লালুবাবুর অন্তর্ধান রহস্য

লালুবাবুর অন্তর্ধান রহস্য

০১.

অজয় সাধুখাঁ ঘরে ঢুকে বললেন–যা ভেবেছিলুম, ঠিক তা-ই ঘটে গেল। প্রবোধকে পইপই করে বলেছিলুম, একটি মাত্র মেয়ে। শিক্ষিতা। দেখতেও মোটামুটি সুশ্রী। বিয়ে যখন দিচ্ছ, তখন পাত্রের ব্যাকগ্রাউন্ড আগে থেকে ভালো করে জেনেশুনে নাও। দিনকাল যা পড়েছে, তা দেখতেই পাচ্ছ। তা প্রবোধ বলল, খোঁজখবর যা নেওয়ার নিয়েছে। পাত্র মেয়ের ফটো দেখেই রাজি। এমন সুযোগ আর পাওয়া যাবে না। পাত্র নাকি রাজা-জমিদারের বংশধর। নিজের বাড়ি। গাড়ি। মেয়ে স্বগগে থাকবে। আসলে প্রবোধ ঘটকলির ফাঁদে পড়েছিল।

কর্নেল তাকিয়ে ছিলেন অজয়বাবুর দিকে। আমিও কথাগুলো শুনছিলুম। তবে মনে-মনে মজাও পাচ্ছিলুম। অজয় সাধুখাঁ এখানে যখনই প্রবেশ করেন, এ ধরনের নাটকীয়তা থাকেই। তবে মানুষটি সাদাসিধে। দোষের মধ্যে পরচর্চা আর তিলকে তাল করা। কান ঝালাপালা হয়ে যায়।

অজয়বাবু সোফায় বসে তার পর যেন আমাকে দেখতে পেলেন।–এই যে! জয়ন্তবাবুও আছেন! আপনাদের কাগজে রীতিমতো চাঞ্চল্যকর খবর হবে। বুঝলেন?

বললুম–খবরটা আগে শুনি। তার পর সেটা চাঞ্চল্যকর কি না বোঝা যাবে।

-মশাই! এই জন্যই আজকাল লোকে বৈবাহিক সম্বন্ধ করার আগে প্রাইভেট ডিটেকটিভ লাগিয়ে

কর্নেল বলে উঠলেন–হ্যাঁ। প্রাইভেট ডিটেকটিভের অভাব নেই। আমাদের হালদারমশাইয়ের কথা আপনি প্রবোধবাবুকে বললে পারতেন।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ কে. কে. হালদার আমাদের প্রিয় হালদারমশাইকেও যেন এবার দেখতে পেলেন অজয়বাবু।–ঠিক বলেছেন! মি. হালদার তো হাতের নাগালেই ছিলেন। আঃ! কেন যে এই কথাটা প্রবোধকে বলিনি। বললে এমন সাংঘাতিক ঘটনা ঘটত না। খুব ভুল হয়ে গেছে। খুব ভুল!

হালদারমশাই একটিপ নস্যি নিয়ে বললেন–সাংঘাতিক ঘটনা কইলেন। মাইয়াটাকে কি তার হাজব্যান্ড মার্ডার করছে?

অজয়বাবু কথা বলার মুহূর্তে ষষ্ঠীচরণ আরেকদফা কফি আনল এবং অজয়বাবুর দিকে কেমন চোখে তাকিয়ে থাকার পর চলে গেল। অজয় সাধুখাঁকে সে চেনে। বুঝলুম, ষষ্ঠী এবার পর্দার আড়ালে দাঁড়িয়ে তার কথা শুনবে।

কর্নেল বললেন–কফি খেয়ে নার্ভ চাঙ্গা করুন অজয়বাবু। তার পর ব্যাপারটা শোনা যাবে।

অজয়বাবু কফিতে চুমুক দিয়ে বললেন–মি. হালদার হলেন গিয়ে এক্স পুলিশ অফিসার। উনি ঠিক ধরেছেন। মার্ডারকেসই বটে। কিন্তু প্রবোধের মেয়ে মার্ডার হয়নি। হয়েছে জামাই। আর এখন শোনা যাচ্ছে, তার চরিত্র ভালো ছিল না। তা ছাড়া এর আগেও সে একটা বিয়ে করেছিল। মেয়েটি ডিভোর্স নিয়েছিল। তার নাকি আর বিয়ে হয়নি। আফটার অল, সমাজ তো এখনও তত মডার্ন নয়।

কর্নেল বললেন–আগে চুপচাপ কফি শেষ করুন অজয়বাবু। তার পর সব বলবেন। কারণ আপনাকে এখনও উত্তেজিত দেখাচ্ছে। নার্ভ চাঙ্গা করে নিন।

 অজয় সাধুখাঁ ফিক করে হাসলেন।–উত্তেজনা কীসের কর্নেল সাহেব? মেয়ে তো আমার নয়। আমি হলে কি প্রবোধের মতো বোকামি করতুম? ঘটকেরও একটা ব্যাকগ্রাউন্ড থাকে। প্রবোধের ঘটক নাকি কোন রাজবাড়ির বিগ্রহ চুরির দায়ে জেল খেটেছিল।

-জানি আপনার মেয়ে নেই। একটি ছেলে আছে। আশা করি ছেলের জন্য পাত্রী দেখবার ব্যাপারে হালদারমশাইয়ের দ্বারস্থ হবেন!

নিশ্চয়ই হব। পাত্রীর ব্যাকগ্রাউন্ডও না জেনে বিয়ে দেওয়া কি উচিত? তবে আজকালকার ছেলে। একটু ভয়ে ভয়ে থাকি। বুঝলেন? কখন না কোনো মেয়েকে সিঁদুর পরিয়ে এনে অশোক বলে বসে, এই তোমাদের বউমা!

 অজয়বাবুর সঙ্গে হাসিতে আমরাও গলা মেলালুম। হালদারমশাই বললেন–হঃ। ঠিক কইছেন। লাভম্যারেজ। কালীঘাটে যাওন লাগব না। স্পেশাল ম্যারেজ রেজিস্ট্রার হাঁ কইর‍্যা বইয়া আছেন।

অজয়বাবু দ্রুত কফি শেষ করে ফতুয়ার পকেট, তার পর প্যান্টের পকেট হাতড়ে বললেন–যাঃ। সিগারেটের প্যাকেট ফেলে এসেছি। কর্নেল সায়েবের চুরুট সহ্য হবে না। আপনাদের কাছে সিগারেট থাকলে দিন।

বললুম–স্মোকিং ইজ ইনজুরিয়াস টু হেথ। অনেক কষ্টে ছেড়েছি। আর হালদারমশাই তো নস্যি নেন।

–কিন্তু সত্যি আমার অবাক লাগে এ বয়সেও কর্নেল সায়েব সবসময় কড়া চুরুট টানেন!

-কর্নেলের মিলিটারি স্বাস্থ্য অজয়বাবু!

অজয়বাবু হেসে উঠলেন।–তা যা বলেছেন!

এই সময় টেলিফোন বেজে উঠল। কর্নেল ইজিচেয়ার থেকে হাত বাড়িয়ে রিসিভার তুলে সাড়া দিলেন।–হ্যাঁ….উনি আছেন। দিচ্ছি!

কর্নেল বললেন–অজয়বাবু! আপনার ফোন।

অজয়বাবু তড়াক করে উঠে দাঁড়ালেন।–আমার ফোন? আমি এখানে আছি। কে বলল?

বলে তিনি রিসিভার নিয়ে সাড়া দিলেন।–গুনু? বল্।…আঁ? সে কী? কখন?……অপেক্ষা করো। এক্ষুনি যাচ্ছি।

রিসিভার রেখে অজয় সাধুখাঁ পা বাড়িয়েছেন, কর্নেল বললেন–কী ব্যাপার অজয়বাবু? পুলিশ কি আপনার বাড়িতে হানা দিয়েছে?

অজয়বাবু মুখ এদিকে না ঘুরিয়ে ফাঁসফেঁসে গলায় বললেন–পুলিশ এইমাত্র আমার ছেলে অশোককে থানায় নিয়ে গেল। বাড়ি ফিরে দেখি। তার পর আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করব। আপনিই আমার শেষ ভরসা।

কথাগুলো বলতে বলতে অজয় সাধুখাঁ হন্তদন্ত বেরিয়ে গেলেন। গোয়েন্দাপ্রবর হালদারমশাইকে উত্তেজিত দেখাচ্ছিল। গুলিগুলি চোখে তাকিয়ে তিনি বললেন–খাইসে! প্রথমে মার্ডার! তার পর পুলিশ!

কর্নেল চুরুট ধরিয়ে টানছিলেন। গম্ভীর মুখে বললেন–অজয় সাধুখাঁর ইলেকট্রনিক গুডসের ব্যবসা আছে। যন্ত্রাংশ আমদানির লাইসেন্স আছে। ওঁর ছেলে অশোক এখন ব্যবসা দেখাশুনো করে শুনেছি। এমন হতেই পারে, অশোক সেই লাইসেন্সকে কাজে লাগিয়ে বেআইনি কিছু আমদানি করেছে। এ ক্ষেত্রে খুনোখুনির ব্যাপার না থাকতেই পারে।

হালদারমশাই খিক খিক করে হাসলেন।–কী কাণ্ড বাধল তা হইলে! ভদ্রলোক আইছিলেন তার বন্ধু প্রবোধবাবুর জামাইয়ের সাংঘাতিক খবর লইয়া। এদিকে ওনার নিজের বাড়িতেই সাংঘাতিক খবর! কর্নেলস্যার? অজয়বাবু কোথায় থাকেন য্যান?

-তালতলা এলাকায়। ওঁর দোকান অবশ্য টেরিটি বাজারে। চেহারা আর কথাবার্তা শুনে বোঝা যায় না, অজয় সাধুখাঁ একজন কোটিপতি লোক।

জিগ্যেস করলুম–ওঁর ছেলে অশোক সম্পর্কে উনি কখনও কিছু জানাননি আপনাকে?

–তুমি কী বলতে চাইছ, বুঝেছি। না। ছেলের সম্পর্কে বিশেষ কোনো কথা বলেননি। তবে তুমি তো জানো, অজয়বাবুর অনর্গল নানা ব্যাপারে কথা বলার বদঅভ্যাস আছে!

–বিরক্তিকর বদঅভ্যাস। মাথামুণ্ডু বোঝা যায় না অনেকসময়।

কর্নেল হাসলেন।–হ্যাঁ। ধরো, উনি কোনো প্রবোধবাবুর কথা বলতে এসেছিলেন। তাকে চেনা মনে হচ্ছে।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ কান খাড়া করে কথা শুনছিলেন। মুচকি হেসে বললেন–আমি কর্নেলস্যারের মতো একখানা আঁক কষছিলাম। কইতে পারি?

আমি বললুম–বলুন হালদারমশাই।

হালদারমশাই কিছু বলার আগেই কর্নেল বললেন–আপনার আঁকটা কি এরকম যে, প্রবোধবাবুর মেয়ের সঙ্গে অজয়বাবুর ছেলের প্রেম-ভালোবাসা ছিল এবং তাই প্রবোধবাবুর জামাইকে সে-ই খুন করেছে এবং পুলিশ সেই সূত্র পেয়ে—

গোয়েন্দাপ্রবর তার কথা থামিয়ে দিয়ে চাপাস্বরে বলে উঠলেন–আপনার আঁক আর আমার আঁক এক্কেরে এক।

–না হালদারমশাই। আমি এমন কোনো আঁক কষিনি। আপনার আঁকটার কথাই বলছিলুম।

হালদারমশাই জোর দিয়ে বললেন–দ্যাখবেন। আমার আঁকে ভুল নাই।

বললুম–ঠিক আছে। কর্নেল তালতলা থানায় ফোন করে জেনে নিন। আপনাকে পুলিশ খুব খাতির করে।

কর্নেল সাদা দাড়িতে হাত বুলিয়ে চুরুটের ছাই ঝাড়ছিলেন। তিনি বললেন–এ ব্যাপারটা তোমার এক্তিয়ারে পড়ে জয়ন্ত। তুমি প্রখ্যাত কাগজের ক্রাইম রিপোর্টার। তুমি থানায় ফোন করে খবর জানতে চাইতেই পারো। কিন্তু আমি ফোন করলে পুলিশ ধরে নেবে, অশোকের ব্যাপারে আমি ইন্টারেস্টেড। অতএব তারা অ্যালার্ট হয়ে যাবে। তুমি ভালোই জানো, কোনো কেসে আমি যেমন নিজের হাতের তাস পুলিশকে দেখাতে চাই না, পুলিশও আমাকে তাদের হাতের তাস। দেখাতে চায় না।

গোয়েন্দাপ্রবর উত্তেজিত হয়ে বললেন–জয়ন্তবাবু! কর্নেলস্যার ঠিক কইছেন। আপনিই থানায় ফোন করুন।

কর্নেল এবার আস্তে ফোনটা তার পাশের টেবিল থেকে তুলে সোফার সেন্টার টেবিলে রেখে বললেন–জয়ন্ত! তোমার নোটবইয়ে নিশ্চয় তালতলা থানার নম্বর আছে। ও সি-র নিজস্ব নাম্বারও থাকা উচিত। ফোন করে জেনে নাও।

বিব্রত হয়ে বললুম–কী বিপদ! রোববারে আপনার ডেরায় তো ও-সব নোটবই-টই নিয়ে আসি না! আসি স্রেফ আড্ডা দিতে।

কর্নেল টেবিলের ড্রয়ার থেকে একটা খুদে নোটবই বের করে পাতা উল্টে দেখে বললেন–ডায়াল করো। ও সি কমল রাহার নাম্বার। কী ভাবে কথা শুরু করবে, তা তোমার পেশার মধ্যে পড়ে। আমাকে শেখাতে হবে না। তাছাড়া দৈনিক সত্যসেবক পত্রিকা, এই নামটাই যথেষ্ট।

অগত্যা রিসিভার তুলে কর্নেলের মুখে নাম্বার শুনে ডায়াল করলুম। ও সি কমল রাহার সঙ্গে এখনও আমার মুখোমুখি পরিচয় হয়নি। কয়েকবার রিং হওয়ার পর গম্ভীর কণ্ঠস্বরে সাড়া এল–কে বলছেন?

কণ্ঠস্বরে নম্রতা এনে বললুম–নমস্কার স্যার! আমি দৈনিক সত্যসেবক পত্রিকা থেকে রিপোর্টার আনন্দ রায় বলছি। ও সি সায়েবের সঙ্গে একটু কথা বলতে চাই।

-বলছি। বলুন।

-একটা সোর্স থেকে এইমাত্র খবর পেলুম, বিখ্যাত ব্যবসায়ী অজয় সাধুখাঁর ছেলে অশোককে আপনারা অ্যারেস্ট করেছেন। যদি কাইন্ডলি কেসটার একটা ব্রিফ আউটলাইন দিতেন!

–এখনও কাগজে ছাপবার মতো খবর নয়।

–কিন্তু অশোককে আপনারা অ্যারেস্ট করেছেন। তার বাবা কোটিপতি ব্যবসায়ী।

মনে হচ্ছে আপনি বাবা-ছেলে দুজনেরই পরিচিত?

–মোটেও না স্যার। আসলে আমার সোর্স থেকে শুনেছি একটা মার্ডারকেসের ব্যাকগ্রাউন্ড আছে। তাই কি?

ও সি কমল রাহার হাসি ভেসে এল।–এই আপনারা, মানে কাগজের লোকেরা দাগি ক্রিমিন্যালদের চেয়েও গভীর জলের মাছ। কোনও কেসের ব্যাপারে আগে দেখছি আপনাদের এনেই জেরা করা উচিত।

-স্যার! জেরা করুন। জবাব দেব।

ও সি কেন কে জানে খাপ্পা হয়ে বললেন–ফোনে নয়। থানায় তুলে এনে জেরা করব।

একটুও না দমে গিয়ে বললুম–আমার সোর্সে শুনেছি, অজয়বাবুর প্রতিবেশী প্রবোধবাবুর মেয়ের সঙ্গে অশোকের ইমোশন্যাল রিলেশান ছিল। মেয়েটির বিয়ে হয়ে যায় অন্য একজনের সঙ্গে। সম্প্রতি প্রবোধবাবুর জামাই মার্ডার। তাই আপনারা অশোককে অ্যারেস্ট করেছেন। ঠিক তাই না?

–সবই যদি জানেন, তা হলে ফোন করছেন কেন? খবরটা ছেপে দিন।

 ও সি-র কণ্ঠস্বরে তীব্র শ্লেষের ঝাঁঝ। ঝটপট বললুম–পুলিশের কনফার্মেশন দরকার স্যার।

-এখন নো কমেন্ট। খবর ছাপলে নিজের রিস্কে ছাপবেন। খবর ছাপার জন্য পুলিশের কাজের ক্ষতি হলে আমি অস্বীকার করব।

-স্যার! আমার ফোনে টেপরেকর্ডার ফিট করা আছে।

ক্রুব্ধ অফিসারের গর্জন শোনা গেল।–ছেলেখেলা হচ্ছে আমার সঙ্গে? জাস্ট ওয়েট অ্যান্ড সি কী ঘটে আপনার–হ্যাঁ, কী নাম আপনার যেন?

তক্ষুনি রিসিভার রেখে দিলুম। কর্নেল কাছেই ছিলেন–মনে হল তিনি ও সি-র কথা শুনতে পাচ্ছিলেন। সহাস্যে বললেন–সাবধান জয়ন্ত। কিছুদিনের জন্য অজ্ঞাতবাসে চলে যাও! রিপোর্টারের নাম যা-ই বলো না কেন, পুলিশ তোমাকে ঠিক খুঁজে বের করে ফেলবে।

প্রাইভেট ডিটেকটিভও হাসতে হাসতে বললেন–চৌতিরিশ বৎসর পুলিশে কাম করছি জয়ন্তবাবু। পুলিশ না পারে এমন কিছু নাই। তবে এইটুকখান বুঝছি, আপনি যা কইছিলেন, তা সইত্য।

বললুম–কী করে বুঝলেন?

-বুঝব না? আপনার কথা শুনছিলাম। আপনার রিঅ্যাকশন দ্যাখতাছিলাম। তবে একটা কথা জয়ন্তবাবু! আপনি নিজের নাম কইলেই পারতেন। ও সি ভদ্রলোক অফেন্স লইবেন, যদি জানতে পারেন আপনিই বেনামে ওনার লগে কথা কইতাছিলেন।

–সে দেখা যাবেখন। কিন্তু এটা স্পষ্ট, জনৈক প্রবোধবাবুর জামাই খুন হওয়ার কেসেই অশোককে পুলিশ অ্যারেস্ট করেছে।

হালদারমশাই উত্তেজনাবশে আবার এক টিপ নস্যি নিলেন। তার পর নোংরা রুমালে নাক মুছে বললেন–কর্নেলস্যার প্রবোধবাবুরে চেনেন না। চিনলে তার লগে যোগাযোগ করতাম।

কর্নেল ততক্ষণে ইজিচেয়ারে হেলান দিয়ে চোখ বুজে ধ্যানস্থ। চুরুট থেকে একফালি নীল ধোঁয়া ওঁর প্রশস্ত টাকের উপর ঘুরপাক খেতে খেতে ফ্যানের হাওয়ায় ছত্রভঙ্গ হয়ে মিলিয়ে যাচ্ছে। আমি হালদারমশাইকে তাতিয়ে দিতে বললুম–বোঝা যাচ্ছে প্রবোধবাবু অজয়বাবুর বন্ধু। পড়শিও বটে। আপনি কর্নেলের কাছে অজয়বাবুর ঠিকানা নিশ্চয় পেয়ে যাবেন। তার পর সেখানে গিয়ে প্রবোধবাবুর খোঁজ নেবেন।

গোয়েন্দাপ্রবর আরও উত্তেজিত হয়ে উঠলেন। আর যা হয়! তার সরু গোঁফের দুটি পাকানো ডগা তিরতির করে কাঁপছিল। গুলিগুলি চোখে চাপাস্বরে তিনি ডাকলেন-কর্নেলস্যার।

কর্নেল একই অবস্থায় থেকে বললেন–বলুন হালদারমশাই।

-অজয়বাবুর ঠিকানাটা……

–এন্টালি মার্কেটের উল্টো দিকের গলিতে ঢুকে কাকেও জিগ্যেস করে জেনে নেবেন, শ্যামৰ্চাদ লেনের কথা। ৫৬/১ শ্যামচাঁদ লেন। পুরনো বনেদি দোতলা বাড়ি।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ বুকপকেট থেকে খুদে নোটবই বের করে ঠিকানা লিখে নিয়ে উঠে দাঁড়ালেন। তার পর যথারীতি যাই গিয়া বলে সবেগে বেরিয়ে গেলেন।

কিছুক্ষণ পরে বললুম–কর্নেল! ধ্যান করে এই কেসের কতটা জানতে পারলেন?

কর্নেল চোখ বুজেই বললেন–জনৈক প্রবোধবাবুকে খুঁজছিলুম। অজয় সাধুখাঁ এবং প্রবোধবাবু যেন আমার স্মৃতিতে লুকোচুরি খেলছিলেন। যেমন এক্স ভাবলেই ওয়াই এসে পড়ে। পড়ে না?

পড়ে। শুধু ওয়াই নয়, জেডও। এক্স ওয়াই জেড।

 কর্নেল সোজা হয়ে বসলেন। তার চোখ দুটি উজ্জ্বল। বললেন–কী বললে? এক্স ওয়াই জেড?

–হ্যাঁ। কিন্তু এতে আপনি চমকে উঠলেন কেন?

–জয়ন্ত! তোমাকে ধন্যবাদ! অসংখ্য ধন্যবাদ ডার্লিং!

কর্নেলের চাঞ্চল্য ও উত্তেজনা দেখে অবাক হয়ে বললুম–ব্যাপারটা কী, তা খুলে বলবেন?

তুমি জেড বলতেই মনে পড়ে গেল জানকীনাথ শ্রীবাস্তবের কথা। হোটেল এশিয়ায় মি. শ্রীবাস্তব তার নাতির অন্নপ্রাশন উপলক্ষে একটা পার্টি দিয়েছিলেন। অজয় সাধুখাঁও আমন্ত্রিত ছিলেন। অজয়বাবু সেখানেই তার এক ব্যবসায়ী বন্ধু প্রবোধ সিনহার সঙ্গে আলাপ করিয়ে দেন। হা-প্রবোধ সিনহা। এবার বুঝতে পারবে, কেন আজ অজয়বাবু তাঁর বন্ধু প্রবোধের কথা বলার সময় তার পরিচয় দেননি।

–বুঝেছি। তার মাথায় ছিল, প্রবোধ বললেই আপনি চিনতে পারবেন।

–ঠিক বলেছ। কিন্তু ব্যপারটা হল, উনি অনর্গল আপন ঝেকে কথা বলার মধ্যে অনেক নাম করেন, যাঁদের আমি চিনি না। তবে আজ প্রবোধবাবুর কথা বলার পর সুযোগই পেলুম না প্রবোধ কে জিগ্যেস করি। হঠাৎ ওঁর বাড়ি থেকে দুঃসংবাদ। প্রবোধবাবুকে এখানে ফেলে চলে গেলেন উনি।

কর্নেল হেসে উঠলেন। বললুম–প্রবোধ সিনহা অজয়বাবুর পড়শি যখন, তখন হালদারমশাই……

আমার কথা থামিয়ে দিয়ে কর্নেল বললেন–পেশার ক্ষেত্রে ওঁরা পড়শি। দুজনেরই ব্যবসার জায়গা টেরিটিবাজার। কিন্তু প্রবোধবাবুর বাড়ি অন্যত্রও হতে পারে।

হাসতে হাসতে বললুম–তা হলে হালদারমশাইয়ের বরাতে নির্ঘাত কষ্ট আছে।

.

০২.

একটু পরে কর্নেল টেবিলের নীচের ড্রয়ার থেকে একটা বড়ো খাম বেরল করলেন। তার পর খাম থেকে অজস্র নেমকার্ড বের করে টেবিলে রেখে বললেন–জয়ন্ত! আমাকে একটু সাহায্য করো।

অবাক হয়ে বললুম–কী ব্যাপার?

–আমি যত লোকের সঙ্গে আলাপের সূত্রে তাদের কার্ড পাই, তা ক্ল্যাসিফাই করি তিন ভাগে। একনম্বর খামে থাকেন ভি ভি আই পিরা। দুনম্বর খামে ভি আই পিরা। তিন নম্বরে যাঁদের কার্ড থাকে, তাদের সম্পর্কে ইনটুইশনবশে আমি সন্দিগ্ধ।

টেবিলের কাছে গিয়ে জিগ্যেস করলুম–এটা কত নম্বর খাম?

–তিন নম্বর। তুমি আমাকে একটু সাহায্য করো।

 –কোনো সন্দেহভাজন চরিত্রের নেমকার্ড?

কর্নেল দ্রুত কার্ড খুঁজতে খুঁজতে বললেন–প্রবোধ সিনহার কার্ড।

-বলেন কী! তিনি আপনার সন্দেহভাজন হয়েছিলেন কেন?

-জয়ন্ত! কথা পরে। আগে কাজ।

প্রায় শতাধিক নেমকার্ডের ভিতর থেকে প্রবোধ সিনহার কার্ড খুঁজে বের করা সহজ নয়। তবে লক্ষ করলুম, অনেক কার্ড পুরনো বলে রং ফিকে হয়ে গেছে। কিছু কার্ডের কিনারা ছিঁড়েছে। বেশ কিছু কার্ডের হরফও অস্পষ্ট। খুঁজতে খুঁজতে জিগ্যেস করলুম–মি. শ্রীবাস্তবের পার্টিটা কবে হয়েছিল?

–জানুয়ারিতে।

–তা হলে কার্ডটা এখনও ফুটফুটে থাকবে। আপনি রদ্দিগুলো খামোকা খুঁজছেন কেন?

কর্নেল ব্যস্ততার মধ্যে হাসলেন।লোকগুলোকে মনে পড়ছে কি না দেখছি। এই একটা ব্যাপার–বুঝলে জয়ন্ত? স্মৃতির ভিতরে হাবুডুবু সাঁতার কাটার খেলা। তার পর ভুস করে মাথা তুলে শ্বাস ছাড়ছি! এই যে জীর্ণ কার্ডটা দেখছ! এটা দেখেই ভুস!

তার মানে?

–শ্বাস পড়ল। এটা মেঘেন্দ্রলাল পাণ্ডের কার্ড। পর-পর তিনটে খুন করে দিব্যি ছিলেন। যেচে পড়ে আমার সঙ্গে আলাপ করেছিলেন। চতুর্থ খুনের পর আমিই তার শত্রু হয়ে গেলুম। ফাঁদ পেতে তাঁকে ধরা হয়েছিল। সে এক রোমহর্ষক অভিজ্ঞতা। পান্ডেজির ফাঁসি হয়েছিলো। ওঃ! তাঁর সেই কার্ড এখনও রেখে দিয়েছি দেখে অবাক লাগছে।

শুনতে শুনতে শুধু নতুন কার্ডগুলো খুঁজছিলুম। তার পর পেয়ে গেলুম প্রবোধকুমার সিনহাকে। উপরে ছাপা আছে আলফা ফিনান্সিয়্যাল কম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড। তার তলায় ব্র্যাকেটে খুদে হরফে প্রাইভেট সেভিংস অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট। তার নিচে ছাপা হয়েছে রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার অনুমোদনসংক্রান্ত নম্বর আর তারিখ।

কার্ডটা কর্নেলকে দিলুম। কর্নেল একবার চোখ বুলিয়ে দেখার পর অন্যমনস্কভাবে বললেন–ভদ্রলোকের কথাবার্তা শুনে কেন যেন মনে হচ্ছিল, যেচে পড়ে নিজের সতোর সাফাই গাইছেন। আমি তো ওঁর মক্কেল নই। ভবিষ্যতেও মক্কেল হওয়ার চান্স নেই। কিন্তু ব্যাপারটা যেন, ঠাকুরঘরে কে রে? আজ্ঞে আমি তো কলা খাইনি!

বললুম–এ সব কোম্পানি লোকের টাকা হাতিয়ে কেটে পড়ে। বেশি সুদের লোভে লোকেরা এখানে টাকা রাখে। তার পর ভো-কাট্টা!

কর্নেল হাসলেন।–যাই হোক, প্রবোধবাবু ভোকাট্টা করেননি। এদিকে তার জামাই হঠাৎ কী কারণে খুন হয়ে গেছে। আমার এবার একটু অবাক লাগছে জয়ন্ত।

–বলুন।

–অজয়বাবু আমাকে ভালোই চেনেন। বন্ধু প্রবোধবাবুর জামাই খুন হওয়ার পর পুলিশ যা করার করবে কিন্তু আমার সাহায্য নেওয়ার পরামর্শ কেন ওঁকে অজয়বাবু দেননি?

-ওঃ কর্নেল! হালদারমশাইয়ের হাতে কেস না থাকলে যেমন আপনার কাছে এসে ছোঁক ছোঁক করেন, দেখছি আপনিও শকুনের মতো–সরি!

–ও জয়ন্ত! প্লিজ আমাকে শকুন বোলো না!

 –না! সরি বললুম শুনলেন না?

