অঙ্গার

অঙ্গার! 

এক.

লম্বা, ঋজু শরীরের কাঠামো।

 কোঁকড়ানো চুল, ইগলের ঠোঁটের মতো বাঁকানো খাড়া নাক।

সুদর্শন। ড্যাশিং।

আইনের তুখোড় ছাত্র। বিনয়ী, নম্র, মার্জিত রুচির পোশাক-আশাক, সব মিলিয়ে অত্যন্ত আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব। আপাদমস্তক নিপাট ভদ্রলোক। প্রথম দর্শনে যে কেউই পছন্দ করে বসতে বাধ্য। রহস্য আর মায়ার অদ্ভুতে মিশেলে ভরা চোখ দুটো যেকোনো মেয়ের রাতের ঘুম হারাম করার জন্য যথেষ্ট। সুদর্শন চেহারা আর ভদ্রলোকের মুখোশের আড়ালে লুকিয়ে ছিল অন্য একটা প্রাণী। যেন সে রবার্ট লুই স্টিভেন্সনের গল্পের বই থেকে উঠে আসা বাস্তবের ডক্টর জেকিল অ্যান্ড মিস্টার হাইড। সে ছিল এক সিরিয়াল কিলার, রেইপিস্ট, নরপিশাচ। ৩০ এরও বেশি মেয়েকে নিজের হাতে অত্যন্ত নিষ্ঠুরভাবে খুন করেছিল বলে নিশ্চিতভাবে জানা যায়। যদিও আসল সংখ্যাটা আরও অনেক বেশি হবার কথা। সিরিয়াল কিলারদের নানা ধরনের বাকি থাকে। ওর বাতিক ছিল নেক্রোফিলিয়া মৃতদেহের সাথে সেক্স। পচে-ফুলে গলতে শুরু করার আগ পর্যন্ত ও ওর ভিক্টিমদের মৃতদেহগুলোকে ধর্ষণ করত। বাবা-মার দেয়া নাম, থিওডর রবার্ট বান্ডি। মানুষ ওকে টেড বান্ডি বলেই জানত। শেয়ালের মতো ধূর্ত ছিল, বিড়ালের মতো নিঃশব্দ ছিল তার চলাফেরা। নারী শিকারের নিখুঁত প্ল্যান করত। চিতার ক্ষিপ্রতায় শিকার করে সেফ ভূতের মতো হাওয়ায় মিলিয়ে যেত। বাঘা বাঘা পুলিশ অফিসার আর ঝানু গোয়েন্দাদের নাকের জল আর চোখের জল এক করে ছেড়েছিল। সত্তরের দশকে অ্যামেরিকার ৭ টি স্টেইটজুড়ে কায়েম করেছিল এক ত্রাসের রাজত্ব। 

প্রথম আঘাত

ঠিক কখন এবং কোথায় বান্ডি শিকার শুরু করেছিল তা নিয়ে বিস্তর তদন্ত হয়েছে, অনেক জল ঘোলা করা হয়েছে, কিন্তু আসল তথ্য বের করা সম্ভব হয়নি। একেক সময় একেক জনকে বান্ডি একেক রকম কথা বলত। ধারণা করা হয় মেয়েদের কিডন্যাপ আর ধর্ষণের শুরুটা ১৯৬৯ থেকে শুরু করলেও, বান্ডি খুন আর নৈক্রোফিলিয়া শুরু করে ১৯৭১ সালের পর থেকে। কিছু আলামত, আর তদন্তে পাওয়া কিছু তথ্যের কারণে অনেক ডিটেক্টিভ ধারণ করেন, খুনি হিসেবে বান্ডির হাতেখড়ি আরও অনেক আগে। ১৯৬১ সালে ৮ বছর বয়সের একটা মেয়েকে খুন করার মাধ্যমে। বান্ডির বয়স তখন মাত্র ১৪। বান্ডি অবশ্য চিরকাল এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। টুকটাক কিডন্যাপিং এবং দু-একটা খুন করে হাত পাকানোর পর বান্ডি শুরু করে তার আসল খেলা। ১৯৭৪ সালে, ২৭ বছর বয়সে। 

শিকার

বান্ডি টার্গেট করত হাল ফ্যাশনের আকর্ষণীয় পোশাকের কলেজ, ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া সুন্দরী মেয়েদের। যাদের বয়স সাধারণত ১৫-২৫ বছরের মধ্যে। সুন্দর জামাকাপড় পরে কেতাদুরস্ত হয়ে মুখোশ, টর্চ লাইট, দড়িদড়া, সিঁধকাঠি, হ্যান্ডকাফ ইত্যাদি বাদামি ভৌক্সওয়াগানে চাপিয়ে বান্ডি বেরিয়ে পড়ত শিকারের খোঁজে। টহল দিয়ে বেড়াত এমন জায়গাগুলোতে যেখানে নারীদের আনাগোনা বেশি। কাউকে মনে ধরলে বা একা কোনো সুন্দরীকে পথে চলতে দেখলে নেমে আসত গাড়ি থেকে। এক হাত ঝোলানো থাকত স্লিং-এ অথবা এক পায়ে থাকত প্লাস্টার–ভান করত যেন তার হাতপা ভাঙা। আরেক হাতে থাকত ভারী ব্রিফকেস বা মোটা মোটা বই। টীগেটের খুব কাছে গিয়ে মনোযোগ আকর্ষণের জন্য বইগুলো সশব্দে ফেলে দিত বা এমন ভাব করত যে ব্রিফকেসটা বহন করতে খুব কষ্ট হচ্ছে–জরুরি সাহায্য দরকার। টার্গেট সাহায্য করতে আসলে “শুধু কথা দিয়েই চিড়ে ভিজিয়ে ফেলত” সুদর্শন বান্ডি। অনুরোধ করত ব্রিফকেস বা বইগুলো গাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেয়ার। গাড়ি পর্যন্ত পৌঁছানো মাত্রই নরক নেমে আসত টার্গেটের মাথায়। বেশ কিছুদিন পর অসহায় মেয়েটার বিকৃত ফুলে ঢোল হয়ে যাওয়া জামাকাপড় ছাড়া লাশ পাওয়া যেত কোনো এক নির্জন, পরিত্যক্ত জায়গায় পাহাড়-পর্বতে বা বনে-জঙ্গলে। অনেক সময় লাশের চিহ্নটুকুও পাওয়া যেত না। 

লাশ পচেগলে ফুলতে শুরু করার আগ পর্যন্ত বান্ডি মৃতদেহের সাথে সেক্স করত। হয়তো এক জায়গায় খুন করে ২০০ মাইল দূরের কোনো এলাকায় এসে আরেকটা খুন করত। তারপর আবার প্রথম ক্রাইম স্পটে এসে লাশের ওপর ঝাল মিটাত– নির্ভেজাল মানুষরূপী শয়তান।

সিয়াটল, সল্টলেইক সিটি, কলেরাডো, ফ্লোরিডার মেয়েরা আতঙ্কে ভুগছিল। অজানা এক সাইকো ঘুরে বেড়াচ্ছে শহরে, না জানি কখন কার পালা আসে। এক হোস্টেল থেকে আরেক হোস্টেলে যাবার সময়, থিয়েটার বা সিনেমা হল থেকে ফেরার পথে, এমনকি করিডোর দিয়ে এক রুম থেকে অন্য রুমে যাবার সময়ও মেয়েরা গায়েব হয়ে যেত, চিরুনি অভিযান চালিয়েও ধরা যেত না ঘাতককে। একের পর এক মেয়ে রহস্যময়ভাবে গায়েব হয়ে যাচ্ছে অথচ রহস্যের কোনো কিনারা হচ্ছে না, ঘাতক ধরা পড়ছে না। কিং কাউন্টির শেরিফ অফিসের ডিটেক্টিভ আর সিয়াটল পুলিস ডিপার্টমেন্ট কুত্তা পাগল হয়ে গিয়েছিল অপরাধী ধরার জন্য। কিন্তু বান্ডির শিকারের সংখ্যা কুড়ি পার হবার আগ পর্যন্ত কেউই বুঝতে পারেনি, 

