২. একটি রোমাঞ্চকর দায়িত্ব

ভোরে অনেকক্ষণ বেজে থেমে গিয়েছিলো টেলিফোনটা। আকাশ তখন গভীর ঘুমে অচেতন। ম্যালকমদের পার্টি থেকে রাতে ও এ্যাপার্টমেন্টে ফিরেছে সাড়ে তিনটার দিকে। চল্লিশ মিনিট গাড়ি ড্রাইভ করে ফিরতে হবে বলে পার্টিতে ও কড়া ড্রিংক নেয় নি। ম্যালকমের নতুন বান্ধবী সুজানা ওকে মার্টিনির সঙ্গে সোডা আর লাইম দিয়ে চমৎকার একটা ককটেল বানিয়ে দিয়েছিলো। সঙ্গে বারবেকিউর কচি ভেড়ার রোস্ট ছিলো। সালাদটাও ছিলো চমৎকার। ম্যালকমদের থ্যাংকস গিভিং পার্টিটা দারুণ জমেছিলো।

ফেরার সময় ফাঁকা রাস্তায় ঘন্টায় আশি মাইল স্পীডে নিজের সদ্য কেনা আলফা রোমিও গাড়িটা চালাতে গিয়ে আকাশের মনে হচ্ছিলো হেমন্তের ভারহীন মেঘের মতো ভেসে চলেছে। রাতে ও ঠিক করেছিলো লম্বা একটা ঘুম দিয়ে বারটায় উঠবে। গত কয়েক দিন সোহেল ভাই না থাকাতে রাতে ওকে ভয়েস অব আমেরিকায় বাংলা বিভাগের কাজও করতে হয়েছে। ও কাজ করে ইউরোপিয়ান ডেস্কে।

প্রথমবার টেলিফোনের শব্দ কানে না গেলেও দ্বিতীয়বার বাজার সঙ্গে সঙ্গে আকাশের ঘুম ভেঙে গেলো। বিছানার শুয়ে হাত বাড়িয়ে রিসিভারটা তুলে, হ্যালো বলতেই মার গলা শুনলোসকালে কি বেরিয়েছিলি আকাশ? আমি দু ঘন্টা আগেও একবার ফোন করেছিলাম।

ঘুম জড়ানো গলায় আকাশ বললো, না মাম, ঘুমোচ্ছিলাম। রাতে পার্টি ছিলো, দেরি করে ফিরেছি। তুমি কোত্থেকে বলছো?

সেইন্ট লুইস থেকে। স্বাতাঁকে দেখতে এসেছিলাম। জামাই যেতে দিলো না।

আকাশের দুবছরের বড় বোন স্বাতী, বিয়ে করেছে আমেরিকান ছেলেকে, ল্যাণ্ডস্কেপ ইঞ্জিনিয়ার, ভারি চমৎকার স্বভাবের। দুদিন আগে ওদের ছেলে হওয়ার খবর পেয়েছে আকাশ। বলেছে পরের উইকএণ্ডে দেখতে যাবে। মাকে ও জিজ্ঞেস করলো, পিচ্চিটা কেমন আছে মাম, কার মতো দেখতে হয়েছে?

গায়ের রং পেয়েছে বাপের। হেসে মা বললেন, তবে চুল আর চোখের রং কালো। কি যে সুন্দর হয়েছে না দেখতে?

মার গলায় খুশির ছোঁয়া দেখে ভালো লাগলো আকাশের। স্বাতী যখন গত বছর নিজের পছন্দের এই ছেলেটিকে বিয়ে করতে চাইলো, মার মুখ কালো হয়ে গিয়েছিলো। চব্বিশ বছর ধরে এদেশে থাকলেও মার স্বভাব মোল আনা বাঙালি রয়ে গেছে। ভাগ্যিস জামাইটা হয়েছিলো বাঙালি স্বভাবের, হয়তো পূর্ব পুরুষ ইটালি থেকে আসার কারণে। নইলে মা খুব কষ্ট পেতেন।

মা বললেন, কথা বলছিস না কেন আকাশ? আজকের তারিখটা মনে আছে তো?

আকাশের ঘুমের ঘোর তখনও পুরোপুরি কাটে নি। একটু অবাক হয়ে জানতে চাইলো, আজকের তারিখ মনে রাখতে হবে কেন মাম?