বৃদ্ধ প্রকৃতিবিজ্ঞানী মিটিমিটি হেসে বললেন–তুমি দেখতেই পাচ্ছ, প্রবোধবাবুকে আমি তিন নম্বর খামের ভিতরে রেখেছিলুম। তাঁর বরাতে খারাপ কিছু ঘটল না। ঘটল তার জামাইয়ের বরাতে। এদিকে অজয়বাবুর ছেলে। অশোককে পুলিশ অ্যারেস্ট করল। আমার কৌতূহল হচ্ছে।

দ্রুত বললুম–প্রবোধবাবুর মেয়ের সঙ্গে অশোকের প্রেমট্রেমের সূত্র আবিষ্কার করেছে পুলিশ।

কর্নেল টেলিফোনের রিসিভার তুলে ডায়াল করার পর সাড়া এলে। বললেন–আমি মি. প্রবোধ সিনহার সঙ্গে একটু কথা বলতে চাই।……….আমার। নাম কর্নেল নীলাদ্রি সরকার।…….উনি কখন ফিরবেন?………এক মিনিট। আপনি কে বলছেন?…….মি. সিনহার বিশেষ পরিচিত। একটা খারাপ খবর পেয়ে ওঁকে, ফোন করছি। ওঁর জামাই নাকি……হ্যাঁ। খবরটা দেরিতে পেয়ে খোঁজ নিতে ইচ্ছে কুরল। তো একটা কথা। মি. সিনহার মেয়ে….বুঝেছি। এ অবস্থায় কারও পক্ষে সুস্থ থাকা, স্বাভাবিক নয়। আচ্ছা, মি. সিনহার স্ত্রী তো আছেন। তার সঙ্গে একটু কথা বলা যায় না?……আপনি ঠিক বলেছেন। এ সময়ে ওঁকে ডিসটার্ব করা ঠিক হবে না। রাখছি। মি. সিনহা ফিরে এলে বলবেন আমি তাকে…..আমার নাম কর্নেল নীলাদ্রি সরকার।

কর্নেল রিসিভার রেখে তুম্বো মুখে নিভে যাওয়া চুরুটটা লাইটার জ্বেলে ধরালেন। আমি বললুমকে কথা বলছিল?

-নাম বলল না। শুধু বলল সিনহা সায়েবের কর্মচারী।

–সায়েব তো বটেই। কিন্তু তার সায়েব কোথায় গেছেন তা কী বলল?

কলকাতার বাইরে। কখন ফিরবেন, তা বলে যাননি। তবে মেয়েকে শ্বশুরবাড়ি থেকে নিয়ে এসেছেন।

–মেয়ের শ্বশুরবাড়ি কোথায় জিগ্যেস করলেন না কেন?

–যে ফোন ধরেছিল, আমার ধারণা, তাকে বাইরের লোকের সঙ্গে ঘটনার ব্যাপারে বেশি কিছু বলতে নিষেধ করা আছে।

হাসতে হাসতে বললুম–আপনি একজন কর্নেল শুনেও পাত্তা দিল না?

 কর্নেলও হাসলেন।-নাঃ। লোকটা যেন মানুষ নয়, যন্ত্র!

ঘড়ি দেখে বললুম–প্রায় এগারোটা বাজে। আমি উঠি।

–উঠবে কী বলছ! ষষ্ঠী টের পেয়ে গেছে, আজ এখানে তোমার লাঞ্চের নেমন্তন্ন।

ষষ্ঠীচরণ এঁটো কাপ-প্লেট-ট্রে নিতে আসছিল। তাকে দেখেই কর্নেল কথাটা বললেন এবং ষষ্ঠীচরণও দাঁত বের করে বলল–বাবামশাই আর দাদাবাবুর কথা কানে যাচ্ছিল। দাদাবাবুর আজ রাত্তিরেও নেমন্তন্ন। তা-ও কি বুঝিনি?

কর্নেল চোখ কটমটিয়ে বললেন–কী করে বুঝলি তুই?

 ষষ্ঠী যেতে যেতে বলল–বাবামশাইয়ের হাতে একখানা জামাই খুনের ক্যাস!

আমি বললুম–ক্যাস মানে?

 ষষ্ঠীচরণ কথা না বলে পর্দার আড়ালে অদৃশ্য হল। কর্নেল তার বিখ্যাত অট্টহাসি হাসলেন। তার পর বললেন–ওটা হালদারমশাইয়ের কাছে শিখেছে ষষ্ঠী। উনি কেস-কে ক্যাস বলেন লক্ষ করোনি?

–মাই গুডনেস! কর্নেল! আপনার ষষ্ঠীচরণও দেখছি গোয়েন্দা হয়ে উঠছে ক্রমশ। ও ঠিকই বুঝেছে, মি. সিনহার জামাই খুন নিয়ে আপনি পা বাড়ানোর তালে আছেন।

কর্নেল চুরুট অ্যাশট্রেতে ঘষে নিবিয়ে দিতে দিতে বললেন–প্রত্যহ কত খুনখারাপি হচ্ছে। আমার মাথা ঘিলু আশা করি এখনও কেঁসে যায়নি। নেহাত অজয় সাধুখাঁর সূত্রে প্রবোধ সিনহার জামাই খুনের খবর শুনে একটু কৌতূহলী হয়েছিলুম। কেন তা তোমাকে আভাসে বলেছি। প্রবোধ সিনহাকে আমার–কী বলব–কেমন যেন মনে হয়েছিল–লোকটা……

–ক্রিমিন্যাল টাইপ?

কর্নেল একটু পরে বললেন–কতকটা তা-ই। বাংলায় দু-মুখো সাপ বলে একটা কথা আছে…

এই সময় ডোরবেল বাজল। কর্নেল অভ্যাসমত হাঁক দিলেন–ষষ্ঠী!

একটু পরে সালোয়ার-কামিজ পরা উজ্জ্বল শ্যামবর্ণা এক যুবতী ঘরে ঢুকল। আমার পক্ষে মেয়েদের বয়স অনুমান করা কঠিন। তার চেহারায় স্মার্টনেস স্পষ্ট। তার কাঁধে একটা ব্যাগ এবং হাতে হ্যান্ডব্যাগ। ওড়নাটা কাঁধের পিছন থেকে বুকের দুপাশে ঝুলছে। মুখে বয়সোচিত লাবণ্যের ছাপ আছে। অবাঙালি না বাঙালি, তা বোঝা যাচ্ছিল না।

কর্নেল তীক্ষ্ণদৃষ্টে তাকিয়ে দেখে বললেন–সিট ডাউন প্লিজ।

সে শুদ্ধ বাংলায় বলল–আপনিই কি কর্নেল নীলাদ্রি সরকার?

কর্নেল হাসলেন।–সন্দেহের কারণ আছে কি?

–আজ্ঞে না। আপনার চেহারার বর্ণনা শুনেছি। তবে আমাকে আপনি তুমিই বলবেন। আমি আসছি ভৈরবগড় থেকে। এই চিঠিটা দেখুন। আপনার বন্ধু রাজকুমার রায়ের চিঠি।

চিঠিতে দ্রুত চোখ বুলিয়ে কর্নেল হাসিমুখে বললেন–রায়সায়েব যে আমাকে মনে রেখেছেন, এতে আমি অবাক হচ্ছি। কমলিকা! গত মার্চে আমি যখন ভৈরবগড়ে যাই, তখন কেন যে তোমার সঙ্গে আলাপ হয়নি জানি না।

আমি তখন দিল্লিতে অল ইন্ডিয়া স্পোর্টসে যোগ দিতে গিয়েছিলুম। আমি টেনিস খেলি। গোল্ড জিতেছিলুম। বলে কমলিকা মুখটা হঠাৎ নামিয়ে শ্বাস ছেড়ে ফের বলল–খেলায় আমি সবসময় জিতে আসছি। কিন্তু জীবন আমাকে হারিয়ে দিচ্ছে।

-নেভার মাইন্ড! কফি চলবে? কফি কিন্তু নার্ভ চাঙ্গা করে।

–আমি চা-কফি কিছুই খাই না। জল খাব।

 কর্নেলের ডাকে ষষ্ঠীচরণ পর্দার ফাঁকে মুখ বের করে বলল–কফি করছি বাবামশাই!

–কফি না। একগ্লাস জল।

 ষষ্ঠী তখনই ছোট্ট ট্রেতে একগ্লাস জল রেখে গেল। কমলিকা গ্লাস শেষ করে বলল-থ্যাংকস্।

কর্নেল বললেন–এবার শোনা যাক কী তোমার সিরিয়াস প্রবলেম।

কমলিকা আড়চোখে আমাকে দেখে নিয়ে আস্তে বলল–আমার কথাগুলো কনফিডেন্সিয়্যাল।

কর্নেল হাসলেন।–আলাপ করিয়ে দিই। আমার তরুণ বন্ধু জয়ন্ত চৌধুরি। বিখ্যাত দৈনিক সত্যসেবক পত্রিকার সাংবাদিক। আমার ঘনিষ্ঠ সহযোগী। ওর কাছে আমার কিছু গোপন থাকে না। তুমি স্বচ্ছন্দে তোমার কনফিডেন্সিয়্যাল কথাবার্তা জয়ন্তের সামনেই বলতে পারো।

আমরা নমস্কার বিনিময় করলুম। তার পর কমলিকা মুখ নামিয়ে একটু চুপ করে থাকার পর আবার শ্বাস ছাড়ল। সে বলল–রায়জেঠু আমার নিজের জেঠু নন। লোকাল স্পোর্টিং ক্লাবের প্যাট্রন। ছোটোবেলা থেকেই উনি আমাকে স্পোর্টসে উৎসাহ দিয়ে আসছেন। আমার বাবা ছিলেন মাইনিং ইঞ্জিনিয়ার। আমার বারো বছর বয়সে বাবা মাইনিং অ্যাকসিডেন্টে মরা যান। তার পর থেকে মা অসুস্থ। এখন তো শয্যাশায়িনী। আমার দুরসম্পর্কের এক পিসিমা বাবার জীবদ্দশায় আমাদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। রেণুপিসিমা না থাকলে আমার পড়াশোনা, স্পোর্টস কিছুই হত না। রেণুপিসিমা একদিকে যেমন–

বলে কমলিকা থেমে গেল। কর্নেল বললেন–তোমার ফ্যামিলি ব্যাকগ্রাউন্ড আগেই জানিয়ে ঠিক করলে। পরে আমাকে জিগ্যেস করতে হত। যাই হোক, এবার সোজা তোমার সিরিয়াস প্রবলেমের কথা বলো! পিসিমার কথা পরে শুনব।

আজ রবিবার। গত সোমবার সন্ধ্যায় ভৈরবগড়ে সন্দীপ মজুমদার নামে একজনকে কে বা কারা গুলি করে মারে। পূর্বপুরুষের জমিদারি ছিল। রক্তের ধারা বলে একটা ব্যাপার আছে। মাতাল দুবৃত্ত আর উড়নচণ্ডী! তার সঙ্গীরা কেমন ছিল, তা বুঝতে পারছেন!

আমি বলে উঠলুম–তাকে খুনের সঙ্গে পুলিশ কি আপনাকে জড়িয়েছে?

কমলিকা বলল–না। কিন্তু মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার চারদিন আমার লেটারবক্সে চারটে উড়ো চিঠি পেয়েছি। প্রত্যেকটাতে একই কথা। সন্দীপের খুনের জন্য কেউ আমাকে দায়ী করে একটা অদ্ভুত কথা লিখেছে, লালুবাবু-কে ফেরত দিতে হবে। না দিলে আমার অবস্থাও সন্দীপের মতো হবে।

কর্নেল লালুবাবু শুনে হাসলেন না। বরং আরও গম্ভীর হয়ে বললেন–উড়ো চিঠিগুলো কি এনেছ?

-হ্যাঁ। আপনাকে দিচ্ছি।

 বলে কমলিকা বড়ো ব্যাগের ভিতর থেকে একটা খাম বের করল। কর্নেলের হাতে সেটা দিয়ে সে বলল-খামটা আমার। চিঠিগুলো খামে ভরা ছিল না। লেটারবক্সে ভাঁজ করে ফেলেছিল কেউ।

কর্নেল খাম থেকে চারটে ভাঁজ করা চিঠি বের করলেন। তার পর ভাজ খুলে একটার পর একটা চিঠি গুছিয়ে নিলেন। বললেন–খালিচোখেই দেখা যাচ্ছে ছ ইঞ্চি বাই চার ইঞ্চি সাইজের প্যাড থেকে পাতাগুলো ছোঁড়া হয়েছে। হাতের লেখা ইচ্ছাকৃতভাবে আঁকাবাঁকা আর হরফগুলো বড়ো-বড়ো।

বলে টেবিলের ড্রয়ার থেকে আতস কাঁচ বের করলেন এবং যথারীতি পরীক্ষায় মনোযোগ দিলেন। এটা আমার কাছে নতুন কিছু নয়। কর্নেল নিজেকে এ্যাফোলজিস্ট বলে দাবি করেন।

মিনিট দশেক খুঁটিয়ে চারটে চিঠি দেখে নেওয়ার পর বললেন–বয়স্ক লোকের হাতের লেখা। সম্ভবত ব্যবসায়ী। আবার এমনও হতে পারে, ব্যবসায়ীর কর্মচারী। এখনও অনেক ব্যবসায়ী গতানুগতিক রীতিতে হিসেবের খাতা লেখেন। হ্যাঁ–এ-ও স্পষ্ট, লোকটার সঙ্গে খাদ্যশস্যের সম্পর্ক আছে।

কমলিকা যেন একটু চমকে উঠেছিল। সে বলল–কী করে বুঝলেন?

কর্নেল বললেন–দীর্ঘকাল আমি গ্রাফোলজি–মানে হাতের লেখা দেখে তোক চেনার বিদ্যা নিয়ে চর্চা করে আসছি। শতকরা অন্তত নব্বইটি ক্ষেত্রে আমি সফল হয়েছি।

আমি বললুম–আড়তদারের কাছে এমন প্যাড থাকা সম্ভব। কিন্তু সিওর হলেন কী করে?

কর্নেল একটা চিঠি আমাকে দিয়ে বললেন–উড়োচিঠিতে লোকে আত্মগোপন করতে চায়। কিন্তু উড়োচিঠি তো কেউ সারাজীবন লেখে না। তাই নিজের অজ্ঞাতসারে লেখায় নিজের পেশার চিহ্ন ফুটে ওঠে। তুমি লক্ষ করো। চিঠিটার কয়েকটা শব্দের শেষ হরফের মাথা থেকে সমান্তরাল দুটো ড্যাশ টানা। ড্যাশ বলা ভুল। রেখার শেষাংশ বেঁকে উপরে উঠেছে। আড়তদারদের হিসেবের খাতা বা হাতচিঠাতে প্রত্যেক লাইনের শেষ শব্দে এমনটি দেখা যায়। প্রথম লাইনের শেষ শব্দ করাইয়া লক্ষ করো। অন্তস্থ য়-এর আকারের মাথায় সমান্তরাল দুটো বাঁকা রেখা। তার পর অকারণ একটা ফুটকি। দেখতে পাচ্ছ?

চিঠিটা পড়ছিলুম। সায় দিলুম। চিঠিটা এই :

সন্দীপকে খুন করাইয়া
 তাহার মুখ তুমি বন্ধ
করিয়াছ। কিন্তু আমি সব
জানি। শীঘ্র লালুবাবুকে
ফেরত দাও। না দিলে
তোমার দশা সন্দীপের
মতোই হইবে।

 কর্নেল বললেন–চিঠিগুলো আমার কাছে রাখতে চাই। আপত্তি আছে?

 কমলিকা বলল–না। রায়জেঠু আমাকে এ কথা বলেছেন।

ভৈরবগড়ে বাঙালি শস্যব্যবসায়ী বা আড়তদার আছেন জানো?

–একজন আছেন। কিন্তু তিনি তো-মাখনলাল সাহা। খুব অমায়িক স্বভাবের মানুষ। গদিতে বসে থাকেন দেখেছি। আমাদের ক্লাবেরও একজন প্যাট্রন।

–তার কর্মচারীদের চেনো কি?

–একজনকে চিনি। মুকুন্দবাবু। বলে কমলিকা হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে উঠল-কর্নেল সায়েব! মুকুন্দ হাজরা একসময় সন্দীপদের বাড়িতে বাজার সরকার ছিল। পরে কীসের জন্য চাকরি যায়।

-উড়োচিঠিতে সন্দীপের খুনের সঙ্গে তোমার নাম জড়াল কেন? এর কি বিশেষ কারণ আছে?

কমলিকা মুখ নামিয়ে আস্তে বলল–সন্দীপের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল। একবছর পরে আমি রায়জেঠুর পরামর্শে কোর্টে গিয়ে ডিভোর্স নিয়েছিলুম।

আমি চমকে উঠেছিলুম। কর্নেল বললেন–তার পর সন্দীপ কি আবার বিয়ে করেছিল?

কমলিকা বলল-হ্যাঁ। কলকাতার মেয়ে। তার বাবা নাকি খুব বড়োলোক।..

.

০৩.

আমি এবার কী বলে উঠব, তা অনুমান করেই কর্নেল আমার দিকে একবার চোখ কটমটিয়ে তাকালেন। তার পর কমলিকার দিকে ঘুরে বললেন–তো এবার বলো, তোমার পিসিমার কথা কী বলতে চাইছিলে!

কমলিকা হাতের ঘড়ি দেখে নিয়ে বলল–আমার রেণুপিসিমা না থাকলে খুব অসুবিধে হত। আমাকে খেলা ছাড়তে হত। কিন্তু উনি প্রচণ্ড রক্ষণশীল। অসুস্থ মাকে আমার বিয়ের জন্য ক্রমশ তাতিয়ে দিচ্ছিলেন। সন্দীপের বাবা জয়গোপাল মজুমদার ছিলেন আমার বাবার বাল্যবন্ধু। কবে নাকি ওঁরা পরস্পর কথা দিয়েছিলেন দুজনে বেয়াই হবেন। মা পিসিমাকে এই কথাটা কবে বলেছিলেন। তার পর পিসিমা আর মায়ের চাপে বাধ্য হয়ে আমাকে রাজি হতে হয়েছিল। রায়জেঠুও সন্দীপের বাবার বন্ধু। রায়জেঠু আমার কেরিয়ার নষ্ট হোক, এটা অবশ্য চাননি। সন্দীপ ও তার বাবা-মায়ের কাছে প্রতিশ্রুতি আদায় করে নিয়েছিলেন, তাদের বউমার স্পোর্টিং কেরিয়ারে যেন বাধা না দেওয়া হয়।

-পরে বাধা এসেছিল। তাই না।

-ঠিক ধরেছেন। প্রথম-প্রথম সন্দীপ আমার সঙ্গে ক্লাবে যেত। কিন্তু কেন যেত, তা জানতুম।

-তোমার দিকে লক্ষ রাখতে।

–হ্যাঁ। পরে এ নিয়ে অশান্তি শুরু হয়েছিল। তার পর……বলে আবার ঘড়ি দেখে কমলিকা ব্যস্ত হয়ে উঠল।–যা কিছু জানতে চান, আপনি ভৈরবগড়ে গেলে জানাব। আমাকে একটা পঁয়তাল্লিশের ট্রেন ধরতে হবে। দুর্গাপুরে মাসিমার বাড়িতে রাত কাটানো ছাড়া উপায় নেই। ভোরে বাসে চেপে যাব।

তার মানে তুমি আসানসোলে ট্রেন বদলাবে না। হা-ওখান থেকে ট্রেনে ভৈরবগড় পৌঁছুতে রাত আড়াইটে-তিনটে বেজে যাবে। একবার আমি ওই লাইনে গয়া প্যাসেঞ্জারে চেপে চোরডিহা গিয়েছিলুম।

কমলিকা উঠে দাঁড়িয়েছিল। ঠোঁট কামড়ে ধরে কী একটা ভেবে নিয়ে সে আমাদের নমস্কার করে বলল–আমি চলি। কর্নেল সাহেব! রায়জেঠুর কাছে আপনার অনেক কথা জেনেছি। আমি–আমি এখনও বাঁচতে চাই। আমি খেলার জন্যই বাঁচতে চাই। আচ্ছা, চলি!

ধরা গলায় কথাগুলো বলে মুখ ঘুরিয়ে কমলিকা কান্না চেপে দ্রুত বেরিয়ে গেল।

কর্নেল একটু পরে আমার দিকে তাকালেন। বললুম–এ তো অজয় সাধুখাঁর ছেলে, প্রবোধ সিনহার মেয়ে, আর ভৈরবগড়ের জমিদার বংশীয় জয়গোপাল মজুমদারের ছেলেকে নিয়ে একটা ত্রিভুজের কেস।

কর্নেল হাসলেন।–উঁহু। চতুর্ভুজ। কমলিকাকে বাদ দিচ্ছ কেন?

–লালুবাবকে কেউ ফেরত চায়। লালুবাবু মানে?

এই সময় টেলিফোন বেজে উঠল। কর্নেল হাত বাড়িয়ে রিসিভার তুলে সাড়া দিলেন।–বলছি।……হ্যাঁ, বলুন অজয়বাবু।… সে কী!বিহারের পুলিশ আপনার ছেলেকে নিয়ে গেল? কোথায়?……..কী অদ্ভুত ব্যাপার! কেসটা কী? মানে কীসের চার্জ…..মার্ডার? ও মাই গড! বিহার মুলুকে কোথায় কে খুন হল, তার জন্য আপনার ছেলেকে….আঁ?…ও। বুঝেছি।…শুনুন। প্রবোধ সিনহা লোকটা যে সুবিধের নয়, তা আমি প্রথম পরিচয়ে……হ্যাঁ। বলুন।… অশোক সেখানে গত রবিবার গিয়ে কবে ফিরেছিল?…….প্রবোধবাবুকে রিং করেছেন?….তাহলে বোঝা যাচ্ছে, আপনার বন্ধু প্রবোধবাবুই অশোকের পিছনে পুলিশকে লেলিয়ে দিয়েছেন।…..ঠিক আছে। আমি পুলিশের উপরমহলে খোঁজ নেব। একটা কথা। প্রবোধবাবু মেয়েকে শ্বশুরবাড়ি থেকে নিয়ে আসার পর আপনার সঙ্গে ওঁর কথাবার্তা হয়েছিল।………হ্যাঁ। তাই জিগ্যেস করছি। প্রবোধবাবু কি আপনাকে বলেছিলেন, তার মেয়েকে সেখানকার পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল?…….ঠিক। ঠিক। তাকে তো জিজ্ঞাসাবাদ করারই কথা।……এই ধারণাটা আমারও। প্রবোধবাবুর মেয়ে নিজেকে বাঁচাতে অশোকের সম্পর্কে গুরুতর কিছু কথা পুলিশকে বলে থাকবে। সেই স্টেটমেন্টের ভিত্তিতে পুলিশ তদন্ত করার পর তবেই অশোককে অ্যারেস্ট করতে এসেছিল।……না, না আমি বলছি না অশোক মার্ডারার। দায়টা তার কাঁধে চাপানো হয়েছে।……….ঠিক আছে অজয়বাবু। আমি যথাসাধ্য করব। পরে যোগাযোগ করবেন–যদি নতুন কিছু ঘটে। কেমন? এবার রাখছি।……..

রিসিভার রেখে কর্নেল জোরে শ্বাস ছাড়লেন। বললুম–ঘড়ি দেখেছি। আধঘণ্টার বেশি টেলিফোনটক। ভদ্রলোক বড্ড বেশি কথা বলেন। তার উপর এই অঘটন।

কর্নেল ক্লান্তভাবে বললেন–একটা গোলকধাঁধায় ঢুকে গেছি।

-আমিও। কেন জানেন? লালুবাবুর জন্য।

কর্নেল কোনও মন্তব্য করলেন না। টেবিলের ড্রয়ার থেকে উড়োচিঠিগুলো এবং আসতকাঁচ বের করে আবার পরীক্ষায় মন দিলেন। এবার অবশ্য তিনি দিনদুপুরে টেবিলল্যাম্পের আলো জ্বেলে দিয়েছিলেন।

কিছুক্ষণ পরে আবার টেলিফোন বেজে উঠল। কর্নেল বললেন–ফোনটা ধরো জয়ন্ত।

রিসিভার তুলে সাড়া দিলুম। তার পর হালদারমশাইয়ের কণ্ঠস্বর ভেসে এল।–হালদার কইতাছি।

-বলুন হালদারমশাই।

 –জয়ন্তবাবু নাকি? কর্নেলস্যারের দ্যান প্লিজ।

 দুষ্টুমি করে বললুম–কর্নেল একটু বেরিয়েছেন। আমাকেই যা বলার বলুন না। কর্নেলকে তো জানেন। কোথাও গিয়ে পাখি বা প্রজাপতির পাল্লায় পড়লে কখন ফিরবেন তার ঠিক থাকে না। আপনি কোথা থেকে বলছেন?

–আমার ক্লায়েন্টের বাড়ির থেইক্যা কইতাছি।

–কী আশ্চর্য! হঠাৎ কোথায় ক্লায়েন্ট জোটালেন আপনি?

গোয়েন্দাপ্রবরের চাপা খি খি হাসি ভেসে এল।–ফিফটি সিক্স বাই ওয়ান শ্যামাদ লেনে।

আরও অবাক হয়ে বললুম–ওটা তো অজয় সাধুখাঁর বাড়ি।

–হঃ! উনিই আমার ক্লায়েন্ট হইলেন।

-প্রায় আধঘণ্টা আগে অজয়বাবু কনেলকে টেলিফোন করেছিলেন। তখন আপনি কি ওঁর কাছেই ছিলেন?

এবার হালদারমশাই অবাক হয়ে বললেন–কন কী? আমি একঘণ্টা নীচের তলায় ওনার ড্রয়িং রুমে আছি। তা উনি দোতলায় নিজের ঘর থেইক্যা কর্নেলস্যারেরে ফোন করতে পারেন। উনি কিছুক্ষণ আগে নীচে আইয়া আমার কন্ট্রাক্ট ফর্মে সই করছেন। অ্যাডভ্যান্স পাঁচশত টাকা পেমেন্ট করছেন। এইমাত্র উনি আবার ভিতরে গেছেন।

আপনি কি সরাসরি ওঁর সঙ্গে দেখা করে ওঁকে ক্লায়েন্ট হতে অ্যাপ্রোচ করেছিলেন?

-নাঃ। আমি ওনার বাড়ির সামনের গলিরাস্তায় ঘুরছিলাম। থানা থেইক্যা ফেরত আইয়া উনি গাড়ির উইন্ডো দিয়া আমারে দেখছিলেন। তার পর আমারে ডাকলেন।

বাঃ! তা হলে কেসের ব্যাকগ্রাউন্ড সবটাই পেয়ে গেছেন!

–পাইছি। তবে কোনও ক্লায়েন্টই পুরা ইনফরমেশন দ্যায় না! ডিটেলস সইত্য পাইতে সময়ের দরকার। কথা কওনের দরকার। ছাড়ি জয়ন্তবাবু। কর্নেলস্যার ফিরলে ওনারে কইবেন, ইভনিংয়ে যাইয়া দেখা করুম।

-উইশ ইউ গুড লাক।…..

 রিসিভার রেখে দেখলাম কর্নেল তার কাজে মনোযোগী। বললুম–কিছু বুঝলেন?

-হ্যাঁ। অজয় সাধুখাঁ হাতের কাছে চেনা প্রাইভেট ডিটেকটিভ পেয়েছেন। এদিকে আমি তো আছিই। ভালো! হালদারমশাইয়ের হাতে ইদানীং কেসের অভাব ছিল। পেয়ে গেলেন।

-ক্যাস বলুন।

কর্নেল হাসলেন না। গম্ভীর মুখে বললেন–কমলিকা সত্যিই একটা জটিল কেস দিয়ে গেল। যে উড়োচিঠিগুলো লিখেছে, সে ধরেই নিয়েছিল এগুলো নিয়ে কমলিকা তার গার্জেন রায়সায়েবের সাহায্যে পুলিশের কাছে যাবে। লোকটি যে-ই হোক, সে অতি ধুরন্ধর। সে জানে, পুলিশ ডিপার্টমেন্টে গ্র্যাফোলজিস্ট আছেন। তাই ইচ্ছে করেই বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছে, যাতে গ্র্যাফোলজিস্ট আমার মতো ভুল করেন।

–তার মানে?

–শব্দের শেষ অক্ষরের মাথায় সমান্তরাল দুটো বাঁকা রেখা টানা তার অভ্যাস নয়। ইচ্ছাকৃত। সে কোনও ব্যবসায়ীর–প্রিসাইজলি বলতে গেলে মুকুন্দ হাজরার কাঁধে দায় চাপাতে চেয়েছে। তবে তার হুমকির পিছনে সত্য আছে।

-লালুবাবু কি সেই সত্য?

–তা-ই মনে হচ্ছে। কিন্তু লালুবাবুকে কোথায় কী ভাবে ফেরত দিতে হবে, তা এই চারটে চিঠিতে নেই। কাজেই আরেকটা চিঠি কমলিকা পেতে পারে। বলে কর্নেল মুখ তুললেন। একটু পরে আবার বললেন–আমার থিয়োরি ঠিক হলে সেই চিঠিটা কমলিকা ফিরে গিয়েই তার লেটারবক্সে পাবে।….