তারা সবাই আসলে পৃথক পৃথকভাবে একজন লোকের পেছনে ছুটছে। এর কারণ ছিল অবশ্য। টেড বান্ডির মস্তিষ্ক ছিল ক্ষুরধার, পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে খুব দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারত। ক্রাইম মেথোডোলজি নিয়ে গভীর পড়াশোনা তাকে শিখিয়েছিল কীভাবে কারও সন্দেহের উদ্রেক না করে ক্রাইম স্পটে আঙুলের ছাপ বা এই জাতীয় কোনো ক্ল না ফেলে নিমিষেই হাপিশ হওয়া যায়। ওস্তাদ ছিল ছদ্মবেশ ধারণে–চুলে দু-আঙুল চালিয়ে বা মুখের এক্সপ্রেশান বদলে ফেলে খুব তাড়াতাড়িই নিজের চেহারা বদলে ফেলতে পারত। কোনো প্রত্যক্ষদর্শীই সঠিকভাবে পুলিশকে ওর চেহারার বিবরণ দিতে পারত না। ইচ্ছে করেই বন্দুক ব্যবহার করত না, নিজের পরিচয় লুকোনোর জন্য। তার বদলে ব্যবহার করত বাড়ির টুকিটাকি জিনিস–নাইলনের দড়িদড়া, স্টকিং… এত বিশাল পরিধির এলাকায় অল্প সময়ের ব্যবধানে সে খুন আর রেইপগুলো করত যে, পুলিশের পক্ষে বোঝা সম্ভব হতো না এ সবগুলো নারকীয় ঘটনার পেছনে একটা লোকই দায়ী। বান্ডির নিজের ভাষায়, “(I am) the most cold-hearted son of a b***h you’ll ever meet…” বান্ডি মোট কতটা খুন করেছিল নিদিষ্ট করে কেউ বলতে পারে না–৩০ টি খুনের ঘটনা সে নিজে স্বীকার করেছে। কিন্তু বিভিন্ন তথ্য-প্রমাণ ইঙ্গিত দেয় যে বান্ডির ভিক্টিমের সংখ্যা প্রায় এক শ’র কাছাকাছিও হতে পারে। বান্ডির ব্যক্তিগত আইনজীবীর ভাষ্যমতে বান্ডি নিজে তার কাছে স্বীকার করেছিল, সে এক শ’র বেশি খুন করেছে। 

শ্রীঘর দর্শন

কয়েকটা স্টেইটের মেয়েরা একের পর এক রহস্যজনকভাবে হারিয়ে যাচ্ছে। জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছে না কাউকে। কিছুদিন পর পাওয়া যাচ্ছে পচেগলে যাওয়া বিকৃত লাশ। ঘাতককে ধরার জন্য এফবিআই চারিদিকে জাল বিছিয়েছে, কিন্তু ঘাতক প্রতিবারেই সুচতুরভাবে জাল ভেদ করে বেরিয়ে যাচ্ছে। 

অগাস্ট, ১৯৭৫। অ্যামেরিকার সল্টলেইক সিটি থেকে কিছুটা দূরের ইউটাহ হাইওয়ে। ট্রাফিক সিগন্যাল মিস করায় বাদামি রঙের একটী ভৌক্সওয়াগান থামানো হলো। অফিসাররা অবাক হয়ে দেখলেন ভৌক্সওয়্যাগীনের সামনের ড্রাইভারের পাশের সিটটা নেই। সন্দেহ হওয়াতে সার্চ করা হলো গাড়ির ভেতরে। পাওয়া গেল নাইলনের দড়ি, সিঁধকাঠি, হ্যান্ডকাফ, মুখোশ, দস্তানা, ক্রু-ড্রাইভার এবং আরও টুকিটাকি জিনিসপত্র। “এই ব্যাটা সিঁধেল চোর না হয়েই যায় না”, ভাবলেন প্যাট্রল অফিসাররা। একান-ওকান বিস্তৃত মনভুলানো হাসি দিয়ে গাড়ির মালিক অফিসারদের ভুজুং ভাজুং বোঝানোর চেষ্টা করল–বেরসিক অফিসাররা হাতকড়া পড়িয়ে সে হাসির বিনিময় দিলেন। অফিসাররা তখনো জানতেন না এইমাত্র তারা যাকে গ্রেফতার করলেন সে অ্যামেরিকার টপ টেন মোস্ট ওয়ান্টেড লোকদের একজন। থিওডর রবার্ট বান্ডি ওরফে টেড বান্ডি, নারীদের পশুর মতো ভোগ করে গলা টিপে হত্যা করা, তারপর পিশাচের মতো সে মৃতদেহকে ভোগ করা যার নেশা। 

পালাবি কোথায়?

 ১৯৭৭ এর জুনে বান্ডিকে গারফিল্ড কাউন্টি জেল থেকে শুনানির জন্য নিয়ে যাওয়া হয় পিটকিন কাউন্টি কোর্টহাউসে। বান্ডিকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়া হয়। খুলে দেয়া হয় হ্যান্ডকাফ। শুনানির বিরতির একপর্যায়ে নিজের কেইস নিয়ে পড়াশোনা করার জন্য বান্ডি লাইব্রেরিতে যাওয়ায় আবেদন করে। লাইব্রেরিতে গিয়ে একটা বুক সেলফের পেছনের জানালা দিয়ে দোতলা থেকে লাফ দেয় মাটিতে। গোড়ালি মচকে গেলেও কোর্টের সীমানার বাইরে চলে যেতে সক্ষম হয় সে।

পুলিশের দেয়া রোডব্লক এড়াতে অ্যাস্পেন পর্বতমালার মধ্য দিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পথ হারিয়ে ফেলে পার্বত্য এলাকায়। ছয় দিন পর ক্ষুৎপিপাসায় ক্লান্ত বান্ডি আত্মসমর্পণ করে পুলিশের কাছে। জেলে ফিরেই আবারও পালাবার ফন্দি আঁটতে শুরু করে বান্ডি । প্রায় ৫০০ ডলারের বিনিময়ে জোগাড় করে ফেলে একটা হ্যাক’স ব্লেইড। সন্ধ্যায় অন্য বন্দীরা গোসল করার সময় নিজের সেলের সিলিং ফুটো করতে থাকে। ছয় মাসের অবিরাম চেষ্টীয় এবং ১৬ কেজি ওজন কমিয়ে প্রায় একফুট বর্গাকার গর্ত দিয়ে সিলিঙের ওপরে উঠতে সক্ষম হয় বান্ডি। বেশ কয়েকবার রিহার্সেল দিয়ে নিজেকে প্রস্তুত করে নেয় জেল থেকে পালানোর জন্য। ১৯৭৭ এর ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ রাত। জেলের বেশির ভাগ কর্মীই বড়দিনের ছুটিতে। এ সুযোগ কাজে লাগায় বান্ডি। সিলিংয়ের গর্ত দিয়ে বের হয়ে নিমিষেই হাওয়া হয়ে যায় জেল থেকে। ১৭ ঘণ্টা পর ডিসেম্বরের ৩১ তারিখে যখন জেল কর্মকর্তারা বান্ডির সেলের সিলিংয়ের গর্তটা আবিষ্কার করেন, ততক্ষণে বান্ডি পগারপার। 

মৃত্যুর চৌকাঠে

জেল থেকে পালিয়ে বান্ডি হাজির হয় ফ্লোরিডাতে। এফবিআই আর ফ্লোরিডার পুলিশদের বুড়ো আঙুল দেখিয়ে চালাতে থাকে একের পর এক ধর্ষণ আর নারকীয় হত্যাকাণ্ড। 

অবশেষে ফেব্রুয়ারীর ১২ তারিখ রাত ১ টার সময় অ্যালাবামা স্টেইটের কাছে টেড বান্ডিকে অ্যারেস্ট করেন পুলিশ অফিসার ডেভিড লি। মি. লি বান্ডিকে সোজা নিয়ে যান জেলে। পথে বান্ডি আপন মনেই বলছিল, “তুমি আমাকে মেরে ফেললেই ভালো করতে, অফিসার।” টেড বান্ডিকে তার অপরাধের জন্য মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। ১৯৮৯ সালের ২৪ শে জানুয়ারি স্থানীয় সময় সকাল ৭:১৬ মিনিটে ইলেক্ট্রিক চেয়ারে বসিয়ে কার্যকর করা হয় টেড় বান্ডির মৃত্যুদণ্ড। এ সময় জেলের বাইরে জড়ো হয়েছিল প্রায় হাজার দুয়েক মানুষ। বেশির ভাগই ছিল তরুণী এবং যুবতী। নেচে, গেয়ে, আতশবাজি ফুটিয়ে ওরা উল্লাস করছিল, ক্ষণে ক্ষণে স্লোগান দিচ্ছিল–”বান বান্ডি বার্ন”, “টেড, ইউ আর ডেড!” বান্ডির মৃতদেহ পুড়িয়ে ছাই করে ফেলা হয় এবং তার শেষ ইচ্ছে অনুযায়ী ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দেয়া হয়। ওয়াশিংটনের অজ্ঞাত স্থানে।১৬৭। কী ছিল বান্ডির এই অন্ধকার জগতের চালিকা শক্তি? কেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উঁচু ডিগ্রিও টেড বান্ডিকে মানুষ বানাতে পারেনি? কীভাবে একটা মানুষ এতটা বিকৃত হয়ে ওঠে? জানতে হলে অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছুক্ষণ… 

.

দুই.

