৫. আকাশের জন্য কালো গোলাপ

ভোর পাঁচটায় টেলিফোনের ঘুম ভাঙানো কল আকাশকে বিছানা থেকে ওঠালো। ঠিক ছটায় ভয়েস অব আমেরিকার স্থানীয় প্রতিনিধি ডিক পেন-এর সঙ্গে ওর দেখা করার কথা ডাইনিং-এ। হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের ৬০৩ নম্বর রুমে আছে আকাশ। ডিক থাকে দুই ফ্লোর নিচে ৪১২-তে। সকাল সাতটায় রুমানিয়ার ডাকসাইটে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আকাশের জন্য এ্যাপয়েন্টমেন্ট ঠিক করেছে ডিক। সঙ্গে ডিকও যাবে।

কাঁটায় কাঁটায় ছটায় নিচে ডাইনিং হলে এসে কোনার টেবিলে ডিককে দেখতে পেলো আকাশ। সুপ্রভাত বিনিময় করে ও চেয়ার টেনে বসে পড়লো। ডিককে কিছুটা বিমর্ষ দেখাচ্ছিলো। আকাশের হঠাৎ করে বুখারেস্ট আসাটাকে ডিক সহজভাবে গ্রহণ করতে পারে নি। তার মানে কি, ডিকের পাঠানো রিপোর্টে ভয়েস অব আমেরিকা যথেষ্ট সন্তুষ্ট নয়? বয়সে আকাশের চেয়ে চার বছরের বড় হলেও চাকরিতে এক গ্রেড নিচে। এটাও ওর দুঃখের একটা বড় কারণ।

তোমাকে বিমর্ষ মনে হচ্ছে। সব কিছু ঠিক আছে তো ডিক?

আকাশের গলায় সমবেদনার সুর ডিকের ভালো লাগলো। বললো, তোমার কি ধারণা হোম মিনিষ্টার ইচ্ছে করলেই চসেস্কুর সঙ্গে দেখা করার ব্যবস্থা করে দিতে পারবেন?

হোম মিনিস্টার সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়ে যা জেনেছি মনে হয় পারবেন।

আকাশের কথা শুনে ডিকের খুশি হওয়া উচিৎ ছিলো। ভয়েস অব আমেরিকার জন্য এই সময় রুমানিয়ার প্রেসিডেন্ট নিকোলাই চসেস্কুর সাক্ষাৎকার নেয়া একটা দারুণ ঘটনা হবে। ডিক গত তিন বছরে বহুবার চসেস্কুর সাক্ষাৎকার নেয়ার চেষ্টা করেছে, পারে নি। আর আকাশ বুখারেস্টে পা দেয়ার আট দিনের ভেতর এমন এক অসম্ভবকে সম্ভব করে ফেললো ভাবতে গিয়ে ডিকের মেজাজ খারাপ হয়ে গেলো। নিজেকে একটা অকর্মার ধাড়ি মনে হলো। পূর্ব ইউরোপের রাজনীতির এই ঝড়ো হাওয়ার ভেতর এই বাঙালি ছেলেটা পোল্যান্ডে গিয়ে লেচ ওয়ালেসার সাক্ষাৎকার নিয়েছে। তিন মাস না যেতেই চসেস্কুর সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা প্রায় করে ফেলেছে। আগামী বছর ওর প্রমোশন আটকায় কে? আর এরকম নিষ্কর্মা হয়ে বসে থাকলে ডিকের ভবিষ্যৎ যে ঝরঝরে, গরম কফির কাপে চুমুক দিতে দিতে ও দিব্যদৃষ্টিতে দেখতে পাচ্ছিল। একটা প্রশ্ন অনেকক্ষণ ধরে ডিকের মাথায় ঘুরছিলো আকাশ কি ভাববে সেজন্যে বলে নি। শেষে থাকতে না পেরে বলেই ফেললো, এতো অল্প সময়ে হোম মিনিস্টারের সঙ্গে দেখা করার ব্যবস্থা কীভাবে হল বলবে কি?

কেন, তার সেক্রেটারিকে বলে? লাইটার দিয়ে সিগারেট ধরিয়ে সহজ গলায় বললো আকাশ।

সেক্রেটারির কাছে পৌঁছলে কীভাবে?