মধ্যাহ্নভোজনের পর ড্রয়িংরুমে ডিভানে শুয়ে অভ্যাসমতো ভাতঘুমের জন্য লম্বা হয়েছিলুম। কর্নেল আবার টেবিলল্যাম্প জ্বেলে উড়োচিঠিগুলোর উপর আতসকাঁচ রেখে পরীক্ষায় মনোযোগ দিয়েছিলেন। আমার বৃদ্ধ বন্ধুর অনেক অধ্যবসায় দেখেছি, কিন্তু কখনও এমনটি দেখিনি। সত্যিই কি হাতের লেখা দেখে লেখকের সম্পর্কে কিছু জানা যায়, তা যথেচ্ছ বিকৃত করে লেখার আদল পাল্টানো হোক? এই বিদ্যাটা তথাকথিত জ্যোতিষচর্চার মতো ভুয়ো নয়? কর্নেল নিজেই তো জ্যোতিষচর্চাকে ধাপ্পাবাজি বলে ব্যঙ্গ করেন।

হ্যাঁ–ব্যাপারটা তা-ই। হাতের লেখা দেখে আর হাতের রেখা দেখে কোনো লোকের চরিত্র আর ভূত-ভবিষ্যৎ বিচার একই মুদ্রার দুই পিঠ।

পরক্ষণে মাথায় এল পাল্টা যুক্তি। অন্তত হাতের লেখা দেখে পুরুষ না স্ত্রীলোক, বৃদ্ধ না যুবক, নাকি বালক ইত্যাদি অনেক সময় বোঝা যেতে পারে। জ্যোতিষীরাও সম্ভবত মানুষের মুখ, হাব-ভাব লক্ষ করতে পারদর্শী বলেই তার সম্পর্কে কিছু সত্যি কথা অনুমান করতে পারেন।

এইসব উল্টোপাল্টা চিন্তার মধ্যে কখন ঘুমের টান এসেছিল। কর্নেলের ডাকে সেই টানটা ছিঁড়ে গেল।–জয়ন্ত! নো ভাতঘুম। ওয়েক আপ! ওয়েক আপ।

তক্ষুনি বিরক্ত হয়ে উঠে বসে বললুম–আবার কিছু আবিষ্কার করে আমার মাথায় ঢোকাতে চান?

–না। বেরুতে চাই। চোখেমুখে জল দিয়ে সতেজ হয়ে নাও। কারণ, তোমার গাড়ি তোমাকেই ড্রাইভ করতে হবে।

উঠে দাঁড়িয়ে বললুম–আপনাকে খুব উত্তেজিত দেখাচ্ছে বস্!

কর্নেল হাসলেন। নাঃ! হাঁকডাক না করলে তোমাকে ওঠাতে দেরি হত।

একটু পরে কর্নেলের তিনতলার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে নেমে গ্যারাজ থেকে আমার ফিয়াট গাড়িটা বের করলুম। কর্নেল যথারীতি আমার বাঁ দিকে বসলেন। মাথায় টাকঢাকা টুপি। তবে কাঁধ থেকে ঝুলে ক্যামেরাটা ওঁর কোলে যেন ঘাপটি পেতে বসেছে। বাইনোকুলারটা নেই।

জিগ্যেস করলুম–গন্তব্যস্থল বলুন!

–ফ্রি স্কুল স্ট্রিট হয়ে পার্ক স্ট্রিট। তার পর ডাইনে ঘুরবে। যথাসময়ে বাকিটা বলব।

রবিবারে কলকাতার রাস্তায় যানবাহন বা লোকজনের তত ভিড় নেই। পার্ক স্ট্রিটে গিয়ে বললুম–একটা প্রশ্ন এইমাত্র মাথায় এল। বলি?

-বলো।

–ছেলেকে খুনের দায়ে পুলিশ ধরেছে। এ জন্য প্রাইভেট ডিটেকটিভ হায়ার করা কেন? তা ছাড়া আপনিই তো যথেষ্ট। পুলিশমহলে আপনার খাতিরের কথা। অজয় সাধুখাঁ ভালো জানেন। উনি আপনার সঙ্গে টেলিফোনে অতক্ষণ কথাও বললেন। আপনার প্রতিশ্রুতিও আদায় করে নিলেন।

–ইউ আর ড্যাম রাইট ডার্লিং! কথাটা আমার মাথায় তখন থেকে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তবে হালদারমশাইয়ের সঙ্গে মুখোমুখি হওয়ার সুযোগ পেলে ব্যাপারটা আঁচ করা যাবে।

হাসতে হাসতে বললুম–সন্ধ্যায় উনি আপনার ডেরায় হাজির হবেন। তবে আমার ধারণা, হালদারমশাইয়ের হাতে ক্যাস নেই বলে উনিই যেচে পড়ে অজয়বাবুকে ক্লায়েন্ট করেছেন এবং অশোক যে নির্দোষ, তা প্রমাণ করার জন্য গোয়েন্দাগিরি করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এই টোপ গেলার মতো মানসিক অবস্থা অজয়বাবুর হয়েছে। তাই না?

কর্নেল বললেন–সেন্ট্রাল অ্যাভেনিউয়ে চলল।

–তার পর?

 –গণেশ অ্যাভেনিউয়ে ঘুরে সোজা ট্রামলাইন ডিঙিয়ে ওয়েলিংটন স্কোয়ার।

–ঘুরিয়ে নাক দেখানোর মতো। আপনার বাড়ি থেকে বেরিয়ে আচার্য জগদীশ বোস রোড হয়ে মৌলালি পেরিয়ে……

কর্নেল আমাকে থামিয়ে দিয়ে বললেন–গণেশ অ্যাভেনিউয়ে একটা দ্রষ্টব্য আছে।

–কী সেটা?

–ওঃ জয়ন্ত! ডানদিকে একটা বাড়ির তিনতলার দিকে তাকালে কী দেখতে পাবে ভুলে যাচ্ছ!

হাসতেই হল।–তিনতলার মাথায় হালদার প্রাইভেট ডিটেকটিভ এজেন্সি-র সাইনবোর্ড। এখন কি হালদারমশাই তাঁর অফিসে আছেন, ভাবছেন আপনি?

–কিছু বলা যায় না। তুমি ডাইনে আছ। নজর রাখবে। ছাদের ঘরটার জানালা খোলা কি না।

কিছুক্ষণের মধ্যেই গোয়েন্দাপ্রবরের অফিসের সাইনবোর্ড চোখে পড়ল। জানালা বন্ধ আছে। কথাটা কর্নেলকে জানাতেই তিনি বললেন–ওই অ্যাজবেস্টস চাপানো ছোট্ট ঘরটার জন্য ওঁকে মাসে পাঁচশো টাকা ভাড়া দিতে হয়। মাঝে মাঝে ট্যাকের কড়ি খরচ হয়ে যায়। সেদিন দুঃখ করে বলছিলেন, হাতে একটা ভালো কেস পেলে বেঁচে যেতেন। দুমাসের ভাড়া বাকি পড়েছে। যাই হোক, হাতে একটা কেস পেয়ে গেছেন।

–গোয়েন্দামশাইয়ের মক্কেল কোটিপতি ব্যবসায়ী। একমাত্র ছেলের জন্য নিশ্চয় মোটা টাকা দেবেন।

কর্নেল হাসলেন।-হ্যাঁ। সেটা আশা করা যায়। আমার মনে হচ্ছে না যে, হাতের কাছে নাপিত পেয়ে নখ কাটার ব্যাপার। মনে হচ্ছে কোনো একটা গুরুত্বপূর্ণ কারণে অজয় সাধুখাঁ হালদারমশাইকে চান। অর্থাৎ আমাকে দিয়ে যা করানো সম্ভব নয়–ধরো, চক্ষুলজ্জা বা মানসম্মানের কথা এসে পড়ে। তা ছাড়া ওঁর জানা আছে, আমাকে দিয়ে আইন আর নীতিবিরোধী কিছু করানো যাবে না।

ট্রামরাস্তা পেরিয়ে গিয়ে কর্নেল, বললেন–সামনে গলির মুখে গাড়ি রাখবে।

যথাস্থানে গাড়ি থেকে নেমে বললুম–কোন বাড়িতে ঢুকবেন?

গাড়ি লক করো। তার পর যাওয়া যাক।

 গলিরাস্তায় কর্নেলকে অনুসরণ করছিলুম। তিনি দুদিকে বাড়িগুলো দেখে। নিয়ে একটা একতলা বাড়ির সামনে সংকীর্ণ কয়েক ধাপ সিঁড়িতে উঠে দরজার কড়া নাড়লেন। বাড়িটার অবস্থা জরাজীর্ণ। একটু পরে দরজা খুলে এক বৃদ্ধ। কর্নেলকে দেখেই ব্যস্তভাবে বলে উঠলেন-নমস্কার! নমস্কার স্যার! আসুন। আসুন। আমি কল্পনাও করিনি আপনার এই অধমকে স্মরণ আছে।

ওটা একটা ঘরের দরজা। ভিতরে আবছা আঁধার। বৃদ্ধের পরনে লুঙ্গি আর গেঞ্জি। গলায় পৈতে জড়ানো। দুদিকের জানালা তিনি খুলে দিলেন। একপাশে তক্তাপোশে বিছানা পাতা। অন্য পাশে একটা বেরঙা টেবিল আর দুটো চেয়ার। টেবিলে বৃহৎ পঞ্জিকা এবং আরও কিছু বইপত্র। ভিতরের দরজা দিয়ে বারান্দার নীচে একটুকরো উঠোন দেখা যাচ্ছিল। তিনি বললেন–আগে বসুন স্যার! এঁকে তো চিনতে পারলুম না।

কর্নেল আমার পরিচয় দিলেন। তার পর আমাকে বললেন–জয়ন্ত! ইনি শ্রী হরিমাধব ভট্টাচার্য। শাস্ত্রজ্ঞ পণ্ডিত। বছর তিনেক আগে এই এরিয়ার কনকপুর রাজবাড়ির মন্দির থেকে বিগ্রহচুরি কেসে ইনি আমাকে যথেষ্ট সাহায্য করেছিলেন। তখন ভটচামশাই ছিলেন ওই বাড়ির পুরোহিত।

ভটচামশাই বললেন–আমাকে ওঁরা সাধাসাধি করলেও আর যাইনি। অমন মিথ্যা অপবাদ!

–তা হলে বুঝতে পারছ জয়ন্ত, ভটচামশাইয়ের আত্মসম্মানবোধ কত তীব্র।

দয়া করে বসুন স্যার! চায়ের ব্যবস্থা করি।

–না। চা থাক। একটা কথা জানতে এসেছি। হাতে সময় কম।

-বলুন স্যার। যা জানি, তা বলব। আপনার উপকার কি ভুলতে পারি? আপনি ঠাকুরের ইচ্ছেয় বিগ্রহচুরির কেসে না থাকলে আমাকেই পুলিশ চুরির দায়ে ধরত। গরিব মানুষ। কে বাঁচাত?

–ও কথা থাক। আপনি এখানে বহুকালের বাসিন্দা। এই গলিরাস্তার ২১ নম্বরে প্রবোধ সিনহা নামে এক ব্যবসায়ীর বাড়ি। তাকে চেনেন?

হরিমাধব ভট্টাচার্য উত্তেজিত হয়ে উঠলেন। কিন্তু চাপাস্বরে বললেন–আমার বাড়ির মাথায় সাইনবোর্ড ছিল। প্রবোধবাবুর গুণ্ডারা তা উপড়ে নিয়ে গেছে। ঘরে ঢুকে ভাঙচুর করেছে। রাজবাড়ির কাজ ছেড়ে জ্যোতিষচর্চা আর ঘটকালি করতুম। প্রবোধের মেয়ের বিয়ে হচ্ছিল না। কোনো ছেলের সঙ্গে তার ভাব-ভালোবাসা ছিল। প্রকাশ্যে দুজনে ঘুরে বেড়াত। কিন্তু প্রবোধ বলেছিল, আমরা ক্ষত্রিয়। ওরা শুদুর। শেষে আমাকে ধরেছিল। দূরের পাত্র চাই। আমার এক বোন থাকে বিহারের ভৈরবগড়ে। তার সূত্রে ওখানকার জমিদারবাড়ির এক পাত্রের খবর পেয়েছিলুম। তার পর…..

কর্নেল বললেন–থাক। এই যথেষ্ট। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আমরা চলি।…

.

০৪.

কর্নেল স্তম্ভিত ও হতবাক ভটচামশাইয়ের হাতে একটা পঞ্চাশ টাকার নোট গুঁজে দিয়ে চলে এসেছিলেন। আমিও হতবাক হয়ে গিয়েছিলুম। বাড়ি ফেরার পথে জিগ্যেস করেছিলুম–আপনি কি আন্দাজে ঢিল ছুঁড়তে এসেছিলেন? নাকি কোনও ক্লু পেয়ে যাচাই করতে এসেছিলেন?

কর্নেল বলেছিলেন–আমি সবসময় একটা কথা বলি। অনেকসময় আমরা জানি না যে আমরা কী জানি!

–আরও হেঁয়ালি হয়ে গেল বস্!

–আজ সকালে অজয়বাবু প্রবোধ সিনহার জামাই খুন হওয়ার খবর দিয়ে কিছু বাড়তি খবরও দিয়েছিলেন। লাঞ্চের পর উড়োচিঠিগুলো পরীক্ষার পর হঠাৎ সেগুলো মনে পড়ে গেল। অজয় সাধুখাঁ বলেছিলেন, প্রবোধ ঘটকালির ফাঁদে পড়েছিল। কিন্তু তার পরের একটা কথা ঘটকেরও ব্যাকগ্রাউন্ড দেখতে হয়। ঘটক নাকি রাজবাড়ির বিগ্রহচুরির দায়ে জেল খেটেছিল। তোমার মনে পড়ছে?

একটু-একটু স্মরণ হচ্ছে। ঘটক সম্পর্কে কীসব বলেছিলেন।

–হ্যাঁ। ওঁর শেষ কথাটা শোনার পর আমার মনে পড়েছিল, ক্রিক রো-তে কনকপুর রাজবাড়ির বিগ্রহচুরির কেসের কথা। পুরুতঠাকুর হরিমাধব ভট্টাচার্যের কথা। কেসটার কিনারা পুলিশ করতে পারেনি। ভটচামশাইকে অবশেষে জামিন দিতে হয়েছিল। তার পর রাজবাড়ির কর্তা অলকেশ রায়চৌধুরি আমার কাছে যান। ওঁর দাদা অমিতেশ ছিলেন আমার পরিচিত। তখন তিনি বেঁচে নেই। যাই হোক, সেই সূত্রে পুরুতঠাকুর ভটচামশাইয়ের সঙ্গে আমার পরিচয় এবং তার কথার সূত্রে বিগ্রহ উদ্ধার-সে অন্য কাহিনি। তবে আজ অজয় সাধুখাঁ যখন বেচারা ভটচাযশাইকে জেল খাঁটিয়ে ছাড়লেন, তখন তাকে আমার মনে পড়েছিল। মাত্র দুটো কথা। রাজবাড়ির পুরুতঠাকুর এবং ঘটক একই লোক। এর পরের কথাটি হল, ওই পাড়ায় প্রবোধ সিনহার বাড়ি। তার কার্ডে বাড়ির ঠিকানা দেখেছি। অতএব দুয়ে দুয়ে চার করে ফেললুম।

–কিন্তু ভটচামশাইয়ের পুরো কথা না শুনেই চলে এলেন কেন?

একটু চুপ করে থাকার পর কর্নেল বলেছিলেন–প্রবোধ সিনহার সঙ্গে সুদূর ভৈরবগড়ের জমিদারবংশের যোগাযোগের সূত্র আবিষ্কার করা দরকার ছিল। এই সূত্রটা আমার থিয়োরিতে ভাইটাল।

-কর্নেল। এবার একটা কথা বুঝতে পেরেছি। প্রবোধ সিনহা অনেক দূরে বিয়ে দিয়ে অশোকের নাগালের বাইরে মেয়েকে রাখতে চেয়েছিলেন। বর। ডিভোর্সি তা তার জানা সম্ভব ছিল। তবু কলকাতা থেকে ভৈরবগড়ের শুধু দূরত্ব। নয়, জায়গাটা তত বিখ্যাতও নয়। তাই ওখানে বিয়ে দিয়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিলেন।

–কিন্তু দেখা যাচ্ছে অশোক ভৈরবগড়ে তার প্রেমিকার খোঁজ পেয়েছিল। এরও একটা সূত্র আছে।

–থাকতে বাধ্য দেখা যাক হালদারমশাই এ বিষয়ে কতটা এগোতে পেরেছেন।….

গোয়েন্দাপ্রবর তার কথামতো কর্নেলের অ্যাপার্টমেন্টে আবির্ভূত হলেন, তখন সন্ধ্যা সাতটা বেজে গেছে। বেশি দুধ মেশানো ষষ্ঠীচরণের স্পেশ্যাল কফি তিনি ধীরেসুস্থে পান করার পর নস্যি নিলেন। তার পর ফিক করে হেসে বললেন ক্লায়েন্ট আরও পাঁচশত টাকা অ্যাডভান্স করছেন। মোট ওয়ান থাউজ্যান্ড!

কর্নেল বললেন–বাঃ! আপনার অফিসের বাড়িভাড়া নিয়ে আর দুশ্চিন্তা রইল না।

হালদারমশাই চাপাস্বরে বললেন–পুলিশ অশোকের ঘর সার্চ কইর‍্যা মাইয়াটার কয়খানা চিঠি লইয়া গেছে। লাভ-লেটার। অজয়বাবুরে তালতলা থানার পুলিশ এ কথা জানাইয়া দিছে। কাজেই অশোকেরে পুলিশ মার্ডারার প্রমাণ করতে পারে সার্কামস্ট্যানশিয়াল অ্যাভিডেন্সে।

–তা হয়তো পারে। কিন্তু আপনার কাজটা কী?

–অজয়বাবুর বিশ্বাস, তাঁর পোলা এমন জঘন্য কাম করতেই পারে না। মার্ডারার অন্য কেউ। আমারে ভৈরবগড় যাইয়া সেই মার্ডারাররে খুঁজতে হইব। একটা ক্লু অজয়বাবু দিছেন। তার কাছে প্রবোধবাবুর জামাই খুন হওয়ার কথা শুইন্যা অশোক কইছিল, যাঃ! লালুবাবুর জন্যই সুমিত্রার বর খুন হইছে। অজয়বাবু অরে জিগাইছিলেন, লালুবাবু কে? অশোক তারে চেনে না। সুমিত্রা তারে কইছিল, তার বর মদের নেশার ঘোরে লালুবাবু লালুবাবু করে। পরে সুমিত্রা অরে জিগাইছিল। নামটা কী য্যান বরের-সন্দীপ। সন্দীপ ধমক দিছিল, তার কথায় তোমার কাম কী?

আমি বলে উঠলুম–সেই লালুবাবু!

গোয়েন্দাপ্রবর উত্তেজিতভাবে বললেন–তারে চেনেন?

কর্নেল আমার দিকে কটমটিয়ে তাকিয়ে বললেন–জয়ন্তও প্রলাপ বকছে। কোন লালুবাবুর কথা বলছ তুমি?

বেগতিক দেখে বললুম–আমার এক কলিগের কাছে শুনেছি, বিহারের কোথায় যেন লালুবাবু নামে এক দুর্ধর্ষ ডাকাত আছে।

হালদারমশাই বললেন–আপনার সেই কলিগের নাম-ঠিকানাটা পাইলে…।

তার কথার উপর বললুম–অনিন্দ্য অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে কমনওয়েলথ কনফারেন্সে গেছে। ফিরতে অনেক দেরি হবে।

কর্নেল হাসি চেপে বললেন–তা হলে হালদারমশাইকে ভৈরবগড়ে যেতে হবে?

–যামু। ক্লায়েন্ট টাকা দিছে, সেটা কথা না। লালুবাবুরে আগে খুঁইজ্যা বার করনের দরকার। রাত দশটা তিরিশে ট্রেন। খবর লইছি। আসানসোলে ট্রেন বদলাইয়া গয়া প্যাসেঞ্জারে দুই ঘণ্টার জার্নি! উঠি কর্নেলস্যার! একা যাইতে ইচ্ছা করে না। একা না বোকা। আপনারে তো কইতে পারি না, আমার সাথে চলেন!

প্রাইভেট ডিটেকটিভ উঠে দাঁড়িয়েছিলেন। কর্নেল একটু হেসে বললেন– হালদারমশাই! সম্ভবত আপনার সঙ্গে হাওড়া স্টেশনে আমাদের দেখা হতে পারে।

হালদারমশাই একেবারে অ্যাটেনশন ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে গেলেন এবং গুলিগুলি চোখে তাকিয়ে বললেন–আপনারা কোথায় যাবেন?

ভৈরবগড়। তবে সাবধান। সেখানে পৌঁছে গোপনে আমার সঙ্গে দেখা করতে পারেন। প্রকাশ্যে আমরা অচেনা। কেমন?

উজ্জ্বল মুখে হালদারমশাই বললেন–বরাবর যেমন হয়, ঠিক তা-ই। আপনি কী কোনও ক্যাস পাইছেন?

–পেয়েছি বৈকি।

–আপত্তি না থাকলে যদি এট্ট আভাস দ্যান কর্নেলস্যার!

কর্নেল হাসলেন। –আমার কেসের কথা আপনারই অনুমান করা উচিত। দুষ্প্রাপ্য প্রজাতির প্রজাপতি আর অর্কিড। ওখানে আমার এক বন্ধু আছেন। তিনিই খবর দিয়েছেন। তো আপনি যখন আজ রাতের ট্রেনে যাচ্ছেন, তখন আমরাও আপনার সঙ্গী হতে চাই। কী বলল জয়ন্ত?

বললুম–কিন্তু….

কর্নেল চোখ কটমটিয়ে বললেন–নো কিন্তু। হালদারমশাইয়ের লালুবাবু তোমার দৈনিক সত্যসেবক পত্রিকার জন্য আশা করি একখানা রোমহর্ষক স্টোরি উপহার দেবেন।

গোয়েন্দাপ্রবর যথারীতি সবেগে বেরিয়ে গেলেন। কর্নেল ষষ্ঠীকে ডেকে বললেন–রাত নটায় খাব।

ষষ্ঠী হাসল।–খাবেন। আমি রেডি হয়েই আছি।

সে পর্দার আড়ালে অদৃশ্য হলে কর্নেল বললেন–মার্চে এখনও ভৈরবগড়ে শীত আছে। তুমি এখনই বেরিয়ে পড়ো জয়ন্ত। কিছু গরম জামাকাপড় আর হ্যাঁ, তোমার ফায়ার আর্মস নিতে ভুলো না যেন। গাড়ি গ্যারাজবন্দি করে ট্যাক্সিতে ফিরে আসবে। যেতে আসতে এক ঘণ্টাও লাগল না। কারণ আজ রবিবার। হ্যাঁ উঠে পড়ো!……

আমার সল্টলেকের ফ্ল্যাট থেকে ইলিয়ট রোড এলাকায় কর্নেলের অ্যাপার্টমেন্টে ফিরতে নটা বেজে গিয়েছিল। এর কারণ যে ট্যাক্সিটা পেয়েছিলুম, সেটা হেঁপো রুগি। মিটারের কাঁটাও ছিল সন্দেহজনক। কিন্তু কথা না বাড়িয়ে ভাড়া মিটিয়ে হন্তদন্ত গেটে ঢুকতে চোখে পড়েছিল, অপরিসর লনে একটা-কী বলব? প্রকৃতই যেন লালুবাবু মারুতির বেশে দাঁড়িয়ে আছে। ভেবেছিলুম একতলার বা দোতলার অ্যাপার্টমেন্টের কোনও অতিথি এসেছেন। কিন্তু কর্নেলের ড্রয়িং রুমে ঢুকে দেখি, বুশশার্ট-প্যান্টপরা এক প্রৌঢ় ভদ্রলোক বসে আছেন। তার দুই পায়ের মধ্যে একটা ব্রিফকেস। তার মাথায় কর্নেলের মতো টাক আছে। মুখে ফ্রেঞ্চকাট কাঁচাপাকা দাড়ি। চোখে সোনালি চশমা।

আমাকে দেখে কর্নেল বললেন–বসো জয়ন্ত। তাড়াহুড়োর দরকার নেই। খবর নিয়েছি, জগন্নাথ এক্সপ্রেস রাত বারোটা নাগাদ ছাড়বে। বিকেলে কোথায় গুডস ট্রেনের একটা ওয়াগন ডিরেলড হয়েছে।

প্রকাণ্ড একটা কাঁধে ঝোলানো ব্যাগ নিয়েছিলুম সঙ্গে। সেটা ডিভানে রেখে। বসলুম। কর্নেল বললেন–আলাপ করিয়ে দিই। জয়ন্ত চৌধুরি। দৈনিক সত্যসেবক পত্রিকার সাংবাদিক। জয়ন্ত! ইনি মি. প্রবোধ সিনহা। একটা ফিন্যান্স কনসার্নের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর।

পরস্পর নমস্কার করলুম। তা হলে এই সেই প্রবোধ সিনহা! ব্যাপারটা দেখছি ক্রমশ আরও জটিল হয়ে উঠছে। কর্নেল বললেন–মি. সিনহা! জয়ন্ত আমার ঘনিষ্ঠ সহযোগী। ওর কাছে আমার কোনো কথাই গোপন থাকে না। তবে আমাদের হাতে সময় কম।

প্রবোধ সিনহা আমার দিকে তীক্ষ্ণদৃষ্টে তাকিয়ে ছিলেন। অস্বস্তি আর রাগ দুই-ই হচ্ছিল। কর্নেলের কথা শুনে তিনি ঘড়ি দেখে নিয়ে বললেন–অশোক আমার বন্ধুর ছেলে। আমাদের বাড়ির পালাপার্বণে ওর বাবার সঙ্গে বহুবার গেছে। কাজেই সুমিত্রার সঙ্গে তার চেনাজানা স্বাভাবিক। যাই হোক, ভৈরবগড়ের ন্যাচারাল বিউটির কথা বিয়ের পর সুমিত্রা অশোককে বলেছিল। কিন্তু পাছে তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা কিছু ভেবে বসে, এই ভয়ে সুমিত্রা ওকে হোটেল বা ট্যুরিস্ট লজে উঠতে বলেছিল। আর একটা কথা ভেবে দেখুন। মেয়েদের এই একটা স্বভাব। বাবার দেশের চেনা কেউ শ্বশুরের দেশে গেলে সে তাকে দেখা না করে থাকতে পারবে না।

কর্নেল বললেন–ঠিক বলেছেন।

-কিন্তু অশোক যে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই সেখানে গেছে, আমার মেয়ে তা কেমন করে জানবে?

-প্রতিহিংসার কথা আগেও বলেছিলেন। প্লিজ এক্সপ্লেন ইট।

প্রবোধ সিনহা রুষ্ট মুখে বললেন–অজয়ের স্পর্ধা! ক্ষত্রিয়কন্যাকে ছেলের বউ করতে চেয়েছিল। আমি অশোকের সামনে বলে দিয়েছিলুম, যদি বন্ধুত্ব রাখতে চাও, আর কখনও এ কথা উচ্চারণ করবে না। আমার পূর্বপুরুষ রাজপুত এবং ক্ষত্রিয়।

কর্নেল দেয়ালঘড়ির দিকে তাকিয়ে নিয়ে বললেন–ভৈরবগড়ের পুলিশ আপনার মেয়ের স্টেটমেন্ট নিয়েছে বললেন। তাকে কি অ্যারেস্ট করেছিল?

আমার বেয়াই জয়গোপাল মজুমদার সরল মনের মানুষ। কিন্তু বেয়ান। শোভনা দেবী সাক্ষাৎ রণচণ্ডী। তার এক কথা। অসচ্চরিত্রা মেয়েকে ঘরে তুলে তার এই সর্বনাশ হল।

-আমি জানতে চাইছি, আপনার মেয়েকে কি জামিন দিয়ে ছাড়িয়ে এনেছেন?

-নেভার। জামিন-টামিন নয়। তবে স্টেটমেন্ট লিখিয়ে নিয়েছে, দরকার হলে সুমিত্রাকে ভৈরবগড় থানা বা কোর্টে হাজির হতে হবে। আমি বাবা।কাজেই আমাকেও লিখে দিতে হয়েছে, দরকারে মেয়েকে পুলিশের কাছে বা কোর্টে হাজির করাব।

-বেশ। এবার বলুন, আমি আপনাকে কী সাহায্য করতে পারি?

প্রবোধ সিনহা আস্তে বললেন–সুরেশ অগ্রবালজি আর অজয় সাধুখাঁও আপনার বিশেষ একটি পরিচয় আমাকে দিয়েছিল। আপনি শুধু নেচারোলজিস্ট নন, অপরাধ-রহস্যের ব্যাপারেও আপনার দক্ষতা আছে। অশোকই যে আমার জামাইকে প্রতিহিংসাবশে খুন করেছে, পুলিশ তার সারকামস্ট্যানশিয়াল এভিডেন্স পেয়ে গেছে। কিন্তু আমি মেয়ের বাবা। আমি চাই, অপরাধী শাস্তি পাক। আপনি….

কর্নেল একটু হেসে তার কথার উপর বললেন–আমাকে কংক্রিট এভিডেন্স জোগাড় করতে হবে। এই তো?

–একজ্যাক্টলি। আর আমার বিশ্বাস, আপনি তা পারবেন। এজন্য আমি আপনাকে একটা ব্ল্যাংক চেক লিখে দিচ্ছি। আপনি ইচ্ছেমতো অ্যামাউন্ট বসিয়ে নেবেন। ঈশ্বরের আশীর্বাদে আমার টাকার অভাব নেই।

বলে প্রবোধবাবু ব্রিফকেস খুলে একটা চেকবই বের করলেন। কর্নেল গম্ভীরমুখে বললেন–অপরাধরহস্যের ব্যাপারে আমার হবি আছে মাত্র। আমি পেশাদার গোয়েন্দা নই। তাই টাকার প্রশ্ন উঠলে আমি সেই রহস্যের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিই।

–আহা! এ কাজে তো আপনার টাকা খরচ হবে!