তুই সব সময় তোর জন্মদিনের কথা ভুলে যাস। শুভ জন্মদিন আকাশ। মেনি মেনি হ্যাপি রিটার্ন অব দ্য ডে।

থ্যাংক ইউ মাম। আকাশ লাজুক হাসলো।

মা ঠিকই বলেছেন। নিজের জন্মদিনের কথা ওর কখনো মনে থাকে না। দেয়ালে ঝোলানো স্মিথসোনিয়ার মিউজিয়ামের চমৎকার ডিজিটাল ক্যালেণ্ডারে জ্বলজ্বল করছে নবেম্বর ২৯, ১৯৮৯। তার মানে ওর বয়স আজ তেইশ বছর হচ্ছে। নিজেকে বেশ পরিণত বয়স্ক একজন মনে হলো আকাশের। অবশ্য অফিসে ওর সিনিয়ররা সব সময় বলেন, বয়সের তুলনায় ও যথেষ্ট পরিণত এবং বুদ্ধিমান। গত বছর জানুয়ারিতে ও কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে মাস কম্যুনিকেশনে পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন শেষ করে ভয়েস অব আমেরিকায় জয়েন করেছে। এত অল্প বয়সে ওর আগে কেউ এ ধরণের পোস্টে জয়েন করে নি। রেকর্ড মার্কস নিয়ে পাস করেছে বলেই চাকরিটা জুটেছিলো ওর কপালে।

চাকরির দু বছর না হতেই তিনবার ও ইউরোপ ঘুরে এসেছে বিশেষ সংবাদদাতা হিসেবে। যখন ফ্রেঞ্চ বলে খাঁটি ফরাশিরাও চেহারা না দেখলে বুঝতে পারবে না ও যে ফরাশি নয়। কাজ চালাবার মতো জার্মান আর স্প্যানিশও বলতে পারে। ইউনিভার্সিটির সে দল টিমে ক্যাপ্টেন ছিলো পর পর দুবছর। এ সবই ওকে ভয়েস অব আমেরিকার বিশেষ প্রতিনিধির এই লোভনীয় চাকরি পেতে সাহায্য করেছে।

মা বললেন, আমরা ঘুমোবি নাকি? দশটা বাজে। অফিসে, যাচ্ছিস কখন?

হাই তুলে আকাশ বললো, এ বেলা অফিস নেই। ভেবেছিলাম বারটা অব্দি ঘুমোবো। তুমি আর ঘুমোতে দিলে কই!

স্বাতী আর স্যাম তোকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছে। মা একটু থেমে শব্দ করে হেসে উঠলেন–জুনিয়র স্যামও ওর আঙ্কেলকে উইশ করছে। বিকেলে আমরা তোর জন্মদিনের কেক খাবো। তোর বাবাও আসবে। খুব মিস করবো তোকে।

সামনের উইক এন্ডে সেন্ট লুইস এসো মাম। ড্যাডকেও বোলো আসতে।

তুই যে আসবি স্বাতী বলেছে। ভাল থাকিস আকাশ। আমরা সবাই তোকে ভালোবাসি।

আমিও তোমাদের ভালবাসি মাম। তোমরা ভালো থেকো। টেলিফোন রেখে আরো কিছুক্ষণ শুয়ে থাকলো আকাশ। ভয়েস অব আমেরিকায় চাকরি হওয়ার পর দুই রুমের এই এ্যাপার্টমেন্টটা কিনেছে ও। বার হাজার ডাউন পেমেন্ট করেছে এর জন্য, বাকিটা মাসে মাসে কিস্তিতে দিচ্ছে। এখানে সব কিছু কিস্তিতে কেনা যায়। গাড়িটাও একই ভাবে কেনা। পুরোটা নগদ দিতে হলে এত দামি গাড়ি কিনতে ওর কয়েক বছর লাগতো। আলফা রোমিও গাড়িটা কেনার পর থেকে ওর বান্ধবীর সংখ্যাও বেড়ে গেছে। তবে ওরা শুধুই বান্ধবী, বেশি কিছু নয়।

