিদেরও। (কাযিনদের আনফ্রেন্ড করতে না চাইলে আনফলো দিয়ে রাখতে পারেন, কিন্তু আমরা এটাকে তীব্রভাবে নিরুৎসাহিত করব। সোজা আনফ্রেন্ড করুন। হয়তো কিছু কঠিন কথা শুনতে হবে, কিন্তু আলটিমেটলি এতে আপনি উপকৃত হবেন ইন শা আল্লাহ) 

খুঁজে খুঁজে ফ্রেন্ডলিস্টের সব মেয়ে/ছেলেদের বের করে আনফ্রেন্ড করা ঝামেলার এবং সময়সাধ্য ব্যাপার। তবে এর সহজ সমাধান আছে। 

ছেলেদের জন্য :

নিচের লিংক গেলে, আপনার ফ্রেন্ড লিস্টে যাদের জেন্ডার ফিমেইল দেয়া তাদের। সব আইডি চলে আসবে ইন শা আল্লাহ্। তারপর খুব সহজে তাদের আনফ্রেন্ড করে দিতে পারবেন। https://www.facebook.com/search/females/me/friends/intersect

ওপরের লিংকে সমস্যা হলো এ লিংকটি ব্যবহার করুন:

https://m.facebook.com/search/females/me/friends/intersect

মেয়েদের জন্য :

নিচের লিংকে গেলে, আপনার ফ্রেন্ড লিস্টের যেসব আইডির জেন্ডার মেইল দেয়া তাদের সব আইডি চলে আসবে ইন শা আল্লাহ্। তারপর তাদের আনফ্রেন্ড করে দিতে পারবেন খুব সহজে। https://www.facebook.com/search/males/me/friends/intersect

 ওপরের লিংকে সমস্যা হলে : https://m.facebook.com/search/males/me/friends/intersect

বিপরীত লিঙ্গের কারও সাথে ফেইসবুকে কখনোই ইন্টার্যাকশনে যাবেন না। কখনোই চ্যাট করবেন না। মোটামুটি ইসলাম প্র্যাক্টিসিং ভাইয়েরাও এ ফাঁদে পড়ে যান। কোনো মেয়ে আপনাকে ইনবক্সে কিছু জিজ্ঞাসা করলেও উত্তর দেয়ার দরকার নেই। আপনি যে ফিতনাহর ভয়ে রিপ্লাই দিতে চাচ্ছেন না এটা বলারও দরকার নেই। শয়তান আপনাকে বার বার ধোঁকা দিতে চাইবে। আপনাকে স্মরণ করিয়ে দেবে দাওয়ার গুরুত্ব এবং ফযীলতা শয়তানের ধোঁকায় ভুলবেন না। কমেন্ট, ইনবক্সে দ্বীনের দাওয়াত দিতে গিয়ে কখন যে দিলের দাওয়াত দিয়ে বসে থাকবেন তা টেরও পাবেন না। আপনাদের অনুরোধ করব দয়া করে ফেইসবুকে ছবি আপলোডের পরিমাণ একটু কমান। উঠতে-বসতে সেলফি তোলা আর সেটা ফেইসবুকে আপলোড দেয়া যে একধরনের অসুস্থতা, মানসিক ভারসাম্যহীনতা সেটা কেন আপনারা বোঝেন না? ফেইসবুকে ছবির পর ছবি আপলোড করে, কাল্পনিক সব স্ট্যাটাস দিয়ে আপনি যে মিথ্যে সুখের ফানুস ওড়াচ্ছেন তাতে আপনার কী লাভ হচ্ছে? আপনার কারণে কত মানুষের অন্তর বিষিয়ে যাচ্ছে! টানাপোড়েন সৃষ্টি হচ্ছে সম্পর্কে। সেই সঙ্গে চোখের “নজর” লেগে আপনার ক্ষতি হচ্ছে! আপনার ক্রমাগত সেলফি আপলোড দেয়াতে সবাই যে বিরক্ত হয়, কিন্তু ভদ্রতার খাতিরে কেউ বলে না এটা কেন বোঝেন না? বোনেরা আমার, আপনারা কেন বোঝেন না, আপনাদের ছবিগুলোতে প্রশংসামূলক কমেন্ট করা ছেলেগুলো আপনাদের নিয়ে ফ্যান্টাসিতে ভোগে? তাদের বন্ধুদের সঙ্গে আপনাদের নিয়ে কুৎসিত আলোচনা করে? আপনারা আসলেই কি চীন কোনো বিকৃত রুচির ছেলের যৌন ফ্যান্টাসি আর হস্তমৈথুনের নায়িকা হতে? ঠিক বুঝি না, বুঝতে পারি না আপনারা কেন যে নিজেরাই নিজেদের এভাবে অপমানিত করেন! কিছু প্রতারক চক্র ফেইসবুক থেকে মেয়েদের ছবি সংগ্রহ করে, তারপর এডিট করে পর্নসাইট বা চটিগল্পের পেইজে দিয়ে দেয়, অনেক সময় ব্ল্যাকমেইল করে। এ কথাও মাথায় রাখা দরকার। 