–আমি কি এখনও আপনাকে বলেছি যে আপনার কেস আমি নিয়েছি? প্রবোধবাবু এবার একটু নার্ভাস হয়ে পড়েছেন মনে হল। হাসবার চেষ্টা করে বললেন–নিজের অজ্ঞাতসারে আপনার সেন্টিমেন্টে হয়তো আঘাত করে ফেলেছি। এজন্য ক্ষমা চাইছি।

–না, না। আমি কিছু মনে করিনি। আপনাকে ক্ষমা চাইতে হবে না।

–কর্নেল সরকার! আমার বিনীত অনুরোধ, আপনি এই কেসটা নিন।

–আগে একটা প্রশ্নের উত্তর দিন।

–বলুন।

 –আপনার মেয়েও কি মনে করছে অশোক খুনি?

–না। ওকে নিয়ে এই একটা প্রবলেম। ও বলেছে, সন্দীপই নাকি অশোককে খুন করতে চেয়েছিল। ধস্তাধস্তিতে সন্দীপই খুন হয়ে যায়।

–একটা কথা। আপনি লালুবাবু নামে কাউকে চেনেন?

প্রবোধবাবু চমকে উঠেছিলেন। চশমার কাঁচের ভিতর তার চোখ দুটি যেন জ্বলে উঠল। একটু পরে তিনি বললেন–আপনার অসামান্য ক্ষমতার কথা শুনেছিলুম। কিন্তু আপনি কী করে লালুবাবুর নাম জানলেন?

খুলে বলা উচিত। অজয় সাধুখাঁও আমাকে অ্যাপ্রোচ করেছেন, তার ছেলে নিরপরাধ। তাই প্রকৃত খুনিকে ধরিয়ে দিয়ে আমি যেন তার ছেলেকে বাঁচাই। অশোক খুনি নয়। খুনি নাকি এক লালুবাবু।

প্রবোধ সিনহা আবার আস্তে বললেন–আপনি কি ওঁর কেস নিয়েছেন?

–না। উনিও আপনার মতো আমাকে টাকা দিতে চেয়েছিলেন। আপনার মতোই ব্ল্যাংক চেক।

–অজয়েরও হাতে প্রচুর টাকা। চোরাচালানি ইলেক্ট্রনিক গুডস বেচে পয়সা করেছে।

যাই হোক, অশোকও পুলিশকে জনৈক লালুবাবুর কথা বলেছে।

–অজয় আপনাকে বলেছে সে-কথা?

–হ্যাঁ। কাজেই লালুবাবুর নাম আমি আগেই শুনেছি।

–তা হলে প্লিজ আমার কেসটা নিন।

–আপনাকে বলেছি, আজ রাতের ট্রেনে আমি পুরী যাচ্ছি। এক সপ্তাহ থাকব। তার পর ফিরে এসে ভেবে দেখব।

প্রবোধ সিনহা এবার প্রায় ভেঙে পড়লেন। করজোড়ে বললেন–কর্নেল সরকার! আপনি প্লি-ই-জ পুরীযাত্রা স্থগিত করে আমার কেসটা নিন। এবার যে-কথাটা এখনই আপনাকে জানাব না ভেবেছিলুম, পরে জানাতুম, তা বাধ্য হয়ে জানাচ্ছি। কাল শনিবার ডাকে আমার নামে একটা উড়োচিঠি এসেছে! আপনাকে দেখাচ্ছি। হয়তো অশোকেরই কোনো দুবৃত্ত সঙ্গী-মানে, অশোক নিশ্চয় চোরাচালানিচক্রের এক মাফিয়াডনের সঙ্গে যুক্ত, সে-ই এই চিঠিটা লিখেছে।

বলে তিনি ব্রিফকেসের ভিতর থেকে কর্নেলকে একটা খাম দিলেন। ডাকবিভাগের খাম। মুখ ঘেঁড়া। কর্নেল খামের ডাকটিকিটের উপরটা আতসকাঁচে দেখে নিলেন। তার পর ভাঁজ করা চিঠিটা বের করলেন। লক্ষ করলুম, কমলিকাকে উড়োচিঠিগুলো যে কাগজে লেখা হয়েছে, এটাও সেই কাগজে লেখা। একই মাপের প্যাড থেকে ঘেঁড়া। কর্নেল চিঠিতে চোখ বুলিয়ে বললেন–হুঁ। সেই লালুবাবুর কথা!

প্রবোধবাবু উত্তেজিতভাবে বললেন–কোনো এক লালুবাবুকে আমি কিডন্যাপ করে এনেছি। কী অদ্ভুত কথা! তাকে শিগগির ভৈরবগড়ে গিয়ে যথাস্থানে ফেরত দিতে বলেছে। যথাস্থান কোথায়? ফেরত না দিলে আমার নাকি সন্দীপের দশা হবে। সুমিত্রা চিঠিটা দেখে বলল, সন্দীপ নাকি ঘুমের ঘোরে লালুবাবু লালুবাবু বলত। কর্নেল সরকার! আপনি কেস নিলে যথাসময়ে আপনাকে এটা দেখাতুম।

কর্নেল হাসলেন।–কেউ কিছু তথ্য গোপন করে আমাকে কেস দিলে অকারণ আমায় গোলকধাঁধায় ঢুকে ঘুরে মরতে হয়। বলুন, আরও কিছু তথ্য গোপন করে রেখেছেন কি না?

-কাল চিঠিটা পাওয়ার পর রাতের ট্রেনে আমি ভৈরবগড় গিয়েছিলুম। আমার বেয়াইমশাইকে চিঠিটি অবশ্য দেখাইনি। শুধু জিগ্যেস করেছিলুম, লালুবাবু নামে কাউকে তিনি চেনেন কি না। উনি চেনেন না। খোঁজ নেবেন। দুপুরের ট্রেনে চেপে কলকাতা ফিরেছি। তার পর যা শুনেছি, আপনাকে বলেছি। আজ সারাটি দিন আমি সুরেশ অগ্রবালজির বাড়িতে ছিলুম। ওঁর পুলিশ মহলে প্রচুর প্রভাব। কিন্তু উনি শুধু আপনার শরণাপন্ন হতে বলছিলেন। অজয়ের সঙ্গে আপনার বন্ধুত্ব আছে। তাই অনেক চিন্তাভাবনার পর শেষে আপনারই শরণাপন্ন হতে এলুম। আপনিও বললেন, কিছুক্ষণ আগে অগ্রবালজি আপনাকে রিং করেছিলেন।

কর্নেল বললেন–হ্যাঁ। যাই হোক আপনার কেস নিলুম। তবে এই চিঠিটা আমার কাছে থাকবে।

–রাখুন। আমি কথা দিচ্ছি, কোনও কথা এর পর গোপন করব না।

কর্নেল আমার দিকে চোখে হেসে তাকালেন।–জয়ন্ত! পুরী থাক। ভৈরবগড় যাই।

বললুম আপনার ইচ্ছে।…….

.

০৫.

ভৈরবগড় স্টেশনে পরদিন সকাল আটটা নাগাদ যখন পৌঁছেছিলুম, তখন চারদিকে ঘন কুয়াশা। প্ল্যাটফর্মে হাঁটতে হাঁটতে কর্নেল হালদারমশাইকে সহাস্যে বলেছিলেন- এবার আপনি আমাদের অচেনা মানুষ হয়ে গেলেন। সাবধান।

হালদারমশাইও হেসে ফেলেছিলেন।–হঃ! যা কইছেন।

–আপনি তা হলে এগিয়ে যান! ট্যুরিস্ট লজে যেতে প্রাইভেট ট্যাক্সিও পেতে পারেন। সাইকেল রিকশোও পেয়ে যাবেন।

–রিকশো কইরা যামু। বাজে টাকা খরচের কী দরকার!

–আচ্ছা। অ রিভোয়া।

চমকে উঠে গোয়েন্দাপ্রবর বললেন–কী কইলেন? কী কইলেন?

আমি বললুম–কর্নেল ফ্রেঞ্চ ভাষায় বললেন, আবার দেখা হবে। এখন বিদায়। বুঝলেন তো?

হালদারমশাইয়ের মুখ দেখে মনে হচ্ছিল, আমার কথাটা তিনি বিশ্বাস করেননি। কিন্তু প্ল্যাটফর্মে ভিড় ছিল। বুঝতে পেরেছিলুম ট্যুরিস্টদের মরসুম এখনও চলেছে। হালদারমশাই অভিজ্ঞ প্রাক্তন পুলিশ অফিসার। ট্রেনে আসতে আসতে তিনি জানিয়েছিলেন, কলকাতা থেকে টেলিফোনে টুরিস্ট লজের একটা সিঙ্গলবেড রুম বুক করেছিলেন। জানি না, তাঁর মুখের কথায় বুক-এর মূল্য কতটা দেওয়া হবে। অবশ্য তিনি প্রাক্তন পুলিশ অফিসার বলেও জানিয়েছেন।

পাহাড়ি কুয়াশা দর্শনের অভিজ্ঞতা যাঁর আছে, তিনিই জানেন এ কুয়াশা কী জিনিস! কুয়াশায় কালো হিজিবিজির মতো লোকের ভিড়ে হালদারমশাই দ্রুত মুছে গেলেও তার ঢ্যাঙা শরীরে বসানো লম্বাটে মুণ্ডটি কালো বুদুদের মতো দেখতে দেখতে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল।

স্টেশনের বাইরে গিয়ে কর্নেল বললেন–আমাদের তাড়াহুড়োর কিছু নেই। এসো, আগে কফি খেয়ে নার্ভ চাঙ্গা করি। তুমিও শীতে যথেষ্ট জব্দ হয়েছ।

শেষ রাত থেকে শীত আমাকে যথেষ্ট বাগে পেয়েছিল। এখন অবশ্য ততটা কাহিল অবস্থা নয়। কারণ ট্রেনে বাতাসের দৌরাত্ম্য থাকে। এখানে স্টেশনের পিছনের দিকে অর্ধবৃত্তাকার দোকানপাটে মানুষজন গিজগিজ করছিল। তবে লক্ষ করলুম, ট্যুরিস্ট স্পট হওয়ার জন্যই অধিকাংশ দোকান চা এবং খাবারের। আমরা যে দোকানে ঢুকলুম, সেটা বেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। দেখলুম, পুরি সন্দেশ চা কফি সবই পাওয়া যায়।

সেখানে নোনতা বিস্কুট আর কফি খেয়ে কর্নেল ক্যাশকাউন্টারে গিয়ে দাম মেটালেন। তাকে দেখে বিদেশি ট্যুরিস্ট ভেবে মালিক বা ক্যাশিয়ার ভদ্রলোককে বিগলিত মনে হচ্ছিল। কর্নেলকে কাউন্টারে রাখা টেলিফোন দিয়ে যেন তিনি কৃতাৰ্থ বোধ করছিলেন। কারণ টেলিফোনের চার্জ তিনি নিলেন না।

কর্নেল বেরিয়ে এসে চুরুট ধরিয়ে বললেন–রায়সায়েবকে জানিয়ে দিলুম। আমার ইচ্ছে ছিল একাগাড়ি চেপে যাব। কিন্তু উনি নিজেই গাড়ি ড্রাইভ করে আসতে চান। কলকাতা থেকে কেন ওঁকে আমার এত শিগগির আসবার কথা জানাইনি তা নিয়েও অভিমান। যাই হোক, কুয়াশা একটু কেটেছে। চলো, আমরা গোড়াবাঁধানো ওই বটগাছটার তলায় বসি।

শিশিরে জায়গাটা একটু ভিজে ছিল। রুমালে মুছে দুজনে বসলুম। গুঁড়ির নীচে প্রচুর মসৃণ শিলা এবং সবগুলোতে সিঁদুরের ছোপ। অন্য পাশে কম্বল গায়ে এক সাধুবাবা চোখ বুজে বসে ছিলেন। আমাদের দিকে হঠাৎ ঘুরে রাঙা চোখে তাকালেন। তার পর আবার ধ্যানস্থ হলেন।

একটু পরে বললাম–কমলিকার দুর্গাপুর হয়ে বাসে ফেরার কথা। সে ফিরতে কি না রায়সায়েবকে জিগ্যেস করেননি?

–না তবে আমি জানি, দুর্গাপুর থেকে ভৈরবগড় আসতে বাসে ঘণ্টা চারেক লাগে।

–আচ্ছা কর্নেল, একটা অদ্ভুত ব্যাপার এতদিনে ঘটে গেল। ঘটনাটা মজারও বটে!

–কী?

–হালদারমশাইয়ের ক্লায়েন্ট আর আপনার ক্লায়েন্ট পরস্পর এখন শত্রু। তার মানে আমাদের প্রিয় হালদারমশাই আমাদেরই প্রতিপক্ষ।

কর্নেল হাসলেন।-হ্যাঁ-। আপাতদৃষ্টে তাই দাঁড়াচ্ছে।

–আপাতদৃষ্টে কী বলছেন? কার্যত বলুন। হালদারমশাইকে প্রমাণ করতে হবে। অশোক খুন করেছে।

কর্নেল এবার মিটমিটি হেসে চাপাস্বরে বললেন–সাধুবাবা কান করে শুনছেন।

চমকে উঠে মুখ ঘুরিয়ে দেখলুম জটাজুটধারী গোঁফদাড়িওয়ালা সাধুবাবা ভেমনই রাঙা চোখে আমাদের দিকে তাকিয়ে আছেন। আমি তাকাতেই তিনি অদ্ভুত বিকৃত কণ্ঠস্বরে ধমক দিলেন–চুপসে বইঠো। নেহি তো ভাগ যাও। মেরা ধেয়ান নষ্ট হো গেয়া।

কর্নেল তখনই গম্ভীর হয়ে বললেন–নমস্তে সাধুবাবা। একিঠো বাত পুছনে চাহতা হাম। জবাব ঠিকঠিক মিল যায় তো আপকা সেবাকে লিয়ে কুছ রুপেয়া দেগা।

–ক্যা তেরা বাত?

–আপ লালুবাবুকো পচানতা?

সাধুবাবা একলাফে নীচে নামলেন। তার পর সেই রকম বিকৃত কণ্ঠস্বরে বলে উঠলেন–ক্যা কহা?

— লালুবাবু!

অমনই সাধুবাবা দৌড়ে উল্টোদিকে টাট্ট ঘোড়ার মতো নড়বড় করতে করতে উধাও হয়ে গেলেন। আমার মনে হল, ওঁর একটা পা একটু খোঁড়া। কিন্তু ঘটনাটা ভারি অদ্ভুত! কর্নেল হতবাক হয়ে বসে ছিলেন। বললুম–সন্দেহজনক ব্যাপার! লালুবাবু শুনে সাধুবাবা অমন করে পালিয়ে গেলেন কেন?

কর্নেল ঘড়ি দেখে নিয়ে বললেন–পাগলা সাধু। এ নিয়ে মাথা ঘামিয়ে লাভ নেই।

–কিন্তু আপনিই বা কেন ওঁকে লালুবাবুর কথা জিগ্যেস করলেন?

কর্নেল হাসলেন।–কোনও উদ্দেশ্য নিয়ে জিগ্যেস করিনি। দেখেই বুঝেছিলুম সাধুবাবাটির মাথায় গণ্ডগোল আছে। তাই আমারও একটু পাগলামি করার ইচ্ছে হল।

-নাঃ! আপনি যা-ই বলুন, সন্দেহজনক ব্যাপার।

কর্নেল পোড়া চুরুটটা জুতোর তলায় ঘষটে নিভিয়ে বললেন–ছেড়ে দাও। তুমি বলছিলে, হালদারমশাই আমার প্রতিপক্ষ। কথাটা ঠিক নয়।

-কেন?

কার্যত দুজনকে একই জায়গায় পৌঁছুতে হবে। জানতে হবে সন্দীপের প্রকৃত খুনি কে? তাই না?

একটু ভেবে নিয়ে বললুম–তা অবশ্য ঠিক।

–দুজনকেই লালুবাবু-র পরিচয় জানতে হবে।

কথাটা বলে কর্নেল উঠে দাঁড়ালেন। রাস্তার চড়াই থেকে একটা সাদা গাড়ি নেমে আসছিল। কর্নেল গাড়িটার দিকে তাকিয়ে বললেন–রায়সায়েবের গাড়ি এসে গেল। তবে এত দেরি হওয়ার কারণ বুঝতে পারছি না। বাঙালিটোলার শেষপ্রান্তে ওঁর বাড়ি। মিনিট কুড়িই যথেষ্ট ছিল। সেখানে প্রায় আধঘণ্টা লেগে গেল।

সাদা অ্যামবাসাড়ার গাড়িটা আমাদের কাছাকাছি এসে থামল। কর্নেল সম্ভাষণ করলেন-মর্নিং মি. রায়। আশা করি নির্বিঘ্নে আসতে পেরেছেন।

চালকের আসন থেকে কর্নেলের মতোই লম্বাচওড়া আর ফর্সা এক ভদ্রলোক মর্নিং কর্নেল সরকার বলে বেরিয়ে এলেন। তাঁর মাথায় এলোমেলো একরাশ সাদা চুল। মুখে জমকালো সাদা গোঁফ। পরনে প্যান্ট আর সোয়েটার। কর্নেলের করমর্দন করে তিনি বললেন–বিঘ্ন একটু ঘটেছিল। গাড়ি বের করে দেখি, পিছনে বাঁদিকের টায়ার পাংচার। গোবিন্দকে বাজারে পাঠিয়েছি। কাজেই টায়ারটা খুলে স্টেনে টায়ার লাগাতে বেশ খানিকটা সময় লেগে গেল।

ইনিই সেই রায়সায়েব। দাড়ি আর টাক থাকলে কর্নেল বলে ভুল হত। রায়সায়েব আমার দিকে হাত বাড়িয়ে বললেন–আপনি জয়ন্ত চৌধুরি, তা কর্নেল সায়েব না জানালেও জেনে গেছি। গত মার্চে কর্নেল সায়েব কথায়-কথায় আমার তরুণ সাংবাদিক বন্ধু বলে আপনার উল্লেখ করতেন। আসুন। আমার গাড়িটা পুরনো হলেও এখনকার রাস্তাঘাট নতুন। দিনে-দিনে ভৈরবগড়ের জাঁকজমক বাড়ছে।

কর্নেল বললেন–আমি রায়সায়েবের পাশে বসছি। জয়ন্ত, তুমি একা ব্যাকসিট ভোগ করো।

গাড়িটা পুরনো হলেও পাকাঁপোক্ত। পুরনো মডেলের অ্যামবাসাডার সম্পর্কে প্রচুর প্রশংসা শুনেছি। চড়াইয়ে উঠতে শুরু করার সময় কর্নেল বললেন–জয়ন্ত, একটু পরে রাস্তার ডান দিকে তিনকোনা নগ্ন কালো গ্রানাইট শিলার পাহাড় দেখতে পাবে। লোকে বলে, ত্রিশূল পাহাড়।

রায়সায়েব একটু হেসে বললেন–বাবা ভৈরবের ত্রিশূল। চৈত্রসংক্রান্তিতে বিশাল মেলা বসে।

কিছুক্ষণের মধ্যে চড়াইয়ের শেষে কিছুদূর সমতল। দুপাশে কিছু দোকানপাট এবং ভিড়। তার পর ডান দিকে তরঙ্গায়িত উষর প্রান্তরের মধ্যে সেই বিচিত্র গঠনের পাহাড়টা দেখতে পেলুম। রাস্তা তত বেশি দূরে নয়। পাহাড়ের কাছে পৌঁছনোর জন্য মসৃণ পিচরাস্তা আছে। সেখানে দোকানপাট আর ভিড় আরও বেশি। ওই রাস্তায় কিছু যানবাহনও যাতায়াত করছিল। বললুম, চৈত্রসংক্রান্তিতে মেলা বসতেই পারে। কিন্তু সারা বছর ত্রিশূল পাহাড়ের নীচে নিশ্চয় পুজোআচ্চা মানত ইত্যাদির ঘটা আছে।

রাস্তার উতরাইয়ে ভৈরবগড়ের জনপদ চোখে পড়ল। ইতস্তত টিলার গায়েও ছবির মতো সুন্দর বাড়ি। তার পর একটা নদীর ব্রিজ পেরিয়ে গেলুম। নদীতে একপাশে ক্ষীণ স্বচ্ছ জলস্রোত এখন সদ্যফোঁটা রৌদ্রে ঝিলমিল করছিল। নদীর বুকে ছোটো-বড়ো নানা আকারের পাথর বালিতে গেঁথে আছে। রায়সায়েব বললেন–জয়ন্তবাবু! ইনি আমাদের ভৈরবী। বর্ষায় ভৈরবীর রূপ দেখলে ভয় পাবেন। দুধারে বাড়িগুলো উঁচুতে–তা ছাড়া কোথাও-কোথাও নিরেট পাথরের। পাড়, সেটাই ভরসা।

ব্রিজ পেরিয়ে বাজার এলাকা। মফস্সল শহরে সবখানেই এরকম ভিড়ভাট্টা দেখেছি। কানে তালা ধরানো গাড়ির হর্ন, রিকশোর ভেঁপু, ঘোড়ার গাড়ির গাড়োয়ানের ঝগড়া। বাজার এলাকা পেরিয়ে গিয়ে রায়সায়েব বললেন–আজ এখানে হাটবার। কিন্তু স্টেশনে পৌঁছুতে বা সেখান থেকে আসতে এই ঝামেলা এড়ানোর উপায় নেই।

এই জনপদ যে প্রাচীন, তা ক্রমশ বোঝা যাচ্ছিল। চড়াইয়ে ওঠার সময় জিগ্যেস করলুম–এখানে ট্যুরিস্টদের ত্রিশূল পাহাড় ছাড়া আর কী দেখার আছে?

–অনেক কিছু। এখান থেকে সামান্য দূরে অনেকগুলো মাউন্ড ছিল। দশ-এগারো বছর আগে কেন্দ্রীয় পুরাতত্ত্ব বিভাগ থেকে সেই ঢিবি খুঁড়ে আড়াই থেকে তিনহাজার বছর আগের অনেক নিদর্শন পেয়েছিলেন। তার পর থেকেও মাঝে মাঝে এক্সক্যাভেশন হয়। অনেক প্রাচীন জিনিস পাওয়া গেছে। স্থানীয় মানুষের দাবিতে এখানে একটা মিউজিয়াম গড়া হয়েছে।

কর্নেল বললেন–জয়ন্ত! বাঙালিটোলার দক্ষিণে দুর্গাপুরগামী হাইওয়ে দিয়ে এগোলে বাঁদিকে টিহরি রিজার্ভ ফরেস্ট। তা ছাড়া নিরাপদে ঝর্নার ধারে পিকনিক করার জায়গা। ওখানে একটা জলা আছে। গত মার্চে আমি অনেক বিদেশি পাখিকে ক্যামেরাবন্দি করেছিলুম।

দুধারে একটু উঁচু জমির উপর পুরনো পাঁচিলঘেরা দোতলা বাড়ি, ভাঙাচোরা ফটক, ফটকের ভিতরে আগাছার জঙ্গল থেকে রংবেরঙের ফুলের উঁকিঝুঁকি দেখেই বুঝতে পেরেছিলুম, এটাই বাঙালিটোলা। গাড়ি ডাইনে বাঁক নিয়ে সংকীর্ণ পিচরাস্তায় এগিয়ে গেল। তার পর একটা পুরনো বাড়ি দেখতে পেলুম। গেটের উপর বুগানভিলিয়ার ঝাপি। একজন বলিষ্ঠ গড়নের যুবক কর্নেলের উদ্দেশে করজোড়ে প্রণাম করে গেট খুলে দিল। দুধারে ফুলের গাছ, ক্যাকটাস, ঝাউ এবং লনে নুড়ি বিছানো। গাড়িবারান্দার তলায় গিয়ে দাঁড়াল। রায়সায়েব নেমে সেই যুবকটিকে জিগ্যেস করলেন–গোবিন্দ! তোর কুমুদিদিদির সঙ্গে দেখা হয়েছে?

গোবিন্দ বলল-না। কুমুদিদির পিসিমা দরজার সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। আমাকে দেখে জিগ্যেস করছিলেন, দুর্গাপুরের বাস বড়োরাস্তার মোড়ে কখন পৌঁছয় জানিস? আমি বললুম, দশটা-সাড়ে দশটার আগে নয়।

–ঠিক আছে। আসুন আপনারা! গোবিন্দ, ব্যাগেজ তুই নিয়ে আয়। বলে তিনি হঠাৎ হাঁক দিলেন–চিমনি! চিমনি!

সাড়াটা এল দোতলা থেকে। আমি এখানে আছি!

ঘরে ঢুকে দেখলুম, সাবেক আমলের বসার ঘর। পুরনো আসবাব। দেয়ালে পেন্টিং। উপরে কাঠের সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে একটু ঝুঁকে কালো রঙের একজন মধ্যবয়সিনী হাসিমুখে বলল–কর্নেল সায়েব আসতে পারেন শুনেছিলুম। তার পর সায়েব আজ ঘর থেকে বেরিয়ে বললেন, ও চিমনি! তোর কফির ভক্ত সেই কর্নের্লসায়েবকে স্টেশনে আনতে যাচ্ছি।

আমরা দোতলার চওড়া বারান্দায় পৌঁছুলে সে কর্নেলের পায়ে প্রণাম করতে গেল। কর্নেল চোখ কটমটিয়ে বললেন–চিমনির কফি আগে। চিমনির পেন্নাম পরে।

চিমনি আমাকে করজোড়ে নমস্কার করল। রায়সায়েব বললেন–ওর গায়ের রং কালো বলে ওর বাবা প্রহ্লাদ চিমনি বলে ডাকত। প্রহ্লাদকে আমি বুড়ো বলতুম। সে ছিল আমার বাবার দক্ষিণহস্ত। চিমনি! ইনি খবরের কাগজের লোক। জয়ন্তবাবু। বেমক্কা কিছু গণ্ডগোল বাধালে তোর নামে কাগজে খবর ছাপা হয়ে যাবে।

চিমনি বলে গেল–গণ্ডগোল বাধাব বৈকি! রাত দুপুরে আমার ঘরের জানালায় আবার ভূত এসে বদমাইসি করলে লাঠি দিয়ে গুঁতো মেরে নাকের গর্ত আরও চওড়া করে দেব না?

কর্নেল আস্তে আস্তে বললেন–গতরাতে ভূত এসেছিল নাকি মি. রায়?

রায়সায়েব হাসলেন–হ্যাঁ। গোবিন্দ রামদা হাতে বেরিয়ে হইচই বাধিয়েছিল। গোবিন্দ থাকে পাশের ঘরে। অগত্যা আমি ওদের সাহস দিতে এক রাউন্ড ব্ল্যাংক ফায়ার করেছিলুম।

দোতলায় দক্ষিণের শেষ ঘরটা গেস্টহাউস। পূর্বদিকে পাঁচিলের ধারে গাছের সারি। ভূতেরা গাছের ডাল বেয়ে বাড়িতে ঢুকতেই পারে। পূর্বে গাছপালার ফাঁকে একটা পুকুর আর দক্ষিণে আমবাগান দেখা যাচ্ছিল। মি. রায় বললেন–চিমনির হাতের কাজের প্রশংসা করে গিয়েছিল কর্নেল সায়েব। এবার জয়ন্তবাবু লক্ষ করুন, কেমন ছিমছাম সাজিয়ে রেখেছে গেস্টরুম।

বললুম–বাঃ! ফ্লাওয়ারভাসে এমন করে ফুল সাজানো দেখে আমাকে চিমনিদির সৌন্দর্যবোধের প্রশংসা করতে হচ্ছে।

গোবিন্দ কোণের একটা টুলে কর্নেলের ব্যাগটা রেখে অন্যকোণের টুলে আমার ব্যাগ দুটো রাখল। মি. রায় বললেন–গোবিন্দ! তোর চিমনিমাসিকে একটু সাহায্য করগে।

কর্নেল পিঠে আঁটা প্রসিদ্ধ কিটব্যাগটি খুলে খাটের পিছনে রাখলেন। তার পর গলায় ঝোলানো বাইনোকুলার আর ক্যামেরা সোফার সেন্টার টেবিলে রেখে বললেন–চিমনিকে গতরাতের ভূতটা কি কিছু বলেছিল?

সোফায় বসে রায়সায়েব বাঁকা হেসে বললেন–এটাই আমার মাথা খারাপ করে দিয়েছে। কুমু–মানে কমলিকাকে কেউ লালুবাবুকে ফেরত চেয়েছে উড়োচিঠিতে। আর গতরাতে চিমনি বলল, সে স্পষ্ট শুনেছে, নাকিস্বরে ভূতটা তাকে বলছে, লালুবাবুকে ফেরত দে। নইলে তোর মুণ্ডু কড়মড়িয়ে খাব। চিমনি মিথ্যা বলে না।

আমি তখনও বসিনি। জানালা দিয়ে বাইরের পরিবেশ লক্ষ করছিলুম। এবার দক্ষিণের দরজার পর্দা তুলে ব্যালকনিতে গেলুম। তার পর নীচে একটা টেনিস কোর্ট দেখতে পেলুম। বললুম–মি. রায়ও দেখছি কমলিকা সিংহের মতো টেনিস খেলেন?

কর্নেল তক্ষুনি উঠে এসে ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে বললেন–কী আশ্চর্য! আমি জানতুম না মি. রায়ও টেনিস খেলেন।

রায়সায়েব হাসলেন।–এই বয়সে টেনিস খেলার পথ বিপজ্জনক। আসলে টেনিস কোর্টটা কদিন আগে স্পোর্টিং ক্লাবের লোকেদের দিয়ে তৈরি করিয়েছি। উড়োচিঠি পাওয়ার পর কুমু স্বভাবত একটু ভড়কে গিয়েছিল। আমাকে বলেছিল, জেঠুর বাড়ির এদিকটায় দিব্যি একটা টেনিস কোর্ট তৈরি করা যায়। অগত্যা ওর খেলার প্র্যাকটিস নির্বিঘ্নে বজায় রাখতে এই আয়োজন।

কর্নেল জিগ্যেস করলেন–কমলিকার জুটি কে তা হলে?