উত্তর প্রদেশ।

ইন্ডিয়া।

 নিরিবিলি এক আখখেতের মধ্যে বসে আছে স্কুলপড়ুয়া একটি মেয়ে।

ওকে ঘিরে আছে কামোন্মত্ত এক দঙ্গল পুরুষ। মেয়েটি অসম্ভব রকমের কাঁপছে, ফাঁদে পড়া হরিণীর মতো বিস্ফারিত চোখে বার বার চারপাশে তাকাচ্ছে। মনে ক্ষীণ আশা, কেউ বুঝি তাকে উদ্ধার করবে এই পশুদের হাত থেকে, হয়তো-বা শেষ পর্যন্ত কারও দয়া হবে। কিন্তু না, শেষ রক্ষা হলো না। বুনো শুয়োরের মতো হেসে উঠল একজন। মানুষরূপী একটা পশু ঝাঁপিয়ে পড়ল ওর ওপর। অসহায় একটা মেয়ের ওপর পালাক্রমে অত্যাচারের এ জঘন্য অপরাধ কেউ ভিডিও করে অনলাইনে আপলোড করবে আর হাজার হাজার অথবা লক্ষ লক্ষ মানুষ সেটা দেখে চোখের এবং হাতের সুখ মেটাবে–বিশ্বাস করতে প্রচণ্ড কষ্ট হয়। মানুষের পক্ষে কি এতটা নীচে নামী সম্ভব? যুগ যুগ ধরে মানবতার জয়গান গেয়ে লেখা সবগুলো কবিতাই কি মিথ্যে? কিন্তু বিশ্বজুড়ে বিশেষ করে ইন্ডিয়ার উত্তর প্রদেশে প্রতিনিয়ত এ রকম অসংখ্য ঘটনা ঘটে চলেছে। টাইমস অফ ইন্ডিয়ার প্রতিবেদন অনুসারে ভারতের উত্তর প্রদেশের দোকানগুলোতে পুলিশ এবং প্রশাসনের নাকের ডগায় অসহায় মেয়েদের ধর্ষণের ভিডিও দেদারসে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিদিন শত শত, আসলে শত শত না হাজার হাজার, রেইপ ভিডিও বিক্রি করা হচ্ছে যেগুলোর দাম ৫০ থেকে ১৫০ রুপি। 

পঞ্চাশ থেকে দেড় শ, ব্যস এটুকুই দাম একটা মেয়ের সম্মানের! এক দোকানে কেবল গোঁফ উঠতে শুরু করেছে এমন এক ছোকরাকে এক লোক বলছে, “জানিস, আমি বোধহয় এই নতুন গরম ভিডিওর মেয়েটাকে চিনি।” ভিডিওটাতে সদ্য বিশের কোঠা পার হওয়া একটা মেয়ের ওপর দুটো পশুকে অত্যাচার করতে দেখা যাচ্ছে। অসহায় মেয়েটির কণ্ঠে আকুতি ঝরে পড়ছে, “মাফ কারো, মাফ কারো। কমসে কম ভিডিও তো মাত উঠারো”। সিনিয়র এক পুলিশ কর্মকর্তার ভাষ্যমতে রেইপের দৃশ্য ভিডিও করে রাখা হয় ভিক্টিমকে ব্ল্যাকমেইল করার জন্য। পুলিশের বিভিন্ন উৎস থেকে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে প্রশাসন কোনোমতেই এই জঘন্য ঘটনাগুলো বন্ধ করতে পারবে না।

ধর্ষণের সংস্কৃতি ইন্ডিয়াতে মহামারির আকার ধারণ করেছে। প্রতি ২০ মিনিটে একটা করে ধর্ষণ হচ্ছে। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ধর্ষণ সংঘটিত হওয়া দেশগুলোর লিস্টে ইন্ডিয়ার নাম আছে প্রথম দশের মধ্যে।১৭° পাশাপাশি ইন্ডিয়াতে প্রচুর শিশু পতিতাবৃত্তি এবং শিশু যৌন-নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। বিশ্বের অনেক দেশের গণমাধ্যমেই এ ব্যাপারে অনেক রিপোর্ট হয়েছে। এমনকি বিশ্বের সবচেয়ে বেশি শিশু যৌন-নির্যাতনের ঘটনা ঘটে এমন পাঁচটি দেশের শর্টলিস্টেও আছে ইন্ডিয়ার নাম।

.

তিন.

অগাস্ট, ২০১৩। ইউএসএ। স্বপ্ন, স্বাধীনতা আর স্বাধিকারের ভূমি।

সদ্য ১৯-এ পা দেয়া সারা (ছদ্মনাম) আজ খুব খুশি। ওর এতদিনের স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে। অনেক চেষ্টার পর শেষ পর্যন্ত সুযোগে মিলেছে পছন্দের ইউনিভার্সিটিতে পড়ার। এসেছে সেই প্রতীক্ষিত মুহূর্ত। ক্যাম্পাসের দ্বিতীয় রাতে সব ক্লাসমেইটরা মিলে পার্টি করছিল। সারাও ছিল সেখানে। ঘড়ির কাঁটা বারোর ঘর ছুঁয়ে ফেলেছে। বেশ আগেই। এক পুরুষ ক্লাসমেইটের সাথে দেখা হয়ে গেল। ছেলেটাকে আগে কখনো না দেখলেও মাঝে মাঝে অনলাইনে কথা হয়েছে। কিছুক্ষণ গল্পগুজবের পর ছেলেটা প্রস্তাব দিলো, “চলো, কিছু ড্রিংক করা যাক”। মাথা নেড়ে সায় জানালো সারা, “ভালো বলেছ, গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে”। ছেলেটী গ্লাসে ড্রিংক ঢেলে দিলো। সীরা চুমুক দিলো গ্রীসে। তারপর আর কিছুই মনে নেই… 

নয় ঘণ্টা পর যখন জ্ঞান ফিরল সারা নিজেকে আবিষ্কার করল অপরিচিত এক বিছানায়। মাথাটা ঝিম ঝিম করছিল, গায়ে একটা সুতো পর্যন্ত নেই। চুলগুলো এলোমেলো। বিছানার পাশে চেয়ারে বসে আছে একটা ছেলে। এই ছেলেটাই গত রাতে ওর গ্লাসে মদ ঢেলে দিয়েছিল, মনে পড়ল সারার। স্থানীয় হাসপাতালের মেডিক্যাল চেকআপের রিপোর্ট থেকে নিশ্চিত হওয়া গেল, সারাকে ধর্ষণ করা 

ইউরোপ-অ্যামেরিকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে এ রকম ঘটনা খুবই কমন। ধর্ষণ ইউরোপ-অ্যামেরিকার শিক্ষার্থীদের কাছে অতি সাধারণ ঘটনা। বিশ্ববিখ্যাত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো পৃথিবীর ইতিহাস বদলে দেয়া অনেক মানুষ তৈরি করছে সত্য, কিন্তু সেই সাথে তৈরি করছে অনেক ধৰ্ষক আর তার চেয়েও বেশি ধর্ষিতা। পাশ্চাত্যের স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসগুলোই নারীদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে অনিরাপদ ক্যাম্পাস। কথাগুলো অতিরঞ্জিত মনে হতে পারে তবে আশা করি কিছু পরিসংখ্যান অবস্থার ভয়াবহতা বুঝতে সাহায্য করবে: ২০০৭ সালের এক জরিপে দেখা গেছে, অ্যামেরিকার কলেজ এবং ইউনিভার্সিটিপড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছয় লাখ তিয়াত্তর হাজার জন, জীবনে অন্তত এক বার ধর্ষণের শিকার হয়েছেন৷ প্রতি ২১ ঘণ্টায় অ্যামেরিকার কোনো না কোনো কলেজ-ক্যাম্পাসে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। প্রতি ১২ জন কলেজেগামী পুরুষ শিক্ষার্থীর মধ্যে ১ জন ধর্ষণের সাথে জড়িত। ইংল্যান্ডের প্রতি তিন জন মহিলা 

লেভেলের অর্ধেক মহিলা শিক্ষার্থী জানিয়েছেন, তাঁরা প্রত্যেকেই এমন কাউকে চেনেন যারা নিজেদের ক্যাম্পাসেই নিজেদের বন্ধুদের দ্বারা ধর্ষণের শিকার 

২০১৪ সালের জানুয়ারিতে, অ্যামেরিকার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা স্বীকার করে যে, পরিসংখ্যানে দেখা গেছে অ্যামেরিকান কলেজ ক্যাম্পাসগুলোতে প্রতি ৫ জন নারী শিক্ষার্থীর মধ্যে ১ জন ধর্ষিত হয়েছে। Association of American Universities এর ২০১৫ তে প্রকাশিত একটি নতুন প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করার আগেই প্রতি চার জনে এক জন নারী ধর্ষণের শিকার হন। প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে ২৭ টি শীর্ষ ইউনিভার্সিটির প্রায় দেড়লাখ শিক্ষার্থীদের মধ্যে জরিপ চালিয়ে। এ প্রতিবেদনে অ্যামেরিকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে নারী-নির্যাতনের যে চিত্র ফুটে উঠেছে তা ২০১৪ সালের আগের প্রতিবেদনের (যে প্রতিবেদন দেখে ক্যাম্পাসে নারী শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য ওবামা প্রশাসন White House Task Force To Protect Students From Sexual Assault stay করেছিল) থেকে অনেক ভয়াবহ। 

অবশ্য White house task force এর প্রথম রিপোর্টে বলা হয়েছিল প্রতি চার জন নারী শিক্ষার্থীর মধ্যে তিন জন ক্যাম্পাসে থাকাকালীন যৌন-নির্যাতনের শিকার হন। 

সারী তার ধর্ষকের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে আনুষ্ঠানিক কোনো অভিযোগ করেনি। কে তাকে ধর্ষণ করেছিল তা কখনো জনসম্মুখে প্রকাশও করেনি। এভাবে ধর্ষণের ঘটনা চেপে যাওয়া অ্যামেরিকাতে অস্বাভাবিক কিছু না। American Civil Liberties Union এর রিপোর্ট অনুযায়ী ক্যাম্পাসে ঘটা ৯৫ শতাংশ ধর্ষণের ঘটনার পর কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয় না। আর ধর্ষণের অভিযোগ করা হলেও, আইনি এবং প্রশাসনিক জটিলতার কারণে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ধর্ষকের গায়ে ফুলের টোকাটা পর্যন্ত পড়ে না। 

.

