ট্রাইম ট্রাভেল – পরিচ্ছেদ ৬

০৬.

ওদেরকে লিভিং রূমে বসিয়ে রেখে উঠে গেলেন আঙ্কেল জ্যাক। নিজের মনে গুনগুন করতে করতে ঢুকে গেলেন গবেষণাগারের মধ্যে। কয়েক মিনিট পর গুনগুন করতে করতেই গিয়ে ঢুকলেন রান্নাঘরে।

 রান্নাঘরের টেবিলে বসে মুদী দোকানের ফর্দ করছেন চেরি আন্টি। মুখ তুলে তাকালেন। সুন্দরী, মাথায় সোনালি চুল, মোলায়েম বাদামী চোখ, মুখে আন্তরিক হাসি। কি ব্যাপার, জ্যাক? বাচ্চাগুলোর সঙ্গে তোমার টপ সিক্রেট ব্যক্তিগত আলোচনা শেষ হলো? ওদের সঙ্গে কথা বলতে যেতে পারি এখন?

আন্টিকে বসে থাকতে ইশারা করলেন আঙ্কেল জ্যাক। আনমনে বিড়বিড় করলেন, বেচারারা!

আলমারি খুলে শিশি-বোতল আর বয়াম ঘাটতে শুরু করলেন তিনি।

পাশে এসে দাঁড়ালেন চেরি আন্টি। কি হয়েছে? ওদেরকে এত বিমর্ষ দেখলাম কেন? কি বলতে এসেছে তোমাকে?

যা খুঁজছিলেন পেয়ে গিয়ে ঘোঁৎ-ঘোঁৎ করে উঠলেন আঙ্কেল জ্যাক। আঙুরের রস ভর্তি একটা ছোট বোতল বের করলেন।

স্ত্রীর দিকে ঘুরলেন তিনি। রবিন আর তার দুই বন্ধুর কি করে যেন মগজে গেঁথে গেছে ওরা বোকা হয়ে গেছে।

আঙুরের রসের বোতল থেকে চোখ সরিয়ে স্বামীর দিকে তাকালেন চেরি আন্টি। বুঝলাম না। বোকা হয়ে গেছে মানে?

বোকা হয়ে গেছে মানে বোকা হয়ে গেছে। বোতলটার দিকে তাকিয়ে সন্তুষ্ট হয়ে মাথা ঝাঁকালেন আঙ্কেল জ্যাক। বড় মুষড়ে পড়েছে বেচারারা। ওরা আমার কাছে এসেছে এমন কোন ওষুধ আছে কিনা জানতে যেটা ওদের বুদ্ধিমান বানিয়ে দিতে পারে।

হাঁ হয়ে ঝুলে পড়ল চেরি আন্টির নিচের চোয়াল। ওদেরকে কী বলেছ তুমি? বলেছ তো ওরা ঠিকই আছে, অকারণ দুশ্চিন্তা করে করে…

ঠোঁটে আঙুল রেখে আন্টিকে চুপ থাকতে ইশারা করলেন আঙ্কেল জ্যাক। ফিসফিস করে বললেন, শুকনো কথায় আত্মবিশ্বাস তৈরি হবে না ওদের। কোন কারণে আত্মবিশ্বাস নষ্ট হয়ে গেছে–এটাই হলো ওদের সমস্যা। নিজেদের ওপরই আর কোন আস্থা নেই ওদের।

কি করবে তাহলে?  জিজ্ঞেস করলেন চেরি আন্টি।

এই যে, ওষুধ দিচ্ছি, জবাব দিলেন আঙ্কেল জ্যাক। ল্যাবরেটরি থেকে কম্পিউটারে একটা লেবেল প্রিন্ট করে এনেছি।

বোতলটা কাউন্টারে রাখলেন আঙ্কেল জ্যাক। লেবেলটা বের করে দেখালেন আন্টিকে। তাতে লেখা: বুদ্ধি বাড়ানোর টনিক।

লেখাটার দিকে তাকিয়ে ভ্রূকুটি করলেন চেরি আন্টি, এ রকম কোন ওষুধের কথা তো জন্মেও শুনিনি।

দরাজ হাসি ছড়িয়ে পড়ল আঙ্কেলের মুখে। আমিও শুনিনি। তবে ওদের আমি বলব এটা আমার নিজের আবিষ্কৃত ওষুধ, বুদ্ধি বাড়ায়। ওদের বিশ্বাস জন্মানোটাই হলো আসল কথা। ওষুধে কাজ করছে এটা ভাবতে আরম্ভ করলেই আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে।