–এক বাঙালি ব্যবসায়ী আছেন এখানে। মাখনলাল সাহা। তার মেয়ে মল্লিকা কুমুর জুটি। স্কুলে ওরা পরস্পর ক্লাসফ্রেন্ড ছিল। কুমুর জীবনের সঙ্গে ওর কিছুটা মিল আছে। মাখনবাবু কলেজে পড়ার সময় জোর করে পাটনায় মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলেন। জামাই বিয়ের দু বছর পরে ক্যান্সারে মারা যায়। মাখনবাবু পরিবার রক্ষণশীল। কিন্তু মল্লিকার দাদা সুরঞ্জন আধুনিক মনের যুবক। সে আমাদের স্পোর্টিং ক্লাবের উজ্জ্বল রত্ন। ফুটবলে ওর খ্যাতি আছে। বোনকে আবার খেলার জগতে ফিরিয়ে আনে। কল্পনা করতে পারবেন না, জিনস-টিশার্ট পরে দাদার সঙ্গে সে ক্লাবে আসে। সুরঞ্জন সম্প্রতি মারুতি গাড়ি কিনেছে। ওর দাদা নিরঞ্জন অবশ্য বাবার লাইনে আছে। ভাইয়ের আব্দারে গাড়ির টাকা জোগাতে বাধ্য হয়েছে। রায়সায়েব হেসে উঠলেন।-মল্লিকা বলে কী জানেন? বাবা আর দাদাকে ব্যবসার ব্যাপারে ব্ল্যাকমেইল করে সুরঞ্জন মারুতি আদায় করে ছেড়েছে।

চিমনির হাঁকডাক শোনা গেল পিছনে।–আর কতক্ষণ গল্প করবে গো! কর্নেলবাবার কফির টেস্ট যে বদলে যাবে!

আমরা ব্যালকনি থেকে ঘরে ঢুকলুম।..

.

০৬.

কফি শেষ করে চুরুট ধরিয়ে কর্নেল বললেন–কমলিকাকে কেউ হুমকি দিয়ে চিঠি লিখে লালুবাবু-কে ফেরত চাইছে। আর গত রাতে কেউ চিমনিকে ভুতুড়ে গলায়– লালুবাবু-কে ফেরত চেয়েছে। এ নিয়ে আপনি নিশ্চয় কিছু ভেবেছেন মি. রায়?

রায়সাহেব একটু হাসলেন।ভেবেছি। আমার ধারণা, লোকটা যে-ই হোক, সে জানে আমি কুমুর গার্জেন। তাই চিমনির মাধ্যমে আমাকেই হুমকি দিতে এসেছিল। আমি দোতলায় শুই। আমার জানলার কাছে তার পৌঁছুনো কঠিন। তাই এই ভায়া মিডিয়ার ব্যাপার।

-কিন্তু সে কুমুকে উড়োচিঠি যেমন লিখেছে, আপনাকেও লিখতে পারত। তা না করে রাতবিরেতে আপনার বাড়ি ঢোকার রিস্ক নিল কেন?

রায়সায়েব কর্নেলের দিকে নিষ্পলক চোখে তাকিয়ে ছিলেন। আস্তে বললেন–তাই তো! এ কথাটা আমার মাথায় আসেনি। আপনি কি বলতে চান সে তা হলে চিমনিকেই হুমকি দিতে এসেছিল?

–আমার তা-ই মনে হচ্ছে।

–কিন্তু চিমনি কুমুর মতোই লালুবাবু-কে ফেরত দেওয়ার অর্থ বোঝে না।

 –ওকে জিগ্যেস করেছিলেন নিশ্চয়?

-হ্যাঁ। চিমনিও খুব অবাক হয়ে গেছে। ও নিজের ভঙ্গিতে বলছিল, লালুবাবু কি ওর আগের জন্মের স্বামী যে তাকে আঁচলে বেঁধে লুকিয়ে রাখবে? বাপের জন্মে তাকে ও চেনে না।

আমি স্টেশনের কাছে বটতলার সেই আধপাগলা সাধুর কথাটা বলার জন্য উসখুস করছিলুম। এবার কর্নেল নিজেই কথাটা তুললেন।–আচ্ছা মি. রায়, স্টেশনের বটতলায় এক সাধুবাবাকে দেখে এলুম। আপনি কি কখনও ওঁকে দেখেছেন?

রায়সায়েব বললেন–দেখেছি মানে? ওকে কে না চেনে? ওর কথাবার্তা শুনলে বাঙালি মনে হয় না। কিন্তু জটাপাগলা খাঁটি বাঙালি।

অবাক হয়ে বললুম–বাঙালি? বলেন কী!

–হ্যাঁ। ওর লাইফটা ট্রাজিক। ভৈরবগড়ের জমিদারবংশের হরগোপাল মজুমদারের বড় ছেলে জয়গোপাল–সন্দীপের বাবা। আর ছোটোছেলে রামগোপাল। জন্মাবধি বাঁ পায়ের পাতা একটু ওল্টানো। তাই খুঁড়িয়ে হাঁটত। ছোটোবেলা থেকেই ছিটগ্রস্ত ছিল। পরে পাগলামির লক্ষণ দেখা দেয়। ঠাকুরবাড়িতে দিনরাত পড়ে থাকত। তার পর জটা গজাতে শুরু করেছিল। সেই থেকে জটাপাগলা নাম হয়ে যায়।

কর্নেল বললেন–জয়গোপালবাবু কি ছোটো ভাইয়ের ব্যাপারে উদাসীন ছিলেন?

-না। আসলে রামগোপাল বাড়ির সবাইকে উত্ত্যক্ত করত। খেতে দিলে খাবার ছুঁড়ে ফেলত। পাগলরা যেমন হয়। তার পর প্রায় পঁচিশ বছরের জন্য জটাপাগলা নিখোঁজ হয়ে যায়। বছর তিনেক আগে একেবারে সাধুসন্ন্যাসী হয়ে ফিরে আসে। চেহারা তত কিছু বদলায়নি। আবার ঠাকুরবাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিল সে। কিন্তু সন্দীপ প্রায়ই মাতাল হয়ে এসে ওর জটা টানাটানি করত। ত্রিশূল কেড়ে নিয়ে সন্দীপ ওদের পুকুরে ফেলে দিয়েছিল। কমণ্ডলুটাও কেড়ে নিয়ে কোথায় ফেলে দিয়েছিল কে জানে! রাতের পর রাত সন্দীপের অত্যাচারে জটাপাগলা অভিশাপ দিয়ে চলে গিয়েছিল। কিছুদিন থেকে তাকে স্টেশনের বটতলায় দেখা যাচ্ছে।

কর্নেল চোখ বুজে শুনছিলেন। চোখ খুলে সোজা হয়ে বসে বললেন–এবার আপনি আমার কথা শুনলে অবাক হবেন। ওঁর কাছাকাছি এসে আমার কানে এল চোখ বুজে বিড়বিড় করে যেন জপমন্ত্র পাঠ করার মতো কী আওড়াচ্ছেন। জয়ন্ত যে কান করেনি, তা পরের ঘটনায় স্পষ্ট হল।

বললুম–আপনার মিলিটারি কান!

রায়সায়েব হাসলেন।-হ্যাঁ। আমি কর্নেল সায়েবের শ্রবণক্ষমতা জঙ্গলে গিয়ে দেখেছি। তো কী জপছিল জটাপাগলা?

কর্নেল হাসলেন না।–বিড়বিড় করে বলছেন, লালুবাবু, লালুবাবু, লালুবাবু।

রায়সায়েব ও আমি চমকে উঠেছিলাম। একগলায় বললুম–লালুবাবু?

-হ্যাঁ। সেই জন্যেই একটু পরে জিগ্যেস করলুম হিন্দিতে, লালুবাবুকে আপনি চেনেন? অমনই সাধুবাবা আঁতকে উঠে খোঁড়া পায়ে টাট্ট ঘোড়ার মতো উল্টোদিকে উধাও হয়ে গেলেন।

রায়সায়েব বললেন–তা হলে লালুবাবু ব্যাপারটা ভেরি ভেরি মিস্টিরিয়াস তো বটেই।

রায়সায়েব উঠে দাঁড়িয়ে বললেন–একেবারে ভুলে গেছি। গাড়ির পাংচার হওয়া টায়ারটা মেরামত করা দরকার। আমি গোবিন্দকে বলে আসি। সে গাড়ি নিয়ে হিন্দুস্থান অটোমোবাইল সার্ভিসে চলে যাক। বাই দা বাই, আপনারা ব্রেকফাস্টে কখন বসতে চান?

কর্নেল বললেন–দশটায়। কিছুক্ষণ জিরিয়ে নিই।

 রায়সায়েব চলে যাওয়ার পর কর্নেলের নির্দেশে বাথরুমে প্রাতঃকৃত্য সেরে। এলুম। তার পর কর্নেল বাথরুমে গেলেন। পোশাক বদলাতে ইচ্ছে করছিল না। ট্রেনে আমি কর্নেলের মতো ঘুমোতে পারি না। একরাশ ক্লান্তি এখন আমাকে বিছানায় টানছিল। ঘরের ভিতর মনোরম উষ্ণতা। বিছানায় সবে লম্বা হয়েছি, কর্নেল বাথরুম থেকে বেরিয়ে এসে বললেন–তুমি পোশাক বদলাওনি। ভালো করেছ। আমিও বদলাচ্ছি না। কারণ ব্রেকফাস্টের পরই বেরুতে হবে।

উঠে বসে বললুম–কী সর্বনাশ! রায়সায়েবের গাড়ি তো আপাতত পাওয়া যাচ্ছে না। হেঁটে চলার ক্ষমতা বজ্জাত ট্রেনটা কেড়ে নিয়েছে।

কর্নেল মিটিমিটি হেসে বললেন–লালুবাবুকে মিস করবে তা হলে!

তার মানে?

–মানে এখন বলব না।

–ঠিক আছে। কিন্তু পায়ে হেঁটে যাবেন কোথায়?

 কর্নেল চোখ কটমটিয়ে বললেন–বেশি কথা বললে আয়ু ক্ষয় হয়।….

দশটায় দোতলার ডাইনিং রুমে ব্রেকফাস্টের পর কর্নেল অভ্যাসমতো আরেক পেয়ালা কফি খেলেন। তার পর বললেন–মি. রায়! একটা টেলিফোন করতে চাই।

রায়সায়েব বললেন–মুখে বলার কী আছে? টেলিফোন যেখানে দেখে গিয়েছিলেন, সেখানেই আছে। দরজা খোলা। ফোন করে আসুন।

কর্নেল উঠে গেলেন। রায়সায়েব এবার আমাকে ভৈরবগড়ের ইতিহাস শোনাতে থাকলেন। এই ইতিহাস আমি কর্নেলের সঙ্গে যেখানেই গেছি, সেখানেই শুনেছি। গুপ্তযুগ থেকে মোগল পাঠান যুগ হয়ে ব্রিটিশযুগ পর্যন্ত একই কাঠামো সর্বত্র। হুঁ দিয়ে যাচ্ছিলুম। দু-একটা প্রশ্নও করছিলুম। তবে সর্বত্র যেমন ইতিহাস এসে ঠেকে যায় স্থানীয় রাজা জমিদারের বংশধরদের কাছে, এখানেও তার অন্যথা হল না। জয়গোপাল মজুমদারে এসে পৌঁছুল। অবাক হওয়ার ভান করে বললুম–কিন্তু ওঁদের পদবি মজুমদার কেন?

রায়সায়েব হেসে উঠলেন।–বাঃ! আপনি সাংবাদিক। প্রশ্নে রাজনীতিবিদদের জেরবার করা আপনাদের প্রকৃত তথ্য আদায়ের রীতি। যাই হোক, আপনি ঠিক প্রশ্নই করেছেন। আসলে আমার নিজের মুখে বংশগৌরবের কথা বলতে বাধে। যে ইতিহাস শোনাচ্ছিলুম, উনিশ শতকে তার একটা বাঁক আছে। আমার ঠাকুর্দার ঠাকুর্দা ছিলেন রায়রায়ান খেতাব পাওয়া এবং নবাবি আমলের জমিদার।

–ভৈরবগড়ের?

হ্যাঁ। আর জয়গোপালের পূর্বপুরুষ ছিলেন জমিদারির হিসাবরক্ষক। আমি শুনেছি, মজুমদার আরবি-ফারসি শব্দ মাজমুয়াদারের বাংলা রূপ। মাজমুয়াদার মশাইয়ের বিলাসিতায় জমিদারি নিলামে উঠেছিল। জয়গোপালের পূর্বপুরুষ সেই জমিদারি কিনে নেন।

এই সময় কর্নেল এসে গেলেন। রায়সায়েব জিগ্যেস করলেন-লাইন পেয়েছিলেন?

কর্নেল বললেন–হ্যাঁ। আমার এক পরিচিত ভদ্রলোক এখানে বেড়াতে আসার কথা ছিল। তিনি ট্যুরিস্ট লজ বুক করেছিলেন। দৈবাৎ পেয়ে গেছেন। এখন নাকি ট্যুরিস্টদের মরসুম।

বুঝলুম, গোয়েন্দাপ্রবর ট্যুরিস্ট লজে ঠাই পেয়েছেন। পাছে মুখ ফসকে আমি কিছু বলে উঠি, কর্নেল দ্রুত আমার দিকে ঘুরে বললেন–জয়ন্ত! বারান্দায় আমার কানে এল, রায়সায়েব তোমাকে সম্ভবত ভৈরবগড়ের ইতিহাস শোনাচ্ছেন। তোমাকে কি উনি বলেছেন, ওঁর পূর্বপুরুষই ছিলেন এই ভৈরবগড়ের প্রতিষ্ঠাতা এবং রাজা খেতাবধারী বড়ো জমিদার?

বললুম–বলেছেন।

রায়সায়েব বললেন–বলতুম না। কিন্তু জয়ন্তবাবু একজন সাংবাদিক। প্রশ্নটা ঠিকই তুলেছিলেন। স্থানীয় জমিদারের বংশধরের পদবি কেন মজুমদার?

কর্নেল বললেন–জয়ন্তকে কি বলেছেন আপনার পূর্বপুরুষের প্রাসাদের ধ্বংসাবশেষ খুঁড়ে পুরাতত্ত্ব বিভাগ কত ইউরোপীয় শিল্পকলার নিদর্শন পেয়েছেন?

বলিনি। ওঁকে এখানকার মিউজিয়াম দেখাতে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছে আছে। তখন বলব।

কর্নেল বললেন–তার আগে একবার জয়ন্তকে আর আমাকে জয়গোপালবাবুর বাড়ি নিয়ে চলুন। আপনার সঙ্গে তো ওঁর বন্ধুত্ব আছে।

রায়সায়েব উঠে দাঁড়িয়ে বললেন–একমাত্র ছেলের মৃত্যুতে বেচারা খুবই মুষড়ে পড়েছে। আগে টেলিফোনে অ্যাপয়েন্টমেন্ট করে নিই। হা–একটা কথা। আপনার অন্য পরিচয় দেওয়া ঠিক হবে না। উনি হয় তো গত মার্চে আপনার এখানে আসার কথা কারও কাছে শুনেও থাকতে পারেন। তা হলে ভালোই হয়। আপনি এক কর্নেলসায়েব এবং আমার বন্ধু, এটুকু বলাই যথেষ্ট হবে না। জয়গোপাল একটু সন্দিগ্ধ চরিত্রের লোক। ওকে বলতে হবে

কর্নেল তাকে থামিয়ে দিয়ে বললেন–জয়গোপালবাবুর কলকাতার বেয়াই অর্থাৎ সন্দীপের শ্বশুর প্রবোধ সিনহা আমার বন্ধু। মি. সিনহার কার্ড আমার কাছে আছে। ওঁকে বলবেন, ওঁর বেয়াইয়ের মুখে সন্দীপের মৃত্যুর শোচনীয় খবর আমি পেয়েছি। এখানে বেড়াতে এসে তাই ওঁর সঙ্গে দেখা করে গেলে প্রবোধ সিনহা খুশিই হবেন। তবে আমার নামের সঙ্গে নেচারোলজিস্ট কথাটা জুড়ে দেবেন। আমার নেমকার্ড দেব ওঁকে। জয়ন্তের সাংবাদিক পরিচয়ও দেবেন।…….

রায়সাহেব তার ঘরে টেলিফোন করতে গেলেন। আমরা বারান্দায় দাঁড়িয়ে রইলুম। একটু পরে রায়সায়েব হাসতে হাসতে বেরিয়ে এলেন। তিনি বললেন–কী আশ্চর্য ব্যাপার! জয়গোপাল আপনার পরিচয় জানে। সে নাকি আপনার আবির্ভাবের প্রতীক্ষায় বসে আছে।

কর্নেল বললেন–বুঝে গেছি! প্রবোধ সিনহা কলকাতা থেকে ফোন করে তার বেয়াইকে আমার কথা জানিয়ে দিয়েছেন।

রায়সায়েব বললেন–আমার ধারণা, এতে আপনার সুবিধেই হবে। বলছিলুম না? জয়গোপাল সন্দিগ্ধ চরিত্রের লোক। বেয়াইয়ের কাছে আপনার পরিচয় পেয়ে তার সন্দেহবাতিক ঘুচে গেছে। আপনারা তৈরি হয়ে নিন। আমি পোশাক বদলে আসি।

কিছুক্ষণের মধ্যে আমরা বেরিয়ে পড়লুম। চিমনি এসে গেট বন্ধ করে দিল। সংকীর্ণ এবড়ো-খেবড়ো পিচরাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে লক্ষ করলুম, রায়সায়েবের বাড়িটা একেবারে একলা। কাছাকাছি কোনও বাড়ি নেই। একধারে আমবাগান, অন্যধারে পোড় জঙ্গলটাকা জমি।

বড়োরাস্তার মুখে দুধারে একতলা-দোতলা পুরনো বাড়ি। লোকজন কদাচিৎ চোখে পড়ছিল। আমরা বড়োরাস্তায় সবে নেমেছি, পিছনে কেউ ডাকল-জেঠু! জেঠু!

ঘুরে দেখি, কমলিকা আসছে। আমরা দাঁড়িয়ে গেলুম। রায়সায়েব বললেন–কুমু কি পায়ে হেঁটে দুর্গাপুর থেকে আসছিস?

কমলিকা একটু হেসে বলল–রাস্তায় বাস বিগড়ে এক ঘণ্টা লেট। হাইওয়ের মোড়ে নেমে রিকশো-টিকশো কিছু পেলুম না। হাঁটতে হাঁটতে চলে এলুম।

বলে সে কর্নেল ও আমাকে করজোড়ে নমস্কার করল। কর্নেল বললেন–তুমি আমাকে দেখে অবাক হয়ো না। আমি গত রাতের ট্রেনেই চলে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলুম। রায়সায়েবের চিঠি বলে কথা! যাই হোক, বাড়ি পৌঁছে আগে তোমার লেটারবক্সের খবর নাও। ততক্ষণ আমরা তোমার বাড়ির সামনে অপেক্ষা করব।

কয়েকটা বাড়ির পরই কমলিকাদের একতলা বাড়ি। অন্যান্য বাড়ির তুলনায় ছিমছাম পরিচ্ছন্ন দেখাচ্ছিল। রাস্তাটা নীচে। বাড়িটা উঁচু জমিতে। সামনে খানিকটা ঘাসে ঢাকা জমির উপর একটা প্রকাণ্ড নিমগাছ। কমলিকা তাদের বাড়ি যেতে অনুরোধ করল। কর্নেল বললেন–এখন একটা অ্যাপয়েন্টমেন্ট রাখতে যাচ্ছি। ফেরার সময় একটু বসে যাব। তুমি আগে লেটারবক্স দেখে এসো।

রায়সায়েব গম্ভীর মুখে বললেন–একবার ভেবেছিলুম, ক্লাবের ছেলেদের কথাটা জানাব। তাদের পালা করে কুমুর বাড়িতে বা কাছাকাছি কোথাও ওত পেতে থাকতে বলব। কিন্তু পরে মনে হল, ব্যাপারটা জানাজানি হয়ে যাবে। তা ছাড়া কুমুরও বিপদ হতে পারে। সব সময় তো তার জন্য বডিগার্ড বহাল করা যায় না।

কমলিকা শিগগির ফিরে এল। বলল–নাঃ! আজ কোনও উড়োচিঠি নেই।

কর্নেল বললেন–না থাকারই কথা। আমার থিয়োরি ভুল হতেই পারে।

-আপনারা কোথায় যাচ্ছেন?

রায়সায়েব হাসতে হাসতে বললেন–পরে জানতে পারবি। স্নান করে খেয়েদেয়ে, ঘুমিয়ে নে। তোকে একেবারে কাকতাড়ুয়া দেখাচ্ছে। আয়নায় নিজের চেহারা দেখে নিস।

আমরা একটু করে উতরাইয়ে নেমে যাচ্ছিলুম। রাস্তার বাঁকের মুখে গিয়ে রায়সায়েব ডাইনে পায়ে চলা রাস্তায় ঘুরলেন। এবার চড়াই। মাঝে মাঝে বাউন্ডারি পাঁচিলে ঘেরা দোতলা জরাজীর্ণ বাড়ি। কোথায় পোড়ো ভিটের বুকে ঘন জঙ্গল। পাখির ডাকে কান ঝালাপালা হচ্ছিল। কর্নেল হঠাৎ থেমে বাইনোকুলারে পাখি দেখে নিচ্ছিলেন। রায়সাহেব বললেন–জয়গোপালের বাড়ি যেতে এটাই শর্টকাট। কিন্তু কল্পনা করতে পারবেন না, জয়ন্তবাবু, ভৈরবগড়ের বাঙালিটোলার বড়োলোকেরা এখানেই বাস করতেন। এই অংশটা কবে বেদখল হয়ে গেছে। এক মারোয়াড়ি শিল্পপতি জলের দরে কেয়ারটেকারদের কাছে সব জমি কিনে নিয়েছেন। কীসের যেন কারখানা হবে।

লাল মাটির পায়ে চলা পথ শেষ হলে দেখি নীচেই চওড়া মসৃণ পিচের রাস্তা লোকজন ও যানবাহন যাতায়াত করছে। রাস্তা পেরিয়ে গিয়ে ক্রমশ একটু উঁচু হয়ে চলা সংকীর্ণ একটা রাস্তায় পা দিয়ে রায়সায়েব বললেন–সামনে জমিদার বাড়ি। জয়গোপাল এখনও জাঁক কিছুটা বজায় রেখেছে।

দেখলুম গেটের দুমাথায় দুটো সিংহ আর তাদের যথেচ্ছ জড়িয়ে ধরে আছে উজ্জ্বল লাল বুগানভেলিয়া। দারোয়ান সেলাম দিয়ে গেটের একটা অংশ খুলে দিল। দোতলা বাড়ির গাড়িবারান্দার ছাদে একজন অমায়িক চেহারার ভদ্রলোক চেয়ারে বসে ছিলেন। হাতে একটা ছড়ি। লম্বাটে গড়ন। মুখে খোঁচা খোঁচা গোঁফদাড়ি আছে। পরনে পাজামা-পাঞ্জাবি।

আমাদের দেখেই তিনি উঠে দাঁড়িয়ে ছিলেন। কাছাকাছি গেলে তিনি করজোড়ে নমস্কার করে বললেন–স্বাগত! সুস্বাগত!

রায়সায়েব বললেন–তখন তো কর্নেল সায়েবের কথা শুনে মনে হল, তোমার কতকালের চেনা! এবার বলো তো, কোনজন কর্নেল সায়েব?

জয়গোপালবাবু বললেন–ভাই রাজু! মনে শান্তি আর গায়ে আগের মতো শক্তি থাকলে এখান থেকে লাফ দিয়ে কর্নেলসায়েবের সামনে পড়তুম।

বলে তিনি হাঁক দিলেন–কেতো! সায়েবদের উপরে নিয়ে আয়।

 নিচের বারান্দায় থামের আড়াল থেকে বলিষ্ঠগড়নের একটা লোক বেরিয়ে এসে আমাদের প্রণাম করে বলল–আসুন স্যার।

লোকটা থামের আড়ালে দাঁড়িয়ে ছিল এবং হঠাৎ সামনে এল, শুধু এজন্য নয়। তার চোখ দুটো দেখে কেন যেন অস্বস্তি হচ্ছিল। গায়ে নীল স্পোর্টিং গেঞ্জি, পরনে জিনসের প্যান্ট–এই লোকটাকে জয়গোপালবাবুর বাড়ির রক্ষক বলে অনুমান করলুম। কিন্তু এমন একজন চিতাবাঘের মতো রক্ষক থাকতেও সন্দীপ কী ভাবে খুন হল, এটাই প্রশ্ন।

দোতলার বারান্দায় কয়েকটা বেতের চেয়ার ও টেবিল ছিল। সম্ভবত আমাদের বসার জন্য এই আয়োজন। জয়গোপালবাবু কর্নেলের দুহাত ধরে হঠাৎ ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠলেন।

রায়সায়েব তাকে শান্ত করার জন্য বললেন–জয়! কর্নেল সায়েব তোমার ছেলের প্রকৃত খুনিকে খুঁজে বের না করে কলকাতা ফিরবেন না। খুনি বলে যাকে পুলিশ কলকাতা থেকে ধরে এনেছে, সে খুনি বলে আমার মনে হয় না।

কর্নেলও জয়গোপালবাবুকে সান্ত্বনা দিয়ে বললেন–আমার যথাসাধ্য চেষ্টা আমি করব। বিশেষ করে প্রবোধ সিংহ আমার বন্ধু মানুষ।

আমরা বসার পর জয়গোপালবাবু গলা সাফ করে রুমালে চোখ মুছে বললেন–বাবা কেতো! কর্নেল সায়েব কফি ছাড়া আর কিছু খান না। তুই নরু ঠাকুরকে বলে আয়। দেরি হয় না যেন।

কেতো চলে গেল। তার পর কর্নেল চাপাস্বরে বললেন–আগে একটা প্রশ্ন করতে চাই। আশা করি, সঠিক জবাব পাব। আর সঠিক জবাব পেলে আমার কাজ সহজ হবে।

–বলুন, কী আপনার প্রশ্ন?

 –আপনি লালুবাবুকে চেনেন?

জয়গোপালবাবু প্রথমে চমকে উঠেছিলেন। কিন্তু একটু চুপ করে থাকার পর আস্তে বললেন–হ্যাঁ। চিনি।

.

০৭.

কর্নেল যে হঠাৎ এমন করে জয়গোপালবাবুকে প্রশ্নটা করবেন, তা কল্পনাও করিনি। লক্ষ করলুম, রায়সায়েব ভুরু কুঁচকে জয়গোপালবাবুর দিকে তাকিয়ে থাকার পর কর্নেলের দিকে তীক্ষ্ণদৃষ্টিতে তাকালেন। তারপর তিনি হেসে উঠলেন।–লালুবাবুটা কে হে জয়?

জয়গোপালবাবু বললেন–কর্নেল সায়েবকে জিগ্যেস করো।

রায়সায়েব কর্নেলের দিকে আবার তীক্ষ্ণদৃষ্টে তাকিয়ে বললেন–কর্নেল আমাকেও জিগ্যেস করেছিলেন। আমি কোনো লালুবাবুকে চিনি না। এখন তুমি বলছ, তাকে চেনো।  

তার আগে কর্নেল সায়েবকে তা হলে জিগ্যেস করি, তিনি কেমন করে লালুবাবুর কথা জানলেন?

কর্নেল নির্বিকার মুখে বললেন–আপনার বেয়াই প্রবোধবাবু আমাকে বলেছেন, কে এক লালুবাবুই তাঁর জামাইয়ের মৃত্যুর কারণ।

–প্রবোধবাবু বলেছেন এ কথা?

–হ্যাঁ। আমাকে তিনি বলেছেন, সেই লালুবাবুর প্ররোচনায় তার এক ব্যবসায়ী বন্ধু অজয় সাধুখাঁর ছেলে অশোক তার জামাইকে খুন করেছে। তাই তাকে পুলিশ কলকাতা থেকে গ্রেফতার করে এনেছে। আর একটা কথা, আপনার বউমা সুমিত্রা নাকি অশোককে এখানে বেড়াতে আসতে লিখেছিল। পুলিশ তদন্ত করে কিছু পারিপার্শ্বিক সাক্ষ্য পেয়েছে অশোকের বিরুদ্ধে। ওদিকে আপনার বউমাও পুলিশকে যা বলেছে, তাতে নাকি অশোক এই কেসে সরাসরি যুক্ত। এ কথা প্রবোধবাবু বলেছেন।

এই সময় সেই কেতো আর একজন টিকি-পৈতেধারী রোগাটে গড়নের লোক ট্রেতে কফি নিয়ে এলেন। বুঝলুম, এই ব্রাহ্মণ ভদ্রলোকই বাড়ির পাঁচক নরুঠাকুর। তিনি চলে যাওয়ার পর জয়গোপালবাবু বললেন–কেতো! ঠাকুরবাড়ির চারপাশটা একবার দেখে আয়। পাগলটা কদিন থেকে ওখানে এসে ঘোরাঘুরি করছে। ওকে সেদিনকার মতো ছুরি-টুরি দেখালেই পালিয়ে যাবে।

কেতো চলে গেল। রায়সায়েব বললেন–পাগলা মানে জটাপাগলা?

–আবার কে? তুমি তো জানো, পৈতৃক প্রপার্টির নায্য শেয়ার থেকে ওকে বঞ্চিত করিনি। কিন্তু সবটাই একে-ওকে-তাকে বেচে হিমালয়ের উপর বসে ধ্যান করতে গিয়েছিল। কর্নেল সায়েব! আপনারা কফি খান। রাজু! কফি খাও!