চার. 

 “অ্যামেরিকান আর্মির মহিলা সদস্যরা শত্রুদের নিয়ে যতটা শঙ্কিত থাকে, তার চেয়ে অনেক বেশি শঙ্কিত থাকে তাদের পুরুষ সহকর্মীদের হাতে যৌন-নিপীড়িত হবার ব্যাপারে…” গভীর দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে কথাগুলো বলছিল ডোরা হারনান্দেজ, প্রায় দশ বছরেরও বেশি সময় ধরে যে কাজ করেছে অ্যামেরিকান নেভি এবং আর্মি ন্যাশনাল গার্ডে। ডোরা হারনান্দেজসহ আরও কয়েকজন ইরাক-আফগানিস্তান ফেরত নারী সেনার সাথে কথা হচ্ছিল। বিশ্বের সবচেয়ে দুর্ধর্ষ আর বেপরোয়া যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে এই ফ্রন্টগুলোতে কোনোমতে নিজেদের রক্ষা করতে পারলেও, পুরো কর্মজীবন জুড়ে তাদের নীরবে আরও একটি যুদ্ধে লড়তে হয়েছে–আর সে যুদ্ধে বার বার তারা পরাজিত হয়েছে। তাদের সেই নীরব যুদ্ধ ধর্ষণের বিরুদ্ধে। পেন্টাগনের নিজেস্ব রিসার্চ থেকেই বের হয়ে এসেছে যে, অ্যামেরিকান সামরিক বাহিনীর প্রতি চার জন। মহিলা সদস্যের এক জন, তাদের ক্যারিয়ারজুড়ে যৌন-নির্যাতনের শিকার হয়। ডোরা হারনান্দেজ থেমে যাবার পর মুখ খুলল সাবিনা র্যাংগেল। টেক্সাসের এল প্যাসোর অদূরে সাবিনার বাসার ড্রয়িংরুমে বসেই কথা হচ্ছিল, “আমি যখন আর্মির বুট ক্যাম্পে ছিলাম তখন যৌন-নির্যাতনের শিকার হয়েছিলাম। তারপর যখন নেভিতে গেলাম তখন একেবারে ধর্ষণের শিকার হলাম”। ছয় বছরেরও বেশি সময় ধরে ইউএস নেভিতে কাজ করা জেইমি লিভিংস্টোন বলল, “আমি জানতাম ইউএস আর্মির কালচারটাই এমন যে, সৈনিক এবং অফিসাররা রেইপ করাকে তাদের অধিকার মনে করে। তাই আমি রেইপের ঘটনাগুলো চেপে যেতাম। আর আমার বস-ই আমাকে রেইপ করত, কাজেই আমি কার কাছে অভিযোগ করব?” একে একে এই নারীরা অ্যামেরিকান আর্মিতে তাদের সাথে যৌন-নির্যাতনের ঘটনাগুলো বলছিল। তারা কেউই পরিচিত না, কিন্তু অ্যামেরিকান আর্মিতে নিজেদের সহকর্মী এবং বসদের হাতে যৌন-নিপীড়িত হবার দুঃসহ অভিজ্ঞতা তাদের একে অপরের কাছে নিয়ে এসেছে। হৃদয়ের সব কটা জানালা খুলে দিয়ে তারা একে অপরের দুঃখগুলো ভাগাভাগি করে নিচ্ছিল। পেন্টাগনের পরিসংখ্যান অনুসারে, বিশ্বজুড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ব্যস্ত অ্যামেরিকার সেনাবাহিনীর ভেতরে ঘটা যৌন-নির্যাতনের মাত্র ১৪ শতাংশ ঘটনা রিপোর্ট করা হয়। বাকি ৮৬ শতাংশ ঘটনা থেকে যায় লোকচক্ষুর আড়ালে। পেন্টাগনের ২০১০ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ইউএস আর্মিতে প্রতিবছর উনিশ হাজারের মতো। ২০১৬ সালে সংখ্যাটা ৭০,০০০! অ্যামেরিকার বেসামরিক মহিলাদের তুলনায় ইউএস আর্মির মহিলা সদস্যরা অধিকমাত্রায় যৌন-নির্যাতনের ঝুঁকিতে থাকে।

এমনকি অ্যামেরিকান আর্মির পুরুষ সদস্যরাও সহকর্মীদের দ্বারা যৌন-নির্যাতন এবং ধর্ষণের শিকার হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এর পরিমাণ নারীদের তুলনায় বেশি। কিন্তু খুব কমসংখ্যক ক্ষেত্রেই এ ঘটনাগুলো রিপোর্ট করা হয়। (91001013 Sexual Assault Prevention and Response Office 43 asta গ্যারি প্যাটন বলেন, “আমাদের অবশ্যই ধর্ষণের এ কালচারের পরিবর্তন করতে ইউনিটের সবাইকে যৌন-নির্যাতনের ব্যাপারটিকে খুব গুরুত্বের সঙ্গে নিতে হবে।”

শুধু তা-ই না, বিশ্ব উদ্ধার আর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় ব্যস্ত অ্যামেরিকার আর্মির সদস্যদের হাতে নিরাপদ না তাদেরই সহকর্মী আর অধস্তনদের সন্তানেরা। ২০১৪ সালে অ্যামেরিকান আর্মিতে ৭৬৭৬ টি শিশু (তাদেরই সহকর্মীদের সন্তান) নির্যাতনের অফিসিয়াল রিপোর্ট করা হয়েছে। ধারণী করা হয়, রিপোর্ট করা হয়নি এমন কেইসের সংখ্যা আরও বেশি। 

.

পাঁচ.

 বাংলাদেশে দিন দিন আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে ধর্ষণ নামের নির্মমতা। শুধু নারীই নয়, শিশু-কিশোরও শিকার হচ্ছে এ বর্বরতার। ধর্ষণ কিংবা গণধর্ষণেই শেষ নয়, খুনও করা হচ্ছে নৃশংসভাবে। গত কয়েক মাস ধরে যেন ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর খুনের উৎসব চলছে। সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর পরিসংখ্যানও দিচ্ছে অভিন্ন তথ্য। একাধিক সংস্থার হিসাব অনুযায়ী গত ছয় বছরে গড়ে প্রতি বছর যতটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে, 

২০১৭ সালের ৬ মাসেই ঘটেছে তার চেয়ে বেশি। সে হিসেবে এ ভয়াবহ অপরাধ এখন দ্বিগুণহারে বাড়ছে। 

২০১৭ এর নভেম্বরের ৩০ তারিখ রাজধানীর বাড্ডায় মাত্র ৩ বছর ৯ মাস বয়সী শিশু তানহাকে ধর্ষণের পর খুন করেছে শিপন নামে এক পাষণ্ড। একই বছরের ১৭ই জুলাই বগুড়ায় এক ছাত্রীকে কলেজে ভর্তির নামে ধর্ষণ করে তুফান সরকার। বিচার চাওয়া হলে ন্যক্কারজনকভাবে মা-মেয়ের মাথা ন্যাড়া করে দেয়া হয়। 

রাজশাহীতে এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে গণধর্ষণ করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জে চলন্ত ট্রাকে এক কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে গাড়ি চালক ও হেলপার। সেপটেম্বরে কেরানীগঞ্জে ৭ বছরের ফারজানাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে। নবম শ্রেণিতে পড়া আত্মীয়। এভাবে প্রতিদিনই দেশের কোথাও না-কোথাও ধর্ষণের শিকার হচ্ছে নারী। রেহাই পাচ্ছে না ১৮ বছরের কমবয়সী “কন্যাশিশু”ও। আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে তিন চার বছরের দুধের শিশুও শিকার হচ্ছে এই বিকৃত যৌনতার। ধর্ষণের পর ধর্ষিতাকে খুনও করা হচ্ছে। কিন্তু লোকলজ্জার ভয়ে এসব ঘটনার সিংহভাগই প্রকাশ করছে। 