এলেনা ব্যবস্থা করেছে। ওর এক বান্ধবীর বাবা হচ্ছে হোম, মিনিস্টারের সেক্রেটারি।

এলেনা মানে, ওই যে রুমানিয়ার মেয়েটা? তোমার দোভাষী?

ঠিক ধরেছে। তবে সেক্রেটারিকে এক কার্টন কেন্ট সিগারেটও দিতে হয়েছে।

ঘুষ?

আমি ঘুষ বলি না। মৃদু হেসে জবাব দিলো আকাশ–আমি বলি উপহার। হোম মিনিস্টারকেও উপহার দেবে?

নিশ্চয়ই দেবো। তিরিশ বছরের পুরোনো এক বোতল স্কচ হুইস্কি হোম মিনিস্টার আশা করি অপছন্দ করবেন না।

আর চসেস্কুকে? ভাঙা গলায় জানতে চাইলো ডিক।

প্ল্যাটিনামের ওপর হীরে বসানো ছোট্ট একটা টাইপিন আর কাফলিং।

হা করে কিছুক্ষণ আকাশের মুখের দিকে তাকিয়ে রইলো ডিক। তারপর তোক গিলে বললো, তার মানে এসব জিনিষ তুমি সঙ্গে করে নিয়ে এসেছো?

ঠিক তাই।

কি করে নিশ্চিত হলে চসেস্কুর সাক্ষাৎকার পাওয়া যাবে?

নিশ্চিত ছিলাম না। সম্ভাবনার কথা ভেবে এসেছি। এলেনার বান্ধবীর সঙ্গে কথা বলে পরশু নিশ্চিত হয়েছি।

ওয়ালেসাকেও নিশ্চয় ঘুষ দিয়েছিলেম সাক্ষাৎকারের জন্য?

ঘুষ নয় ডিক, উপহার। শান্ত গলায় জবাব দিলো আকাশ-তোমার জানা উচিৎ এটা অস্বাভাবিক কোনো ঘটনা নয়।

আমাদের দেশে এসব চলে না।

তুমি বোধহয় জানো না গত বছর পাঁচ মিনিটের সাক্ষাৎকারের জন্য হেনরী কিসিজ্ঞারকে আমরা পাঁচশ ডলার দিয়েছিলাম। আমরা ওটাকে বলি সম্মানী।

আকাশের কথায় বার বার জব্দ হয়ে ডিক কিছুক্ষণ মুখ কালো করে বসে রইলো। তারপর ঘড়ি দেখে শুকনো গলায় বললো, আমাদের যাওয়ার সময় হয়েছে।

আকাশদের হোটেল থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দফতর গাড়িতে পনের মিনিটের রাস্তা। হোটেলের একটা লিমোযিন গাড়ি নিয়ে আকাশ নিজেই ড্রাইভ করে চলে গেলো সেখানে। সারা পথ গোমড়ামুখো হয়ে বসে রইলো ডিক। আকাশ বুঝলো এটা নিতান্তই পেশাগত ঈর্ষা।

মধ্যবয়সী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ঠিক সাতটায় দেখা করলেন আকাশদের সঙ্গে। প্রথমে জানতে চাইলেন ওরা চা না কফি নেবে। ডিক আর আকাশ কফির কথা বলতেই মন্ত্রী বেল টিপে একজনকে কফি আনতে বলে আকাশের দিকে তাকালেন। মুখে হাসি ফুটিয়ে বললেন, বলুন আপনাদের জন্য কি করতে পারি।

আকাশ ওর অভ্যাস অনুযায়ী প্রথমে কাজের কথায় গেলো না। ব্যাগ থেকে স্কচ হুইস্কির বোতল আর এক কার্টুন কেন্ট সিগারেট বের করে টেবিলে রাখলো। হুইস্কির বোতলটা চমৎকার একটা বাক্সে রাখা। দেখে মন্ত্রীর চোখ চকচক করে উঠলো। মৃদু হেসে আকাশ বললো, আপনার জন্য সামান্য উপহার–গ্রহণ করলে বাধিত হবো।