রায়সায়েব বললেন–তুমি খাবে না?

–নাঃ! তোমরা খাও।

 কর্নেল কফিতে চুমুক দিয়ে বললেন–জয়গোপালবাবু! ওই পাগল সাধুকে আমি রেলস্টেশনের বটতলায় দেখেছি। মি. রায় আমাকে তার কথা বলেছেন। তিনি নাকি আপনার ছোটোভাই রামগোপাল?

-হ্যাঁ। কিন্তু এখন সে আমার শত্রু।

–সে কী! কেন?

–খুলেই বলি। প্রায় পঁচিশ বছর পরে ফিরে এলেও তাকে আমাদের কারও চিনতে ভুল হয়নি। ঠাকুরবাড়িতে একটা ঘরে থাকতে দিয়েছিলুম। কিন্তু প্রতি রাত্রে সে চিৎকার করে আমাকে অকথ্য গালাগালি করত। সন্দীপ প্রথম-প্রথম সহ্য করত। শেষে ঠাকুরবাড়িতে গিয়ে তাকে থামানোর চেষ্টা করত। কিন্তু বদ্ধ পাগল। সন্দীপকেই কুৎসিত গাল দিত। সন্দীপ তখন তার ওপর হাত ওঠাত। সন্দীপ খুন হয়েছিল গত সোমবার সন্ধ্যায়। আগের দিন রবিবার রাতে রামগোপাল চিৎকার করে বউমার নামে খিস্তি করছিল। বউমার সঙ্গে কলকাতার একটা ছেলেকে ঝর্নার কাছে–নাঃ। বড়ো কদর্য কথা। মুখে বলা যাবে না। সন্দীপ লাঠি নিয়ে তাড়া করেছিল। তার পর

কর্নেল তার কথার উপর বললেন–একটা প্রশ্ন। প্লিজ স্পষ্ট জবাব দেবেন। সন্দীপের মার্ডারকেসের তদন্তে আপনার জবাবটা কাজে লাগতে পারে।

-বলুন।

-আপনি কি আপনার পাগল ভাইয়ের মুখে শোনা ঘটনাটা অর্থাৎ আপনার বউমা আর কলকাতার ছেলেটিকে ঝর্নার কাছে বেড়াতে যাওয়ার কথাটা পুলিশকে জানিয়েছিলেন?

-বুঝতেই পারছেন। আমার একমাত্র সন্তান। তাকে কলকাতার এক দুবৃর্তকী যেন নামটা?

-অশোক।

-হ্যাঁ। অশোকের সঙ্গে বউমার ঝর্নার কাছে বেড়াতে যাওয়ার কথা পুলিশকে, বলেছিলুম। পুলিশ রামগোপালকে খুঁজে বের করেছিল। অনেক জেরা করে রামগোপালের মুখ থেকে কথাটা জেনে নেয় পুলিশ। এখন প্রবলেম হল, রামগোপাল সত্যিই পাগল। ওর সাক্ষ্য কোর্টে গ্রাহ্য হবে না। তবে সেই সূত্র পেয়ে পুলিশ তদন্ত করার পর জানতে পেরেছে, ঘটনাটা সত্য।

কর্নেল চুরুট ধরিয়ে বললেন–এবার বলুন, গত সোমবার সন্ধ্যায় আপনার ছেলে কোথায় খুন হয়েছিল।

জয়গোপালবাবু শ্বাস ছেড়ে বললেন–সন্দীপের একটা আড্ডা জায়গা ছিল। সেটা বাজারের কাছে একটা ক্লাবে। প্রতিদিন বিকেলে সে বেরিয়ে যেত। ফিরত রাত দশটা নাগাদ। আপনাকে গোপন করা উচিত হবে না। সে বাড়ি ফিরত মাতাল হয়ে।

 এতে আপনার বউমার দিক থেকে কোনও আপত্তি–

জয়গোপালবাবু কর্নেলের কথার উপর বললেন–আপত্তি ছিল। সেটা স্বাভাবিক মনে হত আমার। সন্দীপের মা ওদের ঝগড়াঝাটি মিটিয়ে দিত।

-তা হলে গত রবিবার বিকেলে সন্দীপ ক্লাবের আড্ডায় গিয়েছিল এবং রাত দশটায় ফিরেছিল?

–হ্যাঁ। কিন্তু সে-রাতে বউমার সঙ্গে তার কোনও গণ্ডগোল হয়নি।

–আপনার বউমা সেদিন বিকেলে বেড়াতে গিয়েছিল কার সঙ্গে? আপনার পাগল ভাই তাকে ঝর্নার কাছে দেখেছে বলেছিলেন।

-হ্যাঁ। সেটাই এবার বলতে যাচ্ছিলুম। এ পাড়াতেই আশালতা নামে এক বিধবা থাকে। বামুনের মেয়ে। ওর স্বামী মহেন্দ্র মুখুয্যে জ্যোতিষচর্চা আর কোবরেজি করত। স্বামীর মৃত্যুর পর আশালতা কোবরেজি করত। আমার স্ত্রীর বাতের চিকিৎসা করত সে। একদিন আশালতা কথায়-কথায় সন্দীপের বিয়ের কথা তোলে। আপনাকে বলা দরকার, সন্দীপের একবার বিয়ে দিয়েছিলুম। রাজু জানে সে-কথা।

রায়সায়েব বললেন–কর্নেল সায়েবকে আমি সে-কথা বলেছি।

জয়গোপালবাবু বললেন–সন্দীপের আবার বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলুম। কিন্তু ব্যাপারটা কী ভাবে পাত্রীপক্ষ জেনে যেত। বিয়েতে বাধা পড়ত।

কর্নেল বললেন–এর পর আশালতা কলকাতায় তাঁর দাদা হরিমাধব ভটচাযের সাহায্যে ঘটকালি করেন। প্রবোধ সিনহার মেয়ের সঙ্গে সন্দীপের বিয়ে হয়ে যায়। তাই না?

জয়গোপালবাবু অবাক হয়ে বললেন–আপনি জানেন?

-জানি। প্রবোধবাবুর কাছে শুনেছি।

–তো বউমা প্রায়ই আশালতার বাড়ি যেত। বাধা দেওয়ার কারণ ছিল না। এ বাড়ির পিছনে একটা পুকুর আছে। তার উল্টোদিকের ঘাটের মাথায় আশালতার বাড়ি।

–তা হলে সুমিত্রা আশালতার বাড়ি যাচ্ছে বলে বেরিয়ে গিয়েছিল?-

-হ্যাঁ।

–এবার সোমবার বিকেলের ঘটনা বলুন।

 জয়গোপালবাবু শ্বাস ছাড়লেন এবং একটু চুপ করে থাকার পর বললেন–সোমবার বিকেল চারটে নাগাদ সন্দীপ বউমাকে নিয়ে বেরিয়েছিল।

–কোথায় যাচ্ছে আপনাদের কাউকে বলে গিয়েছিল?

-হ্যাঁ। দারোয়ান সুখলালকে সে বলেছিল, ত্রিশূল পাহাড়ের মন্দিরে পুজো দিতে যাচ্ছে।

–সে তো অনেক দূরে।

-সন্দীপের শ্বশুর একটা নতুন মারুতি কিনে দিয়েছিলেন জামাইকে। সন্দীপ সেই গাড়িতে বউমাকে চাপিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।

-একটা কথা জয়গোপালবাবু। সন্দীপ প্রতিদিন ক্লাবে যেত এবং রাতে বাড়ি ফিরত। সে নিশ্চয় তার গাড়ি নিয়ে যাতায়াত করত?

-হ্যাঁ। তবে আপনাকে গোপন করব, না। ক্লাবে বেশি মাতাল হয়ে পড়লে ওর বন্ধুরা আমার বাড়িতে ফোন করে কেতোকে ক্লাবে পাঠাতে বলত। কেতো আমার ফিয়াট গাড়িটা চালায়। সে ভালো ড্রাইভার।

-কেতোর পুরো নাম কী?

কার্তিক হাজরা। ওর বাবা নিবারণ হাজরা আমাদের বাড়িতে বাজার সরকার ছিল। ওই যে উত্তর দিকে একতলা ঘরগুলো দেখছেন, সেখানে আমাদের কর্মচারীরা থাকত। নিবারণ মারা যায়। পরে তার স্ত্রীও মারা যায়। মুকু আর কেতো দুটি ছেলে ছিল ওদের। মুকুকে পরে বাজার সরকারের কাজ দিয়েছিলুম।

-এক মিনিট। মুকুর পুরো নাম?

মুকুন্দ হাজরা।

–সে কি এখনও আপনার বাড়িতে থাকে?

জয়গোপালবাবু বিকৃত মুখে বলে উঠলেন–ব্যাটাচ্ছেলে চোর! নিজের ছোটোভাই কেতো হাতে-নাতে বমাল ধরেছিল তাকে।

-কী চুরি করেছিল সে?

-ঠাকুরবাড়ির মন্দিরের তালা ভেঙে বিগ্রহ চুরি করেছিল। ভাগ্যিস কেতোর কানে গিয়েছিল তালাভাঙার শব্দ।

রায়সায়েব চাপাস্বরে বললেন–আমি সেদিনও বলেছি, এখনও বলছি কেতো বুঝতে পারেনি ওর দাদাই বিগ্রহ চুরি করছে। অন্ধকার রাত। তখন লোডশেডিং হত যখন তখন।

জয়গোপালবাবু বললেন–কে জানে! কেতোর চেঁচামেচি শুনে আমি আমার ঘরের জানালা থেকে টর্চের আলোয় দেখেছিলুম–

কর্নেল তাঁর কথায় বাধা দিয়ে বললেন–এর পর মুকুন্দকে বাড়ি থেকে নিশ্চয় তাড়িয়ে দিয়েছিলেন?

-হ্যাঁ। চিন্তা করুন কর্নেল সায়েব। আমাদের গৃহদেবতা রাধাবল্লভ। প্রতি বছর শ্রাবণ মাসে ঝুলন পূর্ণিমায় কত ঘটা করে পুজোআচ্চা হয়।

–প্রতিদিনও পুজো হওয়ার কথা!

–হয়। নরোত্তম ঠাকুর পুজো করে। তবে বছরে ওই রাত্রির পুজোর একটা বৈশিষ্ট্য আছে। সেদিন রাত্রে শুভক্ষণ গণনা করে রাধাবল্লভকে বহুমূল্য অলঙ্কারে সাজানো হয়। ভোর রাত্রে পুজো শেষ হল সেই অলঙ্কার খুলে গুপ্তস্থানে রেখে দিই।

রায়সায়েব হাসতে হাসতে বললেন–মুকুন্দ নির্বোধ!

কর্নেল জিগ্যেস করলেন–এখন সে কোথায় আছে?

জয়গোপালবাবু বললেন–আমার এক কট্টর শত্রু মাখন সাহার আড়তে খাতা লেখে শুনেছি।

–তার ফ্যামিলি ছিল কি?

-বউ আর একটা ছেলে ছিল। এখন মাখন সাহার বাড়িতে তারা নাকি কাজ করে।

রায়সায়েব ঘড়ি দেখে বললেন–কর্নেল সরকার! আপনি মূল প্রসঙ্গ ছেড়ে বাইরে চলে গেছেন। লাঞ্চের সময় হয়ে আসছে কিন্তু!

কর্নেল বলনেল-একটু দেরি করে খাব। তবে এবার সন্দীপের মৃত্যুর প্রসঙ্গে আসা যাক। জয়গোপালবাবু! আপনি বলেছিলেন, সন্দীপ মারুতি গাড়িতে চাপিয়ে সুমিত্রাকে ত্রিশূল পাহাড়ের দিকে নিয়ে গিয়েছিল। তারপর কী হল, বলুন!

জয়গোপালবাবু বললেন–সেখানে সন্দীপ নাকি যায়নি। সন্ধ্যা সাতটা-সওয়া নাগাদ কেতো বাইরে থেকে দৌড়ে এসে কাঁদতে কাঁদতে বলল, দাদাবাবুকে কে ঝর্নার কাছে গুলি করে মেরেছে। এক্ষুনি থানায় ফোন করে পুলিশকে খবর দিন। আমি আপনার গাড়ি বের করছি।

কার্তিক কী করে খবরটা পেল, তা নিশ্চয় বলেছিল?

–হ্যাঁ। রাস্তার লোকের মুখে শুনেছিল। আমি থানা থেকে পুলিশ সঙ্গে নিয়ে গিয়ে দেখি পিকনিক স্পটে ভিড় জমেছে। পাশেই ঝর্নার নীচে একটা বড়ো পুকুরের মতো জলা। সন্দীপের গাড়িটা সেই জলার দিকে ঝুঁকে আছে। আদিবাসীরা লণ্ঠন আর মশাল জ্বেলে ভিড় করেছিল। পুলিশ ভিড় হটিয়ে দিল। পুলিশের জোরালো টর্চের আলোয় দেখলুম জয়গোপালবাবুর কণ্ঠস্বরে কান্না এসে গেল। কর্নেল বললেন–যা ঘটবার ঘটে যায়। কেউ আটকাতে পারে না। নিয়তি বলে একটা ব্যাপার সত্যি আছে। আপনি শান্ত হয়ে কথা বলুন।

রুমাল বের করে চোখ মুছে জয়গোপালবাবু বললেন–দেখলুম সন্দীপের পিঠের তলায় চাপ-চাপ রক্ত। বউমা তার পাশে চিত হয়ে পড়ে আছে। ভেবেছিলুম, সে-ও মারা গেছে। কিন্তু সে মুছিত হয়েছিল।

–গাড়ির ভিতরে রক্ত ছিল?

–না। পুলিশের মতে, খুনি গাড়িটা আক্রোশবশে জলে ফেলে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল।

-বউমার জ্ঞান ফিরল কখন?

–হসপিটালে। পুলিশ তার স্টেটমেন্ট নিল। বউমা কী বলেছিল এবার শুনুন।

জয়গোপালবাবু রুমালে আবার চোখ মুছে কান্না সংবরণ করলেন। তার পর বললেন–আমি বউমার স্টেটমেন্ট শুনে বলছি। সেদিন বিকেলে সন্দীপ নাকি বউমাকে বলেছিল, অনেকদিন তাকে নিয়ে কোথাও বেড়াতে যায়নি। আজ তাকে নিয়ে ঝর্নার কাছে বেড়াতে যাবে। তারপর সন্দীপ গাড়িতে তাকে নিয়ে বেরিয়েছিল। বউমা তার পর অবাক হয়ে দেখে, সন্দীপের গাড়ি ট্যুরিস্ট লজের কাছে গিয়ে হঠাৎ থেমে যায়। সন্দীপ তাকে অপেক্ষা করতে বলে ট্যুরিস্ট লজে ঢুকে যায়। কিছুক্ষণ পরে বউমা অবাক হয়ে দেখে, সন্দীপ সেই কলকাতার যুবকটিকে নিয়ে আসছে।

কর্নেল বললেন–অশোককে?

–হ্যাঁ। সন্দীপকে হাসিখুশি দেখাচ্ছিল। সে অশোককে এনে বলে, একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। আজ ঝর্নার কাছে গিয়ে অশোকের সঙ্গে সে একটু স্ফুর্তি করবে। বউমা নাকি ব্যাপারটা স্বাভাবিকভাবে নিয়েছিল। কারণ সন্দীপের খামখেয়ালির সঙ্গে সে ইতিমধ্যে পরিচিত হয়ে উঠেছে। ঝর্নার নীচে জলার পাড়ে গাছপালার মধ্যে পিকনিক স্পট। গাড়িটা একটা নিরিবিলি জায়গায় জলার দিকে মুখ করে সে দাঁড় করায়। তার পর ঘাসের উপর বসে অশোকের সঙ্গে গল্প করে। বউমাও তাদের সঙ্গে কথা বলে। সন্ধ্যার মুখে সন্দীপ গাড়ি থেকে একটা হুইস্কির বোতল, তিনটে গ্লাস, জলের বোতল আর স্ন্যাক্সের প্যাকেট নিয়ে আসে। অশোক যে মদ খায়, বউমা তা নাকি জানত না। সন্দীপ জোর করে বউমাকে একটা গ্লাসে খানিকটা মদ ঢেলে দেয়। তাতে জল মেশায়। অগত্যা বউমাকে দু এক চুমুক খেতে। হয়েছিল। আর তাতেই বউমার নেশা হয়ে যায়। পিকনিক স্পট তখন নির্জন। হঠাৎ বউমা দেখেছিল, সন্দীপ আর অশোক একটা রিভলভার কিংবা পিস্তল নিয়ে কাড়াকাড়ি করছে। বউমার বক্তব্য সন্দীপই অশোককে গুলি করতে যাচ্ছিল। অশোক অস্ত্রটা চেপে ধরে। তার পর গুলির শব্দ হয়। দুজনের ধস্তাধস্তি তখনও চলছিল। দ্বিতীয়বার গুলির শব্দ হলে বউমা দেখে, সন্দীপের পিঠে রক্ত। সে একটু ছটফট করে স্থির হয়ে যায়। অশোক বউমাকে বলে, আমি গুলি করিনি। সে। সন্দীপকে গালাগালি দেয়। সে সন্দীপের হাতের অস্ত্রটা জলে ছুঁড়ে ফেলে দেয়। তারপর বউমাকেও কুৎসিত গালাগালি করে টলতে টলতে চলে যায়। আদিবাসীদের একটা দল মজুর খেটে বাড়ি ফিরছিল। তারা বউমার আর্তনাদ শুনে সেখানে ছুটে যায়। তখন বউমা মূৰ্ছিত অবস্থায় পড়ে ছিল।

–অর্থাৎ সন্দীপ অশোককেই খুন করতে নিয়ে গিয়েছিল।

-বউমা তা-ই বলেছে। সে বলেছে, সন্দীপ অশোককে মেরে তাকেও মারত বলে আর দৃঢ় বিশ্বাস। কিন্তু আমি বুঝতে পারিনি, সন্দীপ রিভলভার পাবে কোথায়? বউমার কথা আমি বিশ্বাস করি না।

–অস্ত্রটা রিভলভার তা কী করে জানলেন?

-পুলিশের মতে ওটা রিভলভার। কারণ মর্গের রিপোর্টে সন্দীপের পিঠের দিক থেকে হার্ট ফুটো করে একটা গুলি বুকের খাঁজে আটকে ছিল। অন্য গুলিটা ফুসফুস ফুটো করে পাঁজরের জোড়ে আটকে ছিল। দুটোই পয়েন্ট বাইশ ক্যালিবারের রিভলভার থেকে ছোঁড়া বুলেটনেল। দুটো গুলিই সন্দীপের পিঠের দিকে ছোঁড়া হয়েছিল।

তা হলে আপনি গিয়ে হুইস্কির বোতল গ্লাস ইত্যাদি ঘটনাস্থলে দেখতে পেয়েছিলেন?

-হ্যাঁ। পুলিশ সেগুলো প্যাকেটে ভরে নিয়ে এসেছিল। দামে ভরা গভীর জলায় মার্ডার-উইপন খোঁজার চেষ্টা বৃথা। পুলিশও সে-চেষ্টা করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়েছিল। এদিকে বউমা বলেছিল, সে অশোকের বাড়ির ঠিকানা জানে না। সে নাকি অশোককে তার বাবার ব্যবসার সূত্রে চেনে। তাই অশোককে কলকাতায় খুঁজে বের করতে পুলিশের দেরি হয়েছে।

কর্নেল বললেন–এই যথেষ্ট। এবার বলুন লালুবাবু নিপাত্তা হয়ে যান কবে?

–গত বছর ঝুলন পূর্ণিমার দিন বেলা বারোটায় দেখি লালুবাবু নেই। পুলিশকে জানিয়েছিলুম।

–লালুবাবু নাম কে রেখেছিল?

–আমার ঠাকুর্দা এই নাম রেখেছিলেন। কেন রেখেছিলেন জানি না।

কর্নেল উঠে দাঁড়িয়ে বললেন–চলি। পরে দেখা হবে। নমস্কার।….

.

০৮.

বাড়ি ফেরার সময় রায়সায়েব বলেছিলেন–জয়গোপালদের গৃহদেবতা রাধাবল্লভের গয়না চুরির কথা আমি জানি। ভৈরবগড়ের কে না জানে! কিন্তু আমার অবাক লাগছে কর্নেল সরকার।

কর্নেল বলেছিলেন–কেন?

রায়সায়েব হেসে ফেললেন।–আমি কল্পনাও করিনি লালুবাবু……..

কর্নেল তাকে থামিয়ে দিয়েছিলেন–লালুবাবুর কথা এখন থাক। লালুবাবুকে আপাতত ভুলুবাবু করে দিন।

এ কথায় রায়সায়েবের হাসি বেড়ে গিয়েছিল।–কী বললেন? ভুলুবাবু করে দেব? অর্থাৎ ভুলে যাব? সত্যি! আপনার কোনো তুলনা হয় না। জয়গোপালের পেট থেকে গুপ্তকথা বের করে ছাড়লেন।

আমি বলেছিলুম–আমার মাথায় কিছু ঢুকছে না। মাথা ভোঁ-ভোঁ করছে। লালুবাবুর ব্যাপারটা কী?

কর্নেল অমনই চোখ কটমটিয়ে বলেছিলেন–ফিরে গিয়ে স্নান করে নেবে। তার পর বোঝার চেষ্টা কোরো।

স্নানাহারে দেড়টা বেজে গিয়েছিল। গোবিন্দ, রায়সায়েবের গাড়ি মেরামত করে এনেছে। টিউবের লিক সারানো ছাড়াও আরও কিছু কাজ করিয়েছে। রায়সায়েব গাড়ি চালিয়ে বাইরে থেকে একটু ঘুরপাক খেয়ে গাড়িটা পরীক্ষা করে তার পর আমাদের ঘরে এসে বললেন–যতক্ষণ ইচ্ছে রেস্ট নিন।

কর্নেল বললেন–চারটেয় বেরুব। এবার গাড়ি পেলে ভালো হয়।

 –গাড়ি একেবারে ফিট। গোবিন্দকে মেকানিকরা খুব সমীহ করে।

–বিলের অংকও বাড়ে?

–তা বাড়ে। বলে সহাস্যে রায়সায়েব বেরিয়ে গেলেন।

 বিছানায় শুয়ে কম্বল চাপা দিয়ে অভ্যাসমতো ভাতঘুমের তালে ছিলুম। কর্নেল বললেন–কী জয়ন্ত? কী বুঝলে?

–শুধু বুঝলুম, রায়সায়েবের মেজাজ একেবারে বদলে গেছে। কথায়-কথায় হাসছেন। এর কারণ, সম্ভবত লালুবাবুর রহস্য ওঁর কাছে ফাঁস হয়ে গেছে।

–তোমার কাছে?

–শুধু এটুকু মনে হচ্ছে লালুবাবুর সঙ্গে জমিদার বাড়ির গৃহদেবতার গয়না হারানোর একটা সম্পর্ক আছে। ওদিকে আপনি বলেছেন, লালুবাবুর সঙ্গে সন্দীপের হত্যাকাণ্ডের নাকি সম্পর্ক আছে। এ যে এক গোলকধাঁধা বস্!

কর্নেল চুরুটের ধোঁয়া ছেড়ে চেয়ারে হেলান দিয়ে চোখ বুজলেন। শুধু বললেন–বস্ বলার বদভ্যাস ছাড়ো।

চোখে ভাতঘুমের টানের মধ্যে বললুম–ও কে বস্!

–আবার বস্ বলছ কিন্তু!

–ও কে! ও কে!………

 কখন ঘুমিয়ে পড়েছিলুম। কর্নেলের ডাকে ঘুম ভেঙেছিল। আমার উপর থেকে কম্বল তুলে ফেলে তিনি বললেন–তিনটে পঞ্চাশ। যথেষ্ট ঘুমিয়েছ। উঠে পড়ো। পাঁচ মিনিটের মধ্যে রেডি হয়ে নাও।……

কিছুক্ষণ পরে নীচে গিয়ে দেখি রায়সায়েবের গাড়ি গেটের কাছে দাঁড়িয়ে আছে। গাড়ির কাছে গিয়ে টেনিসলনের দিকে দৃষ্টি গেল। দেখলুম, জিনস-টিশার্ট পরে দুটি মেয়ে টেনিস খেলছে। কমলিকাকে দেখামাত্র চিনেছিলুম। অন্য মেয়েটি তা হলে সেই মল্লিকা। ওরা আপন মনে খেলায় ব্যস্ত। চিমনি একপাশে দাঁড়িয়ে খেলা দেখছে।

গোবিন্দ গেট খুলে দিল। গাড়ি স্টার্ট দিয়ে রায়সায়েব বললেন–সুরঞ্জন তার বোন মল্লিকাকে গাড়িতে পৌঁছে দিয়ে গেছে। কোথাও ওর একটা জরুরি কাজ আছে। সন্ধ্যা ছটার মধ্যে এসে বোনকে নিয়ে যাবে।

গাড়ি বড়ো রাস্তায় পৌঁছুলে কর্নেল বললেন–টুরিস্ট লজের সামনে আমার সেই বন্ধু অপেক্ষা করবেন। তাকে গাড়িতে তুলে নিয়ে ঝর্নার কাছে যাবে। সন্দীপ খুন হয়েছিল, সেই জায়গাটা কি আপনি চেনেন?

না। আমি ঘটনাস্থলে যাইনি। তবে ওখানে এক আদিবাসী জেলে আছে–কাছাকাছি থাকে সে। তাকে বাড়িতে বা জলার ধারে পেয়ে যাব। নানকু হাড়াম নাম। খুব সরল মানুষ। আদিবাসীদের মধ্যে থেকে অনেক মন্দ জিনিস বাইরের লোকেরা ঢুকিয়ে দিচ্ছে। নানকুর মধ্যে পারেনি।

–নানকু জায়গাটা তা হলে ঠিকই চিনতে পারবে।

-হ্যাঁ। নানকুই প্রথম সন্দীপের স্ত্রীর চিৎকার শুনেছিল। একা যেতে সে সাহস পায়নি। ভৈরবগড় থেকে সেই সময় একদল আদিবাসী মজুর বাড়ি ফিরছিল। নানকুই তাদের চিৎকার বা কান্না বলুন, কিংবা আর্তনাদ বলুন, সেদিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করে।

কর্নেল একটু হেসে বললেন–চিৎকার বা কান্না কিংবা আর্তনাদ! আমরা শিক্ষিত নাগরিক এইসব শব্দের মধ্যে সূক্ষ্ম তফাত বুঝতে পারি। নানকু কী বলেছিল আপনাকে?

রায়সায়েবও হেসে উঠলেন।–ঠিক। আমাদের এক্সপ্রেশন অন্যরকম। নানকু ঠিক কোন শব্দটা জোর দিয়ে বলেছিল, মনে পড়ছে না। ওর মুখোমুখি হলে আপনি জানতে পারবেন।

আঁকাবাঁকা গলি-রাস্তায় চড়াই-উতরাইয়ের পর একটা টিলার গায়ে বসানো সুন্দর দোতলা ট্যুরিস্ট লজ চোখে পড়ল। নীচে ভৈরবী নদী দেখা যাচ্ছিল। বুঝলুম, আমরা উত্তর-পূর্ব কোণে এসেছি। গেটের সামনে ঢ্যাঙা হয়ে গোয়েন্দাপ্রবর কে কে হালদারকে দেখে খুশি হলুম। তার পরনে প্যান্ট আর ঢিলে সোয়েটার। কর্নেলকে দেখেই তিনি সহাস্যে বললেন–গুড ইভনিং কর্নেলস্যার।

কর্নেল রায়সায়েবের সঙ্গে শুধু তার এক বন্ধু এবং প্রাক্তন পুলিশ অফিসার মি. কে কে হালদার বলে পরিচয় করিয়ে দিলেন। হালদারমশাই আমার পাশে বসে বললেন– জয়ন্তবাবুরে এমন টায়ার্ড দ্যাখাইতাছে ক্যান? এখানকার ক্লাইমেট–কী কমু, খালি ক্ষুধা বাড়ায়। লম্পঝম্প করতে ইচ্ছা করে।

এবার গাড়ির গতি বেড়ে গেল। চারটে কুড়ি বাজে। চেনা বড়ো রাস্তায় পৌঁছে কর্নেল বললেন–গত মার্চে ঝর্নার পাশ দিয়ে কতবার গেছি। জলাটাও দেখেছি। কিন্তু পিকনিক স্পটটা লক্ষ করিনি।

রায়সায়েব বললেন–তখন ওটাতে সরকারের হাত পড়েনি। ঘন জঙ্গল ছিল। তার মধ্যে পিকনিক করত লোকেরা।

হালদারমশাই বললেন–আমি দেখছি কর্নেলস্যার! সকালে গিছলাম। ন্যাচারাল বিউটির কথা মুখে কহন যায় না। বিউ-উ-টিফুল! ওয়ান্ডারফুল। কালারফুল। আর কী যে কমু?

লক্ষ করলুম, হালদারমশাইয়ের কথাবার্তা কিংবা হাবেভাবে রায়সাহেব খুব কৌতুক বোধ করছেন। তিনি বলে উঠলেন–রংবেরঙের ফুলের কথাও বলতে পারেন।

গোয়েন্দাপ্রবর হাসলেন।–ঠিক কইছেন। গাছে-গাছে ফুলও দেখছি।

হাইওয়ে পেরিয়ে গিয়ে ডানদিকে পশ্চিমে অসমতল প্রান্তরের শেষে। ছোটো-বড়ো টিলা এবং আরও দূরে উঁচু পাহাড় দেখা যাচ্ছিল। পূর্বে ঝর্না পাহাড়ের পাশ দিয়ে তরঙ্গায়িত জঙ্গল দেখা যাচ্ছিল। ঝর্নার উত্তরে জলাশয়ের এ পারে গাড়ি থামিয়ে রায়সায়েব বললেন–আপনারা কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন। আমি নানকুকে ডেকে আনি। তাকে ঝর্নার ধারে দেখছি না।

রাস্তা জনহীন। সুন্দর সাজানো পিকনিক স্পটের কাছে গিয়ে আমরা দাঁড়ালুম। কর্নেল বললেন–আপনার খবর শোনা যাক, হালদারমশাই!