বিছানায় শুয়ে কিছুক্ষণ এপাশ ওপাশ করে উঠে পড়লো আকাশ। ঘড়ি ধরে পুরো তিরিশ মিনিট ফ্রি হ্যাঁণ্ড ব্যায়াম করলো। ঘাম ঝরিয়ে যখন আয়নার সামনে দাঁড়ালো তখন এগারটা বাজে। নিজেকে আয়নায় দেখে হাসি পেলো আকাশের। ওর বয়স তেইশ হলেও কেউ বলবে না ও কুড়ি পেরিয়েছে। যদিও শেভ করে রোজই, ব্যায়াম করা পেটা শরীর ওর, তবু চেহারায় রয়ে গেছে কিশোরসুলভ কমনীয়তা। এ দেশে জন্ম হলেও ওর গায়ের রঙ তামাটে, চেহারায় কিছুটা মিল রয়েছে হলিউডের এককালের তুখোড় অভিনেতা ওমর শরীফের সঙ্গে। অনেকে জানতে চেয়েছে ও আরব না ইজিপ্সিয়ান। বাঙালী শুনে অবাক হয়েছে, সচরাচর বাঙালিদের চেহারা এত শার্প হয় না।

শেভ করে গোসল সেরে এক গ্লাস অরেঞ্জ জুস হাতে পুবের বারান্দায় এসে দাঁড়ালো আকাশ। হেমন্তের নরম রোদমাখা এক ঝলক ঠাণ্ডা বাতাস ওকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালো। তামাটে রঙের চেস্টনাট আর লালচে ওক গাছগুলো ঝলমলে রঙের পাতা ঝরিয়ে ডাল নেড়ে অভিনন্দন জানালো ওকে। আকাশের ভাবতে ভালো লাগলো। আজ ওর জন্মদিন। পটোম্যাক নদীর পশ্চিম তীরে বার তলার ওপর ছোট্ট এ্যাপার্টমেন্টটা ওর বেশি ভালো লাগে এক চিলতে এই বারান্দাটার জন্য। সামনে শুয়ে আছে শান্ত নদী, ওপারে ওয়াশিংটন ডিসির মূল শহর। ওর বারান্দা থেকে আমেরিকার সবুজ নিরিবিলি রাজধানী শহরের পুরোটাই দেখা যায়। দূরে ক্যাপিটল হল-এর সাদা গম্বুজ, তার সামনে স্মিথসোনিয়াম মিউজিয়ামের পুরোনো আমলের লাল ইমারত, আরো কাছে ওয়ার মনুমেন্ট। সমান্তরালভাবে চলে গেছে কন্সটিটিউশন এভিনিউ আর ইণ্ডিপেণ্ডেন্স এভিনিউর চওড়া রাস্তা দুটো। দু পাশে সাজানো গাছ, মাঝখানে ঘাসজমি দূর থেকে মনে হয় এক টুকরো সবুজ মখমলের রিবন পড়ে আছে। নিউইয়র্ক, শিকাগো কিংবা অন্য সব শহরের মতো এখানে আকাশ ছোঁয়া দালানের স্তূপ নেই, রাস্তায় আবর্জনা নেই, ভবঘুরে ভিখিরি কদাচিৎ চোখে পড়ে। অতি পরিপাটি সাজানো গোছানো এই শহর–দুবছর না কাটতেই আকাশের মন কেড়ে নিয়েছে।

ঘরে ফিরে ও ব্রেকফাস্ট আর লাঞ্চ একসঙ্গেই সারলো। রুটি, মাখন, জেলি, সসেজ সব ফ্রিজেই থাকে। সামান্য সময় দিতে হল টোস্টারে রুটি টোস্ট আর দুটো ডিম পোচ করার জন্য। সিরিয়ালও ছিলো কয়েক রকমের। ওসব খেতে ইচ্ছে করলো না আকাশের। সকালে বা দুপুরে বাটার টোস্টের সঙ্গে সসেজ আর ডিম খেতেই ভালো লাগে ওর। কখনও একমুঠো বীন ভেজে নেয় মার্জারিনে।

খাবার সেরে কালো কফির পেয়ালা নিয়ে বারান্দায় বসতেই আবার টেলিফোন বাজলো। সম্ভবত সামান্থা নয়তো অফিসের ব্লেন্ডা। ওদের নোট বইতে ওর জন্মদিনের তারিখ লেখা আছে।

উঠে গিয়ে রিসিভার তুলতেই ওপাশ থেকে ওর বস হেনরী পেপার্স-এর বাজখাই গলা ভেসে এলো ঘুম থেকে উঠেছো তাহলে। ম্যালকম বললো এ সময় তোমাকে ঘরেই পাওয়া যাবে । ব্রেকফাস্ট সেরেছো?