অনেক অনেক ধন্যবাদ। উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠলেন মন্ত্রী—দারুণ জিনিষ এনেছেন। আপনার পছন্দের প্রশংসা না করে পারছি না। এই বলে চট করে ওগুলো তার বিশাল সেক্রেটারিয়েট টেবিলের ড্রয়ারে ঢুকিয়ে ফেললেন। অন্য একটা ড্রয়ার টেনে রুমানিয়ার ওপর দুটো বই আর ফ্ল্যাগওয়ালা দুটো কোটপিন বের করলেন। বললেন, আপনার উপহারের তুলনায় এগুলো কিছুই নয়। সামান্য স্যুভেনির, রুমানিয়ার স্মৃতি হিসেবে দয়া করে রাখুন।

ডিক ধন্যবাদ বলে কোটপিনটা নির্বিকার মুখে পকেটে পুরে ফেললো। আকাশ মুখখানা উজ্জ্বল করে কয়েকবার ধন্যবাদ দিয়ে কোটপিনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে ওটাকে জ্যাকেটের পকেটে গেঁথে রাখলো। ওর আচরণে ডিক শুধু অবাক হচ্ছিলো। অতি মামুলি কোট পিন নিয়ে এত উচ্ছ্বাস দেখানোর কোনো কারণই খুঁজে পেলো না। ততক্ষণে একজন সুন্দরী মহিলা কফি বানিয়ে এসেছে। আড়চোখে মহিলাকে একবার দেখে ডিক কফির প্রতি মনোযোগ দিলো। আকাশ মহিলাকে ধন্যবাদ জানিয়ে মন্ত্রীর দেয়া রুমানিয়ার ওপর বইটার কয়েক পাতা উল্টে বললো, চমৎকার বই। প্রচুর তথ্য আছে। আমার অনেক কাজে লাগবে।

মন্ত্রী হাসিমুখে বললেন, কফি নিন। এ ধরনের বই বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রের ওপর অনেক আছে। আপনার প্রয়োজন হলে বলবেন, আমি পাঠিয়ে দেবো।

আপনার অনুগ্রহ আমি ভুলবো না। আকাশ বিনয়ে বিগলিত হল।

মন্ত্রী বললেন, অনুগ্রহ দেখাবার কোনো সুযোগ আপনি আমাকে এখনো দেন নি।

আকাশ তার দিকে তাকিয়ে শান্ত গলায় বললো, আপনার যে বিশেষ অনুগ্রহ ভিক্ষা করতে আমি এসেছি, বুখারেস্টে এক মাত্র আপনার পক্ষেই তা দেয়া সম্ভব।

কী সেটা?

প্রেসিডেন্ট চসেস্কুর একটি সাক্ষাৎকার চাই ভয়েস অব আমেরিকার জন্য।

আকাশের কথা শুনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর মুখের হাসি মিলিয়ে গেলো–আপনি বোধ হয় জানেন না প্রেসিডেন্ট চসেস্কু বিদেশী কোনো সাংবাদিককে সাক্ষাঙ্কার দেন না।

জানি। তবে আপনাকে আমি অনুরোধ করবো পূর্ব ইউরোপের এখনকার পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেখতে। ওয়ারস জোটের ভেতর একমাত্র আপনারাই অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে সমাজতন্ত্রের পতাকা উঁচু করে তুলে রেখেছেন। গোটা পৃথিবী তাকিয়ে আছে প্রেসিডেন্ট চসেস্কুর দিকে। আমরা চাই তিনি পশ্চিমের সবচেয়ে শক্তিশালী প্রচার মাধ্যমটির সুযোগ গ্রহণ করবেন।

বেশ কিছুক্ষণ গম্ভীর হয়ে কি যেন ভাবলেন মন্ত্রী। তারপর বললেন, আমি প্রেসিডেন্টের অফিসের সঙ্গে কথা বলবো। প্রেসিডেন্টের সাক্ষাঙ্কার যদি সম্ভব না হয় আপনি কি পররাষ্ট্র মন্ত্রী বা পার্টির কোনো সিনিয়র নেতার সঙ্গে কথা বলতে আগ্রহী?

কথা আমি সবার সঙ্গে বলতে আগ্রহী। আপনার সঙ্গে কথা বলেও আমি অনেক কিছু শিখতে পারবো। তবে সাক্ষাৎকারের ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট আমার একমাত্র চয়েস?