.

নয়.

শয়তানের পাতা আরেকটি মারাত্মক ফাঁদ হলো আধুনিক বয়ফ্রেন্ড/গার্লফ্রেন্ড কালচার। গার্লফ্রেন্ড নিয়ে শয়তান খুবই মারাত্মক ফাঁদ পাতে। পর্ন ও হস্তমৈথুন আসক্তি থেকে মুক্তি পাবার জন্য আমাদের একটা টিপস ছিল যে, একজন খুবই কাছের বন্ধুকে সব খুলে বলে তার কাছে সাহায্য চাইতে হবে। শয়তান আপনাকে বোঝাবে, “আরে পাগলা, গার্লফ্রেন্ডের চেয়ে কাছের মানুষ কে আছে তোর? তার সাথে সবকিছু শেয়ার কর। সে কি তোর জন্য মূর্তিমান এক প্রেরণী নয়? তার চোখের দিকে তাকিয়ে, তার হাত নিজের মুঠোতে নিয়ে তুই কি নিজের মধ্যে বিশ্বজয়ের শক্তি অনুভব করিস না? তা ছাড়া বিদ্রোহী কবি বলেছেন, ‘কোন কালে একা হয়নি কে জয়ী পুরুষের তরবারী প্রেরণা দিয়েছে, শক্তি দিয়েছে বিজয় লক্ষী নারী’ গার্ল ফ্রেন্ডের প্রেরণাতেই তুই বিদায় জানাতে পারবি পর্ন অর হস্তমৈথুন আসক্তিকে।” প্রেম নিজেই এক মারাত্মক ফিতনাহ। পদে পদে আল্লাহর আদেশ অমান্য করা। গার্লফ্রেন্ডের সঙ্গে কথা বলার মাধ্যমে, তার দিকে তাকানোর মাধ্যমে, ডেটিং করার মাধ্যমে, স্পর্শ করার মাধ্যমে আপনি আল্লাহর আদেশ অমান্য 

 রাসুলুল্লাহ বলেছেন, তোমরা নজরলাগা থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাও। কেননা, নজরলাগা সত্য। ইবনু মাজাহ করে চলেছেন আর শয়তানকে সুযোগ করে দিচ্ছেন আপনার অন্তরের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার। আপনার অন্তরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সে আপনাকে দিয়ে ইচ্ছেমতো পাপ কাজ করিয়ে নিচ্ছে। আপনি পর্ন দেখছেন। হস্তমৈথুন করছেন। প্রেমকে হস্তমৈথুন/পর্ন-আসক্তি থেকে মুক্তির মহৌষধ মনে করার কোনো কারণ নেই। প্রেম আপনাকে খুব অল্প সময়ের জন্য পর্ন-হস্তমৈথুন থেকে দূরে রাখতে পারবে হয়তো, কিন্তু দীর্ঘমেয়াদি কোনো সমাধান দিতে পারবে না। সে প্রেম যতই “পবিত্র”(?) হোক না কেন। অধিকাংশ ছেলেরা কী করে? নিজেই বলুন। প্রেমও করে আবার পর্ন ভিডিও দেখে, হস্তমৈথুন করে। এ হারাম সম্পর্কটা হুড তোলা রিকশী, কেএফসি, আলো-আঁধারির রেস্টুরেন্ট, স্টার সিনেপ্লেক্স পর্ব শেষে আপনাকে লিটনের ফ্ল্যাটে কিংবা “রুম ডেইটে” নিয়ে যেতে পারে। আর সেটা নিশ্চয়ই পর্ন আর হস্তমৈথুনের চেয়েও জঘন্য এক ব্যাপার। 

.