হেনরী পোপার্সকে অফিসের কেউ নরম গলায় কথা বলতে শোনে নি। টেলিফোনে নিজের বউকে যখন বলেন আমি তোমাকে ভালোবাসি ক্যাথি, শুনে মনে হয় কোনো অপকর্মের জন্য বুঝি তাকে ধমক দিচ্ছেন। আকাশ কিছুই বুঝলো না, বস তার ওপর প্রসন্ন, নাকি রেগে আছেন। ছোট্ট জবাব দিলো, ব্রেকফাস্ট শেষ করেছি।

এক্ষুণি বেরিয়ে পড়ো। তিরিশ মিনিট পর আমার কামরায় দেখতে চাই তোমাকে। আকাশকে কোনো কথা বলার সুযোগ না দিয়ে টেলিফোন রেখে দিলেন হেনরী পেপার্স। গত বারো বছর ধরে তিনি ভয়েস অব আমেরিকার ইউরোপিয়ান ডেস্কের প্রধান। কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির জার্নালিজমের প্রফেসর ইমানুয়েল তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তাঁর কাছে আকাশের কথা শুনেই ওকে ওয়াশিংটনে তলব করে এ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার হাতে ধরিয়ে দিয়েছিলেন। ওর জন্য হেনরী পেপার্স-এর হৃদয়ে যে নরম একটি কোণ রয়েছে এ কথা তিনি ঘুণাক্ষরেও টের পেতে দেন নি কাউকে। অফিসের কেউ জানে না ওঁর ছেলে বব, একাত্তরে ভিয়েতনামের যুদ্ধে গিয়ে যে লাশ হয়ে ফিরে এসেছিলো, তখন ও ছিলো আকাশের বয়সী।

ঠিক তিরিশ মিনিট পর আকাশ ওঁর ঘরে ঢুকতেই স্বভাব সুলভ বাজখাই গলা শুনলো বোসো। ভূমিকা না করেই তিনি বললেন, রুমানিয়ার খবর কিছু জানো?

ডিক পেন বুখারেস্টে ওদের প্রতিনিধি। গত সাতদিন রুটিন মতো গতানুগতিক কিছু খবর পাঠিয়েছে। মাস তিনেক আগে আকাশ নিজেও ঘুরে এসেছে রুমানিয়া থেকে। ওখানকার কমিউনিস্ট পার্টির কংগ্রেস হয়েছে। নিকোলাই চসেস্কু আবার প্রেসিডেন্ট হয়েছেন। পূর্ব ইউরোপের অন্য সব দেশে কমিউনিস্ট সরকারগুলোর পতন হলেও রুমানিয়ায় সে ধরনের কোনো কিছু ঘটার কোনো সংবাদ তখন পর্যন্ত পাওয়া যায় নি। আকাশ বললো, গতকাল পর্যন্ত ডিক যা পাঠিয়েছে তাতে বলার মতো কিছু নেই।

ডিক একটা আস্ত গর্দভ। হুঙ্কার দিলেন হেনরী পেপার্স প্রফেসর গর্ডনকে চেনো? ব্রুকিংস ইন্সটিটিউশনে আছেন। এক সময় সিআইএ-র উপদেষ্টা ছিলেন।

চিনি। সংক্ষেপে জবাব দিলো আকাশ। বছর দুয়েক আগে ওদের ইউনিভার্সিটিতে প্রফেসর গর্ডন পূর্ব ইউরোপের ওপর একটা সেমিনার করেছিলেন। সেখানকার যাবতীয় তথ্য তার নখদর্পণে। গত কয়েক মাস ধরে সেখানে পরিবর্তনের হাওয়া লাগার পর তার মতামত সবাই গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করছে।

চিনলে ভালো কথা। গর্জে উঠলেন হেনরী পেপার্স। এক্ষুণি তুমি তার সঙ্গে দেখা করো। সাড়ে বারোটায় তোমাকে সময় দিয়েছেন। পরশু রুমানিয়া যাচ্ছো তুমি। ভিসা

তো নেয়া আছে? কাল মার্থার কাছ থেকে টিকেট সংগ্রহ করবে। কোনো প্রশ্ন?