মাথা নেড়ে সায় জানালেন চিন্তিত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী–বুঝতে পারছি। আপনি তো পোল্যান্ডে ওয়ালেসার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন?

আপনি জানেন তাহলে। ওয়ারসতে আমি কমিউনিস্ট পার্টির প্রদান জেরুজালিস্কির সাক্ষাৎকারের চেষ্টাও করেছিলাম। সময়ের অভাবে পারি না।

জেরুজালিস্কি নাম শুনে বিরক্ত হলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী–ভালো করেছেন ওই কাপুরুষের সাক্ষাৎকার না নিয়ে। আমরা ফোর্স পাঠিয়ে ওকে সাহায্য করতে চেয়েছিলাম। গর্দভটা রাজি হয় নি। থেচারের ধমক খেয়ে কাপড় খারাপ করে ফেলেছে। তা ওয়ালেসার সঙ্গে কথা বলে কি মনে হলো?

আমেরিকা যদি বড় আকারে কোনো সাহায্য না পাঠায় তাঁর পক্ষে সামাল দেয়া খুব কঠিন হবে। অর্থনৈতিক পরিস্থিতি খুবই খারাপ।

ওয়ারস জোটের ভেতর হাঙ্গেরি আর ওদের অবস্থা কখনোই ভালো ছিলো না। তবে আমেরিকা তেমন কোনো সাহায্য পাঠাবে না।

কেন ভাবছেন পাঠাবে না?

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এক গাল হেসে বললেন, মরা ঘোড়ার ওপর কেউ বাজি ধরে না। ওখানে কমিউনিস্টরা আর ক্ষমতায় নেই। আমেরিকার স্বার্থ মিটে গেছে।

রুমানিয়ার ব্যাপারে আমেরিকার মতলব কিছু জানেন? 

তেমন কোনো তথ্য আমাদের হাতে নেই। তবে ঝামেলা পাকাতে গেলে ভুল করবে, এটা আমি বলতে পারি।

সোভিয়েত ইউনিয়নের তরফ থেকে কোনো ঝামেলার আশঙ্কা আছে? খুব সাবধানে প্রশ্নটা করলো আকাশ।

ওদের সঙ্গে মলদোভিয়া নিয়ে গণ্ডগোল তো লেগেই আছে। নতুন করে আর কি ঝামেলা করবে। গর্বাচেভ এখন নিজের ঘর সামলাতেই ব্যস্ত।

প্রফেসর গর্ডনের কথা মনে পড়লো আকাশের। সোভিয়েতের পক্ষ থেকে এরা কোনো ঝামেলা আশা করছে না। ইচ্ছে করলে সোভিয়েত নেতারা এই সুযোগটাকে কাজে লাগাতে পারে। রুমানিয়ার পরিস্থিতি, বিশেষ করে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সঙ্গে আরো কিছুক্ষণ কথা বললো আকাশ। দেড় ঘন্টা পর ওরা তার দফতর থেকে বেরোলো। মন্ত্রী বলেছেন প্রেসিডেন্টের দফতরের সঙ্গে কথা বলে কালই আকাশকে জানিয়ে দেবেন চসেস্কুর সাক্ষাৎকার নেয়া সম্ভব হবে কি না।

আকাশের পরের প্রোগ্রাম এলেনার সঙ্গে। ওখানে ডিককে নেয়া যাবে না। গাড়িতে উঠে আকাশ ওকে বললো, চলো তোমাকে তোমার অফিসে নামিয়ে দিই। হোম মিনিস্টারের সঙ্গে কথা বলে অনেক তথ্যই তো পেলে। একটা রিপোর্ট লিখে পাঠিয়ে দাও। আমি ব্যক্তিগত কাজে কিছুক্ষণ ব্যস্ত থাকবে।

ডিক মুখ কালো করে বললো, হোম মিনিস্টারের সঙ্গে তো তুমিই কথা বললে। রিপোর্টে কি তোমার কথা উল্লেখ করবো?