দশ.

আপনি নিজে পর্নহস্তমৈথুন/চটিগল্পের আসক্তি থেকে মুক্তি পেতে চাইলে এমন সব বন্ধুদের গুডবাই জানাতেই হবে, যারা নিজেরাও ওইসবে আসক্ত। ওদের সাথে। ওঠাবসা চালিয়ে গেলে আসক্তি থেকে বের হয়ে আসা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। ওরা। আপনাকে পর্ন দেখার আমন্ত্রণ জানাবে, “চল দোস্ত, আজকে একটু দেখি…”, “নতুন কালেকশন আছে। দেখবি চল…” হয়তো-বা বসে আড্ডা দিচ্ছেন। হুট করে কেউ চটিগল্প বা পর্ন ভিডিওর গল্প শুরু করে দিলো, মেয়েদের নিয়ে রসালো আলাপ শুরু করে দিলো। তাদের আলোচনায় আপনি যোগ না দিলেও অশ্লীল কিছু টার্ম, কিছু শব্দ গেঁথে যাবে আপনার মাথায়। পরে আপনার মস্তিষ্ক যখন অলস থাকবে, আপনি একা থাকবেন বা ঘুমাতে যাবেন তখন আপনার মাথায় ওই শব্দগুলো ঘুরতে থাকবে। ক্রমাগত আপনাকে জ্বালাতে থাকবে। পর্ন না দেখা পর্যন্ত, হস্তমৈথুন না করা পর্যন্ত আপনি নিস্তার পাবেন না। চিন্তার জ্বলুনি থেকে। “পিচ্চিকালের বন্ধু, ওদের ছাড়া থাকবি কীভাবে? একসঙ্গে গ্রুপস্টাডি করিস, ওদের থেকে দূরে সরে গেলে কে তোকে পড়া বুঝিয়ে দেবে, কার কাছে নোট পাবি?” এসব বলে শয়তান আপনাকে ধোঁকা দেবার চেষ্টা করবে। ওর কথায় কান দিয়েছেন তো মরেছেন। আপনার জীবনটাকে ধ্বংস করে ছাড়বে এসব বন্ধুরা। আপনাকে টেনে নিয়ে যাবে জাহান্নামে। 

 “হায় আমাদের দুর্ভোগ আমি যদি অমুক ব্যক্তিকে বন্ধুরূপে গ্রহণ না করতাম। আমার কাছে উপদেশ আসার পর সে আমাকে তা থেকে বিভ্রান্ত করেছিল। শয়তান তো এমনই চরিত্রের যে, সময়কালে সে মানুষকে অসহায় অবস্থায় ফেলে চলে 

(সূরা আল ফুরকান; ২৫:২৮-২৯) “বন্ধুবর্গ সেদিন একে অপরের শত্রু হবে, তবে খোদাভীরুরা নয়।” 

 (সূরা আয যুখরুফ ৪৩:৬৭)

আল্লাহর  জন্য বিদায় বলে দিন ওইসব বন্ধুদের। আল্লাহ্ আপনাকে এদের চেয়েও উত্তম বন্ধু মিলিয়ে দেবেন ইন শা আল্লাহ্। মানুষ একাকী থাকতে পারে না, বিচ্ছিন্ন হয়ে জীবন কাটাতে পারে না। তাই আমাদের সাজেশীন হবে এ্যাক্টিসিং মুসলিম ভাইদের (সমাজের ভাষায় “হুজুর” ) সঙ্গে ওঠাবসা করুন। ইন শী আল্লাহ্ তাঁদের সাহচর্য আপনাকে সহায়তা করবে আসক্তি দূর করতো। 

.