ভিকটিম। সামাজিক অসম্মানের ভয়ে তা লুকিয়ে যাচ্ছে তাদের পরিবার। দীর্ঘসূত্রতা আর প্রভাবশালীদের হেনস্তার ভয়ে করছে না মামলী। বরং জানাজানি। হওয়ার ভয়ে ভিকটিম ও তাদের পরিবার এমনভাবে চেপে যাচ্ছে, যেন কিছুই ঘটেনি। তারপরও ছিটেফোঁটা যে ক’টি ঘটনা প্রকাশ পাচ্ছে তাই- আঁতকে ওঠার মতো। এতেই সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হিসাব বলছে গত ছয় বছরের তুলনায় চলতি বছর দ্বিগুণ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ চিত্র যেমন রাজধানী শহর ঢাকায়, তেমনই সারা দেশের। এর মধ্যে কিছু কিছু ধর্ষণের নির্মমতা হতবাক করে দিচ্ছে সবাইকে। ঢাকা মহানগর পুলিশের উইম্যান সাপোর্ট ও ইনভেস্টিগেশন বিভাগের উপ কমিশনার (ডিসি) ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, নারী ও শিশু ধর্ষণসহ তীদের ওপর নির্মমতার স্পর্শকাতর মামলাগুলো তদন্তের দায়িত্ব তাদের কাছে আসে। অতীতের চেয়ে এখন সে ধরনের মামলা বেশি আসছে। নারী এবং শিশু ধর্ষণও বেড়েছে। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার (বিএমবিএস) হিসাবে দেখা গেছে। ২০১২ সাল থেকে নারী ধর্ষণের হার ক্রমেই (২০১৪ ছাড়া) বাড়ছে। ২০১২ সালে ৮০ নারী ধর্ষণ, ৩০ জন ধর্ষণের পর খুন ও ২৬ নারী গণধর্ষণের শিকার হন। ২০১৩ সালে ১০৭ নারী ধর্ষণ, ১৬ নারী ধর্ষণের পর খুন এবং ৩৫ নারী গণধর্ষণের কবলে পড়েন। ২০১৪ সালে ১৫৩ নারী ধর্ষিতা, ৪৮ জন খুন ও ৮৬ জন গণধর্ষণের শিকার। হন। ২০১৫ সালে ১৩৪ ধর্ষণ, ৪৮ জন ধর্ষণের পর হত্যা ও ১০৩ জন নারী গণধর্ষণের কবলে পড়েন। ২০১৬ সালে ১৪১ নারী ধর্ষিতা এবং ৩৩ জন ধর্ষণ শেষে খুন ও ৭৭ জন গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। চলতি বছর গত জুন পর্যন্ত প্রথম ৬ মাসে এরই মধ্যে ১৪১ জন নারী ধর্ষণ ও ৪৩ জন গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণের পর প্রাণ দিতে হয়েছে ১৪ হতভাগীকে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে শিশু ধর্ষণ, গণধর্ষণ এবং হত্যার সংখ্যাও কম নয়। ২০১৪ সালে ১১৫, ২০১৫ সালে ১৪১, ২০১৬ সালে ১৫৮ শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ২০১৭ এর প্রথম ছয় মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ১৪৪ শিশু। গত বছর মোট ২৯৯ নারী ও শিশু (এককভাবে) ধর্ষণের শিকার হলেও এ বছর ৬ মাসেই এ সংখ্যা ২৮৫ তে দাঁড়িয়েছে। শুধু তা-ই নয়। সংস্থাটির সাম্প্রতিক প্রতিবেদনটি রীতিমতো ভয়াবহতার আভাস দিচ্ছে। সে প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৭ এর জুলাইয়ে ৮০ নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। যার মধ্যে ৩২ জনই শিশু। আর ৩ শিশুই ধর্ষণের পর খুনের শিকার হয়েছে।  কেন আজ বিশ্বজুড়ে চলছে ধর্ষণের মহা উৎসব? কেন নারী স্বাধীনতা আর ব্যক্তিস্বাধীনতার ঢ্যারা পেটানো আমাদের এই “মহান সভ্যতায় প্রতিনিয়ত নারীদের নির্যাতিত হতে হচ্ছে? কেন বিশ্বকে নারী-অধিকার ও নারী-স্বাধীনতার সবক দেয়া পশ্চিমা বিশ্বে নারীর নিরাপত্তা এতটা বিপন্ন? কেন “মুক্তমনা” “মুক্ত মানুষ গড়ার কারখানা আর মুক্ত চিন্তার সূতিকাগার পশ্চিমা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অবিশ্বাস্য হারে ধর্ষিত হচ্ছে নারী? কেন প্রতি ৯৮ সেকেন্ডে একজন অ্যামেরিকানকে যৌন-নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে? কেন অ্যামেরিকার প্রতি ৬ জন নারীর মধ্যে ১ জন এবং প্রতি ৩৩ জন পুরুষের মধ্যে একজন জীবনে একবার হলেও ধর্ষণের শিকার হচ্ছে? কেন মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী “সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ” চালানো অ্যামেরিকান আর্মির যৌন-সন্ত্রাস থেকে খোদ অ্যামেরিকান আর্মির সদস্য আর তাদের সন্তানেরা নিরাপদ না? কেন বাংলাদেশের মতো সংরক্ষণশীল দেশে অজস্র ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে? 

কেন “বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে দেশ এগিয়ে যাবার” সাথে সাথে বাড়ছে ধর্ষিতা নারীর লাশের মিছিল? কেন? 

.

ছয় 

ইউনিভার্সিটি অফ ম্যানিটোবাতে ধর্ষণ-প্রবণতা নিয়ে একটা এক্সপেরিমেন্ট করা হয়। একদল পুরুষকে দেখানো হয় রেইপ পর্ন এবং আরেক দলকে নন-রেইপ পর্ন। তারপর কোনোরকম হাতের স্পর্শ ছাড়া নিজেদের সর্বোচ্চ মাত্রায় উত্তেজিত করতে 

বাকিদের তুলনায় অধিক বর্বর ও যৌন সহিংসতায় পরিপূর্ণ।  তবে সহিংসতার সাথে সম্পর্ক কেবল রেইপ পনের না। গবেষণায় দেখা গেছে পর্নের সাথে সেটা যেকোনো ধাঁচের পনই হোক না কেনো সরাসরি সম্পর্ক আছে অকথ্য গালাগালি, ড্রাগস, অ্যালকোহল আর যৌন আগ্রাসনের। এসবই উপযুক্ত সময় ও পরিস্থিতিতে একজনকে দিয়ে ধর্ষণ করানোর জন্য যথেষ্ট। তাই যারা হার্ডকোর পর্ন দেখে, তাদের ধর্ষকে পরিণত হবার বিপুল সম্ভাবনা থাকে। ধর্ষণ ও যৌন-সহিংসতার সাথে পর্নোগ্রাফির সম্পর্কের বিষয়টি অনেক পরীক্ষায় উঠে এসেছে। Rape Crisis Center থেকে যৌন-নির্যাতনের শিকার ১০০ জন নারীর তথ্য নিয়ে বিশ্লেষণের পর দেখা গেছে শতকরা ২৮ জন জানিয়েছিলেন তাদের নিপীড়ক পর্ন দেখছিল। শতকরা ১২ জন জানিয়েছেন তাদের ধর্ষণের সময় ধর্ষক পর্ন ভিডিওর দৃশ্য হুবহু অনুকরণের চেষ্টা করছিল। এমনকি পারিবারিক সহিংসতার ওপরও পর্নোগ্রাফির প্রভাবের প্রমাণ পাওয়া (979 Gold Coast Centre Against Sexual Violence 1976 অস্ট্রেলিয়াতে নিজ পরিবারের সদস্যের হাতে নির্যাতিত হবার মাত্রা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এর পেছনে অন্যতম প্রভাবক হিসেবে কাজ করছে পর্নোগ্রাফি। নারীদের ধর্ষণ, গ্রুপ সেক্সে বাধ্য করা, সেক্সের সময় শ্বাসরোধ করা, মারধর করা– কোনো কিছুই বাদ নেই। এসব সহিংসতা ও আগ্রাসন চালিয়েছে তাদেরই পর্ন আসক্ত স্বামী কিংবা বয়ফ্রেন্ড। নির্যাতনের মাত্রা এতটাই ভয়াবহ যে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে নারীদের হাসপাতালের ইমারজেন্সিতে ভর্তি করতে হয়েছে।

গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে পর্নোগ্রাফির অবাধ প্রচার ও প্রসার যৌন-সহিংসতা ও ধর্ষণ বৃদ্ধির ওপর সরাসরি প্রভাব ফেলে। দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার প্রশাসন একবার পর্নোগ্রাফির ব্যাপারে বেশ উদারনীতি গ্রহণ করল। পর্ন ভিডিও বানানো, প্রচার, বিক্রি আইনত নিষিদ্ধ থাকলেও প্রশাসন সে সময় চোখবুজে থাকার নীতি গ্রহণ করে। দেখেও না দেখার ভান করত। ফলাফল? দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়াতে ধর্ষণের ঘটনা বেড়ে গেল ২৮৪%। 

অন্যদিকে একই সময়ে অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে পর্নোগ্রাফির বিরুদ্ধে প্রশাসন খুব কঠোর অবস্থান নিল। কিছুদিন পর কুইন্সল্যান্ড প্রশাসন দেখল ধর্ষণের ঘটনা আগের তুলনীয় মাত্র ২৩% বৃদ্ধি পেয়েছে। হাওয়াইতেও একবার পর্নোগ্রাফির ব্যাপারে উদারনীতি গ্রহণ করা হয়। আবার কিছুদিন পর পর্নোগ্রাফির বিরুদ্ধে প্রশাসন থেকে খুব কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হলো। তারপর আবার উদারনীতি। ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেল, যখন পর্নোগ্রাফির ব্যাপারে উদারনীতি গ্রহণ করা হয়েছিল তখন ধর্ষণের মাত্রা ছিল অনেক বেশি। যখন প্রশাসন কঠোরতা অবলম্বন করেছিল তখন ধর্ষণের মাত্রা কমে গিয়েছিল। পরবর্তী সময় আবারও উদারনীতি গ্রহণ করার পর ধর্ষণের মাত্রা বেড়ে গিয়েছিল। অর্থাৎ পর্নোগ্রাফির সংখ্যা ও সহজলভ্যতার সাথে যৌন-সহিংসতা ও ধর্ষণ-প্রবণতার সমানুপাতিক সম্পর্ক। যখন পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা বেশি তখন যৌন-সহিংসতা আর ধর্ষণের হারও বাড়ে। যখন পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা কমে তখন যৌন-সহিংসতা আর 

ধর্ষণের হার কমে। অনেকে এখানে একটি আপত্তি তুলতে পারে যে, যারা পর্নোগ্রাফি দেখে তাদের সবাই ধর্ষণ বা যৌন-সহিংসতায় লিপ্ত হয় না। কথা সত্য। তবে “কিন্তু” আছে। যারা পর্নোগ্রাফি দেখে তাদের সবাই ধর্ষণ বা যৌন-সহিংসতায় লিপ্ত না হলেও যারা ধর্ষণ ও যৌন-সহিংসতায় লিপ্ত হয় তাদের ৯৯% এরও বেশি পর্নোগ্রাফি দেখে। এ ছাড়া পর্নোগ্রাফি ধর্ষক বানায় কি না সেটা আমাদের মূল পয়েন্ট না। বরং এসব গবেষণী থেকে বার বার যে উপসংহার উঠে এসেছে তা হলো, পর্নোগ্রাফি দর্শকদের মধ্যে ধর্ষণ, যৌন-সহিংসতী এবং বিকৃত যৌনাচারের প্রবণতা সৃষ্টি করে। ঠিক যেভাবে হার্ডকোর পর্নোগ্রাফির প্রসার উদ্বেগজনক হারে অ্যানাল সেক্স এবং ওরাল সেক্সের প্রবণতা বৃদ্ধি করে, একইভাবে ধর্ষণ ও যৌন-সহিংসতার হারও বাড়িয়ে দেয়। কিছুক্ষণের জন্য ধর্ষণকে একটি অপরাধ হিসেবে চিন্তা করার বদলে একটি বিকৃত যৌনাচার হিসেবে চিন্তা করলে ব্যাপারটা হয়তো বোঝা সহজ হবে। 

আরেকটি লক্ষণীয় বিষয় হলো ধর্ষণ ও যৌন-সহিংসতার ঘটনাগুলোর সাথে উপযুক্ত প্রেক্ষাপট, সময় ও সুযোগ ইত্যাদির প্রশ্ন জড়িত থাকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে 

যৌন-নিপীড়কদের Sexual Predator বলা হয়। এ ধরনের অপরাধীরা সুযোগসন্ধানী শিকারির মতো হয়ে থাকে। পর্নোগ্রাফি যা করে তা হলো, দর্শকের মধ্যে ধর্ষণের প্রবণতা সৃষ্টি করে এবং ধর্ষণের একটি গ্রহণযোগ্যতা তাদের মনে সৃষ্টি করে। উপযুক্ত সুযোগ এবং প্রেক্ষাপটের অভাবে এদের অনেকেই হয়তো ধর্ষণের ফ্যান্টাসিকে বাস্তবায়িত করে না, কিন্তু উপযুক্ত প্রেক্ষাপট তৈরি হলে তারা যে তা করবে না, এমন বলা যায় না। ব্যাপারটা এভাবে চিন্তা করুন। পর্ন-আসক্ত হাজার হাজার যুবককে সমাজ থেকে আলাদা করে, তাদের স্ত্রী কিংবা গার্লফ্রেন্ডের কাছ থেকে আলাদা করে রাখা হলে এবং যেখানে জবাবদিহিতা বা শাস্তির ভয় নেই ধর্ষণের এমন উপযুক্ত পরিবেশ দেয়া হলে ফলাফল কী হবে? আমেরিকান সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরীণ ধর্ষণ ও শিশুকামের সংস্কৃতি থেকেই এ প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যায়। অ্যামেরিকার সামরিক বাহিনীতে চলমান ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের কারণ হিসেবে দাঁড় করানো হয়েছে মিলিটারি ক্যাম্পগুলোতে পর্নোগ্রাফি, বিশেষ করে সফটকোর পর্ন ম্যাগাযিন এবং অনলাইন পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা। যৌন-নির্যাতনের হার কমানোর জন্য মিলিটারি ক্যাম্পগুলোতে এইসব ম্যাগাযিন বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফ বলেছে, “আমাদের বাহিনীতে বিরাজমান এই যৌন-নির্যাতনের সংস্কৃতি পরিবর্তন করতেই হবে। আর এ জন্যই সামরিক ঘাঁটিগুলোতে পর্নোগ্রাফিক ম্যাগাযিন কেনাবেচা করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।” তবে এই পদক্ষেপ অবস্থার কতটা উন্নতি ঘটাবে তা নিয়ে অনেকেই সন্দিহান। কারণ, ক্যাম্পগুলো থেকে খুব সহজেই পর্নসাইটে প্রবেশ করা যায়। গবেষণায় দেখা গেছে অ্যামেরিকার বেসামরিক জনগণের মধ্যে প্রতি দশ জনে এক জন ইন্টারনেটে পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত। কিন্তু সামরিক বাহিনী সদস্যদের মধ্যে পর্ন-আসক্তির হার আরও অনেক বেশি। অ্যামেরিকান নেভির টেনেন্ট মাইকেল হাওয়ার্ডের মতে সামরিক বাহিনীর কমপক্ষে ২০% সদস্য ইন্টারনেট পনে আসক্ত। মার্কিন সামরিক বাহিনীর যাজকদের মতে–যাদের কাছে সেনা সদস্যরা নিয়মিত তাদের ব্যক্তিগত পাপের স্বীকারোক্তি (Confessional) করে মার্কিন সেনা সদস্যরা যেসব ব্যক্তিগত সমস্যায় আক্রান্ত তার মধ্যে ইন্টারনেট পর্ন-আসক্তি শীর্ষে। মার্কিন সেনাবাহিনীর সদস্যদের কম্পিউটারে নিয়মিত শিশুদের নিয়ে বানানো পর্ন ভিডিও এবং ছবি পাওয়া যায়। এ কারণে বিভিন্ন সময়ে সেনা সদস্য ও অফিসারদের শাস্তিও দেয়া হয়েছে। সমকামী পর্ন ভিডিওতে অংশগ্রহণ এবং তা সমকামী পর্ন ওয়েবসাইটে প্রকাশের কারণে ২০০৬ অ্যামেরিকান এয়ার ফোর্সের ৭ জন। প্যারাট্রুপারকে শাস্তি দেয়া হয়েছে। অবশ্য অ্যামেরিকান সেনাবাহিনীতে সমকামিতা এবং সমকামী পর্নোগ্রাফির ইতিহাস বেশ পুরোনো। পর্নোগ্রাফি ও ধর্ষণের পারস্পরিক সম্পর্কের আরেকটি দৃষ্টান্ত হলো ইন্ডিয়া। সবচেয়ে বেশি ইন্টারনেট পর্নোগ্রাফি দেখা দেশের লিস্টে ইন্ডিয়ার অবস্থান তিন নম্বরে। পুরুষদের পাশপাশি ইন্ডিয়ান মহিলারাও ব্যাপক হারে পর্ন দেখে। বিশ্বব্যাপী পর্নের মহিলা দর্শক-সংখ্যার দিক থেকেও ইন্ডিয়ার অবস্থান তিন নম্বরে। অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি ধর্ষণের ঘটনা ঘটা দেশের লিস্টে ইন্ডিয়ার অবস্থান পঞ্চম। খুব বেশি ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণের প্রয়োজন নেই, সংখ্যাগুলো নিজেরাই কথা বলে। 