কোনো দরকার নেই ডিক। এত সামান্য ব্যাপারে আকাশ কৃতিত্ব নিতে চায় না। বললো, ধরে নাও বৈঠকে আমি ছিলামই না।

আকাশের কথা শুনে ডিকের মুখে হাসি ফুটলো। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সঙ্গে আকাশের কথা বলার সময় ওর মন খারাপ হচ্ছিলো এটা ভেবে যে আকাশ কি চমৎকার একটা রিপোর্টের বিষয় পেয়ে যাচ্ছে। ডিকের জন্য এসব তথ্য খুবই জরুরি। রিপোর্টটা আকাশের নামে যাবে না শুনে আকাশের ওপর থেকে ওর সব রাগ উঠে গেলো। হেসে বললো, তোমাকে এখনো বুঝে উঠতে পারলাম না আকাশ।

ভয়েস অব আমেরিকার অফিসের সামনে ততক্ষণে গাড়ি থামিয়েছে আকাশ। ডিককে নামিয়ে দিয়ে বললো, আমাকে বোঝার চেয়ে ব্লেন্ডাকে বোঝা তোমার জন্য বেশি জরুরি ডিক।

ডিক কিছু বলার আগেই আকাশের লিমোযিন স করে বেরিয়ে গেলো।

এলেনা ওর জন্য অপেক্ষা করছিলো বোটানিকাল গার্ডেনে। বুখারেস্টে এই এক ঝামেলা। বিদেশী কারো সঙ্গে রুমানিয়ান কাউকে বেশি মেলামেশা করতে দেখলেই চসেস্কুর গুপ্ত পুলিশের নজর পড়বে। এলেনার সঙ্গে মেশার জন্য আকাশ সেজন্যে প্রথম দিনই ওকে দোভাষী হিসাবে ভাড়া করেছে। দোভাষী ভাড়া দিয়ে পর্যটন দফতর প্রচুর টাকা আয় করে। এলেনার জন্য আকাশের কাছ থেকে ওরা যা নিচ্ছে তার মাত্র পনেরো ভাগের এক ভাগ দেয়া হবে ওকে, তাও দেশী মুদ্রায়।

আকাশ জানে এলেনাকে কীভাবে ঠকানো হয়। সে জন্যে গতবারের মতো এবারও ওর জন্য দামি উপহার এনেছিলো। এলেনা অবশ্য গতকালও বলেছে, দোভাষী হিসেবে আকাশের কাছ থেকে টাকা নিতে ওর খুব খারাপ লাগে। আকাশ বলেছে, টাকা তুমি নিচ্ছো না, নিচ্ছে তোমার অফিস। আর এভাবে টাকা যদি না নাও তাহলে তোমার সঙ্গে দেখা করার কোনো সুযোগ থাকবে না।

এলেনাও জানে কথাটা পুরোপুরি সত্যি। ওর কাছে অসহ্য লাগে এই জেলখানার জীবন। নিজের ইচ্ছায় দেশের বাইরে যেতে পারবে না, বিদেশী কারো সঙ্গে কথা বলতে পারবে না, ভোর না হতে রুটির জন্য লাইন দিতে হবে, কাঁহাতক সহ্য করা যায় এসব? নিজের সহপাঠী বন্ধুদের সঙ্গেও মন খুলে কথা বলতে পারে না। সারা দেশে চসেস্কুর গুপ্ত পুলিশের চর গিজগিজ করছে। হয়তো যাকে বন্ধু ভেবে নিজের খারাপ লাগার কোনো কথা বললো, দেখা গেলো সেই সরকারের গুপ্তচর। বাড়িতে বাবা মা আর ওর বড় এক ভাই আছে। বাড়িতেও প্রাণ খুলে কথা বলার জো নেই। নাকি বুখারেস্টের দেয়ালেরও কান কাছে।

এই দম বন্ধ করা জীবনে আকাশ ওর কাছে মুক্ত আকাশের ঠিকানা নিয়ে এসেছে। যে কারণে আকাশকে খুব কাছের একজন বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করেছে এলেনা। মনের ভেতর জমে থাকা যত রাগ আর দুঃখের কথা ছিলো সব ওকে বলে হালকা হয়েছে। শ্রোতা হিসেবে আকাশের জুড়ি নেই। আর আকাশও রুমানিয়ার মতো শেকল বাঁধা দেশে এলেনার মতো একজন ভোলামনের বান্ধবী পেয়ে বর্তে গিয়েছে।