এগারো.

যুবকদের যৌনাকাঙ্ক্ষা দমিয়ে রাখার একটি পদ্ধতি রাসূলুল্লাহর হাদিস থেকে জানা যায়। রোযা রাখা।“ প্রতি সপ্তাহে দুদিন, সোমবার আর বৃহস্পতিবার রোযা রাখী শুরু করতে পারেন। দেখবেন মাস দেড়েকের মধ্যে আপনি অনেক এগিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু শয়তান আপনাকে রোযা রাখতে দিতে চাইবে না; “এত লম্বা দিনে। কীভাবে রোযা রাখবি, ক্লাস আছে, ল্যাব আছে… পারবি না, রোযা রাখলে তুই শুকিয়ে যাবি, চেহারা নষ্ট হয়ে যাবে…” 

আল্লাহর ওপর ভরসা করে রোযা রাখা শুরু করে দিন। আল্লাহ সহজ করে দেবেন ইন শা আল্লাহ। একই কথা খাটে দান-সাদকৗহর ব্যাপারেও। প্রত্যেকবার হস্তমৈথুন করার পর বা পর্ন দেখার পর আপনি যখন পীপের কাফফারা হিসেবে দান-সাদকাহ করতে যাবেন, তখন শয়তান আপনাকে ভয় দেখাবে, “দান। করলে তো টাকা শেষ হয়ে যাবে। মাস চালাবি কী করে?” এসব ফিসফিসানিকে কোনোরকমের গুরুত্ব দেয়া যাবে না। আল্লাহ্ নিজেই ঘোষণা দিয়েছেন, দান করলে তিনি ধন-সম্পদ বাড়িয়ে দেন, তাই শয়তানের কথায় কান না দিয়ে দান করতে থাকুন। 

.

বারো.

 নাটক, সিরিয়াল, সিনেমা, গান, আইটেম সং এগুলো শয়তানের খুবই ভয়ঙ্কর ফাঁদ। এগুলো থেকে দূরে না থাকলে কোনোমতেই চোখের হেফাযত করা সম্ভব না। শয়তান এ ফাঁদ পেতে খুব সহজেই আপনার অন্তর দখল করে নিতে পারে। অন্তরের নিয়ন্ত্রণ শয়তানের হাতে তুলে দিলে কী হবে সেটা বলাই বাহুল্য। বিশেষ করে বলিউডের আইটেম সং খুবই বিষাক্ত। একজন সুস্থ স্বাভাবিক পুরুষ আইটেম সং দেখলে কীভাবে স্থির থাকতে পারে? আপনি যদি আইটেম সং দেখা ছাড়তে না পারেন, তাহলে পর্ন-হস্তমৈথুন আসক্তি কাটানোর চিন্তা বাদ দিন। এ পর্যন্ত পড়ার পর আপনি নিশ্চয়ই আমাদের ওপর ক্ষেপে গিয়েছেন–গান শোনা যাবে না, মুভি সিরিয়াল দেখা যাবে না, প্রেম করা যাবে না, মেয়েবন্ধ থাকা যাবে না, ফেইসবুকে মেয়েদের সঙ্গে চ্যাট করা যাবে না, ইউটিউবে র‍্যান্ডমলি ভিডিও দেখা যাবে না… তাহলে করা যাবেটা কী? ইসলাম কি এতটাই কঠোর? ইসলামে বিনোদন বলে কিছু নেই? অবসরে করবটা কী? 