পরশু ফ্লাইট কখন?

সন্ধ্যায়।

তাহলে আজ আর কাল দুদিনের ছুটি চাই। মার সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার কথা ছিলো উইক এন্ডে।

প্রফেসর গর্ডনের সঙ্গে আলোচনার পর থেকে ছুটি মঞ্জুর। রুমানিয়ায় তোমাকে সাতদিনও থাকতে হতে পারে একমাসও হতে পারে। সেভাবে তৈরি হয়ে যেও। একটু থেমে ওর মুখের দিকে তাকালেন হেনরী পেপার্স। ছেলেটাকে ওঁর ভালো লাগে এ জন্যে–কখনো কোনো কাজে না বলবে না। যত কঠিন এ্যাসাইনমেন্ট হোক দারুণ সব রিপোর্ট বের করে আনে। লোক পটাতে এ ছেলের জুড়ি নেই। সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র–এ কথা তিনি বিশ্বাসও করেন। ধমকের গলায় বললেন, উইশ ইউ গুড লাক।

ধন্যবাদ জানিয়ে বসের কামরা থেকে বেরিয়ে হাঁপ ছেড়ে বাঁচলো আকাশ। রুমানিয়া–শব্দটা শোনার সঙ্গে সঙ্গে ওর চোখের সামনে ভেসে উঠেছে বরফ ঢাকা কার্পেথিয়ান পর্বতমালা, পাইন আর বার্চের ঘন সবুজ বন। গতবার আলাপ হয়েছিলো এলেনার সঙ্গে, সদ্য ফোঁটা গোলাপের মতো মিষ্টি মেয়ে, বুখারেস্ট ইউনিভার্সিটিতে পড়ে, ওর দোভাষীর কাজ করেছিলো। এখানে চাকরি নেয়ার পর রুমানিয়া, পোল্যাণ্ড, হাঙ্গেরী–এসব দেশে বার দুয়েক ঘোরা হয়ে গেছে। গত সেপ্টেম্বরে পোল্যাণ্ড গিয়ে ওয়ালেসার একান্ত সাক্ষাৎকার নিয়ে গোটা অফিসে তোলপাড় সৃষ্টি করেছিলো। এবার চেষ্টা করবে চসেস্কুর সঙ্গে যদি কথা বলা যায়। নতুন দায়িত্ব পেয়ে রোমাঞ্চ বোধ করলো আকাশ। সঙ্গে সঙ্গে ঘড়ির দিকে নজর পড়তেই চমকে উঠলো। সোয়া বারোটা বাজে। পনেরো মিনিটের ভেতরে ব্রুকিংস-এ যেতে হবে।

প্রফেসর লিংকন গর্ডন অফিসে ওর জন্যেই অপেক্ষা করছিলেন। তিন মিনিট দেরি করার জন্য দুঃখ প্রকাশ করতেই হাসি খুশি চেহারার বুড়ো প্রফেসর ওকে বললেন, হেনরীকে আমি ভালো করেই জানি। তোমাকে যে ও দম ফেলার সময় দেয় নি এটা বুঝতে আমার বাকি নেই। বসো, কফি দিতে বলি।

ছোট্ট অফিস কামরার অর্ধেক জুড়ে প্রফেসরের বিশাল টেবিল। সারা ঘরে এলোমেলো বইপত্র ছড়ানো। টেলিফোনে সেক্রেটারিকে কফি দিতে বলে প্রফেসর আকাশের দিকে তাকিয়ে লাজুক হাসলেন-আমার ঘরটা খুবই আগোছালো। আশা করি তুমি কিছু মনে করবে না। কাজের কথায় আসা যাক।

কটু থেমে সামান্য কেশে গলা পরিষ্কার করে প্রফেসর বললেন, পূর্ব ইউরোপের পাঁচটা দেশে কমিউনিস্ট সরকারের যে পতন হয়েছে এ ব্যাপারে আমরা আগে থেকেই জানতাম। পোল্যাণ্ডের সলিডারিটি সম্পর্কে আমি পাঁচ বছর আগেই ভবিষ্যত্বাণী করেছিলাম। আমার কথার গুরুত্ব উপলব্ধি করতে সিআইএ-র তিন বছর লেগেছে।

