অবগুণ্ঠিতা – পরিচ্ছেদ ৮

০৮.

তালুকদারের মুখের দিকে চেয়ে সুব্রত বললে, অশোকবাবুকে আর একবার ডাকা দরকার!

তালুকদার অশোকবাবুকে ডাকবার জন্য আর একজনকে পাঠিয়ে দিল।

কিরীটী ততক্ষণে উঠে দাঁড়িয়েছে। সুব্রতর মুখের দিকে তাকিয়ে কিরীটী বললে, আমি তাহলে চললাম সু। সন্ধ্যার দিকে একবার আসিস। যদি নতুন কোন কিছু এর মধ্যে জানতে পারিস—তাছাড়া তোর সঙ্গে এ কেসটা সম্পর্কে আলোচনাও করা যাবে।

বেশ যাব’খন।

একজন পুলিস এসে সংবাদ দিল, মর্গের গাড়ি এসেছে মৃতদেহ নিয়ে যেতে। সুব্রত বললে, তাদের বল উপরে এসে মৃতদেহ নিয়ে যেতে।

অশোক এসে ঘরে প্রবেশ করল, আমাকে ডেকেছেন সুব্রতবাবু?

হ্যাঁ, বসুন। আপনাকে আর কয়েকটা কথা জিজ্ঞাসা করতে চাই।

অশোক সুব্রতর নির্দেশমত চেয়ারের উপরে উপবেশন করল।

কিরীটী ঘর থেকে নিষ্ক্রান্ত হয়ে গেল।

সুব্রত অশোকের দিকে তাকিয়ে পকেট থেকে অশোকের ঘরে ল্যাবরেটারির টেবিলে প্রাপ্ত সিরিঞ্জটা বের করে বললে, এই সিরিঞ্জটা চিনতে পারেন অশোকবাবু? এটা আপনার ঘরে

ল্যাবরেটারির টেবিলের ওপরে আজ সকালে পাওয়া গেছে!

সুব্রতর প্রশ্নে সিরিঞ্জটার প্রতি দৃষ্টিপাত করবার সঙ্গে সঙ্গেই যেন অশোকের মুখখানা সহসা ফ্যাকাসে হয়ে গেল। চোখের তারায় একটা ভীতিবিহুল দৃষ্টি। সে ফ্যালফ্যাল করে সুব্রতর হস্তধৃত সিরিঞ্জটার প্রতি তাকিয়ে রইল শুধু। একটি কথাও তার মুখ দিয়ে বের হল না।

সুব্রত তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে অশোকের মুখের দিকে তাকিয়ে আবার প্রশ্ন করল, সিরিঞ্জটা আপনার?

হ্যাঁ। মানে…কো-কোথায় পেলেন ওটা?

বললাম তো আপনার ঘরে ল্যাবরেটারির টেবিলে! সিরিঞ্জটা দেখলে মনে হয় কিনা যে, আপনি recently কাউকে injection দিয়েছিলেন? কি, চুপ করে আছেন কেন? জবাব দিন?

সুব্রতবাবু! অশোকের কণ্ঠস্বর যেন সহসা কেঁপে উঠল। আমি গতকাল রাত্রি এগারোটার সময় মামাবাবুকে একটা antititenus injection দিয়েছিলাম।

কিন্তু এ কথাটা তো আপনার জবানবন্দীতে আপনি বলেন নি?

না—মানে আমি ভুলে গিয়েছিলাম।

ভুলে গিয়েছিলেন। আশ্চর্য! কিন্তু হঠাৎ antititenus injection বা দিতে গেলেন কেন?