অবসরে কী করবেন, মুভি-সিরিয়ালের বদলে কী দেখবেন, গানের বদলে কী শুনবেন তা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে আমাদের পরের লেখায়। পড়ে ফেলুন। কিন্তু তার আগে আপনার কিছু বিষয় জানা দরকার… অ্যামেরিকা! স্বপ্নের দেশ! যে দেশের আকাশে-বাতাসে সুখ আর আনন্দ ভেসে বেড়ায়। যে দেশের মানুষদের মতো হতে পারাটাই আমরা মনে করি আধুনিকতা, জীতে উঠতে পারা, জীবনের সার্থকতা। যাদের লাইফস্টাইল আমরা অন্ধের মতো অনুকরণ করি। আমাদের পরম আকাঙ্ক্ষিত সব উপাদানই আছে তাদের যাপিত জীবনে–বন্ধু, আড্ডা, গান, উদ্দাম পাটি, গার্লফ্রেন্ড-বয়ফ্রেন্ড, ফ্রি মিক্সিং, ফ্রি সেক্স, মুভি, সিরিয়াল, ড্রাগস… সবকিছুই। বিনোদনের এক মহাসমুদ্রে ডুবে আছে এরা। আমাদের চোখে জীবনে সুখী হতে হলে যা যা দরকার, তার সবকিছুই আছে এই অ্যামেরিকানদের। সুখের যে সংজ্ঞা আমরা বানিয়েছি সেটা অনুযায়ী অ্যামেরিকানদের সবচেয়ে বেশি সুখী হবার কথা। 

কিন্তু… 

কিন্তু তারপরও কেন প্রতি ১০ জনে ১ জন অ্যামেরিকান তীব্র হতাশায় ভোগে?

কেন প্রতিবছর ৪৪,১৯৩ জন অ্যামেরিকান আত্মহত্যা করে? প্রতিদিন গড়ে প্রায় ১২১ জন?

কেন অ্যামেরিকার কিশোর-কিশোরীরা ব্যাপকভাবে আত্মহত্যাপ্রবণ হয়ে উঠছে? কেন অ্যামেরিকানদের আত্মহত্যার হার আগের চেয়ে প্রায় ২৪ শতাংশ বেড়েছে? মনে করুন আর আধঘণ্টা পর খুব কঠিন এক কোর্সের ফাইনাল পরীক্ষা। আপনি তেমন কিছুই পারেন না। তার ওপর কোর্স টিচার মারাত্মক রকমের হাড়কিপটে, নাম্বার দিতেই চান না। আর সেই সাথে তাঁর অতীত “সুনাম” আছে প্রশ্নপত্র কঠিন করে স্টুডেন্টদের সাথে “মজা” নেয়ার। নিরুপায় হয়ে পরীক্ষায় আসতে পারে এমন কিছু প্রশ্নের উত্তর পিডিএফ বানিয়ে আপনি মোবাইলে নিয়ে নিলেন। কিন্তু পরীক্ষার হলে মোবাইল নিয়ে যাওয়া নিষেধ। কারও কাছে মোবাইল পেলেই তৎক্ষণাৎ সে। ছাত্রকে হল থেকে বহিষ্কার করে দেয়া হবে, সেই সাথে এক বছর ড্রপ। তো এমন এক ভয়াবহ পরিস্থতিতে, আপনি পকেট থেকে আলতো করে মোবাইল বের করে টুকলিফাই শুরু করেছেন পরীক্ষার হলে। স্বাভাবিকভাবেই আপনি প্রচণ্ড অস্থিরতায় ভুগছেন। ফ্যানের নিচে থেকেও আপনার কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমে গেছে। হার্টবিট বেড়ে গেছে। সারাক্ষণ ভয়ে ভয়ে আছেন এই বুঝি স্যারের হাতে ধরা খেয়ে গেলেন। আপনার মন বড় অশান্ত, বড় অস্থির। সুবহান আল্লাহ্! একটু চিন্তা করে দেখুন দুনিয়ার সামান্য মানুষের বানানো আইন ভাঙার কারণে, খুব ছোট একটা অপরাধ করার কারণেই আপনার মনের শান্তি কর্পূরের মতো উবে গেছে। তাহলে আকাশ ও জমিনের সৃষ্টিকর্তা, যিনি অনস্তিত্ব থেকে অস্তিত্বে এনেছেন সবকিছুকে, সেই মহিমান্বিত আল্লাহ্ আইন। প্রতিনিয়ত ভেঙে, প্রতিনিয়ত আল্লাহর সঙ্গে বিদ্রোহ করে আপনি কী করে অন্তরে শান্তি পাবেন? বলুন, কীভাবে শান্তি পাবেন? আল্লাহ্ আপনাকে বলেছিলেন দৃষ্টি সংযত করতে, চোখের হেফাযত করতে।