২০১৪ সালের একটি জরিপে দেখা যায় ইন্ডিয়ার গোয়া প্রদেশে ৪০ শতাংশ পুরুষ “রেইপ পর্ন দেখে। এদের মধ্যে ৭৬% স্বীকার করেছে, রেইপ পর্ন তাদের মধ্যে ধর্ষণ করার আকাঙ্ক্ষা সৃষ্টি করেছে। ৪৭% বলেছে রেইপ পর্ন দেখতে দেখতে একসময় তারা শিশুদের নিয়ে বানানো পর্নোগ্রাফি দেখা শুরু করেছে। এ জরিপ চালানো হয় দশটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্ডার গ্র্যাজুয়েট ছাত্রদের ক্ষেত্রে। সুতরাং “উচ্চতর শিক্ষার অভাব বা এ-জাতীয় অজুহাত দেয়ার কোনো সুযোগ এখানে। নেই। ইন্টারনেট পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা, রেইপ পনের জনপ্রিয়তা, বলিউডের আইটেম সং কালচার, বলিউড ও মিডিয়ার মাধ্যমে ক্রমাগত একজন পর্ন অভিনেত্রীকে আইকন হিসেবে জনসম্মুখে উপস্থাপন করা, এ সবকিছুর সম্মিলিত প্রভাব পড়ছে সমাজ ও সমাজের মানুষগুলোর আচরণে। আর এভাবে এসব ফ্যাক্টর ইন্ডিয়ার ক্রমবর্ধমান ধর্ষণের পেছনে ভূমিকা রাখছে। তুলনীয় বাংলাদেশের অবস্থা যে খুব একটা ভালো, এমনটা বলা যাচ্ছে না। বাংলাদেশে আশঙ্কাজনক হারে ধর্ষণের ঘটনা বাড়ছে। আর এর পেছনে অন্যতম প্রভাবিক পর্নোগ্রাফি। বিশেষজ্ঞরা এমনটাই বলছেন। জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সাইকোথেরাপি বিভাগের চেয়ারম্যান ডা. মোহিত কামাল দৈনিক মানবজমিনকে বলেন, সংস্থাগুলোর পরিসংখ্যানের মতো আমাদের সাম্প্রতিক পর্যবেক্ষণেও ধর্ষণের ঘটনা বাড়ছে। নারী-পুরুষের যৌনসঙ্গমের ছবি ও ভিডিও, পর্নোস্টারদের নিখুঁত অভিনয়ে তৈরি ঝকঝকে পর্নোগ্রাফিগুলো হাতে হাতে পৌঁছে যাচ্ছে। তা দেখে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্করা নিজেদের যৌন-প্রবৃত্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। বেপরোয়াভাবে ভোগবাদী হয়ে উঠছে। ফলে নারীকে ভালোবাসা, বিয়ে ইত্যাদির মাধ্যমে জয় করে স্বাভাবিক যৌনসম্পর্ক স্থাপনের পরিবর্তে অরক্ষিত নারী ও শিশুদের ধর্ষণ করে বসছে। অনেক কারণের মধ্যে এটি এখন নারী ও শিশু ধর্ষণ বড়ির প্রধান কারণ বলেও জানান তিনি। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার (বিএমবিএস) চেয়ারম্যান সিগমা হুদা বলেন, দেশে সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বিরাজ করছে। একই সঙ্গে পর্নোগ্রাফি হাতে হাতে ছড়িয়ে পড়েছে। এসব কারণে নারী ও শিশুরা যখন-তখন ধর্ষণ, গণধর্ষণ ও খুনের শিকার হচ্ছে।  এ রকম অসংখ্য গবেষণা দ্বারা ধর্ষণ বৃদ্ধির পেছনে পর্নোগ্রাফি এবং পর্নোগ্রাফির প্রভাবে ঘটা সমাজের যৌনায়নের ভূমিকা প্রমাণিত হয়েছে। নিশ্চিতভাবেই প্রমাণিত হয়েছে পর্ন-আসক্তি ধর্ষণের অন্যতম কারণ। “আমি তো শুধু দেখছি, কিছুই করছি না”, “পর্ন দেখলে কোনো ক্ষতি নেই”–এ ধরনের কথা বলার আগে 

তাই একবার এ গবেষণাগুলোর কথা মনে রাখবেন আশা করি। এ ছাড়া ১৮-১৯ বছর বয়েসী কিশোর-কিশোরীদের ওপর চালানো গবেষণায় দেখা গেছে, পর্ন-আসক্তি শিশু-কিশোরদের যৌন-সহিংসতার প্রতি উদ্বুদ্ধ করে। যেসব যৌন-নিপীড়কদের মধ্যে হার্ডকোর পর্ন-আসক্তির হার খুবই বেশি। শিশু যৌন নিপীড়ক বা পেডোফাইলদের শতকরা ৬৭ জন, জোরপূর্বক অজাচারে লিপ্ত এমন ব্যক্তিদের শতকরা ৫৩ জন এবং ধর্ষকদের শতকরা ৮৯ জন হার্ডকোর পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত। সিরিয়াল কিলার এবং ধর্ষকদের মধ্যে পর্নোগ্রাফি খুবই জনপ্রিয়। Journey Into Darkness নামক বইয়ে সাবেক এফবিআই কর্মকর্তা জন। ডগলাস লিখেছেন, সাধারণত সিরিয়াল কিলার ও ধর্ষকদের আস্তানাগুলোতে প্রচুর। পরিমাণ পর্ন ভিডিও পাওয়া যায়। চার্লসের লাইন্ডেকারের Thrill Killers, a Study of America’s Most Vicious Murders, facelict Te 997624 ধরনের হত্যাকারীদের মধ্যে 81% বলেছে, পর্নোগ্রাফি হলো তাদের যৌন-কামনার প্রাথমিক বস্তু। যৌন-নিপীড়ক ও ধর্ষকদের দমনে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও ধর্ষণ ও যৌন-নিপীড়নের সাথে পর্নোগ্রাফির যোগসূত্র একবাক্যে স্বীকার করেন। কারণও আছে। এ ধরনের অপরাধ ও অপরাধীদের সাথে। পর্নোগ্রাফির সম্পর্ক কতটা গভীর তার প্রমাণ তারা হাতেনাতে পেয়েছেন। এ ব্যাপারে নিউ ইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের অবসরপ্রাপ্ত গোয়েন্দা এবং নিউ ইয়র্ক ডিটেক্টিভ ব্যুরোর ক্রিমিন্যাল অ্যাসেসমেন্ট অ্যান্ড প্রোফাইলিং ইউনিটের প্রতিষ্ঠাতা রেইমন্ড পিয়ার্সের একটি সাক্ষাৎকারের কিছু অংশ তুলে ধরছি : প্রশ্ন : আপনার অভিজ্ঞতার আলোকে আপনি কি বিশ্বাস করেন সাধারণ মানুষের তুলনায় যৌন অপরাধীদের পর্ন দেখার অভ্যাস বেশি? রেইমন্ড পিয়ার্স; আমার অভিজ্ঞতা হলো এ ধরনের অপরাধীদের মারাত্মক হারে পর্ন দেখার অভ্যাস থাকে। সাধারণ মানুষের পনের দেখার অভ্যাসের কথা বলতে পারি না, তবে বিভিন্ন ধরনের পর্নোগ্রাফি তাদের হাতের নাগালেই আছে। 

অনেক বারই এমন হয়েছে যে, গুরুতর কোনো অপরাধের অপরাধীকে খোঁজা হচ্ছে–অপরাধটি যৌনতা-সংক্রান্ত হোক আর যা-ই হোক–ওদের ধরার পর যখন জিজ্ঞাসা করা হয়, “আচ্ছা, গত চার দিন কোথায় ছিলে? কী করেছ?” তারা জবাব দিচ্ছে, “অপরাধ করেছি, পালানো তো লাগবেই।” যখন প্রশ্ন করা হয়, “কোথায় গিয়েছিলে?” জবাব আসে, “সস্তা মোটেলে রুম নিয়েছিলাম, তারপর পতিতা ভাড়া করেছি” অথবা “২৪ ঘণ্টাই পর্ন দেখায় এমন কোনো মোটেলে রুম নিয়েছিলাম…”। এরা এভাবেই রিল্যাক্স করে। টেনশন মুক্ত হয়। প্রশ্ন : আমাদের একটু ধারণা দিতে পারবেন, আপনার তদন্তে কত শতাংশ যৌন অপরাধীদের কাছে পর্নোগ্রাফি পেয়েছেন? পিয়ার্স : একদম কাঁটায় কাঁটায় বলা সম্ভব না, কিন্তু অনেক সময় জিজ্ঞাসা করাও লাগত না, এমনিই বের হয়ে যেত। আমি আর আমার কলিগরা বলতাম, “এই যে আরেকটা… এরা মনে হয় খালি এগুলোই করে…।” আমি বলব, ৭৫% এর বেশি অপরাধীর কাছে আমরা পর্নোগ্রাফি পেয়েছি। সংখ্যাটা ১০০%ও হতে পারে। প্রশ্ন : আপনি আমাদের কারাবন্দী পেডোফাইল (শিশুকামি, শিশুদের ওপর যৌন নিপীড়নকারী) ও তাদের যৌনতার ওপর আপনার গবেষণীর কথা বলেছিলেন। 