হালদারমশাই এক টিপ নস্যি নিয়ে রুমালে নাক মুছলেন। তার পর বললেন–ট্যুরিস্ট লজের ম্যানেজার সুরেন্দ্র শ্রীবাস্তবের লগে ভাব জমাইছি। উনি কথায়-কথায় কইয়া ফ্যালছেন, গত সোমবার বিকালে জমিদার বাড়ির পোলা ট্যুরিস্ট লজে ঢুকছিল।

সন্দীপ?

–হঃ! সন্দীপ মি. শ্রীবাস্তবেরে কইছিল, অশোকের লগে মিট করতে চায়। উনি অশোকেরে খবর দিছিলেন। ওনার মতে, অশোক আর সন্দীপ দুইজন দুইজনারে চেনেজানে। দুইজনে কী কথা হইল। তার পর অশোক সন্দীপের লগে-লগে বারাইয়া গেল।

মি. শ্রীবাস্তব কি পুলিশকে এ কথা জানিয়েছেন?

 প্রাইভেট ডিটেকটিভ চাপাস্বরে বললেন–না। উনি শুধু আমারে কইছেন। আমারে উনি রিকোয়েস্ট করছেন, আমি যেন কারেও কথাটা না কইয়া ফেলি।

কর্নেল বললেন–তা হলে বোঝা যাচ্ছে ট্যুরিস্ট লজের কোনো কর্মচারী পুলিশকে জানিয়েছিল, সন্দীপ অশোককে সেখান থেকে ডেকে নিয়ে যায়। যাই হোক, আর কিছু খবর জোগাড় করতে পেরেছেন কি?

–দুপুরে আমার ক্লায়েন্ট ফোন করেছিলেন।

–অজয় সাধুখাঁ?

-হঃ। উনি কইলেন, অশোকের লগে লোকাল অ্যাডভোকেট গণপতি মিশরে রাখছেন। মিশ্রর লগে আমি য্যান মিট করি। ফোন পাইয়াই কোর্টে গিছলাম। গণপতিবাবুরে আমার কথা জানাইয়া রাখছিলেন অজয়বাবু। মি. মিশ্র আমারে খুব খাতির করলেন। ওনার মতে; অশোকের অ্যাগেনস্টে ক্যাস টিকব না। ক্যান কী, সন্দীপই অশোকেরে খুন করতে ফায়ার আর্মস বার করেছিল। অশোক বাধা দেয়। ধস্তাধস্তিতে নিজের ফায়ার আর্মসের গুলিতে সন্দীপ নিজেই খুন হয়। মি. মিশ্র আরো কইলেন, ফায়ার আর্মস সন্দীপের। সেই ফায়ার আর্মসের ট্রিগারে আঙুল ছিল সন্দীপের। সন্দীপই ট্রিগারে চাপ দিছে। আর দুই-দুইখানা গুলি তার নিজের বডিতে বিঁধছে। আই-উইটনেস সন্দীপের বউ।

কর্নেল হাসলেন।–বাঃ! ওকালতিতে পাকা মি. মিশ্র। পয়েন্টটা ঠিক ধরেছেন।

এই সময় রায়সায়েবের গাড়ি এসে দাঁড়াল। রায়সায়েবের বাঁ দিকে এক বৃদ্ধ আদিবাসী বসে ছিল। তার পরনে খাটো ধুতি। গায়ে ফতুয়ার মতো জামা। পায়ে জুতো নেই। রায়সায়েব গাড়ির সামনে দিয়ে ঘুরে তাকে দরজা খুলে দিলেন। সে নেমে আমাদের দিকে ঘোলাটে চোখে তাকিয়ে করজোড়ে একটু ঝুঁকে বলল–আমি নানকু বটে গ সায়েবরা। গড় করি।

কর্নেল বললেন–নানকু! তোমার শীত করছে না?

নানকুর মাথার চুল কাঁচাপাকা ও ঝকড়া সাদা গোঁফ। তার গায়ের রং গ্রানাইট পাথরের রঙের মতো। দেহও যেন সেই পাথরে তৈরি। তার উজ্জ্বল সাদা দাঁত দেখা যাচ্ছিল। কারণ মুখে তখনও নিঃশব্দ হাসি। কর্নেলের কথা শুনে সে এবার সশব্দে হেসে বলল–শীত? কোথা শীত গ সায়েব?

হালদারমশাই বললেন–লোকটা তো বেশ বাংলা কথা কইতাছে।

রায়সায়েব বললেন–আমার সংসারের সংসর্গে। যাই হোক, আমি গাড়িটা ঠিক জায়গায় রাখি। নানকু! তুমি সায়েবরে সেই খুনের জায়গায় নিয়ে যাও। রোদ কমে আসছে। শিগগির যাও। আমি আসছি।

নানকু আমাদের যেখানে নিয়ে গেল, সেখানে কেউ পিকনিক করে বলে মনে হচ্ছিল না। ঘন ঝোঁপঝাড়ের মধ্যিখানে একটা ফাঁকা জায়গা। সেখানে ঘন ঘাস। ইতস্তত উঁচু গাছ। এদিকটায় নিবিড় জঙ্গল শুরু হয়েছে।

নানকু বলল–এইখানে জমিদারবাবুর বেটার লাশ পড়ে ছিল। আর ওইখানে তার বউ পড়ে ছিল।

কর্নেল হাঁটু মুড়ে বসে আতসকাঁচের সাহায্যে ঘাসের ফাঁকে কী খুঁজতে শুরু করলেন কে জানে! তবে আমি অনেকগুলো সিগারেটের ফিল্টারটিপস পড়ে থাকতে দেখলুম। কর্নেল বললেন–জল ঢেলে পুলিশ রক্ত ধোয়ার চেষ্টা করেছে। ঘাসের উপরটাতে রক্ত দেখছি না। কিন্তু মাটিতে রক্তের একটু-আধটু চিহ্ন দেখতে পাচ্ছি।

হালদারমশাই সিগারেটের ফিল্টারটিপসগুলো কুড়িয়ে নিয়ে বললেন–আঁ! এটা কী হইল য্যান?

কর্নেল উঠে দাঁড়িয়ে বললেন–কী ব্যাপার হালদারমশাই?

–সকালে যখন আইছিলাম, তখন তো এইগুলি দেখি নাই। কে এখানে বইয়া আজ দুপুরে সিগারেট খাইছে। হেভি মিস্ত্রি!

নানকু নিঃশব্দে হাসছিল। সে বলল–এ দিকে আসুন সায়েবরা। দেখুন কী হয়েছে।

তাকে অনুসরণ করে ঝোঁপের ফাঁক দিয়ে আমরা এগিয়ে গেলুম। জলার ধারে দাঁড়িয়ে কর্নেল বলেন–এখানে তো সন্দীপের গাড়ি রাখা সম্ভব নয়। তুমি কী দেখাচ্ছ নানকু?

ততক্ষণে রায়সায়েব এসে গেছেন। তিনি একটু হেসে বললেন–নানকু আমাকেও বলছিল, সে জলার ধারে গিয়ে মজার খেলা দেখাবে। তা হলে শিগগির খেলাটা দেখাও নানকু!

ঢালুতে জলজ ঘাসের জঙ্গল। নানকু ঘাসের ভিতর দিয়ে নেমে জল থেকে কী টেনে তুলছিল। একটু পরে দেখি, সেটা একটা গুটানো খেপলা জাল। জালটা দুহাতে ধরে সে উঠে এল। তারপর গুটানো জালটার ভাজ খুলতে থাকল। এই সময় কর্নেল বলে উঠলেন–এ কী! এ যে দেখছি সেই মার্ডার উইপন! সিক্সরাউন্ডর রিভলভার! পুলিশ যা খুঁজে পায়নি, তুমি কী করে তা পেলে নানকু?

রায়সায়েব বললেন–নানকু আমাকে এখানে আসার পথে তার এই গোপন কীর্তির কথা বলছিল। আমার আসার আগে সে মাছ ধরতে এসেছিল। তার জালে ফায়ার আর্মসটা উঠে আসে। সে ওটা বাড়ি নিয়ে যেতে পারেনি। এখানে জালসুন্ধু লুকিয়ে রেখেছিল। নানকু! এবার জালসুদ্ধু জিনিসটা নিয়ে চলল।

কর্নেল বললেন–পুলিশ এটা খুঁজে পায়নি কেন?

রায়সায়েব বললেন–পুলিশ এটা খুঁজেছিল সন্দীপের লাশের সোজাসুজি এই জলার জলে। লক্ষ করুন ছুঁড়ে ফেলা হয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব কোণে। এদিকটায় তত দাম নেই।

হালদারমশাই ফিল্টারটিপগুলো ফেলে দিতে যাচ্ছিলেন। সেগুলো তখনও তাঁর মুঠোয় ছিল। কর্নেল বাধা দিয়ে বললেন–ওগুলো ফেলবেন না হালদারমশাই। আমাকে দিন। একমিনিট। একটুকরো কাগজ বের করে দিচ্ছি।

বলে তিনি তার পিঠের কিটব্যাগ থেকে একটা খবরের কাগজ বের করলেন। কাগজের কিছুটা চৌকো করে ছিঁড়ে ফিল্টারটিপগুলো তাতে রেখে কাগজটা গুটিয়ে কিটব্যাগে তিনি ঢুকিয়ে রাখলেন।

রায়সায়েব বললেন–সন্দীপের গাড়ি কোথায় ছিল, তা কি দেখতে চান কর্নেল সরকার?

কর্নেল বললেন–না। চেপে যান। নানকুকেও বলে দিন, সে যেন এগুলোর কথা বলে না।

রায়সায়েব কিছু বলার আগেই নানকু বললনা গ সায়েবরা। তা বলব না। তবে একটা কথা আমার মাথায় আসছে। কী করি বলুন সায়েব?

রায়সায়েব বললেন–কী কথা?

–আমি যখন জাল ফেলতে আসছিলাম, তখন কে একজন ওখান থেকে উঠে জঙ্গলে ঢুকে গেল।

হালদারমশাই জিগ্যেস করলেন-কেমন লোক?

–চিনি-চিনি মনে হয়েছিল বটে। ভদ্দরলোকও বটে। কোথা তাকে দেখেছি কে জানে!

রায়সায়েব বললেন–ও সব কথা আমার বাড়িতে গিয়ে বলবে এখন আর কথা নয়।

প্রায় কুড়ি মিনিটের মধ্যে আমরা থানার গেটে পৌঁছে গিয়েছিলুম। তার পর রায়সায়েব নানকুকে পাশে নিয়ে ভিতরে ঢুকলেন। কর্নেল, তার পিছনে হালদারমশাই এবং তার পিছনে আমি রায়সায়েবকে অনুসরণ করলুম। থানার লোকেরা হাঁ করে তাকিয়ে এই মিছিল দেখছিল।

ও সি-র ঘরে ঢুকে রায়সায়েব বললেন–গুড ইভনিং মি, রামশরণ দুবে! পরে অন্য কথা। আগে লক্ষ করে দেখুন, এই ভদ্রলোককে চিনতে পারেন কি না। এস পি সায়েব আপনাকে নিশ্চয় এঁর চেহারার বর্ণনা দিয়েছেন। আপনি গতকাল আমাকে রিং করে এঁর কথা জানতে চেয়েছিলেন।

ও সি মি. দুবে তক্ষুনি চেয়ার থেকে উঠে সেলাম ঠুকে বললেন–আমার সৌভাগ্য যে কীর্তিমান কর্নেল নীলাদ্রি সরকার নিজেই আমার কাছে এসেছেন। আমি জানতুম, আপনি মি. রায়ের অতিথি হবেন। অনুগ্রহ করে আপনারা বসুন। আর মি. রায়! ওটা নানকু না? ওর হাতে জাল কেন?

মার্ডার-উইপন উদ্ধার করেছে নানকু। এখনও তার জালে ওটা বন্দি। ওকে আপনারা বখশিস দেবেন।

–ও মাই গড! এই! কে আছ? শিগগির কফি নিয়ে এস।

একজন কনস্টেবল দরজার ভিড় ঠেলে চলে গেল। দরজায় পুলিশের ভিড় দেখে মি. দুবে বললেন–ভিড় করবেন না। সন্দীপের মার্ডার কেসের আই ও রথীন্দ্র শর্মাকে ডেকে দিন শিগগির।….

.

০৯.

কর্নেল ও সি-র সঙ্গে আমার ও হালদারমশাইয়ের পরিচয় করিয়ে দিলেন। তবে। হালদারমশাই যে প্রাক্তন পুলিশ অফিসার এবং প্রাইভেট ডিটেকটিভ, এ কথা গোপন রাখলেন। তিনি মি. কে কে হালদার-কর্নেলের একজন বন্ধু ও ভ্রমণসঙ্গী।

রায়সায়েবের নির্দেশে সাবধানে নানকু আগ্নেয়াস্ত্রটা জাল থেকে বের করে তাঁকে দিল। তিনি সেটা মি. দুবেকে দিলেন। মি. দুবে অস্ত্রটা দেখেই যেন একটু অবাক হয়ে বললেন–এটা তো দেখছি অটোমেটিক নয়। কর্নেল সায়েব রিটায়ার্ড মিলিটারি অফিসার। তিনি ফায়ার আর্মসের ব্যপারে এক্সপার্ট। কর্নেল সায়েব, আপনি কি এটা পরীক্ষা করে দেখেছেন?

কর্নেল বললেন–না। ওটা জালবন্দি অবস্থায় থাকার জন্য পরীক্ষার সুযোগ। পাইনি।

ও সি রিভলভারটা কর্নেলকে দিয়ে বললেন–আপনি প্লিজ এটা পরীক্ষা করে মতামত দিন।

কর্নেল আগ্নেয়াস্ত্রটা হাতে নিয়ে প্রথমে চেম্বার খুলে দেখলেন। তারপর বললেন–মি. দুবে! এটা সিক্সরাউন্ডার হলেও অটোমেটিক নয়।

তার মানে প্রতিবার হ্যাঁমার জোরে ঠেলে তুলে তার পর ট্রিগারে চাপ দিতে হবে। তবেই গুলি বেরুবে। এই তো?

কর্নেল হাসলেন।–ঠিক বলেছেন। দুজনে এটা নিয়ে কাড়াকাড়ির সময় গুলি না বেরনোরই কথা। তা ছাড়া এই দেখুন, চেম্বারে ছটা বুলেট ঠাসা। একটা বুলেটও ফায়ার করা হয়নি। প্রত্যেকটা বুলেটের নেল স্বাভাবিক অবস্থায় আছে।

 রায়সায়েব বললেন–কী আশ্চর্য! এটা তাহলে মার্ডার-উইপন নয়?

কর্নেল বললেন–না। তা ছাড়া আমার মতে এটা পয়েন্ট বত্রিশ ক্যালিবারের অস্ত্র। শুনেছি, ভিকটিমের শরীরে যে দুটো বুলেটনেল পাওয়া গেছে, তা পয়েন্ট বাইশ ক্যালিবারের রিভলভার থেকে ছোঁড়া হয়েছিল। মি. দুবে এর সত্যমিথ্যা জানেন।

মি. দুবে ভুরু কুঁচকে কর্নেলের দিকে তাকিয়ে কথা শুনছিলেন। তিনি বললেন–আপনি ঠিক খবর পেয়েছেন কর্নেল সায়েব। বুলেটনেল দুটো পাটনায় ব্যালাস্টিক মিসাইল এক্সপার্টদের কাছে পাঠানো হয়েছিল। তাদের মতে, পয়েন্ট বাইশ ক্যালিবারে ফায়ার আর্মস থেকে গুলি ছোঁড়া হয়েছিল।

রায়সায়েব বললেন–তা হলে জলার জলে অকারণে কে এই আর্মসটা ফেলে দিয়েছিল? কেন দিয়েছিল?

ও সি মি. রামশরণ দুবে গম্ভীর মুখে বললেন কলকাতার অশোক সাধুখাঁ আমাদের জেরার সময় বলেছে হঠাৎ প্যান্টের পকেট থেকে ফায়ার আর্মস বের করে সন্দীপ মজুমদার তার দিকে গুলি ছোঁড়ার চেষ্টা করেছিল। সেটা নিয়ে দুজনের মধ্যে কাড়াকাড়ি ধস্তাধস্তি হয়েছিল। সেই সময় পর-পর দুবার গুলির শব্দ হয়েছিল। তার পর সন্দীপকে সে পড়ে যেতে দেখেছিল। অশোক তখন মাতাল অবস্থায় ছিল। সে ভয় পেয়ে সন্দীপের হাতের কাছে পড়ে থাকা রিভলভারটা জলে ছুঁড়ে ফেলে পালিয়ে আসে। ট্যুরিস্ট লজ থেকে সে চেক আউট করে রাতের ট্রেনে কলকাতা ফিরে যায়।

কর্নেল বললেন–অশোককে গুলি করে মারার জন্য সন্দীপ নিশ্চয় উঠে দাঁড়িয়েছিল?

-হ্যাঁ। জেরার মুখে অশোক বলেছে। দুজনের মধ্যে দাঁড়িয়েই ধস্তাধস্তি হয়েছিল। তখন দুজনেই মদ্যপান করেছে। এমন কি সন্দীপ তার স্ত্রীকেও জোর করে মদ খাইয়েছিল।

কর্নেল হাসলেন। মদ্যপানে অনভ্যস্ত মহিলার পক্ষে একটুতেই মাতাল হয়ে পড়া স্বাভাবিক। তা ছাড়া তখন সন্ধ্যাও হয়ে এসেছে।

এই সময় ট্রেতে অনেকগুলো কাপে কফি এবং দু প্লেট স্ন্যাক্স নিয়ে সেই কনস্টেবলটি ঢুকল। টেবিলে ট্রে রেখে সেলাম ঠুকে সে বেরিয়ে গেল। মি. দুবে সহাস্যে বললেন–রায়সায়েব! নানকুর জন্য আপাতত বখশিস এক কাপ কফি আর চানাচুর। গিরিধারী! একটা বাড়তি কাপ দিয়ে যাও। আমরা প্রত্যেকে একটু করে ঢেলে দিলেই যথেষ্ট।

নানকু এককোণে বসে ছিল। গিরিধারী তার জন্য যে কাপটা আনল, তা দেখে বোঝা গেল, বিহারে জাতপাত প্রথা এখনও কত কদর্য। সেই টুটাফাটা চটাওঠা কাপে কফি এবং চানাচুর পেয়ে নানকুর মুখে কিন্তু সেই নির্মল নিঃশব্দ হাসি লক্ষ করলুম।

কফিতে চুমুক দিয়ে কর্নেল বললেন–আমার হাতে সময় কম। এবার প্রশ্নটা তোলা যাক।

মি. দুবে বললেন–কী প্রশ্ন?

–এই ফায়ার আর্মস থেকে গুলি ছোঁড়া হয়নি। তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন সন্দীপের পিঠের দিকে গুলি লাগল কী ভাবে?

মি. দুবে কিছু বলার আগে তদন্তকারী অফিসার (আইও) রথীন্দ্রবাবু বললেন–অশোককে আরও জেরা করা দরকার। আমার বিশ্বাস, দুজনে ধস্তাধস্তি হতেই পারে। কিন্তু অশোকের কাছে ফায়ার আর্মস ছিল। সেটা পয়েন্ট বাইশ ক্যালিবারের অটোমেটিক রিভলভার। অশোক মিসেস মজুমদারকে তো বটেই, পুলিশকেও মিসলিড করতে সন্দীপ মজুমদারের এই আগ্নেয়াস্ত্র জলে ছুঁড়ে ফেলেছিল। অশোকের জানা নেই, এখন ফোরেন্সিক ল্যাব কত উন্নত। তা ছাড়া ব্যালাস্টিক মিসাইল এক্সপার্টদের কথাও সে জানে না।

মি. দুবে বললেন–হ্যাঁ। এমন কিছুই ঘটেছে। সুমিত্রা মজুমদারের সঙ্গে অশোকের এমোশনাল রিলেশনের কথা আমরা কলকাতার পুলিশসূত্রে জেনেছি।

কর্নেল একটু হেসে বললেন–এ-থিয়োরি আপাতদৃষ্টে যুক্তিপূর্ণ। কিন্তু মর্গের রিপোর্টে কি বলা হয়েছে, পয়েন্ট ব্ল্যাংক রেঞ্জে সন্দীপের পিঠে গুলি করা হয়েছিল?

আই ও সাব-ইন্সপেক্টর রথীন্দ্র শর্মা এবার একটু চমকে উঠলেন মনে হল। তিনি ও সি মি. দুবের দিকে তাকালেন। মি. দুবে আস্তে বললেন–মর্গের রিপোর্টে পয়েন্ট ব্ল্যাংক রেঞ্জে গুলি করার কথা বলা হয়নি।

কর্নেল বললেন–গুলি ছোঁড়ার দূরত্ব সম্পর্কে কি রিপোর্টে কোনও মন্তব্য করা হয়েছে?

–নাঃ। বলে ও সি রামশরণ দুবে চেয়ারে হেলান দিলেন।

–এই কেসে দূরত্ব ব্যাপারটা কিন্তু ভাইটাল মি. দুবে।

রায়সায়েব বললেন–বডি তো পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

মি. দুবে বললেন–এখানকার মর্গের ডাক্তার বিজয় সিনহার এক্সপার্ট হিসেবে সুনাম আছে। তিনি দূরত্বের পয়েন্টটা কেন মিস করলেন বুঝতে পারছি না। এক মিনিট। দেখি, তাঁকে পাই নাকি।

বলে তিনি টেলিফোনের রিসিভার তুলে ডায়াল করলেন। তারপর সাড়া পেয়ে বললেন–ড. সিনহা? আমি দুবে বলছি।…হ্যাঁ। শুনুন, একটা প্রশ্ন উঠেছে সন্দীপ মজুমদারের বডির ময়না তদন্ত সম্পর্কে …..খুনি কত দূর থেকে গুলি ছুঁড়েছিল….না পয়েন্ট ব্ল্যাংক রেঞ্জে নয়–তা হলে তো আপনি সেটা উল্লেখ করতেন…ফাইনাল রিপোর্ট নয় ওটা?…..সরি! ভেরি সরি ডক্টর সিনহা। ওটা প্রাইমারি রিপোর্ট। আমাদের ভুল। তো একটা কথা। আনুমানিক দূরত্ব সম্পর্কে কিছু নোট করা আছে?…হ্যাঁ। নিছক আনুমানিক?…এটা খুব জরুরি। ড. সিনহা।…হ্যাঁ। দেখে বলুন। আমি ধরছি।

কানে রিসিভার রেখে মিনিট দু-তিন অপেক্ষা করলেন মি. দুবে। তার পর সাড়া পেয়ে বললেন–হ্যাঁ। বলুন।…ম্যাক্সিমাম দূরত্ব পাঁচ মিটার। মিনিমাম?…তিন মিটার? …..থ্যাংক্স ড. সিনহা। আপনার ফাইনাল রিপোর্টের প্রতীক্ষায় থাকলাম।

রিসিভার রেখে মি. দুবে কর্নেলের দিকে তাকালেন। কর্নেল বললেন–ঘটনাস্থল দেখে সেখান থেকে আসছি। আমি লক্ষ করেছি, ওখানে তিনদিকেই ঘনঝোঁপের আড়াল আছে। শুধু একটা দিক ফাঁকা।

মি. দুবে বললেন–আপনি বলতে চাইছেন, অন্য কেউ ঝোঁপের আড়ালে ওত পেতে ছিল? সন্দীপ ধস্তাধস্তি শুরু করলে সে পিছন থেকে সন্দীপকে গুলি করেছিল?

–যা তথ্য হাতে পেলুম, তাতে এটাই আমার থিয়োরি।

–কিন্তু কর্নেল সায়েব! অশোকের সন্দীপকে খুন করার মোটিভ খুব স্পষ্ট। কিন্তু অজ্ঞাত কোনও খুনির মোটিভ খুঁজে বের না করলে তো আপনার থিয়োরি দাঁড়াবে না। ।।কর্নেল চুরুট ধরিয়ে ঘড়ি দেখে নিয়ে একটু হেসে বললেন–আমার থিয়োরিতে আপাতত একটা মোটিভ দাঁড় করানো যায়।

-কী মোটিভ?

 –লালুবাবু!

মি. দুবে নড়ে বসলেন।–লালুবাবু! তার মানে?

কর্নেল উঠে দাঁড়িয়ে গম্ভীর মুখে বললেন–লালুবাবু সম্পর্কে আশা করি কাল দুপুরের মধ্যে আপনাকে সব জানাব। শুধু চাই, আপনার সাহায্য।

ও সি উঠে দাঁড়িয়ে বললেন–আপনি আমাদের পক্ষে যতরকম সম্ভব, সবরকম সাহায্য পাবেন।

–আমি রায়সায়েবের বাড়িতে ফিরে গিয়ে আপনাকে টেলিফোনে জানাব, কী সাহাফ আমার দরকার। আপনার প্রাইভেট ফোন নাম্বারটা দিন।

মি. রামশরণ দুবে টেবিলে রাখা ছোট্ট প্যাড থেকে একটা পাতা ছিঁড়ে তার প্রাইভেট ফোন নাম্বার লিখে দিলেন।………।

নানকুর মাছধরা জাল থানায় রেখে আসতে হয়েছিল। ওটা আদালতে একটা একজিবিট হবে। নানকু মনমরা হয়ে পড়েছিল। রায়সায়েব তাকে আশ্বাস দিয়েছিলেন, কালই ওকে নতুন জাল কিনে দেবেন। তবে আজ রাতটা ওকে গোবিন্দের সঙ্গে কাটাতে হবে। বাড়িতে ভূতের উপদ্রব। নানকু ভূততাড়ানো মন্তর জানে। এই সব কথায় নানকুর মুখে হাসি ফুটেছিল। রায়সায়েবের গাড়ি হালদারমশাইকে ট্যুরিস্ট লজে পৌঁছে দিলে তিনি কাচুমাচু মুখে বলেছিলেন-কর্নেলস্যার। আপনার লগে কাইল কখন মিট করুম?

–আমি মর্নিংওয়াকে বেরিয়ে এখান থেকে আপনাকে নিয়ে যাব। চিন্তা করবেন না।

বাড়ি পৌঁছে রায়সায়েব হাঁকডাক শুরু করে দিয়েছিলেন।–চিমনি! চিমনি! কোথায় তুই?

গোবিন্দ গেট খুলে দিয়েছিল। সে বলল-চিমনিমাসি কিচেনে কুমুদিদিকে ভূতের গল্প শোনাচ্ছে।

কুমু এখনও আছে?

–হ্যাঁ। আপনাদের জন্য অপেক্ষা করছে। আর

–আর কী রে?

–জমিদারবাবু দারোয়ানের হাত দিয়ে কর্নেল সায়েবকে একখানা চিঠি পাঠিয়েছেন।

চিঠিটা কর্নেল সায়েবকে দিয়ে তুই গাড়ি গ্যারেজে রেখে আয়। আর শোন! নানকু এসেছে। ও তোর ঘরে শোবে। নানকু ভূততাড়ানো মন্তর জানে, জানিস।

নানকু গাড়ি থেকে নেমে বলল–গোবিন্দ! কেমন আছ গ বাবা?

–ভালো। নানকুখুড়ো! তুমি আমার ঘরের বারান্দায় গিয়ে দাঁড়াও। গাড়িটা গ্যারেজে রেখে আসি।……

দোতলার গেস্টরুমে আমাদের পৌঁছে দিয়ে রায়সায়েব বেরিয়ে গিয়েছিলেন। কর্নেল জয়গোপালবাবুর চিঠিটা সাদা খামের একদিক ছিঁড়ে বের করলেন। চিঠিটা পড়তে পড়তে কর্নেলের মুখে মৃদু হাসি ফুটে উঠছিল। পড়া শেষ হলে চিঠিটা। তিনি আমাকে দিলেন।

তীব্র কৌতূহলে চিঠিটা নিয়ে পড়ে দেখলুম। জয়গোপাল মজুমদার লিখেছেন :

মাননীয় কর্নেলসায়েব,
অদ্য দ্বিপ্রহরে আপনারা চলিয়া যাওয়ার কিছুক্ষণ পরে দোতলায় আমার ঘরে জানালা হইতে যাহা দেখিয়াছি, নিজের চক্ষুকে বিশ্বাস করিতে পারি নাই। আমার ভৃত্য শয়তান কার্তিক পুকুরের পাড় দিয়া আশা বামনীর বাড়িতে ঢুকিল। জানালা হইতে উহার বাড়ির উঠান স্পষ্ট দেখা যায়। কার্তিকের হাতে একটি আগ্নেয়াস্ত্র এবং সে বামনীকে কী বলিয়া হুমকি দিতেছে। আশা তাহার পা ধরিলে সে উহাকে লাথি মারিয়া চলিয়া আসিল। এই অবস্থা দেখিয়া আমি প্রাণভয়ে কার্তিককে কিছু বলিতে পারি নাই। আপনি শীঘ্র শয়তান কার্তিকের বিরুদ্ধে কী করা যায়, তাহার পরামর্শ দিন। আমি অসহায়। আমার স্ত্রীকে এই গুপ্তকথা বলি নাই। অধিক কী বলিব। নমস্কার গ্রহণ করিবেন। ইতি
–শ্রী জয়গোপাল মজুমদার

 চিঠিটা কর্নেলকে ফিরিয়ে দিয়ে বললুম–কেতোর চেহারা দেখেই আমার মনে হয়েছিল সে একজন দুবৃর্ত।

কর্নেল একটু হেসে বললেন–তার চেয়ে অদ্ভুত ব্যাপার চিঠিতে আমি লক্ষ করছি।

–কী অদ্ভুত ব্যাপার?