জোরে নিঃশ্বাস ফেললেন চেরি আন্টি। দেখো কাজ হয় কিনা।

তাড়াহুড়া করে লিভিং রূমের দিকে চলে গেলেন তিনি। ছেলেদের সঙ্গে কথা বলার জন্যে।

বোতলের দিকে মনোযোগ দিলেন তিনি। সুন্দর করে লেবেলটা লাগিয়ে দিলেন বোতলের গায়ে। তারপর ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ভালমত দেখলেন আঙুরের রস লেখা আসল লেবেলটা কোনখান দিয়ে দেখা যায় কিনা।

হয়েছে, সন্তুষ্ট হয়ে নিজেই ঘোষণা দিয়ে জানালেন নিজেকে। চমৎকার। পুরানো লেবেলটা দেখা যায় না। এটাকে মগজ উন্নত করার কিংবা বুদ্ধি বাড়ানোর ওষুধ ভাবতে আর আপত্তি কোথায়?

ভাগ্যিস, বুদ্ধিটা এসেছিল মাথায়। আপনমনে হাসলেন, আঙ্কেল জ্যাক। বোতলটা হাতে নিয়ে রওনা দিলেন লিভিং রূমের দিকে।

এই সময় টেলিফোন রাজল। ফোনটা রয়েছে ল্যাবরেটরিতে। হলের শেষ মাথার ঘরটা ল্যাবরেটরি।

কাউন্টারে বোতলটা রেখে ছুটলেন ফোন ধরার জন্যে।\ এই সুযোগে লুকানোর জায়গা থেকে বেরিয়ে এল মাজুল আর গাজুল।

ল্যাবরেটরির দরজার দিকে তাকিয়ে ফিসফিস করে বলল গাজুল, এটাই আমাদের সুযোগ।

কি করবে? লিভিং রুমের দরজার দিকে তাকাতে তাকাতে জিজ্ঞেস করল মাজুল।

দেখোই না কি করি।

বোতলটা তুলে নিয়ে মুখটা খুলে ফেলল গাজুল।

কি করছ?  জানার জন্যে অস্থির হয়ে উঠেছে মাজুল।

আহ, চুপ থাকো না! ওরা শুনতে পেলে দৌড়ে আসবে দেখার জন্যে। আমার প্ল্যানটাই তখন বাতিল। গোলাম বানানোর জন্যে আর ধরে নিয়ে যাওয়া যাবে না ছেলেগুলোকে।

আর কিছু না বলে চুপচাপ তাকিয়ে রইল মাজুল।

বোতলটাকে কাত করে সমস্ত রস সিংকে ফেলে দিল গাজুল। কোমরে ঝোলানো একটা ব্যাগ থেকে আরেকটা বোতল বের করল। সেটা থেকে পানির মত রঙহীন তরল পদার্থ ঢালল প্রথম বোতলটায়। ছোট ছোট নানা রঙের শিশিও আছে ব্যাগটাতে। আঙুরের রসটা যে রঙের ছিল, সে-রকম রঙ মিশিয়ে দিল বোতলের তরল পদার্থে। দেখতে অবিকল আঙ্কেল জ্যাকের রেখে যাওয়া আঙুরের রসের মতই রঙ হয়ে গেল জিনিসটার।

সঙ্গীর দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসল গাজুল। কিছু বুঝলে? আমাদের ল্যাবরেটরিতে তৈরি করা মগজ উন্নত করার সত্যিকারের ওষুধ মিশিয়ে দিলাম। মগজশক্তি রসায়ন মানুষের ব্রেনের ওপর কতখানি কাজ করবে জানি না। তবে আশা করি বোকা ছেলেগুলোর এবার খানিকটা হলেও বুদ্ধি বাড়বে। আর তা হলেই হয়ে গেল আমাদের কাজ।

লেবেল লাগানো আঙুরের রসের বোতুলটার মুখ লাগিয়ে আবার আগের জায়গায় রেখে দিল গাজুল।

ল্যাবরেটরির দিক থেকে পায়ের শব্দ শোনা গেল।

জলদি। তাড়া দিল গাজুল। আলমারির পেছনে।

বোতলটার দিকে তাকিয়ে আছে মাজুল। কোন মানুষকে কখনও এ ফরমুলা খাওয়ানো হয়নি। কি ঘটবে কে জানে! যদি রিঅ্যাকশন হয়? মগজের ওষুধ, বলা যায় না, পাগলও তো হয়ে যেতে পারে। মরে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই।  

সঙ্গীর কাঁধে জোরে এক ঠেলা মেরে আলমারির দিকে ঘুরিয়ে দিল গাজুল। মারা গেলে আর কি করব। গবেষণা করতে গেলে এ রকম দুচারজন মারা যেতেই পারে। দেখা যাক কি হয়…চলো চলো…

বুকমার্ক করে রাখুন 0