এদের পর্ন-আসক্তির ব্যাপারে আপনি কী বলবেন? আর এ ধরনের কোনো অপরাধ। করার আগে পনের ব্যবহার সম্পর্কেই-বা কী বলবেন? পিয়ার্স : ধরুন, একজন পুরুষ পেডোফাইল (শিশুকামী), যে ছোট ছেলেদের আক্রমণ করে। এদের ক্ষেত্রে আমি “আক্রমণ” শব্দটা ব্যবহার করি, যদিও তারা মনে করে যে তারা বাচ্চাগুলোকে আক্রমণ করছে না। তাদের বিকৃত মানসিকতা অনুযায়ী তারা ধরে নেয় যে তারা এসব আক্রমণের মাধ্যমে বাচ্চাদের সাহায্য করছে… আমি দেখেছি এদের যৌন অপরাধগুলোর ওপর পর্নোগ্রাফির প্রভাব বেশ লক্ষণীয়। এদের ব্যাপারে যা জেনেছি, হয়তো এদের চাকরি ছিল, দিনে আট ঘণ্টা বা দশ ঘণ্টার। কিন্তু প্রতিটি জাগ্রত মুহূর্তে এদের মাথার মধ্যে এসব ফ্যান্টাসি চলতে থাকত। যতক্ষণ জেগে আছে, কাজ করছে, মনে মনে ক্রমাগত শিশু ধর্ষণের, তাদের যৌন-নিপীড়ন করার কথা কল্পনা করছে। আর তাদের কাছে যে পর্ন ভিডিও থাকে, সেগুলো এসব ফ্যান্টাসির জ্বালানি হিসাবে কাজ করে। 

.

সাত.

শুরু করেছিলাম বান্ডিকে দিয়ে। শেষটাও ওকে দিয়েই করা যাক… 

ভয়ঙ্কর নরপিশাচ সিরিয়াল কিলার টেড বান্ডির অন্ধকার জগতে পা বাড়ানোর পেছনে চালিকাশক্তিগুলোর একটি ছিল এ পর্নোগ্রাফি। বারো-তেরো বছরের ছোট্ট টেড বান্ডি যেদিন বাসার বাইরে পাড়ার মুদি দোকানে এবং ড্রাগস স্টোরে পর্নোগ্রাফিক ম্যাগাজিনের সন্ধান পেয়ে গেল, সেই দিনই ছোট্ট টেডের মধ্যে জন্ম নিল এক ধর্ষক সত্তা। ১৯৮৯ সালের ২৪ জানুয়ারি মৃত্যুর অব্যবহিত আগমুহূর্তে মনোবিদ জেমস সি. ডবসনের কাছে একটি সাক্ষাৎকার দেয় টেড বান্ডি। এই সাক্ষাৎকারে সে বিস্তারিত 

মৃত্যুর চৌকাঠে দাঁড়িয়ে বলা টেড বান্ডির কিছু কথা এখানে না উল্লেখ করলেই নয় : “…আমাদের মতো যারা মিডিয়ার হিংস্রতা, বিশেষত পর্নোগ্রাফিক হিংস্রতা দ্বারা অতিমাত্রায় প্রভাবিত, তারা কেউই বাহ্যত দানব নই। আমরা আপনাদেরই পুত্র, আপনাদেরই স্বামী। আর সবার মতোই আমরাও একটী পারিবারিক কাঠামোর মধ্যে বেড়ে উঠেছিলাম। কিন্তু এখন ব্যাপারটা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, পর্নোগ্রাফি যে কারও বাসার মধ্যে ঢুকে পড়ে এক ঝটকায় বাসার বাচ্চাটাকে পারিবারিক কাঠামোর বাইরে বের করে নিয়ে আসে। ঠিক যেমনভাবে বিশ-ত্রিশ বছর আগে এটা আমাকে ছোবল মেরে বাইরে বের করে এনেছিল। আমার বাবা-মা তাদের ছেলেমেয়েদের এসব থেকে বাঁচিয়ে রাখার ব্যাপারে আন্তরিক ছিলেন, যেমনটা অপরাপর কট্টর খ্রিষ্টান পরিবারেও হয়, কিন্তু এসব বাহ্যিক প্রভাবকের ব্যাপারে সমাজ অনেকটাই শিথিল। “ “…আমি কোনো সমাজবিজ্ঞানী নই এবং ভান ধরে এটাও বলব না যে, সভ্য সমাজের চিরাচরিত ধারণায় আমার বিশ্বাস আছে। কিন্তু আমি দীর্ঘদিন যাবৎ কারাগারে বন্দী এবং এই সময়ের মধ্যে আমি এমন অনেকের সঙ্গে পরিচিত হয়েছি, যারা ভায়োলেন্স ঘটানোর ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ। কিছু ব্যতিক্রম বাদে, তাদের প্রত্যেকেই পর্নোগ্রাফিতে গভীরভাবে আসক্ত ছিল। নরহত্যা-সংক্রান্ত এফবিআই এর নিজেদের রিপোর্ট বলে, সিরিয়াল কিলারদের সাধারণ আগ্রহের বিষয় হচ্ছে পর্নোগ্রাফি। সুতরাং এটাকে উপেক্ষা করার কোনো উপায়ই নেই। আমি আশা করব, আমি যাদের অপূরণীয় ক্ষতির কারণ হয়েছি তারা আমার অনুশোচনায় বিশ্বাস না করলেও এখন আমি যে কথাগুলো বলব সেগুলো বিশ্বাস করবেন। আমাদের শহর, আমাদের সম্প্রদায় এমন কিছু প্রভাবকের ব্যাপারে খুবই শিথিল, যেগুলোর সুদূরপ্রসারী ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে। আজ হোক কাল হোক এগুলো প্রকাশ পাবেই। মিডিয়ায় ভায়োলেন্স বিশেষত যৌন-সহিংসতা এখন হরেক উপায়ে গিলিয়ে দেয়া হচ্ছে। আমার ভয় হয় যখন আমি ক্যাইবল টিভি দেখি। আজকাল সিনেমার মাধ্যমে যেসব ভায়োলেন্স আমাদের ড্রয়িংরুম অবধি পৌঁছে গেছে, ত্রিশ বছর আগে সেগুলো এক্স-রেইটেড অ্যাডাল্ট থিয়েটারেও দেখানো হতো নী।” “…যেটা আমি আগেও বলেছি, (এই) প্রভাবকগুলোর ব্যাপারে আমাদের সমাজের শিথিলতা চোখে পড়ার মতো। বিশেষত এ ধরনের ভায়োলেন্ট পর্নোগ্রাফি। যখন সভ্য সমাজ টেড বান্ডিকে দোষারোপ করতে করতে পর্ন ম্যাগাযিনের পাশ দিয়ে দেখেও না-দেখার ভান করে হেঁটে যাচ্ছে, তখন আসলে একদল তরুণ তাদের অগোচরেই টেড বান্ডিতে পরিণত হচ্ছে। আক্ষেপের জায়গাটা ঠিক এখানেই।” সাইকোপ্যাথিক সিরিয়াল কিলারদের তিনটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হলো, অত্যন্ত বিশ্বাসযোগ্যভাবে মিথ্যা বলতে পারা, কোনো ধরনের অনুশোচনা অনুভব না করা  এবং কোনো অবস্থায় নিজের দোষ স্বীকার না করা, কোনো না-কোনোভাবে অন্য কাউকে বা অন্য কিছুকে দায়ী করা। বান্ডির শেষ কথাগুলোকে একজন ঠান্ডা মাথার সিরিয়াল কিলারের অনুশোচনাহীন অজুহাত বলে উড়িয়ে দেয়া যায়। তবে ১৯৮৯ সালের জানুয়ারির এ ইন্টারভিউয়ের পর গত প্রায় তিন দশক পর সারা বিশ্বজুড়ে যে বাস্তবতা আমরা দেখছি– যার অত্যন্ত ক্ষুদ্র একটি অংশ আমাদের এ লেখায় উঠে এসেছে– তীর আলোকে বলতেই হয়, বান্ডি ঠিকই বলেছিল।