 “মুমিন পুরুষদের বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি অবনত রাখে এবং তাদের লজ্জাস্থানের হেফাযত করে। এটাই তাদের জন্য উৎকৃষ্ট পন্থা। নিশ্চয় তারা যা কিছু করে আল্লাহ তা সম্পর্কে পূর্ণ অবহিত আছেন।” 

 (সূরা আন-নূর; ২৪:৩০)

 আপনি প্রতিনিয়ত তাঁর সেই আদেশকে বুড়ো আঙুল দেখাচ্ছেন। রাস্তায় মেয়েদের চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছেন, বন্ধুদের সঙ্গে মেয়েদের ফিগার নিয়ে থিসিস করছেন, গভীর রাতে আপনার মোবাইলের স্ক্রিন নীল হয়ে যায়, সার্ফিং করে বেড়ান এক্স রেইটেড সব ওয়েবসাইটে, পর্নস্টার আর আইটেম গার্লরা আপনার ড্রিম গার্ল, স্বপ্নের রাজকন্যা। আপনি কীভাবে শান্তি পাবেন? বন্ধু, আড্ডা, গান, জিএফ, বিএফ, সিরিয়াল, ফেইসবুকিং, সেলফি, ডিএসএলআর, কেএফসি, পিৎ হাট এগুলো নিয়েই কেটে যাচ্ছে আপনার অষ্টপ্রহর। ভাবছেন, বেশ তো! সুখেই আছি। বুকে হাত রেখে একবার সত্যি করে বলুন তো, আপনি কি আসলেই শান্তিতে আছেন, সুখে আছেন? কেন এক বিকেলে ঘুম থেকে উঠে শেষ বিকেলের মরা আলোয় অজানা কারণে আপনার মন খারাপ হয়ে যায়? গভীর রাতে কী যেন ভেবে আপনার চোখ ভিজে যায়। দলাবাঁধী কষ্টগুলো ভিড় জমায় বুকের ভেতর। অন্তরটী শূন্য মনে হয়। কী যেন নেই আপনার! কোথায় যেন একটা অপরিপূর্ণতা, অসম্পূর্ণতা! কোথায় যেন কিসের একটা অভাব! জীবনটা বড্ড বেশি জটিল মনে হয়! আইটেম গার্লদের কোমর দোলানি আর দেহের ভাঁজ দেখে আপনার মন কি অস্থির, অশান্ত হয়ে যায় না? মনের ভেতরের পশুটা কি আপনাকে কুঁড়ে কুঁড়ে খায় না? প্রত্যেকবার পর্ন ভিডিও দেখার পর, হস্তমৈথুন করার পর আপনার কি মরে যেতে ইচ্ছে করে না? মনে হয় না কেন করলাম, কেন? কিসের নেশায় ডুবে আছেন ভাই আপনি? কিসের নেশীয়? পর্নস্টারের নিটোল দেহ, গার্লফ্রেন্ডের “মনে ঝড় তোলা চোখ”, আইটেম গার্লদের লাস্যময়ী হাসি? আপনি এদের কি একেবারে নিজের মতো করে কখনো পাবেন? পাবেন না। এরা তো মরীচিকা ছাড়া কিছুই না। এরা একদিন বুড়িয়ে যাবে। দেহে ভাঁজ পড়বে, চামড়া কুঁচকে যাবে, দাঁত পড়ে যাবে, চোখ ধূসর হয়ে যাবে, চুল পাটের শণের মতো হয়ে যাবে। সবশেষে মাটির নিচে পোকামাকড়ে খুবলে খুবলে খাবে এদের দেহ, পচে গলে দুর্গন্ধ ছড়াবে। এ নিয়েই আপনার এত আকর্ষণ! এদের কারণেই আপনি সে জাহান্নামের আগুনকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিচ্ছেন, যা অন্তর পর্যন্ত পুড়িয়ে ফেলবে আর যার ইন্ধন হবে মানুষ ও পাথর। আপনি ভুলে যাচ্ছেন আপনার সেই “আয়তনয়না” জান্নাতি স্ত্রীর কথা, যিনি আপনার জন্য শত সহস্র বছর ধরে অপেক্ষা করে আছেন। যাঁর মাথার স্কার্ফ এ দুনিয়া এবং আকাশের মধ্যবর্তী সবকিছুর থেকেও উত্তম। প্রবাল ও পদ্মরাগ-সদৃশ জান্নাতের স্ত্রীদের সৌন্দর্যের ব্যাপারে স্বয়ং আল্লাহ্ সাটিফিকেট দিয়েছেন। ঝুম বৃষ্টিতে স্ত্রীকে নিয়ে রিকশায় বসে লক্ষ কোটি বছরের বৃষ্টিবিলাস, হাঁ করে জ্যোৎস্না গেল, শেষ বিকেলের মরে আসা নরম হলুদ আলোয় দুজন দুজনার চোখের দিকে তাকিয়ে হাজার হাজার বছর কাটিয়ে দেয়া –আপনি যা কিছু কল্পনা করতে পারেন, আর যা কিছু পারেননা, জান্নাতের সুখ ছাড়িয়ে যাবে তার সব কিছুকেই। ইচ্ছে হলে দুজনে ঘুরে বেড়াবেন জান্নাতের বাগানে। মাথার ওপর থেকে আলতো করে পড়বে গাছের ঝরা পাতা। আপনার স্ত্রী আপনার কাঁধে মাথা রেখে হাঁটবেন, আপনি তাঁকে শোনাবেন শাশ্বত প্রেমের কোন কবিতা…। এ অসীমকে এ আমরা কিসের জন্য ছুঁড়ে ফেলছি? কিসের মোহে বিকিয়ে দিচ্ছি? আমি, আপনি কত পাগল, কত পাগল! “.নারী জাতির প্রতি ভালোবাসা, সন্তানসন্ততি, রাশিকৃত সোনা-রুপা, চিহ্নিত অরাজি, গৃহপালিত জন্তু ও খেতখামার মানুষের জন্য লোভনীয় করে রাখা হয়েছে। অথচ এ সবই হচ্ছে পার্থিব জীবনের কিছু ভোগের সামগ্রী মাত্র। কিন্তু স্থায়ী পরিণামের সৌন্দর্য কেবল আল্লাহরই কাছে।” 