কাল বিকেলে মামাবাবু গাড়ি থেকে নামবার সময় হঠাৎ ফুটবোর্ড থেকে পা slip করে পড়ে যান ও হাঁটুটা ছড়ে যায়। রাস্তার ধুলোবালি লেগেছিল। তাই মামাবাবু যখন বাড়ি ফিরে আসেন, আমাকে সেকথা বলেছিলেন। আমি তাকে একটা antititenus injection-এর কথা বলি। তাতে তিনি রাজি হন এবং বলেন, আমার কাছে ঐ injection আছে কিনা? আমি বলি, নেই। তাতে তিনি বলেন, তাঁর শরীরটা খারাপ। রাত্রি এগারোটায় শোবেন। বেশী রাত্রি জাগবেন না। আমি যেন তাকে তার শোবার আগে রাত্রি এগারোটায় গিয়ে injection দিয়ে আসি। আমি চাকর পাঠিয়ে রাস্তার ধারে ঘোষ ফার্মেসী থেকে ঐ injection কিনে নিয়ে আসি এবং রাত্রি এগারোটায় গিয়ে তাকে injection দিয়ে আসি। কিন্তু আমি সিরিঞ্জ-এ অতবড় needle ব্যবহার করিনি। আর সিরিঞ্জ এ রক্তও ছিল না!

সিরিঞ্জটা injection দেবার পর কোথায় রেখেছিলেন?

আমার ড্রয়ারে। তাও ভাল করে পরিষ্কার করে ধুয়ে alcohol দিয়ে।

হুঁ। তাহলে রাত্রি এগারোটার সময়ও আপনি আপনার মামাবাবুকে জীবিত দেখেছিলেন? কিন্তু এ কথাগুলো কেন আপনি গোপন করেছিলেন? কেন আপনি বলেছিলেন যে, কাল রাত্রে মামাবাবুর সঙ্গে আপনার দেখা হয়নি?

সুব্রতর কঠিন প্রশ্নে অশোক যেন কান্নায় একেবারে ভেঙে পড়ল। অশ্রুভরা কণ্ঠে বললে, কিন্তু সুব্রতবাবু, জানি না আপনি আমাকে বিশ্বাস করেন কিনা সত্যি আমি আমার মামার কোন

অনিষ্টই করিনি। তাকে আমি হত্যা করিনি, হত্যা করিনি। দুহাতে অশোক মুখ ঢাকল।

কিন্তু যতক্ষণ না বলছেন কেন আপনি এ কথাগুলো গোপন করেছিলেন, ততক্ষণ আপনার উপরে সন্দেহ কিছুতেই যাবে না।

আঁ…আ…আপনি কি তবে সন্দেহ করেন যে আমিই মামাবাবুকে খুন করেছি? বিশ্বাস করুন সুব্রতবাবু, যখন জানতে পারলাম যে, মামাবাবু খুন হয়েছেন, তখন কেমন একটা অজানিত আশঙ্কায় ঘাবড়ে গিয়ে ঐ কথাটা গোপন করেছিলাম। অন্য কোন কারণ নেই। আমি ভগবানের নামে শপথ করে বলতে পারি।

কে আপনার ইনজেকশন্টা এনে দিয়েছিল?

গোপাল।

আচ্ছা আপনি এখন যেতে পারেন।

অশোক মুহ্যমানের মত মাথাটা নীচু করে টলতে টলতে ঘর থেকে নিষ্ক্রান্ত হয়ে গেল।

তারপর গোপালের ডাক পড়ল। গোপাল এসে ঘরে ঢুকল।

গোপালের বয়স ষোল থেকে সতেরোর মধ্যে। নিকষ কালো গায়ের রং। রোগা, লম্বাটে। চেহারা। মুখের প্রতি দৃষ্টিপাত করলেই যেন মনে হয়, অত্যন্ত নিরীহ গোবেচারী গোছের মানুষ।

সুব্রত গোপালের মুখের দিকে চেয়ে বললে, তোর নাম কি?

আজ্ঞে বাবু, আমি আমার পিসির গোপাল। হেই বাবু, আমি কিছু জানি না। আমি কিছু করিনি…আমায় ধরো না গো!…গোপাল কাঁদতে শুরু করলে, তোমার দুটি পায়ে পড়ি বাবু, আমি কিছু জানি না কিছু দেখিনি…আমায় ছেড়ে দাও। :

সুব্রত গোপালকে এক প্রচণ্ড ধমক দিয়ে উঠল, থাম ছোঁড়া! কাদবি তো এখুনি থানায় পাঠিয়ে দেব। যা জিজ্ঞাসা করি তার জবাব দে!