বোটানিকাল গার্ডেনে নির্ধারিত জায়গা লিলি পণ্ডের পাশেই এলেনাকে বসে থাকতে দেখলো আকাশ। কাছে এসে বললো, মিনিস্টারের ওখানে আটকা পড়ে গেলাম। ভদ্রলোক ছাড়তেই চাইছিলেন না।

আকাশ রুমানিয়ান ভাষা জানে না। এখানে সে ব্যবহার করে ফরাশি। এরা ইংরেজির চেয়ে অনেক বেশি বলে জার্মান আর ফ্রেঞ্চ। এলেনা ফরাশি আর ইংরেজি দুই বলতে পারে। আকাশের সঙ্গে ও ইংরেজিতে কথা বলে, যাতে আশেপাশের লোকজন কম বোঝে। আকাশ ওর পাশে বসতেই জানতে চাইলো–কি কথা হল এতক্ষণ?

আকাশ গত কদিনে জেনে ফেলেছে রুমানিয়ার মানুষও পূর্ব ইউরোপের অন্যান্য দেশের মতো ওদের ডিক্টেটরকে হটাতে চাইছে। তবে অন্য সব দেশে সরকার বিরোধীদের যে রকম সংগঠন ছিলো এখানে সেরকম কিছু না থাকাতে ও নিজেও বুঝতে পারছিলো না শুরুটা কোত্থেকে আর কীভাবে হবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সঙ্গে কি কথা হয়েছে সব ও এলেনাকে বললো।

আকাশের কথা শুনে এলেনা কিছুক্ষণ চুপ থেকে কি যেন ভাবলো। তারপর বললো, তুমি যা জানতে চাইছো আমার মনে হয় তিমিশোয়ারায় গেলে কাজ হবে।

আকাশ একটা সিগারেট ধরিয়ে পুকুরে ফোঁটা আমাজান লিলির দিকে আঙ্গুল দেখিয়ে বললো, সেটা কোথায়? ভাবখানা ওর এমন যে মুগ্ধ হয়ে ফুল দেখছে।

এলেনা লিলির দিকে তাকিয়ে মাথা নাড়লো–গাড়ি নিয়ে গেলে এখান থেকে ছঘন্টার রাস্তা।

তুমি যাবে?

না, আমাকে যেতে দেবে না।

আমি একা গিয়ে কার সঙ্গে যোগাযোগ করবো? তার কোনো বিপদ হবে না তো?

দেখাটা গোপনে হবে। তুমি সেন্ট পলের গীর্জার সামনে বার বছরের একটা ছেলের দেখা পাবে যে সাদা কারনেশান আর কারো গোলাপ বিক্রি করে। ওকে বলবে, পুরো গোছা নেবো না, কোটের বটন হোলের জন্য ছোট্ট একটা কালো গোলাপ চাই, কত নেবে। ছেলেটা বলবে পাঁচ লেই দিলে আমি খুশি হবো। তুমি দশ লেই এর নোট দেবে। ছেলেটা তোমাকে পাঁচ লেই-এর নোট ফেরত দেবে। সেই নোটে লেখা থাকবে কীভাবে তার সঙ্গে দেখা করবে। এবার বলো কবে যেতে চাও? এলেনা এমনভাবে হাত নেড়ে নেড়ে কথা বলছিলো দূর থেকে মনে হবে আকাশকে ও আমাজান লিলির জন্ম বৃত্তান্ত শোনাচ্ছে।

আকাশ বললো, আমি পরশু যেতে পারি। কাল আমাকে হোম মিনিস্টারের ফোনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। রাতে বাংলাদেশ এম্বাসির কাউন্সিলার ডিনারে দাওয়াত দিয়েছেন।

এলেনা উঠে দাঁড়ালো, বললো–চলো কিছুক্ষণ হাঁটি। মনে হচ্ছে কেউ আমাদের ওয়াচ করছে। খবর আমি পাঠিয়ে দিচ্ছি। কালো গোলাপে ফেরি করা ছেলেটাকে না পেলে ফেরত চলে আসবে। সেখানে একমাত্র কালো গোলাপ হচ্ছে তোমার ঠিকানা।

আকাশ লক্ষ্য করলো এলেনার কোটের বাটন হোলেও ছোট্ট একটা কালো গোলাপের কুঁড়ি।

বুকমার্ক করে রাখুন 0