–হাতের লেখা দেখেই ধরে ফেলেছি, উড়োচিঠিগুলো জয়গোপালবাবুর লেখা।

–সে কী!

জয়গোপালবাবুর বাড়ি থেকে লালুবাবু হারিয়ে গেছে। কিন্তু তিনি নিশ্চিত হতে পারেননি কে লালুবাবুকে চুরি করেছে। প্রথমে তাঁর সন্দেহ হয়েছিল, কমলিকাকে, যে একসময় তার বউমা ছিল। লালুবাবু কোথায় থাকে, তার পক্ষে জানা স্বাভাবিক। আমার ধারণা, কমলিকার সঙ্গে ইদানীং সন্দীপের গোপন সম্পর্ক গড়ে উঠেছে বলেই তাঁর সন্দেহ হয়েছিল। কারণ সুমিত্রার সঙ্গে অশোকের যোগাযোগ ছিল। এবং অশোক তার বাড়িতে নিশ্চয় গেছে। এতে তার ছেলে সন্দীপ ক্ষুব্ধ হয়ে তার প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে নতুন করে সম্পর্ক গড়ে তুলতেও পারে। আর সন্দীপকে হাত করে কমলিকা লালুবাবুকে হাতাতেও পারে। এ ছাড়া সুমিত্রাকেও তাঁর সন্দেহ হয়েছিল বোঝা যাচ্ছে। তা না হলে সুমিত্রার বাবা এবং তার বেয়াই প্রবোধবাবুকেও জয়গোপালবাবু উড়োচিঠি লিখতেন না।

–কিন্তু চিমনির কাছে রাতদুপুরে ভূত পাঠিয়ে লালুবাবুকে ফেরত চাওয়ার ব্যাপারটা ..

কর্নেল আমার কথার উপর বললেন–রায়সায়েব ঠিকই বলেছেন। ভূত পাঠিয়ে চিমনিকে কিছু বলা মানেই পরোক্ষে তাঁকেই কিছু বলা। জয়গোপালবাবুর সন্দেহটা বোঝা যায়। কমলিকা তার গার্জেন রায়সায়েবের কাছেও লালুবাবুকে লুকিয়ে রাখতে পারে।

জয়গোপালবাবুর পাগল ভাই রামগোপাল সাধুবাবা হয়ে এতদিনে, ফিরেছেন। আপনি তার মুখে লালুবাবু কথাটা শুনেছিলেন। তার পর তাকে আপনি লালুবাবু সম্পর্কে প্রশ্ন করতেই তিনি পালিয়ে গিয়েছিলেন কেন?

–এ প্রশ্নের উত্তর খুব সহজ। ভাইয়ের উপরেও জয়গোপালের সন্দেহ ছিল। তাই তাকেও তিনি লালুবাবু সম্পর্কে চার্জ করেছিলেন। তুমি ভুলে যাচ্ছ, আমি তোমাকে বলেছিলুম, জয়গোপাল মজুমদার সন্দেহবাতিকগ্রস্ত মানুষ!

চিমনি কফি নিয়ে এল। তার সঙ্গে কমলিকাও এল। কর্নেল বললেন–তুমি এখনও রায়সায়েবের বাড়িতে কি আমার জন্য অপেক্ষা করছিলে? কোনও কথা বলার আছে?

কমলিকা বলল–হ্যাঁ। আপনারা কফি খান।

চিমনি চলে যাওয়ার পর কর্নেল কফিতে চুমুক দিয়ে বললেন–এবার বলো!

কমলিকা চাপাস্বরে বলল–যার সঙ্গে বিকেলে টেনিস খেলছিলুম, তার নাম মল্লিকা।

–জানি। এ-ও জানি, তার দাদা সুরঞ্জন বোনকে গাড়িতে পৌঁছে দিয়ে কোথাও গিয়েছিল।

কমলিকা অবাক চোখে কর্নেলের দিকে তাকিয়ে থাকার পর বলল–পাঁচটা নাগাদ রঞ্জনদা কাজ সেরে বোনকে নিয়ে যেতে ফিরে এসেছিল। সে চুপিচুপি আমাকে বলল, ঝর্নার কাছে আদিবাসীদের গ্রামে সে মজুর ডাকতে গিয়েছিল।কার বাড়িতে রিপেয়ারিং কাজ হবে। তো ওই গ্রাম থেকে আসার সময় রঞ্জনদা দেখেছে, যেখানে সন্দীপ খুন হয়েছিল, সেখানে জমিদারবাড়ির কার্তিক নামে একজন কর্মচারী দাঁড়িয়ে সিগারেট টানছে। রঞ্জনদা একটা গাছের আড়ালে গাড়ি দাঁড় করিয়েছিল। কার্তিক ওখানে কী করছে, তা দেখার জন্য রঞ্জনদার আগ্রহ হয়েছিল। একটু পরে কার্তিক ঝোঁপগুলোর ভিতর গুঁড়ি মেরে যেন কী খুঁজতে শুরু করে। মিনিট পনেরো পরে নানকু হাড়াম নামে এক আদিবাসী এক জেলে জাল ফেলতে যাচ্ছিল জলায়। তাকে দেখামাত্র কার্তিক জঙ্গলের ভিতর উধাও হয়ে যায়। সন্দীপের খুনের জায়গায় কার্তিককী খুঁজছিল, রঞ্জনদা ভেবে পায়নি। সে আমার মুখে আপনার কথা শুনেছে। তাই আপনাকে এই ঘটনাটা রঞ্জনদা জানাতে বলেছে।

কর্নেল হাসলেন।–কার্তিক হয় তো লালুবাবুকে খুঁজছিল।

কমলিকা বলল–প্লিজ কর্নেল সায়েব! লালুবাবু কে, তা কি জানতে পেরেছেন?

কফি শেষ করে কর্নেল বললেন–একটু বসো। রায়সায়েবের ঘর থেকে একটা ফোন করে আসি।

.

১০.

 কর্নেল রায়সায়েবের ঘরে ফোন করতে যাওয়ার পর কমলিকা আমাকে জিগ্যেস করছিল–আচ্ছা জয়ন্তবাবু, আপনি তো কর্নেল সায়েবের সঙ্গে সবসময় ঘোরেন। আপনি নিশ্চয় জানতে পেরেছেন লালুবাবু কে?

বললুম–আমি আপনার মতোই অন্ধকারে। আজ কর্নেল আর জমিদারবংশধর জয়গোপাল মজুমদারের মধ্যে লালুবাবুর কথা উঠেছিল। কিন্তু কিছুতেই বুঝতে পারিনি লালুবাবু কে।

এর পর বলতে যাচ্ছিলুম, লালুবাবু-র সঙ্গে জমিদারবংশের সম্পর্ক আছে এবং এই নামটা রেখেছিলেন জয়গোপালের ঠাকুর্দা, কিন্তু সেই সময় রায়সায়েব ঘরে ঢুকে বলেছিলেন-কুমু! বাড়ি যা। গোবিন্দ তোকে এগিয়ে দিয়ে আসবে। তোর পিসিমা বললেন দুবার ফোন করেছিলেন। তোর মা উদ্বিগ্ন।

কমলিকা একটু খাপ্পা হয়ে বলল–আমি কি একা বাড়ি ফিরতে পারব না?

-না। চিমনি তোকে বলেনি এ বাড়িতে গতরাতে ভূতের উৎপাত হয়েছে? তর্ক করিস নে। গোবিন্দ টর্চ আর লাঠি হাতে তোর বডিগার্ড সেজে দাঁড়িয়ে আছে।

কমলিকা উঠে দাঁড়িয়ে বলেছিল-কর্নেল সায়েব ফোন করতে যাবার সময় বলে গেছেন আমি যেন একটু বসি।

রায়সায়েব হাসতে হাসতে বললেন–কর্নেল সায়েবই বললেন, কমলিকা যেন শিগগির বাড়ি যায়। কেন তা জানিস? উনি ফোন করতে আমার ঘরে ঢুকেছেন, অমনি ফোন বেজে উঠেছে। উনি সাড়া দিতেই তোর পিসিমার কড়া ধমক। রাজু। তুমি মেয়েটার এবার সর্বনাশ করে ছাড়বে। অমনই কর্নেল বললেন, এক্ষুনি গোবিন্দ ওকে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে। বিশ্বাস কর। তোর পিসিমা কর্নেলের গলা শুনে বুঝতে পারেননি।

কমলিকা অগত্যা হাসিমুখে বেরিয়ে গিয়েছিল। রায়সায়েব আমার মুখোমুখি বসে চাপাস্বরে বলেছিলেন কর্নেল সায়েব আমাকে আভাস দিয়েছেন, কাল মঙ্গলবার যে-কোনও সময় তিনি লালুবাবুর অন্তর্ধান রহস্যের পদা তুলবেন আমি তো ভেবেই পাচ্ছি না কিছু।

বলেছিলুম–আমিও তা-ই।

সে-রাতে কর্নেলকে খুব গম্ভীর দেখাচ্ছিল। খাওয়ার পর বিছানায় শুয়ে কম্বলের আড়াল থেকে দেখছিলুম, টেবিল ল্যাম্প জ্বেলে তিনি আতসকাঁচের সাহায্যে জয়গোপালবাবুর চিঠি আর সেই উড়োচিঠিগুলো পরীক্ষা করছেন। বুঝলুম, তিনি নিজের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে নিশ্চিত হতে চাইছেন।

.

ঘুম ভেঙেছিল শ্রীমতী চিমনির ডাকে।-বাবা গো! ও বাবা! কর্নেল সায়েব বলে গেছেন আপনি সকাল সাতটায় বিছানায় বসে বাসিমুখে চা খান। উঠে পড়ুন। সাতটা বেজে গেছে।

তার হাত থেকে চায়ের কাপ-প্লেট নিয়ে বললুম–মাসি। কাল রাতে ভূতের উৎপাত হয়নি তো?

না বাবা। আগের রাত্তিরে আমার গালমন্দ শুনে আর এই কালোকুচ্ছিত চেহারা দেখে ভূত পালিয়ে বেঁচেছে।

বলে চিমনিমাসি হাসতে হাসতে পর্দা তুলে বেরিয়ে গেল। বেড-টি খাওয়ার পর বাথরুমে প্রাতঃকৃত্য সেরে এবং দাড়িগোঁফ কামিয়ে ফিটফাট হয়ে ব্যালকনিতে, একটা চেয়ার নিয়ে বসলুম। আজও ঘন কুয়াশায় ঢাকা ভৈরবগড়।

যখন কর্নেল ফিরলেন, তখন প্রায় নটা বাজে। তাঁর সঙ্গে রায়সায়েব আর গোয়েন্দাপ্রবর ছিলেন। কর্নেল যথারীতি আমাকে সম্ভাষণ করে বললেন, মর্নিং জয়ন্ত। আশা করি সুনিদ্রা হয়েছে।

মর্নিং বস্!

কর্নেল হেসে ফেললেন।–তোমার এই নতুন বদঅভ্যাসটি কলকাতা পুলিশের ডিসি ডিডি অরিজিৎ লাহিড়ির কাছ থেকে পাওয়া।

হালদারমশাই তার মোটাসোটা ব্যাগটি আমার ব্যাগের উপর চাপিয়ে রেখে বললেন–আজই কর্নেলস্যারের সঙ্গে বারাইলে একখানা সারপ্রাইজ পাইতেন জয়ন্তবাবু!

কর্নেল পিঠের কিটব্যাগ, গলায় ঝোলানো বাইনোকুলার আর ক্যামেরা টেবিলে রেখে বাথরুমে ঢুকলেন। জিগ্যেস করলুমকী সারপ্রাইজ হালদারমশাই?

কর্নেল ডিটেকটিভ আমার পাশে বসে চাপাস্বরে বললেন–দুই পাটি স্যান্ডেল। একখানা আস্ত। অইন্যখানের স্ট্র্যাপ ঘেঁড়া। দুইখানে জুতাজোড়া ছিটকাইয়া পড়ছিল। কর্নেলের লগে আমি আর রায়সায়েব অনেক সার্চ কইর‍্যা ডিসকভার করছি। আমি আস্ত স্যান্ডেলখানা আর কর্নেল স্ট্র্যাপছেঁড়া স্যান্ডেলখানা দুইখানে ঘন ঝোঁপের তলা থেক্যা–ওঃ! শিশিরে আর শুকন্যা পাতায় কী অবস্থা হইছিল কহন যায় না।

–কিন্তু জুতো দুটো পেলেন কোথায় তা-ই বলুন।

–যেখানে সন্দীপ মার্ডার হইছিল, তার উত্তর দিকের জঙ্গলে। সন্দীপরে গুলি  কইর‍্যা খুনি পলাইতেছিল। তখন একপাটি স্যান্ডেলের স্ট্র্যাপ ছিঁড়ে যায়। তাই দুই পাটিই খুনি ফ্যালাইয়া দিছিল।

অবাক হয়ে শুনছিলাম আর প্রশ্ন করছিলুম। কিন্তু একটু পরেই টের পেলুম, জমিদার বাড়ির কেতোকার্তিক হাজরাকে সেখানে দাঁড়িয়ে সিগারেট খেতে দেখেছিলেন মল্লিকার দাদা সুরঞ্জনবাবু। তা হলে সে-ই কি গুলি করে সন্দীপকে খুন করার পর পালাতে গিয়ে একটা স্যান্ডেলের স্ট্র্যাপ ছিঁড়ে যাওয়ার জন্য দুটো স্যান্ডেলই ছুঁড়ে ফেলেছিল?

হালদারমশাই আমার দিকে গুলিগুলি চোখে তাকিয়ে আবার বললেন–অতগুলি সিগারেট সে একদিনে খায় নাই। কর্নেলস্যার পরীক্ষা করছেন। খুনি যখনই টাইম পাইত, তখনই ওখানে গিয়া জুতাজোড়া খুঁজত। ক্যান? না–জুতাজোড়া তারে ধরাইয়া দিতে পারে!

জিগ্যেস করলুম-এবার কর্নেল কি রায়সায়েবকে আপনার পরিচয় দিয়েছেন?

গোয়েন্দাপ্রবর হাসলেন।–হঃ! ওদিকে এক কাণ্ড, গত রাত্রে আমার ক্লায়েন্ট ফোন করছিলেন। আইজ মর্নিংয়ের ট্রেনে উনি ভৈরবগড় আইবেন। একখানা রুম যেন বুক কইর‍্যা রাখি। ভোর ছয়টায় কর্নেলস্যার আর রায়বাবু আমার কাছে গিছলেন। রায়সায়েবের পরামর্শে আমি আমার রুম থেক্যা চেকআউট করলাম। সেই রুম বুক করলাম আমার ক্লায়েন্ট অজয় সাধুখাঁর নামে।

-উনি তো ট্যুরিস্ট লজে পৌঁছে আপনাকে দেখতে পাবেন না।

–ম্যানেজার বাবুরে কইয়া আইছি, অজয়বাবু য্যান রায়সায়েবেরে ফোন করেন। রায়সায়েব তার ফোন নম্বর দিছেন।

এতক্ষণে কর্নেল পোশাক বদলে বেরিয়ে বললেন–হালদারমশাই! বাথরুমে গিয়ে পোশাক বদলে আসুন। ব্রেকফাস্ট খেয়েই আমরা বেরুব। জয়ন্ত তুমিও পোশাক বদলে নেবে কিন্তু….

কিছুক্ষণ পরে গোবিন্দ এসে বলল–সায়েব বললেন, ব্রেকফাস্ট রেডি। আপনারা আসুন।….।

ব্রেকফাস্টের পর কর্নেলের নির্দেশে আমি ও হালদারমশাই নীচের লনে গেলুম। তার একটু পরে কর্নেল ও রায়সায়েব এলেন। কর্নেলকে গম্ভীর দেখাচ্ছিল। তাই আমরা এখন কোথায় যাচ্ছি, সে-প্রশ্ন করতে সাহস পাইনি। রায়সায়েব গ্যারাজ থেকে গাড়ি বের করে আনলেন। কর্নেল সামনে বসলেন। আমি ও হালদারমশাই পিছনে বসলুম। রায়সায়েব গাড়ি স্টার্ট দিলেন। গোবিন্দ গেট খুলে দিল।

বড়োরাস্তায় পৌঁছে দেখি, কমলিকা দাঁড়িয়ে আছে। রায়সায়েব গাড়ি দাঁড় করালে সে পিছনের সিটে উঠে বসল। তার পর বলল–জেই! আমরা এখন কোথায় যাচ্ছি?

রায়সায়েব একটু হেসে বললেন–লালুবাবুকে উদ্ধার করতে। কিন্তু এর পর আর কোনো কথা নয়।

গাড়ি বড়োবাজার হয়ে উত্তরে এগোল। তারপর আঁকাবাঁকা গলিপথে চড়াই-উতরাই দিয়ে মিনিট দশেক পরে একখানে থামল। কর্নেল গাড়ি থেকে নেমে এতক্ষণে হাসিমুখে বললেন–পুলিশ বাড়িটা ঘিরে রেখেছে। লালুবাবু পালাতে পারেনি। জয়ন্ত! তোমরা সবাই এসো। কমলিকাও এসো। লালুবাবুকে স্বচক্ষে দেখতে পাবে।

সংকীর্ণ গলির মোড়ে একটা একতলা জরাজীর্ণ ইটের বাড়ি। সেই বাড়ির দরজার একজন পুলিশ অফিসার দাঁড়িয়ে ছিলেন। বাড়িতে ঢোকার আগেই রাস্তার উপর ইতস্তত লোকজন পুতুলের মতো দাঁড়িয়ে আছে দেখেছিলুম। পুলিশের একটা প্রিজনভ্যানও দাঁড়িয়ে ছিল।

পুলিশ অফিসারকে দেখেই চিনলুম। সন্দীপহত্যা কেসের আই ও রথীন্দ্র শর্মা। তার সঙ্গে বাড়িটাতে ঢুকেই চমকে উঠলুম। বারান্দায় একটা চেয়ারে বসে আছেন প্রবোধ সিনহা! তিনি কর্নেলকে দেখেই কান্নাজড়ানো গলায় বলে উঠলেন–হরিমাধব ভটচাযের বোন আমার মেয়ের বিয়েতে ঘটকালি করেছিল। তাই তার কাছে কৈফিয়ত চাইতে এসেছিলুম, কেন একটা মাতালের সঙ্গে জেনেশুনে সুমিত্রার বিয়ে দিতে চেয়েছিলে তুমি? আমার মেয়ের বৈধব্যের জন্য তুমিই দায়ী। কিন্তু আচমকা পুলিশ এসে–

তাকে থামিয়ে কর্নেল বললেন–পরে যা বলার বলবেন। আশালতা দেবী! সন্দীপ গোপনে আপনার কাছে যে প্যাকেটটা লুকিয়ে রেখেছিল, সেটা নিয়ে আসুন।

মেঝেয় বসে ছিলেন এক প্রৌঢ়া। পরনে সাদা থান। তিনি নিঃশব্দে কাঁদছিলেন। কর্নেলের কথায় তিনি চোখ মুছে বললেন–আমি কোনো দোষ করিনি বাবারা। সন্দীপ যা রাখতে দিয়েছিল, তা কথায়-কথায় মুখ ফসকে সুমিত্রাকে বলে ফেলেছিলুম। সুমিত্রার বাবা মেয়ের মুখ থেকে তা জেনে আমার কাছে চাইতে এসেছেন। পাঁচশো টাকা দিতে চাইছিলেন। আমি তা নিইনি।

কর্নেল বললেন–আপনার কোনো দোষ নেই। এবার প্যাকেটটা নিয়ে আসুন।

আশালতা ঘরে ঢুকে গেলেন। একটু পরে তিনি খবরের কাগজে মোড়া একটা প্যাকেট বের করলেন। প্যাকেট খুলতেই রোদ ঝলমল করে উঠল লালরঙের। রত্নখচিত সোনার একটা হার। কর্নেল একটু হেসে বললেন–কমলিকা! এই সেই লালুবাবু। বারোটা লাল রুবি বসানো আছে এই সোনার জড়োয়া হারে। রুবিকে বলা হয় পদ্মরাগমণি। তাই জয়গোপালবাবুর ঠাকুর্দা এর সাংকেতিক নাম রেখেছিলেন লালুবাবু।

এতক্ষণে বাড়িটার উত্তরে ভাঙা পাঁচিল দিয়ে একটা পুকুর এবং তার ওধারে দোতলা জমিদারবাড়িটা চিনতে পারলুম। পুলিশ অফিসার রথীন্দ্র শর্মা বললেন–কর্নেল সায়েব! এই ভদ্রলোককে এবার আমরা অ্যারেস্ট করছি। ইনি চোরাই রত্ন কিনতে এসেছিলেন।

দুজন কনস্টেবল বারান্দায় উঠে গেল। প্রবোধ সিনহা তখনই বদলে গিয়ে স্মার্ট হয়ে উঠলেন। তিনি ব্রিফকেসটি হাতে নিয়ে বললেন–আমার গায়ে হাত দেবেন না। চলুন, যেখানে নিয়ে যাবেন, আমি যাচ্ছি।

কনস্টেবলরা তাঁকে নিয়ে যাবার একটু পরে জয়গোপাল মজুমদার হন্তদন্ত হয়ে বাড়িতে ঢুকলেন। তার পর কর্নেলের হাতের প্যাকেট দেখে প্রায় চেঁচিয়ে উঠলেন–ওই তো আমার পূর্বপুরুষের হারানিধি লালুবাবু! আজ শেষ রাত্রে কেতোকে পুলিশ ধরে নিয়ে যাবার পরই সন্দেহ হয়েছিল, কাল দুপুরে কেন কেতো আশা বামনীকে রিভলভার দেখিয়ে শাসাচ্ছিল।

কর্নেল বললেন–আপনার ছেলে সন্দীপ কি জানত কোথায় আপনি লালুবাবুকে লুকিয়ে রাখেন?

–জানবে না কেন? যে-কোনো সময় আমার মৃত্যু হতে পারে। তাই তাকে আমার ঘরের দেওয়ালে আঁটা আয়রনচেস্টে লালুবাবুকে রাখার কথা বলেছিলুম। আয়রনচেস্টের একটা ডুপ্লিকেট চাবিও তাকে দিয়েছিলুম।

কর্নেল বললেন–সন্দীপ কারও কুপরামর্শে গোপনে এটা আয়রনচেস্ট থেকে বের করে নিজের ঘরে রাখতে সাহস পায়নি। কারণ দৈবাৎ তার স্ত্রী সুমিত্রার চোখে এটা পড়তে পারে। তাই সে আশালতা দেবীর কাছে গোপনে এটা রাখতে দিয়েছিল।

–কিন্তু কেতো কী করে জানল—

তাকে থামিয়ে দিয়ে কর্নেল বললেন–আপনিই বলেছেন সন্দীপ মাতাল অবস্থায় ক্লাবে পড়ে থাকলে খবর পেয়ে কার্তিক তাকে বাড়ি নিয়ে আসত। কার্তিক ধূর্ত লোক। মত্ত সন্দীপের মুখ থেকে লালুবাবুকে চুরি করার কথা তার জানা অসম্ভব নয়। তাই সে গত সোমবার বিকেলে সন্দীপ আর সুমিত্রাকে গোপনে অনুসরণ করে ঝর্নার জলার ধারে ছুটে গিয়েছিল। শর্টকাটে মাঠের পথে গেলে ওই জায়গার দূরত্ব মোটে এক কিলোমিটার।

পুলিশ সাবইন্সপেক্টর রথীন্দ্র শর্মা বললেন–কর্নেল সায়েব! চলুন। এবার থানায় যাওয়া যাক।

-হ্যাঁ, চলুন। লালুবাবু আমার কাছে থাক। থানায় গিয়ে মি. দুবের হাতে তুলে দেব।

জয়গোপালবাবু আর্তস্বরে বললেন–ওটা আমি ফেরত পাব না?

–অবশ্যই পাবেন। আপনি আপনার গাড়িতে চেপে থানায় চলে যান।

–আমার ড্রাইভার তো কেতো। তাকে রিভলভারসুদ্ধ পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে।

রায়সায়েব বললেন–হিন্দুস্থান অটোমোবাইলে ফোন করলে আপনি এখনই ড্রাইভার পেয়ে যাবেন।

জয়গোপালবাবু খিড়কির দরজা দিয়ে পুকুরপাড়ে গেলেন। তারপর দেখলুম, তিনি টাট্ট ঘোড়ার মতো তাঁর বাড়ির দিকে এগিয়ে চলেছেন।

রথীন্দ্র শর্মা আশালতা দেবীকে বললেন–আপনাকে থানায় যেতে হবে। ঘরের দরজায় তালা দিয়ে তৈরি হোন। আমি আপনাকে আমার গাড়িতে নিয়ে যাব।

কর্নেল বললেন–তা হলে আমরা এগোচ্ছি। রথীন্দ্রবাবু ওঁকে নিয়ে আসুন।

আমরা বেরিয়ে গিয়ে রায়সায়েবের গাড়িতে উঠে বসলুম। গাড়ি স্টার্ট দিয়ে রায়সায়েব হাসতে হাসতে বললেন–কুমু! তা হলে লালুবাবু-কে দেখলি তো?

কমলিকা বলল–হ্যাঁ। কিন্তু আমার নিজের উপর ভীষণ রাগ হচ্ছে।

–কেন রে?

–আমি ওই বাড়ির বউ ছিলুম একসময়। লালুবাবু-কে ঝুলন পূর্ণিমার দিন। রাধাবল্লভের গলার ঝুলতে দেখেছি। অথচ আমার একটুও মনে ছিল না, লালুবাবু কে?

কর্নেল বললেন–মানুষ তার সব তিক্ত স্মৃতিকে অবচেতনার গভীরে পাঠিয়ে দেয়।

রায়সায়েব বললেন–মনস্তত্ত্ব থাক। কমলিকার বোঝা উচিত ছিল লালুবাবুকে ফেরত চাওয়া মানে কোনও মানুষকে ফেরত চাওয়া নয়। কোনো জিনিস ফেরত চাওয়া।

কমলিকা বলল–জেঠু! এই কথাটা আপনি যদি জানতেন, কেন তা আমাকে খুলে বলেননি?

তুই তো শুধু টেনিস ছাড়া আর কিছু বুঝিস না। তবে হাতোকে খুলে বলিনি, তার কারণ–তা হলে তুই আরো বেশি ভয় পেতিস।

আমি ডাকলুম-কর্নেল!

কর্নেল চুরুট ধরিয়ে টানছিলেন। বললেন–বলো জয়ন্ত।

–গত রাত্রে তা হলে আপনি থানায় মি. দুবেকে ফোন করে কার্তিক হাজরাকে অ্যারেস্ট করতে বলেছিলেন?

–তা কি এখনও তোমার মাথায় ঢোকেনি? ওঃ জয়ন্ত! তুমি না সাংবাদিক?

মনে মনে খাপ্পা হয়ে চুপ করে থাকলুম। গোয়েন্দাপ্রবর বললেন–সাংবাদিকরা সবকিছু না জাইন্যা কিংবা না দেইখ্যা খবর লেখে না। ফর ইওর ইনফরমেশন জয়ন্তবাবু, কার্তিকের ঘরে পুলিশ পয়েন্ট বাইশ ক্যালিবারের রিভলবার পাইছে। আর যে ব্র্যান্ডের সিগারেটের প্যাকেট উদ্ধার তারা করছে, তার সাথে জলার ধারে কুড়াইয়া আনা পোড়া সিগারেটের ফিল্টারটিপস্ এক্কেরে এক।

কর্নেল বললেন–হালদারমশাই! এই কেস সেশন আদালতে যাবে। আপনার ক্লায়েন্টের ছেলে অশোক মুক্তি পাবে। আপনি থানায় গিয়ে আপনার ক্লায়েন্ট অজয় সাধুখাঁকে বলবেন, কনট্র্যাক্ট অনুসারে পুরো টাকা আপনার প্রাপ্য।

গোয়েন্দাপ্রবর খি খি করে হেসে বললেন–পুরা ফি ছাড়ুম ক্যান?

রায়সায়েব বললেন–কেতো ভেবেছিল সন্দীপকে সুযোগমতো গুলি করে মেরে তার ঘর খুঁজে লালুবাবুকে হস্তগত করবে। সন্দীপ তার স্ত্রীকে নিয়ে বেরিয়ে কোথায় যাচ্ছে, সে তা নিশ্চয় লক্ষ করেছিল। অশোকের সঙ্গে সন্দীপের ধস্তাধস্তি তাকে গুলি করার সুযোগ দিয়েছিল। কেতো হারামজাদা ভেবেছিল, এই খুনের দায়িত্ব অশোকের ঘাড়ে পড়বে। পড়েও ছিল। কিন্তু নির্বোধ এ কথাটা জানে না সন্দীপের পিঠে গুলি অশোকই করেছে বলে পুলিশ মনে করলেও আধুনিক যুগে ব্যালাস্টিক মিসাইল এক্সপার্টরা আছেন। ফোরেন্সিক এক্সপার্টরা আছেন। যে লালুবাবুকে তুই খেতে চাস, সে-ই তোকে খাবে, খেলও বটে।

আমাদের গাড়ি থানার গেটে গিয়ে থামল।…..

বুকমার্ক করে রাখুন 0