গোপাল ফুলে ফুলে কাঁদতে লাগল।

কাল রাত্রে তুই ডাক্তারখানা থেকে অশোকবাবুকে ঔষধ এনে দিয়েছিলি? হ্যাঁ। বাবু বললে.. তুই কোন ঘরে শুস্? আজ্ঞে নীচে চাকরদের ঘরে। কটার সময় কাল রাত্রে শুয়েছিলি?

আজ্ঞে ঔষধটা এনে দিয়েই শুতে চলে গিয়েছিলাম। তারপর অনেক রাত্রে অশোকবাবু আবার ডাকলে, তার এঁটো থালাবাসন নিয়ে আসি।

তারপর আর ঘর থেকে বের হোসনি?

হ্যাঁ..না…

সত্যি কথা বল্ বেটা! সুব্রত আবার ধমক দিলে।

হ্যাঁ, রাত্রে আমার ঘুম ভেঙে গিয়েছিল, তখন একবার বাইরে গিয়েছিলাম—

তারপর?

তখন মিথ্যে বলব না, মনে হল কে যেন সিঁড়ি দিয়ে নেমে আসছে। লোকটাকে চিনতে পারিনি। আমাকে নীচের উঠানে দেখেই লোকটা আবার হট্‌ করে সিঁড়ি দিয়ে উঠে চলে গেল। আমিও লোকটার পিছু পিছু সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠলাম। কিন্তু উপরে উঠে আর কাউকেই দেখতে পেলাম না। আমার বড় ভয় করতে লাগল। তাড়াতাড়ি এসে বিছানায় শুয়ে পড়লাম।

লোকটাকে তুই চিনতে পারিসনি, সত্যি বলছিস্?

সত্যি।

লোকটা লম্বা না বেঁটে?

আজ্ঞে লম্বা।

আচ্ছা তুই যা!

গোপাল কাঁপতে কাঁপতে ঘর থেকে বের হয়ে গেল।

সুব্রত তখন অন্য চাকরদের ও দারোয়ান, ড্রাইভার সকলকে একে একে ডেকে প্রশ্ন করতে লাগল।

কিন্তু কারও কাছে আর তেমন বিশেষ কোন সন্ধান বা সূত্র পাওয়া গেল না।

কিরীটী যখন সিঁড়ি দিয়ে নেমে নীচে বাইরের ঘরে এল, দেখলে বাইরের ঘরে একটা সোফায় মাথায় হাত দিয়ে নিঝুম ভাবে বসে আছে বিনয়ে। কিরীটী নিঃশব্দে বিনয়েন্দ্রের সামনে এসে দাঁড়াল, বিনয়! বিনয়ে চমকে মুখ তুলল। তুমি নিশ্চিন্ত থাকতে পার বিনয়। এ রহস্যের কিনারা আমি করবই!

বিনয়ে অশ্রুভরা কণ্ঠে বললেন, আমার দাদা দেবতার মত, ঋষির মত দাদা। আমি তো ভাবতেই পারছি না কিরীটী, কে এই সর্বনাশ আমাদের করতে পারে?

কাউকেই তোমার সন্দেহ হয় না, বিনয়?

না।

কিরীটী কিছুক্ষণ চুপ করে রইল। তারপর হঠাৎ মৃদু চাপা সুরে বললে, মনে হচ্ছে ব্যাপারটা খুব জটিল নয়।

কিছু বুঝতে পারলে ভাই?

পেরেছি বই কি। খুনীকে মনে হচ্ছে হয়তো বুঝতে পেরেছি। তবে motive যেন এখনও তেমন strong বলে মনে হচ্ছে না।

তুমি জান? জান কে খুনী? উদ্বেগাকুল কণ্ঠে বিনয়ে প্রশ্ন করলেন।

কিরীটী অদ্ভুত একপ্রকার হাসি হাসতে হাসতে বললে, জানি বৈকি!

বুকমার্ক করে রাখুন 0