(সূরা আলে ইমরান;)

পর্ন ভিডিওর ফ্যান্টাসি, আইটেম গার্লদের গ্ল্যামারে কোনো শান্তি নেই। এগুলো বরং আপনার অন্তরকে ক্ষত-বিক্ষত করে তোলে। শান্তি নেই ঝুমবৃষ্টিতে গার্লফ্রেন্ডের সাথে একই রিকশাতে পাশাপাশি বসে কাকভেজা হয়ে ভেজায়, চাঁদনি পসর রাতে হাঁ করে জ্যোৎস্না গেলায়। এগুলো আপনাকে ক্ষণিকের আনন্দ আর সাময়িক উত্তেজনা দিতে পারে, কিন্তু শান্তি দিতে পারে না। শান্তি আছে, আল্লাহ্র () আদেশ মেনে দৃষ্টি হেফাযত করার মধ্যে। শান্তি আছে আপনার রবকে সিজদাহ করার মধ্যে, রবের সামনে রাতে একাকী দাঁড়িয়ে চোখের পানি ফেলাতে। নিজের নফসের অবাধ্যতা করে রবের দাসত্ব করাতে বিশ্বাস করুন এ শান্তি অমূল্য। দুনিয়ার কোনো কিছুর বিনিময়ে এই শান্তি পাওয়া যায় না। একবার এ শান্তি পেলে আপনি বার বার চাইবেন এ শান্তি পেতে। একবার চেষ্টা করেই দেখুন না। একটা সপ্তাহ আল্লাহ নাফরমানি না করে চোখের হেফাযত করে দেখুন না ফলাফল কী হয়। একবার চেষ্টা তো করে দেখুন…

“অবশ্যই আল্লাহর স্মরণে হৃদয় প্রশান্ত হয়। “ 

 (সূরা আর-রাদ; ১৩:২৮)