আকাশ বললো, আপনি দু বছর আগে কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির এক সেমিনারেও এ কথা বলেছিলেন।

তোমার মনে আছে তাহলে! প্রফেসর গর্ডন বললেন, এদের সম্পর্কে আমার কাছে পর্যাপ্ত তথ্য থাকলেও রুমানিয়া আর আলবেনিয়া সম্পর্কে খুব কমই জানি।

প্রফেসরের তরুণী সেক্রেটারি আকাশের সামনে কফির পেয়ালার সঙ্গে এক টুকরো হাসি উপহার দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর তিনি বললেন, গত মাসে বাংলাদেশের একজন সাংবাদিকের সঙ্গে আমার আলোচনা হয়েছিলো। সে কিছুদিন আগে রুমানিয়া আর আলবেনিয়া ঘুরে এসেছে। ওর কিছু পর্যবেক্ষণ আমি নোট করে রেখেছিলাম। আলবেনিয়ার সঙ্গে আমাদের কোনোরকম সম্পর্ক না থাকাতে সেখানকার ব্যাপারে এগুতে পারি নি। তবে রুমানিয়া সম্পর্কে বেশ কিছু চমকপ্রদ তথ্য আমার হাতে এসেছে। আমার ধারণা রুমানিয়ায় সামরিক অভ্যুত্থান হতে পারে। তোমার জন্য আমি একটা ফাইল তৈরি করেছি। এখনকার পরিস্থিতি বুঝতে এটা তোমাকে সাহায্য করবে।

ফাইল হাতে নিয়ে আকাশ বললো, রুমানিয়ায় সামরিক অভ্যুত্থান হলে আমেরিকার ভূমিকা কী হবে?

রহস্যময় হেসে প্রফেসর গর্ডন বললেন, নিরব দর্শকের। অভূত্থান ঘটাতে চাইছে সোভিয়েতপন্থীরা। আমরা প্রকাশ্যে সমর্থন করবো না, বিরোধিতাও করবো না। অফিসিয়ালি আমরা কিছুই জানি না। চসেস্কুকে যদি হটাতে পারে তখন আমাদের কাছে আসা ছাড়া ওদের গতি নেই। রাশিয়া আগের মতো কারও দায় নিতে পারবে না।

দায় নিতে না পারলে চসেস্কুকে হটাতে চাইছে কেন?

ইদানীং চসেস্কু রাশিয়ার বিরুদ্ধে যা-তা বলছে। এটা গর্বাচভের জন্য খুবই অস্বস্তিকর হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গত কয়েক বছর ধরে চসেস্কুর সঙ্গে আমেরিকার সম্পর্কও তো ভালো যাচ্ছে না।

সে জন্যেই তো আমরা রাশানদের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে চসেস্কুকে কিছু জানাতে চাই না। আসলে আমরা কিছুই জানি না। এই বলে প্রফেসর মুখ টিপে হাসলেন।

রুমানিয়ার পরিস্থিতি বোঝার জন্য প্রফেসর গর্ডনের অফিসে পুরো একটি ঘন্টা কাটালো আকাশ। ওর কথা বলার ভঙ্গি আর পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করার ক্ষমতা প্রফেসরকে রীতিমতো মুগ্ধ করলো।

আকাশ ওর ঘর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর পরই প্রফেসর ফোন করলেন হেনরী পেপার্সকে–দারুণ ছেলে পাঠিয়েছে হেনরী! একেবারে হীরের টুকরো।

আমার বিচারবুদ্ধির ওপর তোমার আস্থা দেখে খুশি হলাম লিংকন। অপর প্রান্ত থেকে হুঙ্কার শুনলেন প্রসেফর।

সত্যি বলছি হেনরী! একে আমরা আরও গুরুত্বপূর্ণ কাজে লাগাতে পারি।

তোমার মতলব বুঝেছি। বাজখাই গলায় হেনরী পেপার্স বললেন, না বাপু, সেটি হচ্ছে না। আকাশকে আমি কোনো অবস্থায় হারাতে চাই না।

বুকমার্ক করে রাখুন 0